আজঃ বুধবার ২৪ জুলাই 20২৪
শিরোনাম

এবার প্রকাশ্যে ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রীর ওপর হামলা

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রী মেটে ফ্রেডেরিকসেন রাজধানীর ব্যস্ত স্থানে প্রকাশ্যে হামলার শিকার হয়েছেন। স্থানীয় সময় শুক্রবার (৭ জুন) কোপেনহেগেনে এক ব্যক্তি এই হামলা চালায় বলে তার কার্যালয় জানিয়েছে।

জানা গেছে, সন্ধ্যায় কোপেনহেগেনের কুলতোরভেটে (পাবলিক স্কয়ার) প্রধানমন্ত্রী মেটে ফ্রেডেরিকসেনকে এক ব্যক্তি সজোরে ধাক্কা মারেন। পরে ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মেটে ফ্রেডেরিকসেন হামলার ঘটনায় হতবাক’ হয়ে পড়েছেন। শহরের কেন্দ্রস্থলে একটি চত্বরে এমন হামলা ভীতিকর পরিবেশ সৃষ্টি করে। ইউরোপীয় কমিশনের প্রধান উরসুলা ভন ডার লেইন এটিকে ঘৃণ্য কাজ’ বলে অভিহিত করেছেন।

দেশটির পুলিশ জানিয়েছে, তারা একজনকে গ্রেপ্তার করেছে এবং ঘটনাটি তদন্ত করছে। তবে এর বেশি কিছু বলতে রাজি হয়নি। হামলার কারণ সম্পর্কে এখনও কিছু জানা যায়নি।

দুই প্রত্যক্ষদর্শী ম্যারি আদ্রিয়ান ও আনা রাভন স্থানীয় সংবাদপত্র বিটিকে বলেছেন, তারা হামলাটি প্রত্যক্ষ করেছেন। বিপরীত দিক থেকে এক ব্যক্তি এসে প্রধানমন্ত্রীর কাঁধে জোরে একটা ধাক্কা দেয়। যার ফলে সে পাশে পড়ে যায়। এটি একটি শক্তিশালী ধাক্কা’ হলেও প্রধানমন্ত্রী মাটিতে পড়ে যাননি।

হামলার পর দেশটির পরিবেশমন্ত্রী ম্যাগনাস হিউনিক বলেন, রাজনৈতিক মতবিরোধ, নির্বাচনী প্রচারণা যাই হোক না কেন, একে অপরের দেখাশোনা করা প্রত্যেকের দায়িত্ব। আমাদের সুন্দর, নিরাপদ এবং মুক্ত দেশে এ ধরনের কিছু ঘটতে পারে না। এটি কুৎসিত এবং অগ্রহণযোগ্য। আসুন আমরা দেখাই যে, ডেনমার্ক অনেক ভালো।

ডেনমার্কের মধ্য-বামপন্থী সোশ্যালিস্ট ডেমোক্রেটিক পার্টির নেতা ফ্রেডেরিকসেন ২০১৯ সাল থেকে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন।


আরও খবর
আজ নেলসন ম্যান্ডেলার জন্মদিন!

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




নামাজ পড়তে গিয়ে ঈশ্বরদীতে মাদ্রাসা ছাত্র নিখোঁজ

প্রকাশিত:শনিবার ২৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৯ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি

Image

ঈশ্বরদীতে হুসাইন মোঃ হুজ্জাতুল্লাহ্ নামের এক মাদ্রাসা ছাত্র নিখোঁজ হয়েছে। তিন দিন পেরিয়ে গেলেও তার কোনো সন্ধান পাননি তার পরিবার।

গত বুধবার (২৬ জুন) উপজেলার মুলাডুলি ইউনিয়নের ফরিদপুর গ্রামের বাড়ির পাশের একটি মসজিদে এশার নামাজ পড়তে গিয়ে আর বাড়ি ফিরে আসেনি হুসাইন মোঃ হুজ্জাতুল্লাহ্ ওরফে উদয় (১৩) নামের এক মাদ্রাসা ছাত্র।

নিখোঁজ মাদ্রাসা ছাত্র হুসাইন মোঃ হুজ্জাতুল্লাহ পাবনার বলরামপুর (মোহাম্মদপুর) তাহফিজে সিলসিলায়ে মোজাদ্দিদ জামান পীর আবু বকর সিদ্দিকী (রহ:) ফুরফুরা কুরআন সুন্নাহ্ মিশন মাদ্রাসার হিফজ বিভাগের ছাত্র ও ঈশ্বরদী উপজেলার মুলাডুলি ইউনিয়নের ফরিদপুর গ্রামের মোঃ আফজাল হোসেন ও হোসনেয়ারা পারভীন পল্লবীর ছেলে।

নিখোঁজ ছাত্রের বাবা মোঃ আফজাল হোসেন জানান, বুধবার সন্ধা ৭.৪৫ এ আমার ছেলে বাড়ির সাথে (৩০০ গজ দুরত্বে) অবস্থিত জান্নাতুল মাওয়া জামে মসজিদে এশার নামাজ পড়তে যায়। নামাজ শেষ হলেও আমার ছেলে আর বাড়ি ফিরে আসেনি। সকল আত্বীয়স্বজন ও আমার ছেলের মাদ্রাসায় খোঁজ নিয়ে না পেয়ে ২৮ তারিখে ঈশ্বরদী থানায় একটি জিডি কেরেছি। জিডি নং: ১৯৫০।

নিখোঁজ ছাত্রের মা হোসনেয়ারা পারভীন পল্লবী জানান, আমার ছেলে পাবনায় একটি মাদ্রাসায় পড়াশোনা করে। হিফজ করতেছে। ঈদের ছুটিতে বাড়ি এসেছে। এখন সে নিখোঁজ রয়েছে। আমার ছেলের সন্ধান চাই।

হোসনেয়ারা খাতুন আরো জানান, আমার স্বামীর স্থায়ী ঠিকানা : বিশ্বাস পাড়া, কোলেরকান্দি, সলিমপুর ইউনিয়ন, ঈশ্বরদী, পাবনা। আমার মায়ের সুত্রধরে এখানে প্রায় ১০ বছর যাবত বাড়ি করে বসবাস করছি।

ছেলেটির সন্ধান পেলে নিম্নোক্ত নাম্বারে জানানোর অনুরোধ জানিয়েছেন নিখোঁজ ছাত্রের বাবা ০১৭৯৪৯৩২৫৪৩, ০১৭২৫০৯৬৩১২, ০১৭৯৮৪৫২৬৪৯।

ঈশ্বরদী থানার ওসি মো. রফিকুল ইসলাম জানান, মাদ্রাসা ছাত্র নিখোঁজ সংক্রান্ত একটি জিডি হয়েছে। তদন্ত চলছে।


আরও খবর



রুশ যাত্রীবাহী বিমান বিধ্বস্ত, সব আরোহী নিহত

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

রাশিয়ার মস্কোর কাছে একটি যাত্রীবাহী বিমান বিধ্বস্ত হয়েছে। দেশটির জরুরি মন্ত্রণালয় জানিয়েছে মস্কোর কাছাকাছি এলাকায় বিমানটি বিধ্বস্ত হয়। সুখোই সুপারজেট ১০০ নামের বিমানটি বনাঞ্চল এলাকায় তিনজন ক্রু নিয়ে বিধ্বস্ত হয়। ধারণা করা হচ্ছে তাদের কেউ বেঁচে নেই। বিমানটিতে কোনো যাত্রী ছিল না। শুক্রবার (১২ জুলাই) এই ঘটনা ঘটেছে বলে রুশ সংবাদ সংস্থাগুলোর বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে এএফপি।

দেশটির সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বিমানটি মেরামতের পরই পরীক্ষামূলকভাবে উড্ডয়নের পর বিধ্বস্তের ঘটনা ঘটে। শুক্রবার (১২ জুলাই) পরীক্ষামূলক ফ্লাইট পরিচালনা করতে বিমানটি উড্ডয়ন করা হয়।

রাশিয়া নিজেদের তৈরি সুখোই সুপারজেট বিমান বিভিন্ন অঞ্চলে মোতায়েন করেছে। মূলত দেশটির যেসব অঞ্চলে পশ্চিমাদের তৈরি বিমান ব্যবহার করা হয়েছে, সেখানে এই বিমান ব্যবহার হচ্ছে। ২০২২ সালে ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলা শুরুর পর নিজেদের তৈরি বিমান ব্যবহারে ব্যাপকভাবে ঝুঁকেছে মস্কো।

শুক্রবার রাশিয়ার জরুরি মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বিমানটি গভীর জঙ্গলে বিধ্বস্ত হয়েছে এবং এতে স্থানীয় কোনো ব্যক্তি আহত ও নিহত হয়নি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশিত ভিডিও ও ছবিতে দেখা যাচ্ছে, দুর্ঘটনাস্থল থেকে ধোঁয়ার কুণ্ডলি বের হচ্ছে। বিধ্বস্তের ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।


আরও খবর
আজ নেলসন ম্যান্ডেলার জন্মদিন!

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




চাচাতো বোনকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ ছাত্রলীগের নেতার বিরুদ্ধে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
উপজেলা প্রতিনিধি

Image

বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার দাড়িয়াল ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াজ হাওলাদারের বিরুদ্ধে চাচাতো বোন লোপা আক্তারকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার (৩ জুলাই) বরিশাল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতে ছাত্রলীগ নেতা রিয়াজ হাওলাদার ও তার বড় ভাই রাকিবুল আলমের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেছেন নিহতের মা জেসমিন বেগম।

ছাত্রলীগের নেতা রিয়াজ হাওলাদার দাড়িয়াল ইউনিয়নের কালেঙ্গা গ্রামের আব্দুল মান্নান হাওলাদারের ছেলে। নিহত লোপা আক্তার নাসির হাওলাদার ও জেসমিন বেগম দম্পতির মেয়ে। লোপা ছাত্রলীগ নেতা রিয়াজের চাচাতো বোন।

জানা গেছে, নাসির হাওলাদারের মেয়ে লোপা আক্তার দাড়িয়াল ইউনিয়নের আলহাজ হজরত আলী ডিগ্রি কলেজের এইচএসসি প্রথম বর্ষের একজন শিক্ষার্থী ছিলেন। লোপার বাবা নাসির হাওলাদার ছাত্রলীগ নেতা রিয়াজ হাওলাদারের চাচা।

লোপা আক্তারের মা জেসমিন অভিযোগ করে বলেন, আমার মেয়ে লোপা আক্তারের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক করার জন্য দীর্ঘদিন ধরে প্রস্তাব দিয়ে আসছিল রিয়াজ। লোপা গত ২২ জুন রাতে ঘরের সামনের রুমে একা ঘুমাতে যায়। আমি রাত সাড়ে ৪টায় ঘুম থেকে উঠে ফজরের নামাজ পড়তে আমার মেয়েকে ডাকতে যাই। গিয়ে দেখি আমার মেয়ে ফ্লোরে হাঁটু গেড়ে বসা অবস্থায় জানলার গ্রিলের সঙ্গে ঝুলে আছে।

এ সময় আমি চিৎকার করলে আমার ছেলে মেহেদী ও পাশের ঘর থেকে রিয়াজ ও তার ভাই রাকিবুল এসে লোপার ঝুলন্ত লাশ জানলার গ্রিল থেকে নিচে নামায়। এ সময় আমাকে চিৎকার দিতে না করে রিয়াজ। এ সময় রিয়াজ বলে যা হওয়ার তা হয়েই গেছে। লোপা তো আর ফিরে আসবে না।

মানুষ যদি জানে লোপা আত্মহত্যা করেছে তাহলে মান-সম্মান নষ্ট হবে। আমি তখন আতঙ্কিত হয়ে যাই। তখন রিয়াজ ও তার ভাই রাকিবুল বলে লোপা হার্ট অ্যাটাকে মারা গেছে এ কথা সবাইকে বলবেন। সকাল হলে সবাইকে বলি হার্টস্ট্রোক করে লোপা মৃত্যুবরণ করেছে। পরে লোপার লাশ বাড়িতে দাফন করি। এরপর আমি কিছুদিন অসুস্থ অবস্থায় থাকি। স্বাভাবিক হলে বুঝতে পারি আমার মেয়ে লোপাকে ধর্ষণ করে হত্যা করা হয়েছে। পরে আমি বরিশাল আদালতে একটি মামলা দায়ের করি।

এ বিষয়ে জানতে দাড়িয়াল ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াজ হাওলাদারকে বারবার ফোন করা হলেও তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে।

বাকেরগঞ্জ থানা ওসি আফজাল হোসেন বলেন, দাড়িয়াল ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াজ হাওলাদারের বিরুদ্ধে আদালতে মামলার বিষয়ে শুনেছি। তবে এখন পর্যন্ত আদালত থেকে কোনো কপি থানায় এসে পৌঁছায়নি।


আরও খবর



শাশুড়িকে বাঁচাতে গিয়ে প্রাণ গেল পুত্রবধূরও

প্রকাশিত:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
শহীদুল ইসলাম, ধর্মপাশা (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি

Image

সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় হাওরে গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে শাশুড়ি ও অন্তঃসত্ত্বা পুত্রবধূর মৃত্যু হয়েছে। শুক্রবার (১২ জুলাই) দুপুর ২টার দিকে উপজেলার মুগরাইন হাওরে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উপজেলার সদর ইউনিয়নের জানিয়ারচর গ্রামের ফিরোজ আলীর স্ত্রী রেজিয়া আক্তার ও ছেলে হক মিয়ার স্ত্রী পিপাসা আক্তার (২১)।

স্থানীয়রা জানান, দুপুরে রেজিয়া আক্তার ও পিপাসা আক্তার দুজনেই বাড়ির পেছনে মুগরাইন হাওরের পানিতে গোসল করতে যান। গোসল করতে গিয়ে রেজিয়া আক্তার পা পিছলে হাওরের পানিতে পড়ে স্রোতে ভেসে যান। এ সময় শাশুড়িকে উদ্ধারের চেষ্টা করেন ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা পুত্রবধূ পিপাসা আক্তার। তখন পিপাসাও স্রোতে ভেসে যান। পরে পরিবারের লোকজন খোঁজ পেয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় জাল ফেলে দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করেন। 

ধর্মপাশা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শামসুদ্দোহা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।


আরও খবর



রাস্তা ছাড়তে আন্দোলনকারীদের অনুরোধ করছে পুলিশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থা বাতিল করে ২০১৮ সালে সরকারের জারি করা পরিপত্র বহাল রাখার দাবিতে শাহবাগ মোড় অবরোধ করে আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রত্যাশীরা। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন তারা।

এদিকে অবরোধের কারণে শাহবাগ মোড় দিয়ে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। সৃষ্টি হয়েছে তীব্র যানজট। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। আজ সাপ্তাহিক ছুটির দিন, অফিস ছুটির পর রাজধানীর সড়কে গাড়ির চাপ আরও বাড়বে। তখন যদি রাস্তা অবরোধ থাকে তাহলে মানুষের কষ্ট আরও বাড়বে। তাই পুলিশ চাইছে, অফিস ছুটির আগেই আন্দোলনকারীদের রাস্তা থেকে সরিয়ে দিতে।

পুলিশ বলছে, আজ বৃহস্পতিবার সপ্তাহের শেষ দিন। বিকেল থেকে সব অফিস-আদালত ছুটি হলে সড়কে যানবাহনে চাপ বাড়বে। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলা হচ্ছে। তাদের অনুরোধ জানানো হচ্ছে, সড়ক অবরোধ যেন ছেড়ে দেয়।

এ বিষয়ে শাহবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মোস্তাজিরুর রহমান বলেন, শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা চলছে। অফিস ছুটির আগে সড়ক ছেড়ে দিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে রমনা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মোহাম্মদ আশরাফুল ইসলাম বলেন, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলা হচ্ছে। তাদের অনুরোধ জানানো হয়েছে তারা যেন সড়ক অবরোধ না করেন।


আরও খবর