আজঃ মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২
শিরোনাম

এবার ব‌রিশা‌লে জন্ম স্বপ্ন-পদ্মা-সেতুর

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৩ জুন ২০২২ | ৫১০জন দেখেছেন
আব্দুল্লাহ আল মামুন

Image

নারায়ণগঞ্জের পর এবার বরিশালে এক মায়ের কোলজুড়ে তিন কন্যাশিশু ভূমিষ্ট হয়েছে। তাদের নাম রাখা হয়েছে স্বপ্ন-পদ্মা-সেতু। বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) সকাল ৯টায় বরিশাল নগরীর ডা. মোখলেছুর রহমান ক্লিনিকে তাদের জন্ম হয়।

সার্জন ডা. মুন্সী মোমিনুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, আজ বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) ভোরে প্রসূতি নারীকে ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। নরমাল ডেলিভারি সম্ভব হয়নি। অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তিন নবজাতক ভূমিষ্ঠ হয়। তারা সকলেই কন্যা। এর মধ্যে দুইজনের ওজন দেড় কেজি করে। একজনের ওজন এক কেজি ৪০০ গ্রাম। নববজাতক তিনজন ও মা সুস্থ রয়েছেন।

জানা গেছে, বাবু সিকদার- নুরুন নাহার দম্পতির প্রথম সন্তান তারা। বাবু ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালান। সুযোগ পেলে তিনি দলের হয়ে কাজ করেন। চারদিকে এখন পদ্মা সেতু উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যাওয়ার প্রস্তুতি। মোটরসাইকেল চালকেরও প্রস্তুতি ছিল সমাবেশে যাওয়ার। কিন্তু তার আগেই প্রসববেদনা শুরু হয় স্ত্রীর। একটি বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি করালে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে ভূমিষ্ঠ হয় তিন কন্যা। খুশিতে নাম রাখেন স্বপ্ন, পদ্মা ও সেতু।

নবজাতকদের বাবা বাবু সিকদার জানান, তার বাড়ি বরিশাল সদর উপজেলার চরামদ্দি ইউনিয়নের বাদলপাড়া গ্রামের নিমতলা স্ট্যান্ড নামক স্থানে। স্ত্রীর নাম নুরুন নাহার।

তিনি বলেন, ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালিয়ে আমার সংসার চলে। তবে এলাকায় আওয়ামী লীগের রাজনীতি করি। গরিব মানুষ তো, দলের জন্য কিছু দিতে পারি না। এজন্য তিন মেয়ে যেহেতু আল্লাহ দিয়েছে, তাদের নাম রাখলাম স্বপ্নের পদ্মা সেতুকে ঘিরে।

তিনি বলেন, আমারও যাওয়ার কথা ছিল উদ্বোধনী সমাবেশে। কিন্তু এখন কীভাবে যাব বুঝতেছি না। মূলত নেত্রীকে ভালোবাসার কারণে আমার মেয়ে তিনজনের নাম রেখেছি স্বপ্ন, পদ্মা, সেতু।

তিন কন্যার জন্ম নিয়ে উভয় পরিবারে খুশির বন্যা বইছে বলে জানান নানি তাসলিমা বেগম ও দাদী মমতাজ বেগম।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (১৭ জুন) সকাল সাড়ে ১০টায় নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলায় এক দম্পতির ঘর আলো করে একসঙ্গে তিন শিশুর জন্ম হয়। তার মধ্যে একটি ছেলে শিশু, দুটি মেয়ে। মা-বাবা তাদের নাম রাখেন স্বপ্ন, পদ্মা ও সেতু। এর আগে মঙ্গলবার (১৫ জুন) লাইজু আক্তার নামে এক নারী নারায়ণগঞ্জ শহরের হেলথ রিসোর্ট হাসপাতালে একসঙ্গে তিন কন্যাসন্তানের জন্ম দেন।


আরও খবর



ড. ইউনূসের মামলার কার্যক্রম দুই মাস স্থগিত

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৩ জুন ২০২২ | ৩৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে করা মামলার কার্যক্রম নিম্ন আদালতে দুই মাসের জন্য স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ।

এ সময়ের মধ্যে শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে করা মামলা কেন বাতিল হবে না, এ মর্মে জারি করা রুল নিষ্পত্তি করতে হাইকোর্টকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আগের আদেশ সংশোধন করে আপিল বিভাগের বিচারপতি মো. নুরুজ্জামানের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ আজ সোমবার এ আদেশ দেন।

২০২১ সালের ৯ সেপ্টেম্বর শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ চার জনের বিরুদ্ধে মামলা করে ঢাকার কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তর। ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতে এ অধিদপ্তরের শ্রম পরিদর্শক আরিফুজ্জামান মামলাটি করেন। পরে বিবাদীদের আদালতে হাজির হওয়ার জন্য সমন জারি করে আদালত।

মামলার অন্য আসামিরা হলেনগ্রামীণ টেলিকমের এমডি আশরাফুল হাসান, পরিচালক নুর জাহান বেগম ও শাহজাহান। এ তিন আসামিও পৃথকভাবে মামলার আবেদন করেন।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ড. ইউনূসের গ্রামীণ টেলিকম পরিদর্শনে গিয়েছিলেন কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। সেখানে গিয়ে তাঁরা শ্রম আইনের কিছু লঙ্ঘন দেখতে পান। এর মধ্যে ১০১ জন শ্রমিক-কর্মচারীকে স্থায়ী করার কথা থাকলেও তাঁদের স্থায়ী করা হয়নি। শ্রমিকদের অংশগ্রহণের তহবিল ও কল্যাণ তহবিলও গঠন করা হয়নি। এ ছাড়া কোম্পানির লভ্যাংশের ৫ শতাংশ শ্রমিকদের দেওয়ার কথা থাকলেও তা দেওয়া হয়নি। এসব অভিযোগের ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি আইনে এ মামলা করা হয়।


আরও খবর



টেকনাফে হাজার ইয়াবাসহ আটক ১

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৯ জুন ২০২২ | ৪৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কক্সবাজারের টেকনাফের মেরিন ড্রাইভ চেকপোস্ট এলাকায় পুলিশ অভিযান চালিয়ে ২ হাজার ইয়াবাসহ এক ব্যক্তিকে আটক করেছে। বুধবার রাতে টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ চেকপোস্টের সামনে পাকা রাস্তার উপর থেকে ইয়াবাসহ তাকে আটক করা হয়।

আটক ব্যক্তির নাম মো. ইসমাইল। তিনি টেকনাফ সদর ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ছোট হাবির পাড়া এলাকার মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাফিজুর রহমান বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে টেকনাফ মডেল থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) রফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি টিম মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে। এসময় আটক আসামির হেফাজত থেকে তল্লাশি চালিয়ে ২ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধারকৃত ইয়াবাসহ আটক আসামিকে সংশ্লিষ্ট আইনে মামলা দায়েরের পর কক্সবাজার আদালতে প্রেরণের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

নিউজ ট্যাগ: ইয়াবাসহ আটক

আরও খবর



হোয়াটসঅ্যাপে পিন রিসেট করার উপায়

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ জুন ২০২২ | ২০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দিনে কয়েক কোটি গ্রাহক আছে জনপ্রিয় ইনস্ট্যান্ট মেসেজিং সাইট হোয়াটসঅ্যাপের। ব্যবহারকারীদের হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারের অভিজ্ঞতা আরও ভালো করতেই নিয়মিত আপডেট আনে সাইটটি। ব্যবহারকারীদের সুরক্ষার জন্য একাধিক ফিচারও যুক্ত করেছে সাইটটি। এর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় এবং নিরাপদ ফিচার হচ্ছে টু স্টেপ ভেরিফিকেশন। অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত রাখার জন্য টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন ফিচার খুবই কার্যকরী। এতে আপনার অজান্তে কেউ আপনার অ্যাকাউন্টে ঢুকতে পারবে না।

এর ফলে OTP দেওয়ার পরেও একটি পিন দিলে তবেই লগইন করা যাবে অ্যাকাউন্ট। নিজের অ্যাকাউন্টের পিন নিজেই সেট করতে পারবেন। এর ফলে অ্যাকাউন্টে সুরক্ষার একটি অতিরিক্ত স্তর যুক্ত হয়। এরপরে প্রত্যেকবার লগইনের সময় এই ছয় ডিজিটের পিন ব্যবহার করা বাধ্যতামূলক হবে। তবে যদি এই পিন ভুলে যান তাহলে কী করবেন? মেটার অন্যান্য প্ল্যাটফর্মগুলোর মতো হোয়াটসঅ্যাপেও আছে পিন রিসেট করার সুবিওধা। চলুন জেনে নেওয়া যাক পিন রিসেট করার উপায়-

আপনার স্মার্টফোনে হোয়াটসঅ্যাপ ওপেন করুন। ফরগট পিন (Forgot PIN) অপশন সিলেক্ট করুন। এবার সেন্ড ই-মেইল অপশন বেছে নিন। আপনার ই-মেইল অ্যাড্রেসে একটি লিঙ্ক পৌঁছবে। এই লিঙ্কে ক্লিক করে পিন রিসেট করে কনফার্ম সিলেক্ট করুন।  হোয়াটসঅ্যাপ ওপেন করুন। ফরগট পিনে ট্যাপ করুন। এবার রিসেট সিলেক্ট করুন।


আরও খবর



বুস্টার ডোজ সপ্তাহ শুরু, এক কোটির লক্ষ্যমাত্রা

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৪ জুন ২০২২ | ৩১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে আজ থেকে শুরু হয়েছে বুস্টার ডোজ সপ্তাহ, চলবে ১০ জুন পর্যন্ত। এই সময়ে ১৮ বছর ও তদূর্ধ্ব সবাই বুস্টার ডোজ নিতে পারবেন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম (এমআইএস) শাখা থেকে জানানো হয়েছে: আজ থেকে শুরু করে ১০ জুন দেশব্যাপী করোনাভাইরাস টিকার বুস্টার ডোজ সপ্তাহ পালন করা হবে। এই সাতদিনের যেকোন দিন নিকটবর্তী টিকাকেন্দ্রে গিয়ে তৃতীয় বা বুস্টার ডোজ নেওয়া যাবে। তবে, টিকাকেন্দ্রে আসার সময় সকলকে অবশ্যই মাস্ক পরে আসতে হবে।

এতে আরও বলা হয়েছে, ক্যাম্পেইনের আওতায় ১৮ বছর ও তদূর্ধ্ব সকল নাগরিক করোনাভাইরাসের তৃতীয় বা বুস্টার ডোজ নিতে পারবেন। দ্বিতীয় ডোজের চার মাস পর বুস্টার ডোজ নেওয়া যাবে।

অধিদপ্তর জানায়, দেশের সব টিকাকেন্দ্রে সকাল ৯টা থেকে টিকাদান শুরু হবে। এক্ষেত্রে সঙ্গে টিকা কার্ড আনা বাধ্যতামূলক। এছাড়াও বুস্টার ডোজের পাশাপাশি, করোনাভাইরাস টিকার স্বাভাবিক কার্যক্রমও চলমান থাকবে।

এ ভাইরাস প্রতিরোধে টিকা একটি কার্যকর সমাধান উল্লেখ করে অধিদপ্তর জানায়, টিকার সম্পূর্ণ সুফল পেতে অবশ্যই তৃতীয় বা বুস্টার ডোজ নিতে হবে। এবারের বুস্টার ডোজ সপ্তাহে ১ কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন প্রদানের আশা করা হচ্ছে।


আরও খবর



গর্ভপাত নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায় মর্মান্তিক ভুল : বাইডেন

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ জুন ২০২২ | ১৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গর্ভপাত নিয়ে দেশের সুপ্রিম কোর্টের রায়কে মর্মান্তিক ভুল বলে মন্তব্য করলেন আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। শীর্ষ আদালতের রায় ঘোষণার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে দেশবাসীর উদ্দেশে ভাষণ দেন তিনি। সেই ভাষণে তিনি বলেন, যে ভাবে নারীদের সংবিধানপ্রদত্ত অধিকারকে কেড়ে নেওয়া হল, তা অত্যন্ত দুঃখজনক।

শুক্রবার এক রায়ে আমেরিকার শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, গর্ভপাতের অধিকার সংবিধান দেবে না। তা দেওয়া হবে কি হবে না, তা স্থির করবে স্থানীয় প্রদেশের প্রশাসন। পাঁচ দশক আগে রো বনাম ওয়েড মামলার রায়কে বাতিল করে দিয়ে আদালত শুক্রবার এই রায় দিয়েছে। প্রসঙ্গত, ওই মামলায় আদালত জানিয়েছিল, গর্ভপাত আমেরিকার নারীদের সংবিধান প্রদত্ত অধিকার। বাইডেন বলেন, ‘‘আদালত আমেরিকাবাসীর সংবিধানপ্রদত্ত মৌলিক অধিকার কেড়ে নিয়েছে। শীর্ষ আদালতের এই রায়ের ফলে দেশ ১৫০ বছর পিছিয়ে গেল।

সুপ্রিম কোর্টে এই রায়ের একটি খসড়া প্রস্তাব প্রকাশ্যে আসার পরেই দেশে জুড়ে বিক্ষোভ শুরু হয়। প্রেসিডেন্ট বাইডেনও এই ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘‘সুপ্রিম কোর্ট এই ধরনের রায় দেওয়ায় শুধু গর্ভপাতের অধিকার নয়, সমকামীদের অধিকারও ক্ষুণ্ণ হবে।


আরও খবর