আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

গুই সাপকে ধর্ষণের অভিযোগ: গ্রেফতার ৪

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৯ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৯ এপ্রিল ২০২২ | ১৯৭৫জন দেখেছেন
আব্দুল্লাহ আল মামুন

Image

ভারতের পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ মহারাষ্ট্রের গোথানে গ্রামের কাছের এক গহীন জঙ্গলে বিশেষ প্রজাতির একটি গুই সাপকে (বেঙ্গল মনিটর লিজার্ড) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। ওই জঙ্গলের একমাত্র গুই সাপটিকে ধর্ষণের পর রান্না করে খাওয়ার অভিযোগ ইতিমধ্যে চার জনকে গ্রেফতার করেছে মহারাষ্ট্র পুলিশ।

মহারাষ্ট্রের সহিদারি টাইগার রিজার্ভে এই ঘটনা দেশটিতে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে। প্রায় সাড়ে ৪ ফুট দীর্ঘকায় এই সাপটির সঙ্গে যৌনাচারে অভিযুক্ত চারজন হলেন, সন্দীপ তুকারাম, পাওয়ার মঙ্গেশ, জনার্দন কামটেকার এবং অক্ষয় সুনীল।

প্রদেশের বন অধিদফতরের কর্মকর্তারা বলেছেন, অবৈধভাবে ওই চার ব্যক্তি বনে ঢুকে শিকার করছিলেন। পরে তাদের ফোন তল্লাশি করে দেখা যায়, চারজন মিলে বনের একমাত্র বেঙ্গল মনিটর লিজার্ডটিকে ধর্ষণ করেছেন। অভিযুক্তদের ফোনে এই ধর্ষণের ভিডিও রয়েছে।

জঙ্গলের বিভিন্ন জায়গায় থাকা সিসিটিভি ফুটেজে প্রাথমিকভাবে সাপটিকে ধর্ষণের ঘটনা ধরা পড়ে। পরে সেই ফুটেজ দেখে শনাক্ত করার পর অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে পুলিশ।

এই ঘটনার তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ জানতে পারে অভিযুক্ত চারজন আসলে চোরাশিকারী। শিকারের উদ্দেশ্যে জঙ্গলে যান তারা। বিভিন্ন ধরনের পশুপাখি শিকার করেন এবং সেসবের ছবিও পাওয়া গেছে তাদের ফোনে।

ভারতের বন্যপ্রাণী সুরক্ষা আইন-১৯৭২ অনুযায়ী, বেঙ্গল মনিটর লিজার্ড মহারাষ্ট্রের ওই জঙ্গলের সংরক্ষিত একটি প্রাণী। অভিযোগ প্রমাণিত হলে ওই চারজনের ৭ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে। এর পাশাপাশি চোরাশিকারের অভিযোগ প্রমাণিত হলে পৃথক সাজাও হতে পারে তাদের।

অভিযুক্ত চারজনকে গত ১ থেকে ৫ এপ্রিলের মধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে। মহারাষ্ট্রের বন বিভাগের কর্মকর্তারা অভিযুক্তদের ফোনে গুই সাপটিকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর হত্যা ও রান্না করে খাওয়ার ছবি এবং ভিডিও পেয়েছেন।

বন বিভাগের কর্মকর্তা বিশাল মালি বলেছেন, এমন অপরাধ আমি কখনও দেখিনি। অভিযুক্তদের সবার বয়স ২০ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে। তারা মজা করার জন্য এটি করেছে বলে মনে হচ্ছে। এতে ধর্মীয় অথবা কালো জাদুর মতো কোনো বিষয় ছিল না।

দেশটির বন্যপ্রাণী সুরক্ষা আইন-১৯৭২ এর আওতায় তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনা করা হয়েছে। 

নিউজ ট্যাগ: ধর্ষণের অভিযোগ

আরও খবর



মালয়েশিয়ায় এক বছরের সর্বনিম্নে পাম অয়েলের মজুদ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৮ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ এপ্রিল ২০২২ | ৫০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গত মাসে মালয়েশিয়ায় পাম অয়েলের মজুদ কমে এক বছরের সর্বনিম্নে নেমেছে। এ নিয়ে টানা পাঁচ মাসের মতো মজুদ কমল। মূলত প্রত্যাশার চেয়ে বেশি মাত্রায় রফতানি বৃদ্ধি এবং আমদানি কমে যাওয়ার কারণে মজুদ নিম্নমুখী হয়ে পড়ে। এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে মালয়েশিয়ান পাম অয়েল বোর্ড (এমপিওবি)।

এমপিওবির দেয়া তথ্যানুযায়ী, বিশ্বের দ্বিতীয় শীর্ষ পাম অয়েল উৎপাদক দেশটিতে গত মাসে পণ্যটির মজুদ ২ দশমিক ৯৯ শতাংশ কমেছে। মজুদের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৪ লাখ ৭০ হাজার টনে। ২০২১ সালের মার্চের এর এটিই সর্বনিম্ন মজুদ।

সিঙ্গাপুরভিত্তিক পাম অয়েল অ্যানালিটিকসের সহপ্রতিষ্ঠাতা সাথিয়া ভারকা বলেন, সর্বোপরি চাহিদা সরবরাহের তুলনায় তিন গুণ বেশি গতিতে বেড়েছে, যা মজুদ কমে যাওয়ার পেছনে বড় ভূমিকা রেখেছে।

এদিকে গত বছরের অক্টোবরের পর গত মাসে প্রথম অপরিশোধিত পাম অয়েলের উৎপাদন বাড়ে। অনুকূল আবহাওয়া এতে সহায়তা করেছে। উৎপাদন প্রত্যাশাকে ছাড়িয়ে ২৪ শতাংশ বেড়েছে। উৎপাদনের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৪ লাখ ১০ হাজার টনে। অন্যদিকে রফতানি ১৪ দশমিক ১ শতাংশ বেড়ে ১২ লাখ ৭০ হাজার টনে উন্নীত হয়েছে, যা তিন মাসের সর্বোচ্চ। মূলত ক্রেতারা ইউক্রেন থেকে সূর্যমুখী তেল কিনতে না পারায় মালয়েশিয়ান পাম অয়েলের দিকে ঝুঁকেছে। এ কারণে পণ্যটির ব্যাপক চাহিদা তৈরি হয়। দেশটির পাম অয়েল আমদানি ৪৩ শতাংশ কমেছে। মার্চে আমদানির পরিমাণ দাঁড়ায় ৮৪ হাজার ৮৭১ টনে।

নিউজ ট্যাগ: পাম অয়েল

আরও খবর



কৃষ্ণ সাগরে রাশিয়ার দুই জাহাজে ইউক্রেনের ড্রোন হামলা

প্রকাশিত:সোমবার ০২ মে 2০২2 | হালনাগাদ:সোমবার ০২ মে 2০২2 | ৬০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইউক্রেনের সেনাবাহিনী প্রধান জানিয়েছেন, ড্রোন হামলা চালিয়ে কৃষ্ণ সাগরে রাশিয়ার দুটি টহল জাহাজ ধ্বংস করেছে ইউক্রেনীয় বাহিনী।

সেনাপ্রধান চিফ অব জেনারেল স্টাফ ভেলারি জুলুঝিনি এমন দাবি করে বলেন, রাশিয়ার দুটি র‌্যাপ্টোর ক্লাস জাহাজ আজ (সোমবার) ভোরে স্ন্যাক আইল্যান্ডের কাছে ধ্বংস করা হয়েছে। এই ড্রোন হামলার একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনী। তবে ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করতে পারেনি গণমাধ্যমগুলো।

ইউক্রেনের প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা যায়, কৃষ্ণ সাগরে টহলরত রাশিয়ার দুটি টহল জাহাজ লক্ষ্য করে আকাশ থেকে হামলা চালানো হচ্ছে। এই হামলায় ড্রোনের মাধ্যমে মিসাইল ছুড়তে দেখা যায়।এদিকে ইউক্রেনের হামলায় নিজেদের জাহাজ ধ্বংস হওয়ার বিষয়টি নিয়ে এখনো কোনো কিছু জানায়নি রাশিয়া।

এর আগে ইউক্রেনের ছোড়া নেপচুন মিসাইলে রাশিয়ার বিশাল যুদ্ধ জাহাজ মস্কভা কৃষ্ণ সাগরের অতল গভীরে তলিয়ে গিয়েছিল। যদিও রাশিয়ার পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল জাহাজে আগুন লাগে। এরফলে সেখানে বিস্ফোরণ হয়ে জাহাজটি ক্ষতিগস্ত হয়ে ডুবে যায়।


আরও খবর



আফগানিস্তানে একাধিক বিয়ে বন্ধের নির্দেশ

প্রকাশিত:সোমবার ২৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৩ মে ২০২২ | ২৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সংসারে খুবই টানাটানি। সুতরাং একটার বেশি বিয়ে করা থেকে বিরত থাকতে হবে তালিবকে। সম্প্রতি এই ফতোয়া দিয়েছেন আফগানিস্তানের শাসক তালিবানের প্রধান হিবাতুল্লা আখুন্দজাদা। অবশ্যই এই ফতোয়ায় খুশি বা অখুশি হওয়ার সুযোগ নেই, কারণ সংগঠনের আমিরের ফতোয়া মান্য করাটাই কর্তব্য। তবে তালিবান প্রধান আখুন্দজাদা আপাতত নিজের সংগঠনের সদস্য ও যোদ্ধাদেরই এই নির্দেশ দিয়েছেন, দেশের সাধারণ পুরুষদের নয়। কিন্তু তাঁদের অনেকেই প্রমাদ গনছেন সকলের ঘাড়ে এই ফতোয়া নামতে কত ক্ষণ!

আফাগানিস্তান দখলের পরে প্রাসাদে ঢুক‌ে মহার্ঘ সব আরাম কেদারায় বেমালুম জুতো-সমেত পা তুলে বসতে দেখা গিয়েছিল তালিবান যোদ্ধাদের। গলার কালাসনিকভ তবু মাটিতে নামেনি। এর পরেও আইএস জঙ্গিরা যে ভাবে চোরাগোপ্তা হামলা ও নাশকতা চালিয়ে যাচ্ছে, তাতে শাসক তালিবানের যোদ্ধারা বড় একটা সুখে নেই। তার মধ্যেই শান্তির খোঁজে অনেক তালিব একের পর এক বিয়ে করে চলেছেন।

তাই ফতোয়া দিয়েছেন তালিবানের আমির, সুপ্রিম কমান্ডার বহুবিবাহ বন্ধ। তবে নৈতিক নয়, এর কারণ একেবারেই অর্থনৈতিক। কাবুলের বখতার সংবাদ সংস্থা শনিবার জানিয়েছে, আখুন্দজাদার ফতোয়ায় বহুবিবাহকে অকারণ অপব্য়য় বলা হয়েছে। আফগানিস্তানের তালিবান ইসলামি আমিরশাহি যে শরিয়তি ব্যবস্থা মেনে চলে, তাতে এক জন পুরুষ চারটে অবধি বউ রাখতে পারেন। বহুবিবাহ সাধারণ ঘটনা এ দেশে। কিন্তু আমির তাঁর নির্দেশে স্পষ্ট বলেছেন তালিবরা দ্বিতীয়, তৃতীয় বা চতুর্থ দার পরিগ্রহ করতে পারবেন না। এখানেই শেষ নয়, দেশের আমর-উল মার-উফ মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, যোদ্ধারা এই নির্দেশ মানছেন কি না সে দিকে সতর্ক নজর রাখতে। নির্দেশ অমান্যকারীদের নাম-ধাম আমিরের দফতরে জানাতে হবে, যাতে তাঁর শাস্তি বিধান করা সম্ভব হয়।


আরও খবর



২ লাখ ৪৬ হাজার কোটি টাকার এডিপি অনুমোদন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | ৩১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য দুই লাখ ৪৬ হাজার ৬৬ কোটি টাকার বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) অনুমোদন দিয়েছে সরকার। আজ মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের (এনইসি) সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান নতুন এই এডিপি অনুমোদনের বিষয়টি জানান। নতুন এডিপিতে অভ্যন্তরীণ উৎস থেকে জোগান হবে এক লাখ ৫৩ হাজার ৬৬ কোটি টাকা। আর বৈদেশিক উৎস থেকে আসবে বাকি ৯৩ হাজার কোটি টাকা।

এবারের এডিপিতে স্থানীয় সরকার বিভাগের জন্যে বরাদ্দ ৩৫ হাজার ৮৪২ কোটি টাকা, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের জন্যে ৩১ হাজার ২৯৫ কোটি টাকা, বিদ্যুৎ বিভাগের জন্যে ২৪ হাজার ১৩৯ কোটি টাকা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের জন্যে ১৬ হাজার ১১ কোটি টাকা, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের জন্যে ১৫ হাজার ৮৫১ কোটি টাকা, রেলপথ মন্ত্রণালয়ের জন্যে ১৪ হাজার ৯২৮ কোটি টাকা, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের জন্যে ১৪ হাজার কোটি টাকা, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জন্যে ১১ হাজার ৬৪১ কোটি টাকা, সেতু বিভাগের জন্যে ৯ হাজার ২৮৯ কোটি টাকা এবং পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের জন্য সাত হাজার ৯৩৮ কোটি টাকা বরাদ্দ রয়েছে। এর আগে ২০২১-২২ অর্থবছরের অনুমোদিত এডিপি ছিল দুই লাখ ২৫ হাজার ৩২৪ কোটি টাকা।

নতুন এডিপিতে আগামী অর্থবছরে রূপপুর প্রকল্পের জন্যে বরাদ্দ ১৩ হাজার ৩৯৫ কোটি টাকা। প্রকল্পে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে এক লাখ ১৩ হাজার ৯ কোটি টাকা এবং গত মার্চ পর্যন্ত খরচ হয়েছে ৫০ হাজার ৫৩৩ কোটি টাকা।


আরও খবর



আন্তঃবাহিনী আযান ও ক্বিরাত প্রতিযোগিতা সমাপ্ত

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | ৩৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আন্তঃবাহিনী আযান ও ক্বিরাত প্রতিযোগিতা-২০২২ এর সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ঢাকা সেনানিবাসস্থ সেনা কেন্দ্রীয় মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়।

আজ সমাপনী অনুষ্ঠানে ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ (এনডিসি) এর কমান্ড্যান্ট লেফটেন্যান্ট জেনারেল মোঃ আকবর হোসেন, এসবিপি, এসইউপি (বার), এএফডব্লিউসি, পিএসসি, জি+, পিএইচডি, প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় তিন বাহিনীর প্রতিযোগীগণ এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। এই প্রতিযোগিতায় সেনাবাহিনী দল চ্যাম্পিয়ন এবং নৌবাহিনী দল রানারআপ হওয়ার গৌরব অর্জন করে। আযান প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সার্জেন্ট মোঃ রিয়াজ উদ্দীন আযানে ও সার্জেন্ট মোঃ আনোয়ার হোসেন ক্বিরাতে প্রথম স্থান অর্জন করেন।

এ সময় সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণসহ সকল পদবীর সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন।

গত ১০ মে ২০২২ তারিখে শুরু হওয়া এই প্রতিযোগিতায় আযানে ১৫ জন এবং ক্বিরাতে ১৫ জন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেন । উল্লেখ্য, উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সহকারী নৌ বাহিনী প্রধান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ শফিউল আজম, এনইউপি, এনডিসি, পিএসসি।

এই প্রতিযোগিতার মাধ্যমে তিন বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে প্রতিযোগিতামূলক মনোভাবের বিকাশ ও পারস্পরিক সৌহার্দ্য আরো মজবুত হবে বলে আশা করা যায়।


আরও খবর