আজঃ বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

ঈশ্বরদীতে রুশ নাগরিকের মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ২৬ জুলাই ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৬ জুলাই ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি

Image

ঈশ্বরদীতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রুশ নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার ভোর রাতে উপজেলার আলো জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। নিহত লিভাইনা ইউলিয়া (৩২) গ্রীণসিটির রুশ এনারগাতন কোম্পানির কনসার্ন হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ অরবিন্দ সরকার রুশ নাগরিকের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানাযায়, গত ২৫ জুলাই দুপুরে পেটের পিড়ার সমস্যা নিয়ে চিকিৎসা নিতে শহরের আলো জেনারেল হাসপাতালে আসেন মৃত ইউলিয়া। সেখানে কর্মরত চিকিৎসক তার সুস্থতার জন্য সেখানে ভর্তি করে রাখেন। চিকিৎসা নিয়ে শারিরিক কিছুটা সুস্থতার পর আজ (২৬ জুলাই) ভোর রাতে ইউলিয়া একাই টয়লেটে যান। টয়লেট থেকে ফিরতে দেরি দেখি দ্বায়িত্বরত সেবিকা টয়লেটের দরজায় নক করে তার কোন সারা না পেয়ে বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন। কর্তৃপক্ষ এসে টয়লেটের দরজা ভেঙ্গে ইউলিয়াকে মেঝেতে পরে থাকতে দেখেন। পরে তাকে উদ্ধার করে শারিরিক পরীক্ষা শেষে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন এবং ঈশ্বরদী থানা পুলিশকে খবর দেন।

ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ অরবিন্দ সরকার বলেন, খবর পেয়ে ঈশ্বরদী থানা পুলিশ মৃতদেহটি উদ্ধার করেছে। মৃতদেহটির সুরতহাল করার জন্য তাকে পাবনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।


আরও খবর



স্ত্রীর মৃত্যুর পরদিন জামিনে মুক্তি পেলেন বিএনপি নেতা চাঁদ

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন রাজশাহী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সাঈদ (চাঁদ)। রোববার (৩০ জুন) দুপুর ১২টার দিকে তিনি রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান।

এদিকে আবু সাঈদ চাঁদের স্ত্রী শাহানা বেগম (৬০) শনিবার (২৯ জুন) দুপুরে মারা গেছেন। রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার মাড়িয়া গ্রামে রোববার বিকেলে তার জানাজা হওয়ার কথা রয়েছে।

কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে আবু সাঈদ গ্রামের বাড়ির উদ্দেশে রওনা হন। এর আগে গত ২৪ মার্চ আবু সাঈদের মা আশরাফুন্নেশা মারা যান। সেদিন আড়াই ঘণ্টার জন্য প্যারোলে মুক্তি পেয়ে মায়ের জানাজায় অংশ নেন এই বিএনপি নেতা।

চাঁদের আইনজীবী ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহফুজুর রহমান মিলন জানান, চাঁদের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত মোট ২১টি মামলা হয়েছে। সব মামলায় উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিতে হয়েছে। সবশেষ ঈদের আগে ফরিদপুরের একটি মামলায় চাঁদের জামিন হয়। এরপর থেকে তিনি মুক্তির অপেক্ষায় ছিলেন। রোববার দুপুরে উচ্চ আদালত থেকে জামিনের আদেশ রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে এসে পৌঁছায়। এরপর কারা কর্তৃপক্ষ তাকে মুক্তি দেয়।

গত বছরের ১৯ মার্চ রাজশাহীর পুঠিয়ায় জেলা বিএনপির এক সমাবেশে প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকি দেয়ার অভিযোগ ওঠে তার বিরুদ্ধে। এর জেরে দেশের বিভিন্ন স্থানে তার বিরুদ্ধে মামলা হতে থাকে। পরে ২৪ মার্চ পুলিশ মহানগরের ভেড়িপাড়া মোড় থেকে বিএনপির এই নেতাকে গ্রেপ্তার করে।


আরও খবর



গাজীপুরে মেয়েকে জবাই করে হত্যা করলেন বাবা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
গাজীপুর প্রতিনিধি

Image

গাজীপুরের কাপাসিয়ায় মেয়েকে জবাই করে হত্যা করেছে বাবা। বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) সকালে উপজেলার চাঁদপুর ইউনিয়নের ধরপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সৃতি আক্তার (২৬) ধরপাড়া গ্রামের সাইফুদ্দিনের মেয়ে।

পুলিশ জানায়, এ ঘটনার পরপরই অভিযুক্ত সাইফুদ্দীন পলাতক রয়েছে। নিহত সৃতি আক্তার অভিযুক্ত সারফুদ্দীন এর ১ম স্ত্রীর মেয়ে। পারিবারিক দ্বন্দের কারণে বেশ কয়েকবছর আগে নিহত সৃতির মা সালমা আক্তারকে তালাক দেন সাইফুদ্দীন। তবে স্ত্রী সালমা আক্তার বাবার বাড়ি থেকে জমি বিক্রি করে এনে দেওয়া পাঁচ লাখ টাকা এবং কাবিনের টাকা না পাওয়ায় পারিবারিক দ্বন্দ্ব ছিলো তাদের মধ্যে।

এ নিয়ে এলাকাবাসী বেশ কয়েকবার স্থানীয়ভাবে বিচার সালিশ করে সমাধানের চেষ্টা করেন। অভিযুক্ত সাইফুদ্দীন এর আগেও বেশ কয়েকবার তার মেয়ে সৃতিকে হত্যার চেষ্টা করেন। বৃহস্পতিবার সকালে সৃতি বাড়ির পাশের গাছ থেকে কাঠাল পাড়তে গেলে বাবার সাথে কথা কাটাকাটি হয়। কথা-কাটাকাটির এক পর্যায়ে সাইফুদ্দিন কাঠাল পাড়তে আনা দা দিয়ে জবাই করে হত্যা করে সৃতিকে।

কাপাসিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবু বকর সিদ্দিক বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পরপরই অভিযুক্ত সাইফুদ্দীন পলাতক রয়েছে তবে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।


আরও খবর



এডিসি কামরুল ও তার স্ত্রীর সম্পত্তি ক্রোকের আদেশ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের দায়ে দুদকের মামলায় অভিযুক্ত চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি- ক্রাইম) মো. কামরুল হাসান ও তার স্ত্রী সায়মা বেগমের যাবতীয় স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার আদেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (৮ জুলাই) দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ ড. বেগম জেবুন্নেছার আদালত এই আদেশ দেন।

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) চট্টগ্রামের সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসেনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত এ আদেশ দিয়েছেন বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন দুদকের আইনজীবী মো. মাহমুদুল হক।

দুদকের পিপি কাজী ছানোয়ার আহমেদ লাভলু বলেন, পুলিশ কর্মকর্তা মোহাম্মদ কামরুল হাসান ও তার স্ত্রী সায়মা বেগমের নামে সম্পদ ক্রোক ও জব্দ না করা গেলে তা হস্তান্তর হয়ে যেতে পারে। পরে রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করা সম্ভব হবে না।

তিনি আরও বলেন, ক্রোক হওয়া সম্পত্তি হস্তান্তর করা যাবে না। জব্দকৃত ব্যাংক হিসাবে টাকা জমা দেওয়া গেলেও উত্তোলন করা যাবে না। সেই মর্মে সংশ্লিষ্ট সাব-রেজিস্ট্রার, এসি ল্যান্ড, বিএসইসি ও সংশ্লিষ্ট ব্যাংক সমূহের ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

দুদক সূত্র জানায়, ১৯৮৯ সালে পুলিশের উপ পরিদর্শক পদে নিয়োগ লাভের পর চাকরির ধারাবাহিকতায় বর্তমানে সিএমপির অতিরিক্ত উপকমিশনার (ক্রাইম) পদে কর্মরত আছেন কামরুল হাসান। তার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ অনুসন্ধানকালে তার নামে ১২ কোটি ৭২ লাখ ৯২ হাজার ২১৬ টাকার স্থাবর এবং ১ কোটি ২৩ লাখ ৩৯ হাজার ২১৬ টাকার অস্থাবর সম্পত্তি সহ মোট ১৩ কোটি ৯৬ লাখ ৩১ হাজার ৯১১ টাকার সম্পদ অর্জনের তথ্য পাওয়া যায়।

ওই সম্পদের বিপরীতে তার গ্রহণযোগ্য আয়ের উৎস পাওয়া যায় ৪ কোটি ৮০ লাখ ৩২ হাজার ৮৭ টাকা। তার জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদের পরিমাণ ৯ কোটি ৭৩ লাখ ২২ হাজার ৪৪ টাকা।


আরও খবর
আন্দালিব রহমান পার্থ ৫ দিনের রিমান্ডে

বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪

কোটা নিয়ে আপিল বিভাগে শুনানি রোববার

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




আলমগীর-বাদশাহর নেতৃত্বে পিরোজপুর জেলা শ্রমিক লীগের নতুন কমিটি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মশিউর রহমান রাহাত, পিরোজপুর

Image

জাতীয় শ্রমিক লীগের পিরোজপুর জেলা শাখার নতুন কার্যকরী কমিটি গঠিত হয়েছে। শ্রমিক নেতা  মো. আলমগীর হোসেনকে সভাপতি এবং মো. বাদশাহ মোল্লাকে সাধারণ সম্পাদক করে আগামী ৩ বছরের জন্য ৭১ সদস্যের কার্যকরী কমিটি অনুমোদন পেয়েছে। জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি নুর কুতুব আলম মান্নান এবং সাধারণ সম্পাদক কেএম আযম খসরু গতকাল সোমবার কমিটি অনুমোদন দিয়েছে।

কমিটির অন্যরা হলেন, সহ-সভাপতি আবুল কালাম মৃধা, শেখ রাজু আহম্মেদ মনা, শাহ জালার সিকদার, মো. জাকির খান, মাহমুদ হাসান আবুল, মো. সুলতান আহম্মেদ, শহিদুল ইসলাম সিকদার, মতিউর রহমান হাওলাদার, মতিউর রহমান, মো. ফরিদ আহমেদ, ফায়েজ আহমেদ, ফারুক হোসেন, আব্দুল মান্নান বাবুল ও আজিবর ফকির।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. বশির সিকদার, মো. লাভলু হাওলাদার, আলমগীর মহাজন, মো. মিঠু সরদার, রিয়াজুল ইসলাম ও জাকির খান।

সহ-সাধারণ সম্পাদক মো. কাইয়ুম শেখ, মতিউর রহমান, সেলিম শেখ, মোস্তফা মোল্লা ও রুবেল শেখ। সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল ইসলাম, মিরাজুল ইসলাম তালুকদার, শেখ নাজমুল হুদা তানিম, শামীম সিকদার, মো. কামাল হোসেন ও মো. রেজাউল করিম। সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সায়েম কাজী, জলিল জোমাদ্দার, মোস্তফা, এনাম কাজী ও নাছির খান। প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আলমগীর খান এবং সহ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মো. সোহেল। দপ্তর সম্পাদক হাছান আল-আমিন (সুমন) এবং সহ-দপ্তর সম্পাদক শামীম সিকদার। অর্থ বিষয়ক সম্পাদক বেলায়েত হোসেন এবং সহ-অর্থ বিষয়ক সম্পাদক জসীম।

আইন ও দর কষাকষি সম্পাদক মামুন মাঝি এবং সহ- আইন ও দর কষাকষি সম্পাদক সেলিম। শিক্ষা, সাহিত্য ও গবেষণা সম্পাদক মো. হান্নান হাওলাদার এবং সহ-শিক্ষা, সাহিত্য ও গবেষণা সম্পাদক মিয়াধ শেখ। ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক মাসুম মোল্লা এবং সহ-ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক অরুন কুমার শীল।

শ্রমিক কল্যান ও উন্নয়ন সম্পাদক মো. মাসুম হাওলাদার এবং সহ-শ্রমিক কল্যান ও উন্নয়ন সম্পাদক বিশ্বজিৎ শীল।  ত্রাণ ও পূর্নবাসন বিষয়ক সম্পাদক মান্নান শেখ এবং সহ-ত্রাণ ও পূর্নবাসন বিষয়ক সম্পাদক রানা শেখ। মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ইরানী শেখ এবং সহ-মহিলা বিষয়ক সম্পাদক শিল্পী।

কার্যকরী সদস্য আব্দুর রশীদ, আবদুল্লাহ আল মামুন, মানিক মল্লিক, রেজাউল, সেলিম সিকদার, হায়দার খান, হুমায়ুন হাওলাদার, তৌহিদুল শেখ, জাহাঙ্হীর মাতুব্বর, সোহাগ হাওলাদার, আব্দুর রহিম হাওলাদার, হায়দার বেপারী, শহিদ শেখ, মো. বেল্লাল এবং মো. ফরিদ।

নিউজ ট্যাগ: শ্রমিক লীগ

আরও খবর



এবার কেজরিওয়ালকে গ্রেফতার করল সিবিআই

প্রকাশিত:বুধবার ২৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৬ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

আবগারি দুর্নীতি মামলায় এবার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে গ্রেফতার করেছে সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (সিবিআই)।

বুধবার (২৬ জুন) দিল্লির রাউস অ্যাভিনিউ কোর্টের ভেতর থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

বুধবার দিল্লির একটি আদালত সিবিআইকে আবগারি দুর্নীতি মামলায় মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রেফতারের অনুমতি দেয়। বিশেষ বিচারক অমিতাভ রাওয়াতের নির্দেশে কেজরিওয়ালকে গ্রেফতার করে সিবিআই।

এর আগে মঙ্গলবার (২৬ জুন) তদন্ত সংস্থাটি তিহার জেলে আম আদমি পার্টির এই নেতাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে তার বয়ান রেকর্ড করে।

আবগারি দুর্নীতি মামলায় চলতি বছরের ২১ মার্চ অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে গ্রেফতার করে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। গত ১০ মে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে ২১ দিনের জামিন পান তিনি। লোকসভা নির্বাচনের জন্য এই তিন সপ্তাহের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়েছিলেন আদালত। সেই জামিনের সময় শেষ হলে কেজরিওয়ালকে আবারও কারাগারে পাঠানো হয়।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) দিল্লির রাউস অ্যাভিনিউ আদালত তার জামিন মঞ্জুর করেন। তবে কেজরিওয়ালের জামিন ৪৮ ঘণ্টা পিছিয়ে দেয়ার আবেদন করেছিল ইডি; যা গ্রাহ্য হয়নি। বিচারক ন্যায় বিন্দু কেজরিওয়ালকে জামিন দেন সেদিন।

পরদিন শুক্রবার সকালে সেই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে মামলা করে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাটি। ইডির আবেদনে সাড়া দিয়ে কেজরিওয়ালের জামিন স্থগিত রাখে দিল্লি হাইকোর্ট।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) দিল্লির রাউস অ্যাভিনিউ আদালতের জামিনের নির্দেশ স্থগিতের আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। জামিনের নির্দেশ স্থগিতের আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।


আরও খবর