আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

গম রপ্তানি বন্ধ করল ভারত

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | ৩৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নিজেদের বাজারে দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে গম রপ্তানি বন্ধ করেছে ভারত। সাময়িকভাবে দেশটি এই পদক্ষেপ নিয়েছে। শুক্রবার রাতে ভারতের বৈদেশিক বাণিজ্য অধিদপ্তর এক ঘোষণায় এ কথা জানিয়েছে। যা অবিলম্বে কার্যকর করা হয়েছে। খবর এনডিটিভি ও হিন্দুস্তান টাইমসের।

তবে আগে করা রপ্তানি চুক্তিগুলো বহাল থাকবে বলেও জানিয়েছে ভারতের বৈদেশিক বাণিজ্য অধিদপ্তর। অর্থাৎ শুক্রবার বা তার আগে গম রপ্তানিতে যেসব দেশের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে সেগুলো বহাল থাকবে।

বিশ্বের মোট গম রপ্তানির ২৯ শতাংশই সরবরাহ করে রাশিয়া ও ইউক্রেন। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি দুই দেশের মধ্যে সংঘাত শুরুর পর থেকে আন্তর্জাতিক ভোগ্যপণ্যের বাজারে রীতিমতো আগুন লেগেছে। হু হু করে দাম বেড়েছে গমেরও।

যুদ্ধের কারণে ইউক্রেনের রপ্তানি বন্ধ আর রাশিয়ার ওপর পশ্চিমাদের নিষেধাজ্ঞার কারণে সম্প্রতি বিশ্বব্যাপী ভারতীয় গমের চাহিদা বেড়েছে। ভারতের গম রপ্তানিকারকরা জানিয়েছেন, রাশিয়া-ইউক্রেনের বিকল্প হিসেবে অনেক ক্রেতাই তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন।

এ অবস্থায় বৈশ্বিক চাহিদা ও মূল্যের ঊর্ধ্বগতি বিবেচনায় এ বছর রেকর্ড পরিমাণ গম রপ্তানির লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিল ভারত। গত অর্থবছরে দেশটি রেকর্ড ৬৫ লাখ টন গম রপ্তানি করেছিল। চলতি অর্থবছর শেষ হওয়ার আগেই সেই সীমা পার হয়ে গেছে। কিন্তু স্থানীয় বাজারে গমের দাম ক্রমাগত বাড়তে থাকায় শেষপর্যন্ত রপ্তানি নিষিদ্ধ করলো ভারত সরকার। তাদের এ সিদ্ধান্তে ক্রেতা দেশগুলো আরও বড় সমস্যার সম্মুখীন হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।


আরও খবর



‘জরুরি পরিষেবা ছাড়া রাজধানীতে রাত ৮টার পর সবকিছু বন্ধ থাকবে’

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৬১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজধানীতে সার্বিক শৃঙ্খলা ফেরাতে এবং সড়কে যানজট নিরসনে জরুরি পরিষেবা ছাড়া রাত ৮টার পর সব দোকানপাট, শপিং মল বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। আজ সোমবার দায়িত্ব পালনের দুই বছর পূর্তিতে নগর ভবনে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

মেয়র তাপস বলেন, ঢাকার ধারণক্ষমতা সব সীমাবদ্ধতা ছাড়িয়েছে। এ থেকে দ্রুত পরিত্রাণ ছাড়া উপায় নাই। বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ও পয়োনিষ্কাশন কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। আমরা চাই, দ্রুত এ সমস্যার সমাধান করতে। এ জন্য রাত ৮টার মধ্যেই ঢাকার সব দোকানপাট, শপিং মল বন্ধ করতে হবে। শুধু খাবারের দোকান রাত ১০টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। এ ছাড়া ওষুধের দোকানসহ জরুরি প্রয়োজনীয় সেবাগুলো তাঁদের সুবিধামতো সময় খোলা রাখতে পারবেন।

মেয়র বলেন, বিশ্বের অন্যান্য বড় শহরে দোকানপাট, শপিং মল একটি নির্দিষ্ট সময় অর্থাৎ রাত ৮টা থেকে ৯টার মধ্যেই তাদের কার্যক্রম শেষ করে। আমাদেরও ঢাকার শৃঙ্খলা ফেরাতে এ উদ্যোগ নিতে হবে। এ জন্য সবার সহযোগিতা প্রয়োজন। ঢাকার ওপর চাপ কমাতে প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী ইশতেহার আমার গ্রাম, আমার শহর পরিকল্পনা দ্রুত বাস্তবায়ন করতে হবে। এতে করে ঢাকার ওপর চাপ অনেকটাই কমে আসবে।

মেয়র আরও বলেন, রাত ৮টার পর দোকানপাট বন্ধ করলে যানজট কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসবে। এর আরও বেশ কিছু ভালো দিক আছে। এটি কার্যকর করতে পারলে, আমরা পরিবারকে আরও বেশি সময় দিতে পারব। পারিবারিক বন্ধন আরও দৃঢ় হবে। এখন দেখা যায়, অনেক ব্যবসায়ী তাঁর প্রতিষ্ঠান মধ্যরাত পর্যন্ত খুলে রাখেন। বাড়ি ফিরতেও দেরি করেন। রাত ৮টার পর দোকানপাট বন্ধ হয়ে গেলে শহরের যানজট নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে। আমরা এ বিষয়ে উদ্যোগ গ্রহণ করব।

ডিএসসিসির মেয়র বলেন, দায়িত্ব গ্রহণের দুই বছর পূর্তিতে দৃঢ়তার সঙ্গে বলতে চাই দুর্নীতিমুক্তির দিক থেকে আমরা আমাদের অবস্থান তৈরি করেছি। যদি সরকারের পক্ষ থেকে তালিকা করা হয়, তাহলে নিশ্চিত করে বলতে পারি এই দুর্নীতিমুক্তির দিক থেকে ১ নম্বর প্রতিষ্ঠান হবে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। অগ্রযাত্রার দিক থেকে ডিএসসিসিকে কেউ দাবায় রাখতে পারবে না।

নিবন্ধন ছাড়া কোনো প্রতিষ্ঠান ব্যবসা করতে পারবে না উল্লেখ করে তাপস আরও বলেন, আমরা পরিকল্পনা করেছি, সেই অনুযায়ী খুব দ্রুত উদ্যোগ নেব। সবাইকে বাণিজ্যিক কার্যক্রমের অনুমোদন নিতে হবে। এ ছাড়া দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের আওতায় যেসব বাজার আছে, সেগুলো আমাদের আওতায় আনব। কীভাবে সেই বাজার পরিচালনা হবে, কয়টি বাজার থাকবেএগুলো সব আমরা একটি নীতিমালার আওতায় আনব। এই বাজারগুলোকে নিবন্ধন দেব।

জলাবদ্ধতার বিষয়ে দক্ষিণ সিটির মেয়র বলেন, আশা করছি এ বছর রাজধানীতে জলাবদ্ধতা আগের চেয়ে কম হবে। আগে জলাবদ্ধতা হলে তা নিরসন হতে এক ঘণ্টা সময় লাগত। কাজ করার ফলে, চলতি বছরে আধা ঘণ্টার মধ্যে পানি নিষ্কাশন হয়ে যাবে। আমরা দৃঢ়তার সঙ্গে জলাবদ্ধতা নিরসনে কাজ করে যাচ্ছি।


আরও খবর



পাথরঘাটায় চোখ, নাখ বিহীন শিশুর জন্ম

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৪৫৫জন দেখেছেন

Image

বরগুনা প্রতিনিধি:

বরগুনার পাথরঘাটা উপজেলায় চোখ, নাখ বিহীন দাঁতের মাড়িসহ এক শিশুর জন্ম হয়েছে। সোমবার (১৬ মে) রাত সাড়ে বারোটার দিকে পাথরঘাটা উপজেলার কাকচিড়া বাজারের একটি বে-সরকারি সার্জিকেয়ার ক্লিনিকে সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে ওই শিশুর জন্ম হয়। তবে নবজাতক শিশুসহ তার মা সুস্থ রয়েছেন বলে জানা গেছে।

ওই হাসপাতালের চিকিৎসক, মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর সহকারী সার্জন ডা: রাকিবুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, চোখ বিহীন দাঁতেরমাড়িসহ যে শিশুটি জন্মগ্রহণ করেছে। এটি Anencephaly নামে এক ধরনের রোগ।

চিকিৎসকের ভাষ্যমতে, জীন ও হরমোনের সমস্যার কারণে এ ধরনের রোগ হয়ে থাকে। তার চিকিৎসা জীবনে প্রথমবারেরমত এমন শিশুর দেখা মিলেছে বলে জানান তিনি। তবে উন্নত চিকিৎসা পেলে শিশুটি কিছুটা সুস্থ হতে পারে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

ওই হাসপতাল সূত্রে জানা গেছ, উপজেলার উত্তর কাকচিড়া গ্রামের বাসিন্দা মোহাম্মদ ইদ্রিস আলীর স্ত্রী নাজনীন আক্তার কে নিয়ে সন্তান প্রসবের জন্য রবিবার বিকালে ওই ক্লিনিকে ভর্তি হন। রাত সাড়ে বারোটার দিকে সিজারিয়ান অপারেশন হয়। এটা তাদের দ্বিতীয় সন্তান।

অদ্ভুত আকৃতি নিয়ে জন্ম নেওয়া শিশুটিকে নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন শিশুটির জেলে বাবা। তিনি বলেন, দ্বিতীয় সন্তানকে ঘিরে পরিবার জুড়ে আনন্দ-উদ্দীপনা অপেক্ষা করছিল। কিন্তু শিশুটি জন্মের পর তা অনেকটাই ম্লান হয়ে গেছে। কারণ শিশুটির উন্নত চিকিৎসা করানোর মত আর্থিক অবস্থা তার নেই। কিভাবে ওই শিশুটির চিকিৎসা করাবেন তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন ওই শিশুটির বাবা।

নিউজ ট্যাগ: বরগুনা

আরও খবর



নওগাঁয় গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে রসালো ফল কাঁঠাল

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৪৭৫জন দেখেছেন

Image

নওগাঁ প্রতিনিধি:

নওগাঁয় গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে গ্রীষ্ম মৌসুমের বেশ জনপ্রিয় পুষ্টিগুণ সম্পন্ন রসালো জাতীয় ফল কাঁঠাল। যদিও পুরো পাকা পুক্ত কাঠাল হওয়ার সময় বাঁকী রয়েছে ২ মাস।

প্রবাদ আছে গাছে কাঁঠাল গোঁফে তেল- জ্যৈষ্ঠ মাসে এ কথাটি আর কথার কথা থাকে না। গাছে কাঁঠাল দেখলে এ কথা সবাই বলতেই পারে। বর্তমানে জেলার প্রতিটি উপজেলায় গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে রসালো ফল কাঁঠাল। আত্রাই উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বাড়ির পাশে, রাস্তার ধারে, জঙ্গলের ভেতরে থাকা গাছে ধরেছে প্রচুর পরিমানে কাঁঠাল। গাছের গোঁড়া থেকে আগা পর্যন্ত শোভা পাচ্ছে সর্বোচ্চ পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ এই ফল।

খাদ্য শষ্য ভান্ডার হিসেবে নওগাঁ জেলা বিখ্যাত হলেও এখানকার মানুষের অতি প্রিয় ফল ও তরকারি হিসেবে কাঁঠাল যুগ যুগ ধরে কদর পেয়ে আসছে। কাঁঠালের বিচি এখানকার মানুষের একটি ঐতিহ্যপূর্ণ তরকারি। বিশেষ করে কাঠালের বিচ দিয়ে শুটকি ভর্তা অত্যন্ত প্রিয় সকলের। বিভিন্ন ধরনের শাক ও কাঁঠালের বিচির সমন্বয়ে রান্না করা তরকারি এখানকার মানুষ তৃপ্তির সঙ্গে ভাত খেতে পারেন। তাছাড়া গবাদিপশুর জন্যও কাঁঠালের ছাল উন্নতমানের গো-খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এক প্রকারের সবুজ রঙের সুমিষ্ট গ্রীষ্মকালীন ফল। এটি বাংলাদেশের জাতীয় ফল হিসাবে সরকারীভাবে নির্ধারিত। বাংলাদেশের সর্বত্র কাঁঠাল গাছ পরিদৃষ্ট হয়। কাঁঠাল গাছের কাঠ আসবাবপত্র তৈরির জন্য সমাদৃত। কাঁঠাল পাতা বিভিন্ন প্রাণীর পছন্দের খাদ্য। তুলনামূলকভাবে বিশালাকার এই ফলের বহির্ভাগ পুরু এবং কান্টকাকীর্ণ, অন্যদিকে অন্তরভাগে একটি কান্ড ঘিরে থাকে অসংখ্য রসালো কোয়া। কাঁঠালের বৃহদাকার বীজ কোয়ার অভ্যন্তরভাগে অবস্থিত।

বহুগুণ সমৃদ্ধ এ কাঁঠাল এখানকার হাট-বাজারে এখনও উঠতে শুরু করেনি। তবে জ্যৈষ্ঠের শেষ ও আষাঢ় মাসের শুরু থেকে এখানকার হাট-বাজারে কাঁঠাল কেনাবেচা শুরু হবে এমনটি ধারণা কাঁঠাল ব্যবসায়ীদের।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ কেএম কাউছার হোসেন বলেন, এ উপজেলায় তেমন একটা কাঁঠালের বাগান নেই তবে দিন দিন বাড়ছে। তিনি আরো বলেন গত বছরের তুলনায় এ বছর উপজেলায় কাঁঠাল ভালো হয়েছে। দিন দিন উপজেলার মানুষের মাঝে কাঁঠালের চারা রোপনের আগ্রহ বাড়ছে।

নিউজ ট্যাগ: কাঁঠাল নওগাঁ

আরও খবর
সাপাহারে আমের কেজি ২ টাকা

শুক্রবার ২০ মে ২০22




বগুড়ায় ঝড়ে প্রায় ৫ শতাধিক পাখির মৃত্যু

প্রকাশিত:শনিবার ২১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ২৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বগুড়ায় ৪ মিনিটের ঘূর্ণিঝড়ে শহরের পৌরপার্কসহ বিভিন্নস্থানে বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় পাঁচ শতাধিক পাখির মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (২১ মে) ভোর রাত ৪টার দিকে বগুড়া জেলার ওপর দিয়ে ঘূর্ণিঝড় বয়ে যায়।

ঝড়ের কবলে পড়ে বিভিন্ন এলাকায় পাঁচ শতাধিক বিভিন্ন প্রজাতির পাখি মারা গেছে। এরমধ্যে শহরের পৌর পার্কে মারা গেছে তিন শতাধিক পাখি। মারা যাওয়া পাখিগুলোর মধ্যে দাঁড় কাক, পাতি কাক, গো শালিক, টিয়া, বক রয়েছে।

শনিবার (২১ মে) দুপুরে পৌর পার্কে গিয়ে দেখা গেছে, পৌরসভার মালি আব্দুল মজিদ ও আজাহার আলী মারা যাওয়া পাখিগুলো মাটিতে গর্ত করে পুতে রাখছেন। তারা জানান, সকাল থেকে পার্কের আনাচে কানাচে পড়ে থাকা তিন শতাধিক পাখির মরদেহ তারা মাটিতে গর্ত করে পুতে রাখছেন।

এদিকে শিক্ষার্থীদের পরিবেশ বাদী সংগঠন টিম ফর এনার্জি এন্ড ইনভায়রনমেন্ট রিসার্চ (তীর) বগুড়া শাখার সাধারণ সম্পাদক রিফাত হাসান বলেন, পৌর পার্ক ছাড়াও বগুড়া সরকারি আজিজুল হক কলেজ ক্যাম্পাসসহ বিভিন্ন স্থানে আরও দুই শতাধিক পাখি ঝড়ের কবলে পড়ে মারা গেছে।

তিনি বলেন, ঝড় কিছুটা কমলে তীরের সদস্যরা আজিজুল হক কলেজ ক্যাম্পাস, গাবতলী উপজেলা এবং নাটাইপাড়া এলাকার একটি গোরস্থান থেকে ভুবন চিল, শালিকসহ বিভিন্ন প্রজাতির বেশ কয়েকটি পাখি অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করেন। পরে পাখিগুলোর পরিচর্চা করে অবমুক্ত করা হয়। আরও কয়েকটি পাখির পরিচর্চা করছেন তীরের সদস্যরা।

তিনি আরও বলেন, এই সময়টা পাখিদের বাচ্চা লালন পালন করার সময়। ঝড়ের কবলে পাখির বাচ্চা মারা যাওয়ার পাশাপাশি পাখিদের বাসা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।


আরও খবর



‘কিছু পত্রিকা এক দিন ভালো লিখলে পরের সাত দিন লিখবে খারাপ’

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | ৪১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পত্রিকা পড়ে না ঘাবড়ানোর আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কিছু পত্রিকা আছে তারা এক দিন ভালো লিখলে পরের সাত দিন লিখবে খারাপ

মঙ্গলবার (১৭ মে) জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (এনইসি) সভার (ভার্চ্যুয়াল) সূচনা বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত এ সভায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে সংযুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, আমি বোধহয় দেশের প্রবীণ রাজনীতিবিদদের মধ্যে একজন। হাইস্কুল থেকে তো রাজনীতি করি। সবাইকে আমার চেনাই আছে। সব পরিবারকেও চেনা আছে। কাজেই এটা তাদের চরিত্র। কাজেই ওই পত্রিকা দেখে ঘাবড়ানোর কোনো দরকার নেই। আর পত্রিকা পড়েও সিদ্ধান্ত নেওয়ার দরকার নেই।

টানা তিনবারের সরকারপ্রধান বলেন, আমরা সিদ্ধান্ত নেব দেশের মানুষের মুখের দিকে তাকিয়ে, দেশের কথা চিন্তা করে, দেশের উন্নয়নের কথা চিন্তা করে। এই কথাটা সব সময় মনে রাখতে হবে। কারণ আমি সেই ভাবেই চলি। আর সেই সিদ্ধান্ত নিয়ে চলছি বলেই আজকে দেশটা এগিয়ে যাচ্ছে। আমি যদি ভয়ে ভয়ে থাকতাম ও কী লিখলো, ও কী বললো, ও কী করলো, তাহলে কোনো কাজ করতে পারতাম না। নিজের বিশ্বাস হারাতাম।

কর্মকর্তাদের আত্মবিশ্বাস নিয়ে চলার পরামর্শ দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, কাজেই সেখানে আমি বলবো, অনেক সময় আপনাদের অনেকের মুখেই শুনিএই পত্রিকা লিখেছে। ওটা নিয়ে কখনো ঘাবড়ানোর কিছু নেই। ওটা নিয়ে চিন্তাও করবেন না। নিজের আত্মবিশ্বাস নিয়ে চলবেন। সেটাই আমি চাই। তাহলে আমাদের দেশ এগিয়ে যাবে।

কারো নাম উল্লেখ না করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারাই বেশি কথা বলেন, তারাই সমালোচনা বেশি করেন, যারা ইমার্জেন্সি সরকারের পদলেহন করেছেন, চাটুকারি করেছেন, তারাই সমালোচনা বেশি করেন। এটা হচ্ছে বাস্তবতা। যাই হোক কে কী বললো, সেটা নিয়ে আমি কখনো ঘাবড়াইও না, চিন্তাও করি না। দেশকে ভালোবেসে দেশের মানুষের জন্য যেটা করা ন্যায়সঙ্গত সেটাই করি।


আরও খবর