আজঃ শনিবার ২৯ জানুয়ারী ২০২২
শিরোনাম

ফুটবলাররা টিকা না নেওয়ায় ইন্দোনেশিয়ায় খেলা হচ্ছে না বাংলাদেশের

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ইন্দোনেশিয়া থেকে বলা হয়, দলের খেলোয়াড় ও সব কর্মকর্তার দুই ডোজ টিকা সম্পন্ন থাকতে হবে। কিন্তু আমাদের দলের সব খেলোয়াড়ের দুই ডোজ টিকা নেওয়া হয়নি

খেলতে হলে প্রত্যেক ফুটবলারের নেওয়া থাকতে হবে করোনা প্রতিরোধক দুই ডোজ টিকা, ইন্দোনেশিয়ার এমন শর্তে মাথায় হাত পড়ার অবস্থা বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে)। শেষ পর্যন্ত দেখা গেল মেলানো যাচ্ছে না শর্ত। তাই ইন্দোনেশিয়ার সঙ্গে খেলার ইচ্ছা বাতিলই করতে হলো বাংলাদেশ ফুটবল দলকে।

জানুয়ারির ফিফা উইন্ডোতে ২৪ ও ২৭ তারিখে র‍্যাঙ্কিংয়ে ১৬৪তম স্থানে থাকা ইন্দোনেশিয়ার বিপক্ষে তাদের মাটিতেই দুটি প্রীতি ম্যাচ খেলার কথা ছিল জামাল ভূঁইয়াদের৷ কিন্তু ইন্দোনেশিয়ার দাবি ছিল তাদের মাঠে খেলতে হলে সব ফুটবলার ও কর্মকর্তাকে দুই ডোজ টিকার আওতায় থাকতে হবে। সব ফুটবলারের দুই ডোজ করে করোনা টিকা না নেওয়ায় খেলা বাতিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান জাতীয় দল কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ।

এক ভিডিও বার্তায় নাবিল বলেছেন, 'আমরা এ দুই ম্যাচ খেলার জন্য স ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছিলাম। কোচও ১৫ তারিখে চলে আসবেন, স্কোয়াডও চূড়ান্ত করেছিলাম কিন্তু ইন্দোনেশিয়া থেকে বলা হয়, দলের খেলোয়াড় ও সব কর্মকর্তার দুই ডোজ টিকা সম্পন্ন থাকতে হবে। কিন্তু আমাদের দলের সব খেলোয়াড়ের দুই ডোজ টিকা নেওয়া হয়নি। ১৫ ফুটবলার দুই ডোজ নিলেও এক ডোজ নিয়েছেন সাতজন এবং ছয় ফুটবলার এখনো টিকাই গ্রহণ করেননি! এর ফলে আমাদের ইন্দোনেশিয়ায় যাওয়া হচ্ছে না।'

জানুয়ারির উইন্ডোতে কোনো ম্যাচ না খেলতে পারলেও মার্চের উইন্ডোতে ম্যাচ খেলার ব্যাপারে আশাবাদী কাজী নাবিল আহমেদ। মার্চের আগেই জাতীয় দল ও অনূর্ধ্ব-২৩ দল মিলিয়ে প্রায় ৪০ জনের একটা তালিকা করে সবাইকে টিকার আওতায় আনা হবে বলে জানান কাজী নাবিল আহমেদ।

গত সপ্তাহে বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব পেয়েছেন স্প্যানিশ হাভিয়ের কাবরেরা। ১৫ জানুয়ারি ঢাকায় আসবেন তিনি। ইন্দোনেশিয়া সফর দিয়েই বাংলাদেশের ডাগআউটে বসার কথা ছিল তাঁর। সফর বাতিল হওয়ায় আপাতত কিছুদিন বেকারই থাকতে হবে কাবরেরাকে।


আরও খবর
সাড়ে ৩ বছর নিষিদ্ধ ব্রেন্ডন টেলর

শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২




উত্তরীয় হিমেল হাওয়ায় কুড়িগ্রামে বেড়েছে ঠাণ্ডার তীব্রতা

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৩ জানুয়ারী ২০২২ | ৪২৫জন দেখেছেন

Image

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:

উত্তরীয় হিমেল হাওয়া ও কনকনে ঠাণ্ডায় কুড়িগ্রামে জন জীবনে নেমে এসেছে দুর্ভোগ। আকাশে ঘন মেঘে সুর্য ঢেকে থাকায় দিনের বেশীরভাগ সময় প্রাকৃতিক উষ্ণতাও পাচ্ছে না মানুষজন।

কুড়িগ্রাম আবহাওয়া পর্যবেক্ষন কেন্দ্র জানায়, সোমবার জেলার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১২ দশমিক ৩ ডিগ্রী সেলসিয়াস। যা দিনে দিনে আরও কমতে পারে। আকাশে ঘন মেঘ কেটে গেলে তাপমাত্রা আরও নীচে নেমে আসতে পারে বলে জানায়, আবহাওয়া পর্যবেক্ষন কেন্দ্র।

প্রচন্ড ঠাণ্ডায় গরু ছাগলসহ বিভিন্ন গবাদি পশুরাও পড়েছে কষ্টে। শীতবস্ত্রের অভাবে চরম কষ্টে দিন কাটছে জেলার হতদরিদ্র নিম্ন আয়ের মানুষসহ সকল অসহায় মানুষের। খরকুটো জলিয়ে ঠাণ্ডা নিবারনের চেষ্টা করছেন তারা।

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার পাঁচগাছী ইউনিয়নের মিলপাড়া এলাকার নামদেল মিয়া জানান, এই ঠাণ্ডায় ছোট ছোট দুইটা বাচ্চাকে নিয়ে খুবই সমস্যা পরেছি। শীতকালে ঠিকমতো কাজ করতে না পারায় সংসার চালানোয় মুসকিল হয়েছে। অভাবের সংসার ছেলেদের গরমের কাপড় কিনবো তাও পারছি না। আজ পর্যন্ত একটা কম্বলও কেউ দেয় নাই।

জেলা প্রশাসন অফিস সুত্রে জানা গেছে, এখন পর্যন্ত সরকারীভাবে ৯ উপজেলায় ৩৫ হাজার ৫শ কম্বল বিতরণ করা হলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল বলে ভূক্তভোগীরা জানান।

চিলমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোঃ মাহবুবুর রহমান বলেন, সরকারি ভাবে ২ হাজার ৮শ ১৫টি কম্বল পেয়েছি তা বিতরণ করা হয়েছে। কম্বল কেনার জন্য আরও ১০ লাখ টাকা পেয়েছি সেটাও বিতরণ করা হবে।

কুড়িগ্রামের রাজারহাট আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র সরকার জানান, আজ  জেলার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১২ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আকাশে মেঘ রয়েছে। আগামী ১-২দিনের মধ্যে তাপমাত্রা কমে মৃদু শৈত্য প্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

নিউজ ট্যাগ: কুড়িগ্রাম

আরও খবর



৭০ হাজার শ্রমিক নেবে ইতালি

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | ৪০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চলতি বছর ৬৯ হাজার ৭০০ শ্রমিক নেবে ইতালি। এ উপলক্ষে সোমবার (১৭ জানুয়ারি) কোটাসহ চূড়ান্ত গেজেট প্রকাশ করেছে দেশটির সরকার। গেজেট অনুযায়ী বাংলাদেশসহ ৩২টি দেশ থেকে কোটাভিত্তিতে ৫৯ হাজার শ্রমিক নেবে ইতালি। বাকি ১০ হাজার ৭০০ শ্রমিক পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে নেওয়া হবে।

দুই ক্যাটাগরিতে নন-সিজনাল ভিসায় যারা আসবেন তারা দুই বছরের স্টে-পারমিট পাবেন আর যারা সিজনাল ভিসায় আসবেন তারা ৯ মাসের জন্য ইতালিতে বৈধভাবে থাকতে পারবেন। আবেদনের জন্য ইতালি ভিন্ন ভিন্ন তারিখ ঘোষণা করেছে। ২৭ জানুয়ারি থেকে নন-সিজনাল এবং ১ ফেব্রুয়ারি থেকে সিজনাল ভিসার আবেদন জমা নেওয়া হবে। এভাবে একটানা ১৭ মার্চ পর্যন্ত চলবে আবেদন জমা নেওয়ার কাজ।

জানা যায়, চলতি বছর বাংলাদেশিদের জন্য সাধারণ স্পনসরের আবেদন করা কঠিন হবে। কারণ ইতালি এবার যেসব সেক্টরে নন-সিজনাল স্পনসর দিয়েছে সেসব সেক্টরে বাংলাদেশি মালিকানা নেই বললেই চলে। কনস্ট্রাকশন, ভারী যান চালানো, পর্যটন ও বড় হোটেল ব্যবসায় বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা এখনো তেমন আধিপত্য বিস্তার করতে পারেনি। ফলে নন-সিজনাল স্পনসরে দেশটিতে যাওয়া বাংলাদেশিদের জন্য কঠিন হবে।

এ খাতে বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশ থেকে ২৭ হাজার ৭০০ শ্রমিক আসতে পারবে। এর মধ্যে নির্দিষ্টভাবে আলবেনিয়া, আলজেরিয়া, বাংলাদেশ, বসনিয়া-হার্জেগোভিনা, কোরিয়া (রিপাবলিকা ডি কোরিয়া), কোস্টা ডি আভোরিও, এগিট্টো, এলসালভাদর, ইথিওপিয়া, ফিলিপাইন, গাম্বিয়া, ঘানা, জিয়াপ্পোন, গুয়াতেমালা, ভারত, কসোভো, মালি, মরক্কো, মরিশাস, মোল্দোভা, মন্টিনিগ্রো, নাইজার, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, রিপাবলিকা ডি ম্যাসেডোনিয়া দেল নর্ড, সেনেগাল, সার্বিয়া, শ্রীলঙ্কা, সুদান, তিউনিসিয়া, ইউক্রেন থেকে ১৭ হাজার শ্রমিক নেওয়া হবে।

এদিকে, মৌসুমি (সিজনাল) ভিসায় বাংলাদেশসহ ৩১টি দেশ থেকে ৪২ হাজার শ্রমিক নেবে ইতালি। এই খাতে বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য ব্যাপক সুযোগ রয়েছে। তবে ২০২০ সালের মৌসুমি ভিসায় বাংলাদেশিরা এখনো তেমন একটা স্পনসর বের করতে পারেনি। সেক্ষেত্রে চলতি বছর আবেদন জমা দেওয়ার পর কতটা স্পনসর বের হবে তা নিয়ে অনেকে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

এ বিষয়ে আইনি পরামর্শক অ্যাড. আনিচুজ্জামান আনিস বলেন, ইতালিতে ২৭ জানুয়ারি ঘোষিত নন-সিজনাল (স্পনসর) ভিসার আবেদন আগের বছরগুলোর মতো উন্মুক্ত না। এবার ইতালিতে শুধু তিন ক্যাটাগরিতে আবেদন জমা দেওয়া যাবে। কনস্ট্রাকশন, ভারী যানচালক, বড় আবাসিক হোটেল ও পর্যটনের জন্য শ্রমিকরা আবেদন করতে পারবে।


আরও খবর



সরকারি অর্থের অপব্যবহার ঠেকাতে বললেন রাষ্ট্রপতি

প্রকাশিত:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | ২৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সরকারি অর্থের অপব্যবহার রোধ করতে সংশ্লিষ্টদের সতর্ক হতে বলেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। রোববার (১৬ জানুয়ারি) একাদশ জাতীয় সংসদের ২০২২ সালের প্রথম অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে এ কথা বলেন তিনি।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, বিগত দেড় দশকে সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রম ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকারি ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। এজন্য সরকারি অর্থের অপব্যবহার রোধপূর্বক প্রকল্প সংশ্লিষ্ট সকল বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

সময়াবদ্ধ কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করে প্রকল্প বাস্তবায়ন শতভাগ নিশ্চিত করতে হবে।

স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতামূলক সুশাসন প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়ে আবদুল হামিদ বলেন, সর্বোপরি সরকারি সকল কার্যক্রমে জনগণের যথাযথ অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার মাধ্যমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিমূলক সুশাসন প্রতিষ্ঠা করে গণতন্ত্রকে অধিক কার্যকর করতে হবে।

ষড়যন্ত্রকারীদের বিষয়ে সবাইকে সজাগ দৃষ্টি রাখার আহ্বান জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর নীতির কারণে দেশে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বিরাজ করছে, যা উন্নয়নের পূর্বশর্ত। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ক্ষেত্রে বিশ্বের জন্য একটি অনন্য উদাহরণ। দেশের সকল সম্প্রদায়ের মানুষ যাতে সম্প্রীতি সহকারে স্ব-স্ব ধর্ম চর্চা করতে পারে সে বিষয়ে সরকার সচেষ্ট রয়েছে।

তিনি বলেন, মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টানসহ সকল সম্প্রদায়ের ধর্মীয় উৎসবসমূহ নির্বিঘ্নে যথাযথ ভাবগাম্ভীর্য ও উৎসবমুখর পরিবেশে শান্তিপূর্ণভাবে উদ্যাপন করা হচ্ছে। তথাপি ধর্মের নামে কোনো ষড়যন্ত্রকারী গোষ্ঠী যাতে দেশের স্থিতিশীলতা বিনষ্ট করতে না পারে সে দিকে আমাদের সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।’

সময় সাশ্রয়ের জন্য মূল ভাষণের পরিবর্তে ভাষণের সংক্ষিপ্ত অংশ সংসদে পাঠ করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। প্রায় ৪ হাজার ৭০০ শব্দের সংক্ষিপ্ত ভাষণে কয়েকটি বিষয়ে দিক-নির্দেশনার পাশাপাশি সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরেন তিনি।

রাষ্ট্রপতির ভাষণের সময় জাতীয় সংসদে উপস্থিত ছিলেন সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সরকার ও বিরোধী দলের সংসদ সদস্যরা। জাতীয় সংসদ অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।


আরও খবর



তৈমূর ও কামালকে বিএনপি থেকে বহিষ্কার

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | ৫৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নারায়ণগঞ্জসিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে অংশ নিয়ে আরও কঠিন সিদ্ধান্তের মুখোমুখি হলেন অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। এবার দল থেকে তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে বহিষ্কারের ঘোষণা দেওয়া হয়। একই দিন নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এ টি এম কামালকেও বহিষ্কার করা হয়।

চিঠিতে বলা হয়, দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) গঠনতন্ত্র মোতাবেক দলের প্রাথমিক সদস্য পদসহ সকল পদ থেকে নির্দেশনাক্রমে বহিষ্কার করা হলো।

এর আগে, দুপুরে দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এ টি এম কামালকে বহিষ্কার করা হয়। নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিলের পরপরেই জেলা বিএনপির আহ্বায়ক পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় তৈমূর আলম খন্দকারকে। ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়কের দায়িত্ব দেওয়া হয় মনিরুল ইসলাম রবিকে।

সবশেষ গত ৩ জানুয়ারি বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা পদ থেকেও প্রত্যাহার করা হয় তৈমূর আলম খন্দকারকে। সেদিন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী স্বাক্ষরিত এক চিঠিতে এই তথ্য জানানো হয়। চিঠিতে তৈমূর আলম খন্দকারকে জানানো হয়, মাননীয় চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিল সদস্য পদ থেকে আপনাকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। অবিলম্বে এই নির্দেশনা কার্যকর হবে।

উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার পরাজিত হয়েছেন। এ টি এম কামাল সিটি নির্বাচনে তৈমূর আলম খন্দকারের প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।


আরও খবর



ভোজ্যতেলের দাম আপাতত বাড়ছে না: টিপু মুনশি

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | ২৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ভোজ্যতেলের দাম আপাতত বাড়ছে না। আগামী ১৫ দিন পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

আজ বুধবার (১৯ জানুয়ারি) ভোজ্যতেল ব্যবসায়ীদের সাথে বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের একথা জানান।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ব্যবসায়ীরা নিজেরা সিদ্ধান্ত নিয়ে দাম কিছুটা বাড়িয়েছিল। তাদেরকে অনুরোধ করেছি একটু সময় দিত। আগামী ১৫ দিন পর আন্তর্জাতিক বাজার ও শুল্ক কাঠামোসহ সব কিছু বিবেচনায় নিয়ে যৌক্তিক দাম নির্ধারণ করা হবে।

তিনি বলেন, ১৫ দিন পর যদি আন্তর্জাতিক বাজারে দাম কমে তাহলে সেটা অব্যশই বিবেচনায় নেওয়া হবে। আর যদি দাম বাড়ে তাহলে সেটাও পর্যালোচনা করব। সবকিছু বিবেচনায় নিয়ে দামের বিষয়ে যৌক্তিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

টিপু মুনশি বলেন, আগামী ১৫ দিনে আমরা মাঠপর্যায়ে আরও তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করব। ভোজ্যতেলের ওপর সব ধরনের শুল্ক কাঠামো আবারও খতিয়ে দেখব। এরপর আবার ব্যবসায়ীদের নিয়ে বসব। সেখানে নতুন করে পর্যালোচনার পর ভোজ্যতেলের নতুন দাম জানানো হবে।

আগামী রমজান মাসে বাজারে ভোজ্যতেলের দাম যেন স্থিতিশীল থাকে সে ব্যাপারে ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা চান তিনি।

বর্তমানে সরকার নির্ধারিত দামে খোলা সয়াবিন প্রতি লিটার ১৩৬ টাকা এবং বোতলজাত সয়াবিন প্রতি লিটার ১৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।


আরও খবর
কোম্পানির শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমেছে

বৃহস্পতিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২২

মিশ্র প্রবণতায় চলছে পুঁজিবাজারের লেনদেন

বৃহস্পতিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২২