আজঃ মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

চুয়াডাঙ্গায় মাকে হত্যার দায়ে ছেলের যাবজ্জীবন

প্রকাশিত:বুধবার ২২ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি

Image

চুয়াডাঙ্গায় মাকে কুপিয়ে হত্যার দায়ে ছেলে মুকুল হোসেনকে (৩০) যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে তাকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (২২ নভেম্বর) দুপুর ১২টার দিকে চুয়াডাঙ্গা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. জিয়া হায়দার আসামির উপস্থিতিতে এ রায় দেন। 

যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত মুকুল হোসেন চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার পিরোজখালী (কাজিপাড়ার) আসান আলীর ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, পারিবারিক কলহের জেরে ২০২১ সালের ১৩ নভেম্বর বিকেলে নিজ বাড়িতে মা জবেদা খাতুনকে ধারালো বটি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে মুকুল। পরে ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায় চুয়াডাঙ্গা সদর থানার পুলিশ এবং ছেলে মুকুলকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করে পুলিশ।

এ ঘটনায় নিহত জবেদা খাতুনের ভাই আলাউদ্দীন বাদী হয়ে ভাগ্নে মুকুলকে একমাত্র আসামি করে সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই হাসানুজ্জামান তদন্ত শেষে একই বছরের ৩১ ডিসেম্বর একমাত্র আসামি মুকুল হোসেনকে আসামি করে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট আবুল বাসার জানান, ১৫ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে মুকুলকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন।


আরও খবর



পিটিআই প্রধানের পদ থেকে সরানো হলো গোহরকে

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

অসন্তোষজনক পারফরম্যান্সের কারণে পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) এর চেয়ারম্যান পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হলো ব্যারিস্টার গোহর আলী খানকে।

শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) এমনটাই দাবি করেছেন পিটিআইয়ের আরেক নেতা শের আফজাল মারওয়াত। খবর পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম জিও নিউজের।

পিটিআইয়ের পরবর্তী চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে ব্যারিস্টার আলী জাফরের নাম ঘোষণা করার একদিন পর গোহরকে সরানোর এ ঘোষণা এলো। আগামী ৩ মার্চ দলের অভ্যন্তরীণ নির্বাচন হওয়ার কথা।

পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন (ইসিপি) ও সুপ্রিম কোর্ট পিটিআইয়ের অভ্যন্তরীণ নির্বাচনকে বেআইনি ঘোষণা করে। দলীয় প্রতীক ক্রিকেট ব্যাটও কেড়ে নেয়। এরপর প্রায় এক মাসের বেশি সময় ধরে দলের শীর্ষ পদটি শূন্য ছিল।

জিও নিউজকে মারওয়াত বলেন, অযোগ্যতা ও দুর্বল পারফরম্যান্সই গোহরকে চেয়ারম্যান পদ থেকে অপসারণের প্রধান কারণ। তিনি একজন ভদ্রলোক কিন্তু তার কাজ সন্তোষজনক ছিল না।

পিটিআই নেতা বলেন, গোহর কর্মীদের প্রত্যাশা পূরণ করতে ব্যর্থ হয়েছেন। পার্টি অফিস চালাতে হলে সব সময় সক্রিয় থাকতে হয় কিন্তু তিনি তা করতে পারেননি।

নির্বাচনের ফলাফলের পরে দলীয় নেতৃত্বের দৃষ্টিভঙ্গি প্রশংসনীয় ছিল না। নির্বাচনের পরে শক্ত হাতে দলের নেতৃত্ব দেওয়া উচিত ছিল কিন্তু তিনি তাতে ব্যর্থ হন বলেও মন্তব্য করেছেন মারওয়াত।

পিটিআইয়ের মুখপাত্র রওফ হাসান, চেয়ারম্যান, কেন্দ্রীয় ও প্রাদেশিক পর্যায়ের নেতা ঠিক করতে ৫ ফেব্রুয়ারি আন্তঃদলীয় নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু পরে তা স্থগিত করা হয়।

নতুন নির্বাচনি সূচি অনুযায়ী আন্তঃদলীয় নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে ইচ্ছুক প্রার্থীরা ২৩ ও ২৪ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র জমা দিবেন এবং ২৫ ফেব্রুয়ারি যাচাই-বাছাই করা হবে।

মনোনয়নপত্রের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত ২৭ ফেব্রুয়ারি ঘোষণা করা হবে এবং ৩ মার্চ দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের পাশাপাশি প্রাদেশিক নেতা নির্বাচনেও ভোট অনুষ্ঠিত হবে।


আরও খবর
আইনি লড়াইয়ে বড় জয় পেলেন ট্রাম্প

মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪




পাঁচ লাখ শূন্য পদে নিয়োগ দেবে সরকার, ব্যবস্থা নিতে চিঠি

প্রকাশিত:শনিবার ০২ মার্চ 2০২4 | হালনাগাদ:শনিবার ০২ মার্চ 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বর্তমানে সরকারি চাকরিতে পাঁচ লাখ তিন হাজার ৩৩৩টি শূন্য পদে নিয়োগ দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনার পর এসব পদে নিয়োগ দিতে উদ্যোগ নিচ্ছে মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলো। এরই মধ্যে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগে নিয়োগের ব্যবস্থা নিতে চিঠিও দেওয়া হয়েছে।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, প্রশাসনে মোট অনুমোদিত ১৯ লাখ ১৫১টি পদের বিপরীতে কর্মকর্তা ও কর্মচারী রয়েছেন ১৩ লাখ ৯৬ হাজার ৮১৮ জন। খালি পদ রয়েছে পাঁচ লাখ তিন হাজার ৩৩৩টি। মন্ত্রণালয় ও বিভাগ পর্যায়ে ২১ হাজার ৭০৯টি পদের মধ্যে খালি রয়েছে ছয় হাজার ৮২১টি। সংস্থা ও অধিদফতর পর্যায়ে ১৪ লাখ ২২ হাজার ৮২৮টি পদের মধ্যে খালি রয়েছে তিন লাখ ২৫ হাজার ৩৩৬টি। বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসক অফিসে ৪০ হাজার ২৭৩টি পদের মধ্যে খালি রয়েছে ১৩ হাজার ৩৫৭টি। বিভিন্ন স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা ও কর্পোরেশনে মোট খালি পদ এক লাখ ৫৭ হাজার ৮১৯টি। এখানে মোট পদের সংখ্যা চার লাখ ১৫ হাজার ৩৪১টি।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী, প্রথম থেকে নবম গ্রেডের (আগের প্রথম শ্রেণি) দুই লাখ ৪৪ হাজার ৯৬টি অনুমোদিত পদ রয়েছে। এসব পদের বিপরীতে কর্মরত আছেন এক লাখ ৭৯ হাজার ৫১৪ জন। খালি পদ ৬৪ হাজার ৫৮২টি।

দশম থেকে ১২তম গ্রেডে (আগের দ্বিতীয় শ্রেণি) দুই লাখ ৯১ হাজার ১১১টি পদের বিপরীতে আছেন এক লাখ ৯৩ হাজার ৬৬৪ জন। খালি পদ ৯৭ হাজার ৪৪৭টি।

১৩ম থেকে ১৬তম গ্রেডে (আগের তৃতীয় শ্রেণি) সাত লাখ ৯৫ হাজার ৪০টি পদ রয়েছে। এসব পদের বিপরীতে কর্মরত আছেন ছয় লাখ তিন হাজার ৪৩৩ জন। খালি রয়েছে এক লাখ ৯১ হাজার ৬০৭টি পদ।

১৭তম থেকে ২০তম গ্রেডে (আগের চতুর্থ শ্রেণি) পাঁচ লাখ ৫৮ হাজার ৪৬৯টি পদ রয়েছে। এসব পদের বিপরীতে কর্মরত আছেন চার লাখ ১৫ হাজার ১০৪ জন। খালি রয়েছে এক লাখ ৪৩ হাজার ৩৬৫টি পদ।

সরকারি বিভিন্ন দফতরে নির্ধারিত ও অন্যান্য কাজের জন্য ১১ হাজার ৪৩৫টি পদ রয়েছে। এসব পদের বিপরীতে কর্মরত আছেন পাঁচ হাজার ১০৩ জন। খালি রয়েছে ছয় হাজার ৩৩২টি পদ।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, সরকারি যেসব শূন্যপদ আছে, সেগুলোতে নিয়োগের ব্যবস্থা নিতে তিনি (প্রধানমন্ত্রী) নির্দেশনা দিয়েছেন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নিয়োগ, পদোন্নতি ও প্রেষণ অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. নাজমুছ সাদাত সেলিম জানান, যেসব মন্ত্রণালয়ে শূন্য পদ আছে, তাদেরকে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে সেগুলো দ্রুত পূরণের ব্যবস্থা নেয়ার জন্য। এ নির্দেশনা যেসব মন্ত্রণালয় বা বিভাগে শূন্য পদ আছে, তাদেরকে দেওয়া হচ্ছে। স্ব-স্ব মন্ত্রণালয়, স্ব-স্ব বিভাগ, সংশ্লিষ্ট অফিসগুলো যাতে দ্রুত খালি পদগুলো পূরণ করতে পারে সে নির্দেশনা তাদেরকে দেওয়া হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে জনপ্রশাসনমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন সম্প্রতি জাতীয় সংসদে জানিয়েছেন, সরকারের শূন্য পদ পূরণ একটি চলমান প্রক্রিয়া। শূন্য পদ পূরণে সুনির্দিষ্ট বিধিমোতাবেক পদ পূরণের নিয়মিত কার্যক্রম চলমান। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়-বিভাগ এবং এর অধীন দফতর-সংস্থাগুলোর চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে সরকারি কর্মকমিশনের মাধ্যমে নবম (পূর্বতন প্রথম শ্রেণি) ও ১০ থেকে ১২তম গ্রেডের (পূর্বতন দ্বিতীয় শ্রেণি) শূন্য পদে জনবল নিয়োগ হয়ে থাকে।


আরও খবর



মিয়ানমারে তরুণ-তরুণীদের সেনাবাহিনীতে যোগদান বাধ্যতামূলক করল জান্তা

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

মিয়ানমারের রাষ্ট্র পরিচালিত গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সী সব পুরুষ ও ১৮ থেকে ২৭ বছর বয়সী সব নারীকে অবশ্যই সর্বোচ্চ দুই বছর সামরিক বাহিনীতে কাজ করতে হবে।

মিয়ানমারের সামরিক জান্তা সরকার দেশটির তরুণ-তরুণীদের সামরিক কার্যক্রমে যোগদান বাধ্যতামূলক করেছে। সম্প্রতি দেশটির বিভিন্ন অংশে জাতিগত সশস্ত্র বিদ্রোহীদের সঙ্গে লড়াইয়ে চাপে পড়েছে সরকারি বাহিনী। এরই মধ্যে গতকাল শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) এ ঘোষণা এল।

মিয়ানমারের রাষ্ট্র পরিচালিত গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সী সব পুরুষ ও ১৮ থেকে ২৭ বছর বয়সী সব নারীকে অবশ্যই সর্বোচ্চ দুই বছর সামরিক বাহিনীতে কাজ করতে হবে। আর চিকিৎসক ও বিভিন্ন বিষয়ের বিশেষজ্ঞ যাদের বয়স ৪৫ বছর বয়সের মধ্যে, তাদের অবশ্যই তিন বছর কাজ করতে হবে। রাষ্ট্রের জরুরি অবস্থা বিবেচনায় এই সময়সীমা পাঁচ বছর পর্যন্ত বাড়ানো হতে পারে।

২০২১ সালের ১ ফেব্রুয়ারি এক অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে মিয়ানমারের শাসন ক্ষমতা দখল করে দেশটির সামরিক বাহিনী। এর পর থেকে দেশটিতে বিশৃঙ্খলা লেগেই আছে।

গত বছরের অক্টোবর থেকে জাতিগত সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠীর জোট থ্রি ব্রাদারহুড অ্যালায়েন্সের সঙ্গে সংঘাতে লিপ্ত রয়েছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। বিদ্রোহীদের পাশাপাশি গণতন্ত্রপন্থী যোদ্ধারাও তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র হাতে তুলে নিয়েছে। এ সংঘাতে বহু ক্ষয়ক্ষতির শিকার হয়েছে সেনাবাহিনী। বহু সেনাসদস্য প্রাণও হারিয়েছেন। অনেকে প্রাণ বাঁচাতে পার্শ্ববর্তী দেশে সেনাসদস্যদের পালিয়ে যাওয়া এবং বিদ্রোহীদের কাছে আত্মসমর্পণের মতো ঘটনাও ঘটেছে।

১৯৬২ সালে প্রথমবারের মতো ক্ষমতায় আসে মিয়ানমারের সরকারি বাহিনী। এর পর থেকে এটিই তাদের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করা হচ্ছে।

বিশ্লেষকরা বলেছেন, সরকারি বাহিনী নতুন করে সৈন্য নিয়োগ দিতে এক প্রকার চাপে পড়েছে। তারা যুদ্ধের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা নেই এমন সেনাদেরও সম্মুখ লড়াইয়ের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।

জান্তার মুখপাত্র জ মিন তুন রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমকে বলেন, 'জাতির নিরাপত্তা ও সুরক্ষার জন্য সৈন্যদের পাশাপাশি সব নাগরিকের মধ্যে দায়িত্ব ছড়িয়ে দিতে হবে। তাই আমি সবাইকে বলতে চাই, তারা যেন গর্বের সঙ্গে জনগণের সামরিক পরিষেবা আইন অনুসরণ করে।'

বাধ্যতামূলক সেনা নিয়োগের এই আইনটি ২০১০ সালে প্রণয়ন করা হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত তা কার্যকর করা হয়নি। যারা এ আইন লঙ্ঘন করবে তাদের সর্বোচ পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের বিধান রয়েছে।


আরও খবর
আইনি লড়াইয়ে বড় জয় পেলেন ট্রাম্প

মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪




বাবা হারালেন চিত্রনায়িকা পপি

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

ঢাকাই সিনেমার এক সময়ের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা সাদিকা পারভিন পপির বাবা আমির হোসেন আর নেই। আজ সোমবার সকাল সাড়ে ৬টায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তথ্যটি নিশ্চিত করেছে পপির পারিবারিক একাধিক ঘনিষ্টজন।

তারা জানান, আজ সকাল সাড়ে ৬টায় পপির বাবা শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই তার মরদেহ ঢাকা থেকে খুলনায় নিয়ে যাওয়া হবে। জানাজা শেষে সেখানেই পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

পপির বাবা আমির হোসেন দীর্ঘদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন। বেশ কয়েক মাস ধরে তিনি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউতে ছিলেন।

এদিকে, একাধিক জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত চিত্রনায়িকা পপি দীর্ঘ তিন বছর ধরে আড়ালে আছেন। হঠাৎ করেই শোবিজ থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন এই অভিনেত্রী। প্রথম দিকে পপির এ অনুপস্থিতিকে স্বাভাবিক মনে করেছিলেন চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা। কিন্তু সময় যতই এগোতে থাকে ততই তাকে ঘিরে ধোঁয়াশা তৈরি হয়।

জানা যায়, গোপনে সংসার পেতেছেন পপি। সেই সংসারে রয়েছে একটি সন্তানও। ২০২১ সালের অক্টোবরে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে পুত্র সন্তানের জন্ম দেন এই চিত্রনায়িকা। বর্তমানে স্বামী-সন্তান নিয়ে ধানমন্ডি বসবাস করছেন পপি।


আরও খবর



প্রেমিকের চেয়ে টেলরের পোষ্য বিড়ালের আয় বেশি!

প্রকাশিত:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

পপ তারকা টেইলর অ্যালিসন সুইফটের পোষা তিন বিড়ালের একটি অলিভিয়া বেনসন। বিশ্বের সবচেয়ে ধনী পোষা বিড়ালের তালিকায় নাম রয়েছে এ বিড়ালের। সমীক্ষায় দেখা গেছে, পোষা হিসেবে অলিভিয়ার মোট সম্পত্তি বাংলাদেশি মুদ্রায় হাজার কোটি টাকার বেশি। যা টেইলরের প্রেমিক খেলোয়াড় ট্রেভিস কেলসের সম্পত্তির চেয়েও কয়েকগুণ বেশি।

অলিভিয়া ছাড়াও টেইলরের আরও দুই পোষা বিড়াল মেরেডিথ গ্রে এবং বেঞ্জামিন বাটন। তবে অলিভিয়ার জনপ্রিয়তার ধারে-কাছে নেই তারা। কী করে এত টাকা রোজগার করে অলিভিয়া?

টেইলরের ইনস্টাগ্রাম ভিডিওতে মাঝেমাঝেই উঁকি দেয় এই বিড়াল। বিশেষ করে সাদা লোমওয়ালা, মোটাসোটা অলিভিয়ার দুষ্টুমি দেখতে অনুরাগীরা টেলরের প্রোফাইল ঘাটেন। সেখান থেকেই বিপুল ভিউ। আয় হয় কোটি কোটি টাকা।

এ ছাড়া টেলিভিশনের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে দেখতে পাওয়া যায় অলিভিয়াকে। টেলরের মিউজিক ভিডিওতেও অলিভিয়া ছিল। সব মিলিয়ে অলিভিয়া বিপুল ধনী হয়ে উঠেছে।


আরও খবর