আজঃ বুধবার ২৪ জুলাই 20২৪
শিরোনাম

এবার মানব শুক্রাণুতে মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতি শনাক্ত

প্রকাশিত:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্ক

Image

এবার মানব শুক্রাণুতে মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতির প্রমাণ মিলেছে। একটি গবেষণায় পরীক্ষা করা সব শুক্রাণুর নমুনায় মাইক্রোপ্লাস্টিক শনাক্ত হয়েছে। সম্প্রতি দ্য গার্ডিয়ানের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

গবেষকরা বলছেন, মানব শুক্রাণুতে মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতি শনাক্ত হওয়ায় প্রজননের ওপর এর প্রভাব নিয়ে আরও গবেষণা করা জরুরি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কয়েক দশক ধরেই পুরুষের শুক্রাণুর পরিমাণ (স্পার্ম কাউন্ট) কমেছে। ৪০ শতাংশ স্পার্ম কাউন্ট কমার ব্যাখ্যা পাওয়া যায়নি। রাসায়নিক দূষণ এটির কারণ হতে পারে বলে অনেক গবেষণায় ইংগিত দেওয়া হয়েছে।

দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, চীনের জিনানে ৪০ জন সুস্থ পুরুষের শুক্রাণুর নমুনা নিয়ে পরীক্ষা করা হয়েছে। ইতালিতে আরেক গবেষণায় ১০ জন পুরুষের থেকে নমুনা নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ছয়টি নমুনায় মাইক্রোপ্লাস্টিকের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া চীনের অপর এক গবেষণায় ২৫ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এরমধ্যে প্রায় অর্ধেকে মাইক্রোপ্লাস্টিক মিলেছে।

সম্প্রতি ইঁদুরের ওপর চালানো এক গবেষণায় দেখা গেছে, মাইক্রোপ্লাস্টিকের কারণে ইঁদুরের স্পার্ম কাউন্ট কমে গিয়েছে। এছাড়া এটির কারণে অস্বাভাবিক আচরণ ও হরমোনে ভারসাম্য নষ্ট হয়েছে।

বর্তমানে মাইক্রোপ্লাস্টিক নিয়ে বিস্তর গবেষণা চলছে। এতে সবত্রই মাইক্রোপ্লাস্টিক দূষণের প্রমাণ মিলছে। গত মে মাসে চালানো এক পরীক্ষায় ২৩টি পুরুষ অন্ডকোষের নমুনায় এ পরীক্ষা চালানো হয়। এতে সবকটিতেই এ ক্ষতিকর কণার উপস্থিতি শনাক্ত হয়।

এর আগে মানুষের রক্ত, প্লাসেন্টা ও বুকের দুধে মাইক্রোপ্লাস্টিকের অস্তিত্ব মেলে। এ সব গবেষণার ফলাফলে মানবদেহে সর্বত্র ক্ষতিকর এ কণার উপস্থিতির ইংগিত মিলে। তবে স্বাস্থ্যের ওপর এর ক্ষতিকর প্রভাব এখন জানা যায়নি। গবেষণাগারে দেখা গেছে, মানবদেহের কোষের ক্ষতি করে মাইক্রোপ্লাস্টিক।

প্রতিবছর লাখ লাখ টন প্লাস্টিক বর্জ্য পরিবেশে ফেলে দেওয়া হচ্ছে। যার একটি অংশ সৃষ্টিজগতের খাবার থেকে শুরু করে মানুষের শরীরে গিয়ে মিশছে। এভারেস্ট পর্বতের চূড়া থেকে সমুদ্রের তলদেশেও মাইক্রোপ্লাস্টিকের দূষিত কণা পৌঁছে গেছে।

চীনের কিংদাও ইউনিভার্সিটির গবেষক নিং লি ও তার সহকর্মীরা জানান, মানব স্বাস্থ্যের ওপর মাইক্রোপ্লাস্টিকের ক্ষতিকর প্রভাব রয়েছে বলে গবেষণা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে মনে হচ্ছে প্রজননের ওপর এটির সম্পর্ক গুরুত্বপূর্ণ বলেও জানান তারা।


আরও খবর



নিহত সাঈদের পরিবারের সহায়তায় ১০ লক্ষাধিক টাকা সংগ্রহ বুয়েটিয়ানদের

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

কোটা সংস্কার আন্দোলন করতে গিয়ে রংপুরে পুলিশ ও ছাত্রলীগের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী আবু সাঈদের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন বুয়েটিয়ানরা। তাদের সহায়তায় এরই মধ্যে পাওয়া গেছে সাড়ে ১০ লাখ টাকা।

বুধবার (১৭ জুলাই) রাতে বুয়েট শিক্ষার্থীদের পেজ বুয়েটিয়ান থেকে তথ্যটি শেয়ার করা হয়। বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) রংপুরের পীরগঞ্জে আবু সাঈদের পরিবারের হাতে নগদ এ অর্থ তুলে দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়েছে।

বুয়েটিয়ান পেজ থেকে জানানো হয়, বুধবার রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত আবু সাঈদের পরিবারের সহায়তায় ১০ লাখ ৫০ হাজার ২৪৩ টাকা জমা হয়েছে। এর মধ্যে বিকাশে সাত লাখ ১৪ হাজার ৭৩৫ টাকা, নগদে এক লাখ ৬৮ হাজার ৭০৫ টাকা, রকেটে ৬৩ হাজার ৯২৩ টাকা, ব্যাংকে ৯৩ হাজার ৮৮০ টাকা এবং পেপালের মাধ্যমে নয় হাজার টাকা জমা হয়েছে।

এ অর্থ আবু সাঈদের পরিবারের যেসব বিষয় প্রয়োজন সেই খাতে খরচ করা হবে বলেও জানানো হয়েছে। বলা হয়েছে, আমরা আবু সাঈদের পরিবারের সাথে যোগাযোগ করেছি এবং তাদের কাছ থেকে তাদের প্রয়োজনের বিষয়ে সংক্ষেপে শুনেছি। সবকিছু শুনে আমরা একটা খসড়া সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

১। আবু সাঈদের পরিবারের ঘর মেরামত করে দেওয়া।

২। গরু কিনে দেওয়া।

৩। জমি এবং আনুষঙ্গিক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করে দেওয়া (যেহেতু পিতা কৃষক)।

৪। তার ভাইয়ের মেডিকেল ট্রিটমেন্টের ব্যবস্থা করা।

আজ রংপুরের পীরগঞ্জে আবু সাঈদের পরিবারের সাথে দেখা করতে একটি বুয়েটিয়ান দল যাবে। সেখানে গিয়ে আলোচনার পর যে বিষয় তাদের প্রয়োজন, সবচেয়ে ভালোভাবে পূরণ হয় সেটাই নেওয়ার চেষ্টা করা হবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়। এছাড়া সার্বিক বিষয়ে বুয়েটিয়ান পেজে নিয়মিত আপডেট দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়।

আবু সাঈদ ছাড়াও এ কোটা সংস্কার আন্দোলনে যারা নিহত হয়েছেন, তাদের পরিবারের সঙ্গেও যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। পেজ থেকে সহায়তার জন্য অর্থ তুলে ওইসব পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়।


আরও খবর
আরও ৩ দিনের এইচএসসি পরীক্ষা স্থগিত

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




সেমিতে যেতে ১২.১ ওভারে বাংলাদেশের লক্ষ্য ১১৬

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

বাংলাদেশকে ১১৬ রানের লক্ষ্য দিয়েছে আফগানিস্তান। আগে ব্যাটিং করতে নেমে ৫ উইকেটে ১১৫ রান করেছে রশিদ খানের দল। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৩ রান করেছেন রহমানউল্লাহ গুরবাজ। রান রেটে এগিয়ে সেমিফাইনালে যেতে হলে বাংলাদেশকে ১২.১ ওভারে এই লক্ষ্য ছুঁতে হবে।

স্কোর লেভেল করে যদি চার মারতে পারে বাংলাদেশ, তাহলে সময় পাবে ১২.৩ ওভার। কিংবা স্কোর লেভেল করে যদি ছক্কা মারতে পারে বাংলাদেশ, তাহলে সময় পাবে ১২.৫ ওভার। যদিও সেন্ট ভিনসেন্টে বৃষ্টি নামায় বাংলাদেশের ইনিংস শুরু হতে দেরি হবে।

এর আগে সুপার এইটের শেষ ম্যাচে দুটি পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ দল। একাদশে ফিরেছেন তাসকিন আহমেদ ও সৌম্য সরকার। বাদ পড়েছেন জাকের আলী অনিক ও মেহেদী হাসান। এ দিকে অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর একাদশ নিয়ে মাঠে নেমেছে আফগানরা।

চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত ওপেনিং জুটিতে সবচেয়ে বেশি রান করেছেন ইব্রাহিম জার্দান ও রহমানউল্লাহ গুরবাজ। তবে এ ম্যাচে পাওয়ার প্লেতে তাদের বেঁধে রাখেন টাইগার বোলাররা।

তানজিম হাসান সাকিব, তাসকিন আহমেদের গতিময় বোলিংয়ে দিশেহারা দুই আফগান ওপেনার। রানের জন্য ছটফট করছিলেন দুজন। পঞ্চম ওভারে বোলিংয়ে আসেন সাকিব আল হাসান।

তার বলে কাভারে ক্যাচ তুলেছিলেন ইব্রাহিম। কিন্তু সেই ক্যাচ লুফে নিতে পারেননি তাওহীদ হৃদয়। পাওয়ার প্লেতে আফগানদের সংগ্রহ ছিলো কোনো উইকেট না হারিয়ে মাত্র ২৭ রান।

এই ধারা অব্যাহত থাকে বাকি ওভার গুলোতেও। ২০ ওভারে সর্বমোট ৬৬টি ডট বল করেছেন তাসকিন-সাকিবরা। অর্থাৎ ১১ ওভারে কোনো রান তুলতে পারেনি আফগান ব্যাটাররা।

১১তম ওভারে প্রথম উইকেটের দেখা পায় বাংলাদেশ। ইব্রাহিমকে (১৮) ফিরেয়ে ৫৯ রানের ওপেনিং জুটি ভাঙেন রিশাদ হোসেন। ওভারটি উইকেট মেডেন করেন রিশাদ। ১৭তম ওভারে আজমতউল্লাহ ওমরজাই (১০) এবং গুরবাজকে (৪৩) সাজঘরে ফেরান এই লেগ স্পিনার। ২৬ রানে তার শিকার ৩ উইকেট।

সেমিফাইনালে খেলতে শুধু মাত্র জয় পেলেই হবে আফগানদের। এমনকি বৃষ্টিতে খেলা পণ্ড হলেও শেষচারে খেলবে তারা।


আরও খবর



প্রতারণা মামলা: অনন্ত জলিলের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ১৭ সেপ্টেম্বর

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

প্রতারণার অভিযোগে করা মামলায় আলোচিত চিত্রনায়ক ও ব্যবসায়ী অনন্ত জলিলসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলামের আদালতে মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। তবে এদিন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) প্রতিবেদন দাখিল করেনি। এজন্য প্রতিবেদন দাখিলের নতুন এদিন ধার্য করেন আদালত।

মামলায় অনন্ত জলিল ছাড়াও অন্য আসামিরা হলেন- জাহানারা বেগম, অনন্ত জলিলের কোম্পানিতে বিভিন্ন পদে কর্মরত মো. শরীফ হোসাইন, সাকিবুল ইসলাম, মিলন ও শহিদুল ইসলাম।

গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলামের আদালতে শাফিল নাওয়াজ চৌধুরী নামের এক ব্যবসায়ী বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

আদালতে মামলার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে অভিযোগের বিষয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

মামলার আর্জিতে বাদী উল্লেখ করেন, ২০২২ সালের ১৭ অক্টোবর আসামিরা পলো কম্পোজিট কোম্পানির নামে বাদীর কাছে গার্মেন্টস সম্পর্কিত কিছু কাজের জন্য অর্ডার দেন। এরপর বাদী কাজ শুরু করে কাজের বিপরীতে প্রতিশ্রুত টাকা চাইলে আসামিরা কাজ চালিয়ে যেতে বলেন এবং এলসির মাধ্যমে টাকা দেবেন বলে জানান। পরবর্তীসময়ে তারা আরও বেশ কিছু কাজের অর্ডার দেন।

এ বছরের মার্চ পর্যন্ত বাদী সবগুলো কাজ আসামিদের বুঝিয়ে দেন। এরপর গত ১৫ মার্চ টাকা পরিশোধের জন্য মার্কেন্টাইল ব্যাংকে আসামিরা বাদীর একটি এলসি করেন। পরে বাদী টাকার জন্য ব্যাংকে যোগাযোগ করলে এলসির কাগজপত্রে ত্রুটির জন্য টাকা উঠাতে ব্যর্থ হন।

আর্জিতে আরও বলা হয়, বাদী চুক্তি অনুযায়ী কাজ সম্পন্ন করলেও অনন্ত জলিলের মালিকানাধীন কোম্পানিটি এখন পর্যন্ত কোনো টাকা পরিশোধ করেনি, যার পরিমাণ প্রায় ২৯ হাজার ২০০ ডলার।

নিউজ ট্যাগ: অনন্ত জলিল

আরও খবর
কোটা নিয়ে আপিল বিভাগে শুনানি রোববার

বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪




হঠাৎ কাদের ওপর চটলেন অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৫ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

এবার ঈদুল আজহায় দেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খান অভিনীত তুফান সিনেমা। রায়হান রাফী পরিচালিত সিনেমাটি মুক্তির পর থেকেই আলোচনায়। ইতোমধ্যে দেশ পেরিয়ে দেশের বাইরের প্রেক্ষাগৃহও মাতিয়ে বেড়াচ্ছে সিনেমাটি। সেই ধারাবাহিকতায় সিনেমাটি এবার মুক্তি পেল ভারতে।

শুক্রবার (৫ জুলাই) ভারতে মুক্তি পায় তুফান। সাড়া জাগানো সিনেমাটি ভারতে মুক্তির আগের দিন বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) বিকেলে কলকাতার সাউথ সিটি মলে অনুষ্ঠিত হয় সিনেমাটির কলকাতা প্রিমিয়ার। এর আগে সেখানে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন অভিনেতা শাকিব খান ও টালিউড অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী।

এ দিন পাশে বসা সহকর্মী শাকিব খানকে নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন মিমি। সিনেমা সংশ্লিষ্টও বিভিন্ন ব্যাপারে কথা বলেন। এ সময় ট্রোলারদের একহাত নিতে ছাড় দেননি তিনি। তখনই কথা বলতে গিয়ে চটে যান এই টালি তারকা।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী মিমি বলেন, প্রোমোশনে একটা হিন্দি কথা বলে থাকি, তাহলে আপনাদের চ্যানেলেরেই নিচে গিয় বলবে যে, হ্যাঁ হিন্দিতে কথা বলছে, হ্যাঁ ইংরেজিতে কথা বলছে। কেন, বাংলা ভাষায় কথা বলতে লজ্জা লাগে? অথচ তারা কিন্তু সিনেমা হলে গিয়ে সিনেমাটি দেখে না। তাদের উদ্দেশ্যে বলব যে, কমেন্টে বাংলা ভাষাকে ভালো না বেসে সিনেমা হলে গিয়ে ভালো বাসুন। তাহলেই সবাই এগিয়ে যেতে।

মিমির ভাষ্যতারকাদের নানা সময় বিভিন্ন ব্যাপারে কটাক্ষের মুখে পড়তে হয়। কখনো ক্যারিয়ার, কখনো লাইফস্টাইল, ভাষা, ড্রেসআপ এবং কখনো ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে। এ ক্ষেত্রে যারা তাদের নিয়ে ট্রোল করে থাকেন বিভিন্ন মাধ্যমে, তাদেরকেই স্পষ্টভাষায় জবাব দিলেন তিনি। বুঝিয়ে দিলেন, প্রতিবাদ কমেন্ট বক্সে নয়, বাস্তবে দেখালে তাতে সবাই উপকৃত হবে।


আরও খবর



ফেনীতে আন্দোলনকারীদের মিছিলে ছাত্রলীগের হামলা, আহত ২০

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রাজিব মাসুদ, ফেনী

Image

ফেনীতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের মিছিলে হামলার ঘটনা ঘটেছে। বুধবার (১৭ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শহরের দোয়েল চত্বরে এ হামলার ঘটনা ঘটে। শিক্ষার্থীদের দাবি, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের এ হামলায় অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। তবে আহতদের নাম পরিচয় জানা যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, কোটা সংস্কারের দাবিতে বিভিন্ন কলেজের শিক্ষার্থীরা দোয়েল চত্বরে জড়ো হতে থাকে। এ সময় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তোফায়েল আহমেদ তপুর নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা লাঠিসোটা নিয়ে আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা চালান। পুলিশের উপস্থিতিতে তারা শিক্ষার্থীদের মারধর করেন। একপর্যায়ে শিক্ষার্থীরাও শহরের বড় বাজারে অবস্থান নিয়ে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। এতে রেজাউল হক নামে এক পুলিশ কনস্টেবল আহত হন। তাকে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহাদাৎ হোসেন বলেন, কে কার ওপর কী কারণে হামলা করেছে আমরা এখনো স্পষ্ট নই। বিস্তারিত জানতে খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে।

কোটা আন্দোলনের সমন্বয়ক তাজিম জানান, সকাল থেকে শহরে আসা সাধারণ শিক্ষার্থীদের শহীদ মিনারে নিয়ে ব্যাগ তল্লাশি করেন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। তাদের বিভিন্নভাবে হেনস্তা করা হয়। তারা জড়ো হলে পুলিশের উপস্থিতিতে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা লাঠিসোটা নিয়ে হামলা করেন। এতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৫০ জনের অধিক সাধারণ শিক্ষার্থী আহত হন। এক দফা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত সাধারণ শিক্ষার্থীরা মাঠে থাকবে বলেও হুঁশিয়ার করেন তিনি।

ফেনী মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ রহুল আমিন জানান, পুলিশের উপস্থিতিতে হামলার বিষয়টি সঠিক নয়। ঘটনার পরপরই পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে দুই পক্ষকে সরিয়ে দেয়।


আরও খবর