আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪
শিরোনাম

চট্টগ্রামের অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী আইএফসি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | পত্রিকায় প্রকাশিত
রাহুল সরকার, চট্টগ্রাম ব্যুরো

Image

চট্টগ্রামের উন্নয়নে অর্থায়ন আগ্রহ প্রকাশ করেছেন ইন্টারন্যাশনাল ফিনান্স কর্পোরেশন (আইএফসি)। বৃহস্পতিবার টাইগারপাসস্থ চসিক কার্যালয়ে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. রেজাউল করিম চৌধুরীর সাথে সৌজন্য সাক্ষাতে আইএফসির প্রতিনিধি দল এসব তথ্য জানান।

তিন সদস্যের প্রতিনিধি দলে ছিলেন বিশ্ব ব্যাংক গ্রুপের প্রতিষ্ঠান আইএফসির প্রিন্সিপাল ইনভেস্টমেন্ট অফিসার মাইকেল লিন শেং, কনসালটেন্ট এম এমদাদুল হক, অপারেশন্স অফিসার সায়েফ তানজিম কাইউম।

চসিক মেয়র বলেন, আইএফসি চাইলে সরকারের অনুমোদনক্রমে চট্টগ্রামের আবাসন খাতের উন্নয়নে বিনিয়োগ করতে পারে। বিশেষ করে চট্টগ্রামে দ্রুত জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় শহর দ্রুত সম্প্রসারিত হচ্ছে। এক্ষেত্রে আইএফসি বিনিয়োগ করে নতুন স্মার্ট শহর’’ গড়ে তুলতে পারে যেখানে শিক্ষা, চিকিৎসাসহ সবধরনের নাগরিক সেবা উপস্থিত থাকবে। এছাড়া চট্টগ্রামে একটি আন্তর্জাতিক মানের কনভেনশন সেন্টার গড়ে তুলতে পারে আইএফসি। এছাড়া, গণপরিবহন, জলাবদ্ধতা ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা খাতেও বিনিয়োগ করতে পারে আইএফসি।

মাইকেল লিন শেং বলরন, আইএফসি পিপিপি মডেলে বিনিয়োগে আগ্রহী। চসিকের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে চট্টগ্রামের অবকাঠামো খাতে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী আইএফসি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন চসিক সচিব মো. আশরাফুল আমিন, মেয়রের একান্ত সচিব আবুল হাশেম, প্রধান হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির, প্রধান প্রকৌশলী শাহিন-উল-ইসলাম।


আরও খবর



বেনজীরের দুর্নীতির দায় নেবে না পুলিশ বাহিনী: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ দুর্নীতি করে থাকলে তার দায় পুলিশ নেবে না বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। শনিবার (০১ জুন) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি অডিটোরিয়ামে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের বক্তৃতা প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

যদি কেউ অন্যায় করে থাকে, আইন অনুযায়ী তার বিচার হবে জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদ দুর্নীতি করে থাকলে এটা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। এর দায় পুলিশ নেবে না। তদন্তের পরই জানা যাবে তিনি কী করেছেন।

তিনি আরও বলেন, তাকে এখনো নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়নি। তার আগেই তিনি দেশ ছেড়ে চলে গেছেন বলে শুনেছি। যদিও তার যাওয়ার ব্যাপারে আমি জানি না। বিস্তারিত জেনে এ বিষয়ে কথা বলব।

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার হত্যাকাণ্ড ইস্যুতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, যে যেখানেই আছে তাদের ধরতে আদেশ দেওয়া হয়েছে। পলাতকদের নেপাল থেকে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যারা অপরাধী তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



বিশ্বকাপে পাপুয়া নিউগিনিকে হারিয়ে উগান্ডার ইতিহাস

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে এসেছে উগান্ডা। আর নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেই ইতিহাস রচনা করল আফ্রিকার দেশটি। পাপুয়া নিউগিনিকে ৩ উইকেটে হারিয়ে প্রথম জয়ের দেখা পেল তারা।

গায়ানার প্রভিডেন্স স্টেডিয়ামে আজ সি গ্রুপের ম্যাচে মুখোমুখি হয় পাপুয়া নিউগিনি ও উগান্ডা। বাংলাদেশ সময় ভোর সাড়ে ৫টায় শুরু হয় ম্যাচটি। যেখানে প্রথমে ব্যাট করতে নামা পাপুয়া নিউগিনিকে ৭৭ রানে গুটিয়ে দিয়ে অর্ধেক কাজ সম্পন্ন করে উগান্ডা। জবাবে ৭ উইকেট হারিয়ে ও ইনিংসের ১০ বল বাকি থাকতে ঐতিহাসিক জয় তুলে নেয় তারা।

৭৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে উগান্ডাও নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারায়। তবে ব্যতিক্রম ছিলেন রিয়াজাত আলী শাহ। দৃঢ়তার পরিচয় দিয়ে মাটি কামড়ে ব্যাটিং করে যান। শেষ দিকে আউট হলেও দলকে জয়ের ভীত গড়ে দেন। তিনি ৫৬ বলে ১টি চারে ৩৩ রান করেন। এছাড়া জুমা মিয়াগি ১৩ রান করেন।

পাপুয়া নিউগিনির বোলারদের মধ্যে আলেই নাও ও নোরমান ভানুয়া ২টি করে উইকেট দখল করেন।

টস হেরে এর আগে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে উগান্ডার বোলারদের তোপে আসা-যাওয়ার মিছিলে ব্যস্ত থাকে উগান্ডার বোলাররা। সর্বোচ্চ ১৫ রান করেন হিরি হিরি। এছাড়া লেগা সিয়াকা ও কিপলিন দোরিগা ১২ রান করে করেন।

উগান্ডার বোলারদের মধ্যে আলপেশা রামজানি, কোসমাস কেউতা, মিয়াগি ও ফ্রাঙ্ক সুবুগা ২টি করে উইকেট পান।


আরও খবর



চট্টগ্রামে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন সফল করতে হবে: তিবরীজি

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

Image

চট্টগ্রাম বিভাগের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি বলেছেন, আগামী ১ জুন শনিবার সারা দেশের ন্যায় চট্টগ্রাম বিভাগেও দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হবে জাতীয় ভিটামিন প্লাস ক্যাম্পেইন-২০২৪। ক্যাম্পেইন চলাকালীন ৬-১১ মাস বয়সী শিশুকে একটি করে নীল রঙের ভিটামিন ক্যাপসুল (১ লক্ষ আই.ইউ) ও ১২-৫৯ মাস বয়সী শিশুকে একটি করে লাল রঙের ভিটামিন ক্যাপসুল (২ লক্ষ আই.ইউ) খাওয়ানো হবে।

সকলের সম্মিলিত উদ্যোগে এ ক্যাম্পেইন সফল করতে হবে। এ বয়সের কোন শিশু যাতে ভিটামিন ক্যাপসুল খাওয়া থেকে বাদ না পড়ে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সকলকে আন্তরিক থাকতে হবে। অসুস্থতার কারণে ৬-৫৯ মাস বয়সী কোন শিশু যদি ভিটামিন ক্যাপসুল খাওয়া থেকে বাদ পড়ে তাকে সুস্থতা পরবর্তী এ ক্যাপসুল খাওয়াতে হবে।

অনুষ্ঠিতব্য এ ক্যাম্পেইন নিয়ে যাতে কেউ গুজব ছড়াতে না পারে সে বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। ভিটামিন প্লাস ক্যাম্পেইন ও পুষ্টিবার্তা বিষয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সোস্যাল মিডিয়া, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় নিয়মিত প্রচার প্রচারনার ব্যবস্থা করলে জনগণ এ ব্যাপারে আরও সচেতন হবে।

বুধবার সকালে নগরীর সিনেমা প্যালেস সংলগ্ন রয়েল রোডস্থ চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অবহিতকরণ ও কর্মপরিকল্পনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের আওতাধীন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্টান ও জাতীয় পুষ্টি সেবার বাস্তবায়নে বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) কার্যালয় এ সভার আয়োজন করেন।

তিনি বলেন, বিভিন্ন কারণে শিশুরা অপুষ্টিতে ভূগছে। শিশুর সুস্থভাবে বেঁচে থাকা, স্বাভাবিক বৃদ্ধি, দৃষ্টিশক্তি, রক্ত স্বল্পতা  ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য ভিটামিন অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ এক অনুপুষ্টি। তাই এই ক্যাম্পেইন কার্যক্রম সফলভাবে বাস্তবায়নের মাধ্যমে অপুষ্টি দূরীকরণ সম্ভব হবে। শিশুর জন্মের সাথে সাথে মায়ের বুকের শাল দুধ খাওয়াতে হবে এবং ৬ মাস পর্যন্ত বুকের দুধ ছাড়া অন্য কিছু দেয়া যাবে না। শিশুর বয়স ৬ মাস পূর্ণ হলে দুই বছর পর্যন্ত মায়ের দুধের পাশাপাশি পরিমানমত ঘরে তৈরি পুষ্টি সমৃদ্ধ সুষম খাবার খাওয়াতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত  পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. ইফতেখার আহমেদ বলেন, আগামী ১ জুন শনিবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিতব্য ক্যাম্পেইন চলাকালীন সময়ে বিভাগের ১১ জেলায় ৬-১১ মাস বয়সী মোট ৬ লাখ ২১ হাজার ১৩৯ জন শিশুকে একটি করে নীল রঙের ভিটামিন ক্যাপসুল (১ লক্ষ আই.ইউ) ও ১২-৫৯ মাস বয়সী ৪৫ লাখ ৩৬ হাজার ২৪ জন শিশুকে একটি করে লাল রঙের ভিটামিন ক্যাপসুল (২ লক্ষ আই.ইউ) খাওয়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। বিভাগীয় পর্যায়ে ৬-৫৯ মাস বয়সী মোট ৫১ লাখ ৫৭ হাজার ১৬৩ জন শিশুকে ভিটামিন ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। তন্মধ্যে চট্টগ্রাম জেলায় ৬-১১ মাস বয়সী ৯৪ হাজার ৪৭৭ জন, ১২-৫৯ মাস বয়সী ৭ লাখ ৩৭ হাজার ৭০২ জন, কক্সবাজার জেলায় ৬-১১ মাস বয়সী ৫৯ হাজার ২৬১ জন, ১২-৫৯ মাস বয়সী ৪ লাখ ২৩ হাজার ৩৯৮ জন, বান্দরবান জেলায় ৬-১১ মাস বয়সী ১০ হাজার ৩৮০ জন, ১২-৫৯ মাস বয়সী ৬৫ হাজার ৭২১ জন, রাঙ্গামাটি জেলায় ৬-১১ মাস বয়সী ১০ হাজার ৫৩৭ জন, ১২-৫৯ মাস বয়সী ৭৫ হাজার ৩২৩ জন, খাগড়াছড়ি জেলায় ৬-১১ মাস বয়সী ১৫ হাজার ৩৮৯ জন, ১২-৫৯ মাস বয়সী ৯৪ হাজার ৩৭৮ জন, ফেনী জেলায় ৬-১১ মাস বয়সী ৩২ হাজার ৩৭১ জন, ১২-৫৯ মাস বয়সী ২ লাখ ২৩ হাজার ৮৩৮ জন, নোয়াখালী জেলায় ৬-১১ মাস বয়সী ৬৩ হাজার ৭১৩ জন, ১২-৫৯ মাস বয়সী ৫ লাখ ২৮ হাজার ২৮৫ জন, লক্ষীপুর জেলায় ৬-১১ মাস বয়সী ৩৫ হাজার ২০৮ জন, ১২-৫৯ মাস বয়সী ৭২লাখ ৬৪ হাজার ৭৮৫ জন, চাঁদপুর জেলায় ৬-১১ মাস বয়সী ৪২ হাজার ৬৯৬ জন, ১২-৫৯ মাস বয়সী ৩ লাখ ৩০ হাজার ৫৩২ জন, কুমিল্লা জেলায় ৬-১১ মাস বয়সী ১ লাখ ১৩ হাজার ৮০৭ জন, ১২-৫৯ মাস বয়সী ৮ লাখ ৪৮ হাজার ৮৪২ জন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় ৬-১১ মাস বয়সী ৫৮ হাজার ৩০০ জন, ১২-৫৯ মাস বয়সী ৪ লাখ ৮৩ হাজার ২২০ জন এবং চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন এলাকায় ৬-১১ মাস বয়সী ৮৫ হাজার, ১২-৫৯ মাস বয়সী ৭ লাখ ৬০ হাজার শিশু।

তিনি বলেন, ভিটামিন প্লাস ক্যাম্পেইন সফল করতে হলে মসজিদ, মন্দির,  শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাটবাজার, বাস স্ট্যান্ড, নৌ-ঘাটসহ গুরুত্বপূর্ণস্থানে মাইকিং করে সচেতনতামূলক প্রচার-প্রচারণা চালানো হবে। স্বাস্থ্য বিভাগ, সরকারী প্রতিষ্টান, জনপ্রতিনিধি, আনসার-ভিডিপি ও এনজিও সংস্থাগুলোকে ক্যাম্পেইন বাস্তবায়নে এগিয়ে আসতে হবে। স্থায়ী ও অস্থায়ী টিকাদান কেন্দ্রে মাঠকর্মী ও স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী শিশুদেরকে ভিটামিন ক্যাপসুল খাওয়ানোর কাজে নিয়োজিত থাকবে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আগামী ২০৪১ সালে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে ভিটামিন প্লাস ক্যাম্পেইনসহ অন্যান্য কর্মসূচীগুলো শতভাগ বাস্তবায়ন করতে হবে।

চট্টগ্রাম বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. ইফতেখার আহমেদ বলেন, ভিটামিন ক্যাপসুল শিশুর অপুষ্টি, অন্ধত্ব প্রতিরোধ, দেহের স্বাভাবিক বৃদ্ধি নিশ্চিত, হাম ও ডায়রিয়াজনিত মৃত্যুর হার হ্রাসসহ সকল ধরণের মৃত্যুর হার হ্রাস করে। পরিবারের রান্নায় ভিটাামিন সমৃদ্ধ ভোজ্য তেল ব্যবহার শিশুর জন্য যথেষ্ট উপকারী। মা ও শিশুর পুষ্টির জন্য গর্র্ভবতী ও প্রসূতি মায়েদের  স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি করে ভিটামিন সমৃদ্ধ প্রাণিজ ও উদ্ভিজ্জ খাবার খেতে দিতে হবে।

চট্টগ্রাম বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. ইফতেখার আহমেদের সভাপতিত্বে ও চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয়ের এমওসিএস ডা. মোহাম্মদ নওশাদ খানের সঞ্চালনায় অনুষ্টিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিভাগের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি। রিসোর্স পার্সন হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী,  চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের শিশু স্বাস্থ্য বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডা. জেবিন চৌধুরী, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ঈমাম হোসেন রানা ও পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয়ের পুলিশ সুপার সফিজুল ইসলাম।

উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা (মাউশি) চট্টগ্রাম অঞ্চলের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ড. গাজী গোলাম মওলা, প্রাথমিক শিক্ষা চট্টগ্রাম বিভাগীয় উপ-পরিচালক ড. শফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ বেতার চট্টগ্রামের পরিচালক মোঃ মাহফুজুল হক, পরিবার পরিকল্পনা নোয়াখালী জেলার উপ-পরিচালক মোস্তফা কামাল, মহিলা ও শিশু বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মাধবী বড়য়া, পরিবার পরিকল্পনা রাঙামাটি জেলা কনসালট্যান্ট ডা. বেবী ত্রিপুরা, জাতীয় সংবাদ সংস্থা এন.এনবির চট্টগ্রাম প্রধান রনজিত কুমার শীল, নোয়াখালী জেলা সিভিল সার্জন ডা. মাসুম ইফতেখার, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সহকারী পরিচালক ইউছুফ মিয়া, পরিবার পরিকল্পনা চট্টগ্রাম বিভাগীয় সহকারী পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান প্রমূখ।

অবহিতকরণ ও কর্মপরিকল্পনা সভায় বিভিন্ন জেলার সিভিল সার্জন, সিভিল সার্জনের প্রতিনিধি, পরিবার পরিকল্পনা বিভিন্ন জেলার উপ-পরিচালক, সহকারী পরিচালক, সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও প্রতিনিধিগণ অংশ নেন।


আরও খবর



ধেয়ে আসছে ভয়ংকর ঘূর্ণিঝড়, ৫-১০ ফুট জলোচ্ছ্বাসের শঙ্কা

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া নিম্নচাপটি ইতোমধ্যে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়েছে। এটি শনিবার (২৫ মে) বিকেলের মধ্যেই ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। এরপর এটি বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলে আঘাত হানতে পারে।

শনিবার (২৫ মে) সকালে আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ মো. বজলুর রশিদ গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, গভীর নিম্নচাপটি দুপুর বা বিকেলের মধ্যে ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। এরপর এটি রোববার (২৬ মে) সন্ধ্যায় বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানতে পারে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে উপকূলসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে।

এদিকে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, শনিবার রাত থেকেই দেশের বিভিন্ন স্থানে ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি শুরু হতে পারে। রোববার থেকে বৃষ্টি আরও বাড়বে। ঘূর্ণিঝড়ের সময় ৫ থেকে ১০ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হতে পারে।

ঘূর্ণিঝড়টি বাংলাদেশের সুন্দরবনসংলগ্ন খুলনা ও পটুয়াখালীর খেপুপাড়ার উপকূলের দিকে আঘাত হানতে পারে। এর গতিবেগ ঘণ্টায় ১২০ থেকে ১৩০ কিলোমিটার হতে পারে। আবহাওয়াবিদরা বলছেন, রেমাল প্রবল ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। তবে সুপার সাইক্লোন’ হওয়ার কোনো আশঙ্কা নেই।

ঘূর্ণিঝড়ের কারণে সৃষ্ট বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ থেকে ৮৮ কিলোমিটার হলে একটিকে ঘূর্ণিঝড়’ বা ট্রপিক্যাল সাইক্লোন বলা হয়। গতিবেগ ৮৯ থেকে ১১৭ কিলোমিটার হলে প্রবল ঘূর্ণিঝড়, গতিবেগ ১১৮ থেকে ২১৯ কিলোমিটার হলে অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড় এবং গতিবেগ ২২০ কিলোমিটার বা তার বেশি হলে তাকে সুপার সাইক্লোন’ বলা হয়।

ঘূর্ণিঝড় রেমাল’-এর নামকরণ করেছে ওমান। আরবিতে এর অর্থ বালি। এই নামে ফিলিস্তিনের গাজা থেকে ১ দশমিক ৭ কিলোমিটার দূরে একটি শহরও রয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের মে মাসে বাংলাদেশের উপকূলে আছড়ে পড়েছিল ঘূর্ণিঝড় আম্ফান। সুন্দরবনের কারণে সে যাত্রায় রক্ষা পেয়েছিল দেশের উপকূল। এর আগে ২০০৯ সালের মে মাসেই সুন্দরবনে আঘাত হেনেছিল প্রলয়ংকরী আইলা।


আরও খবর



এমপি আনার হত্যাকাণ্ড: শাহীনকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ভারতে ফেরানোর পরিকল্পনা

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যার পরিকল্পনাকারী’ আক্তারুজ্জামান শাহীনকে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ভারতে ফিরিয়ে আনার কথা ভাবছে পশ্চিমবঙ্গ ক্রাইম ইনভেস্টিগেটিভ ডিপার্টমেন্ট (সিআইডি)।

পশ্চিমবঙ্গ সিআইডির একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে গণমাধ্যমকে বলেছেন, মার্কিন সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশের কোনো প্রত্যর্পণ চুক্তি নেই, কিন্তু ভারতের আছে। আমরা শাহীনকে ভারতে প্রত্যর্পণের পরিকল্পনা করছি, কারণ অপরাধটি আমাদের রাজ্যে ঘটেছে।

এ মামলার অন্যতম আসামি আক্তারুজ্জামান শাহীন এমপি আনোয়ারুল আজীমের ঘনিষ্ঠ বন্ধু এবং ব্যবসায়িক অংশীদার হিসেবে পরিচিত। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে থাকেন। তার মার্কিন নাগরিকত্ব রয়েছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

এদিকে, শাহীনকে পেতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ভারত, নেপাল, ইন্টারপোল ও যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে কাজ করছে বলে ভারতীয় সংবাদসংস্থা পিটিআইকে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। তিনি জানান, আখতারুজ্জামান শাহীন মূল সন্দেহভাজন এবং পলাতক। তাকে বিচারের আওতায় আনতে ভারত, নেপাল ও যুক্তরাষ্ট্রের আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সাহায্য চাওয়া হয়েছে।

গোয়েন্দাদের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে, কলকাতার নিউটাউনের সঞ্জীবা গার্ডেনে এমপি আনারকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ অন্তত ৮০ টুকরা করে ছোট ছোট শপিংব্যাগে ভরা হয়। হত্যাকারীরা সেই ব্যাগগুলো গার্ডেনের সামনের খালে ফেলে দেয়। স্মরণকালে নিষ্ঠুরতম হত্যাকাণ্ডটি হিন্দি সিনেমাকেও হার মানিয়েছে বলে একাধিক গোয়েন্দা কর্মকর্তা অভিমত ব্যক্ত করেছেন।


আরও খবর