আজঃ শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ মার্চ ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
গাজীপুর প্রতিনিধি

Image

ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করার অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি গ্রেপ্তার হয়েছেন। সৌদি আরব থেকে দেশে ফেরার পর আজ শনিবার বেলা পৌনে ১২টার দিকে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গাজিপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসি ডিবি (উত্তর) মো. ইব্রাহিম খান মাহিকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে, চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি ও তার স্বামী রকিব সরকারের বিরুদ্ধে গাজীপুরে দুটি মামলা হয়। ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করার অভিযোগে শুক্রবার (১৭ মার্চ) রাতে বাসন থানার এসআই রোকন মিয়া বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। এ ছাড়া জমি দখলের অভিযোগে আরেকটি মামলা করেছেন স্থানীয় বাসিন্দা ইসমাইল হোসেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন গাজীপুর মহানগর পুলিশ কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম। তিনি বলেন, ফেসবুকে চিত্রনায়িকা মিথ্যা বলে মানুষের সহানুভূতি নেওয়ার চেষ্টা করেছেন। পুলিশের বিরুদ্ধে ঢালাও অভিযোগ করেছেন তিনি। তারা পুলিশকে বিতর্কিত করার মিশনে নেমেছেন। ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করার অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে।

এর আগে, শুক্রবার ভোরে স্বামীর সঙ্গে ওমরাহ পালন করতে যাওয়া চিত্রনায়িকা মাহি সৌদি আরবের মক্কা শহর থেকে ফেসবুক লাইভে রাকিবের গাড়ির শোরুম ভাঙচুর ও হামলার অভিযোগ করেন।

এ সময় তিনি দাবি করেন, ভাওয়াল বদরে আলম সরকারি কলেজের পূর্ব পাশে সনিরাজ কার প্যালেস নামে তার স্বামীর একটি গাড়ির শোরুম রয়েছে। সেই শোরুমে দুর্বৃত্তরা হামলা চালিয়েছে। হামলাকারীরা তার শোরুমের গেট ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে। তারা শোরুমের বিভিন্ন আসবাব, দরজা-জানালার কাচ, টেবিল-চেয়ার ভাঙচুর করেছে। শোরুমের সাইনবোর্ডও খুলে ফেলেছে। দুর্বৃত্তরা তার অফিসকক্ষ তছনছ করে টাকা-পয়সা লুট করে নিয়ে গেছে।

ইসমাইল হোসেন ওরফে লাদেন ও মামুন সরকারের নেতৃত্বে এ হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ করেন মাহি। ফেসবুকে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ তোলেন এই নায়িকা। পুলিশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করার জন্য অভিযোগে মাহিয়া মাহি ও তার স্বামী রকিব সরকারের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে পুলিশ। এই মামলাতেই গ্রেপ্তার করা হলো মাহিকে।

নিউজ ট্যাগ: মাহিয়া মাহি

আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




পিরোজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির তলবি সভায় হামলা : আহত চার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মশিউর রাহাত (পিরোজপুর)

Image

পিরোজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির তলবি সভা এবং এডহক কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে বহিরাগতদের হামলায় ৪জন আইনজীবী গুরুতর আহত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সভা চলাকালীন বহিরাগত সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে অ্যাডভোকেট তরুণ ভট্টাচার্য ও আহাসানুল কবির হিমুকে আহত করে। আহত তরুণ ভট্টাচার্য ও আহাসানুল কবিরকে জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা দিতে নেয়া হয়। এরপরই তলবি সভা পন্ড হয়ে যায়। পরবর্তীতের আহতদের দেখতে যাওয়ার পথে আরও দুই আইনজীবী রাজ্জাক খান বাদশা ও সাইদুর রহমান টিটুকে আহত করে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।

আইনজীবীরা জানান, আমাদের কার্যকরি কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় আমারা জেলা আইজীবী সমিতিতে সাধারণ আইনজীবী সদস্যদের নিয়ে এক তলবি সভা এবং এডহক কমিটি গঠনের জন্য এ সভা আয়োজন করা হয়। সেই সভা চলকালীন সময়ে কতিপয় আইনজীবীর অসলগ্ন ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণে বহিরাগতরা সভা স্থলে প্রবেশ করে। তারা অনুপ্রবেশ করে তারা অ্যাডভোটেক তরুণ ভট্টাচার্য ও আহাসানুল কবির হিমু মারধোর করে। এরপরই তলবি সভা স্থগিত করে আহতদের হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

তারা আরও জানায়, তলবি সভা স্থগিত হলে আহত তরুণ ভট্টাচার্য ও আহাসানুল কবিরকে দেখতে জেলা হাসপাতালের দিকে রিক্সায় করে রওয়ানা হয় অ্যাডভোকেট রাজ্জাক খান বাদশা ও সাইদুর রহমান টিটু। তারা ফায়ার সার্ভিসের সামনে পৌছালে ৮/১০ জনের সন্ত্রাসী দল লোহার রড, জিআই পাইপ, ধারালো দাও নিয়ে তাদের উপর আক্রমণ করে। এসময় তাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি মারতে থাকে। এসময় অ্যাডভোকেট সাইদুর রহমান টিটুর দুই পা রড ও জিআই পাইপ দিয়ে থেতলে দেয় সন্ত্রাসীরা।

এসময় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি অনিরুজ্জামান অনিক ওই পথ দিয়ে কয়েকজনকে নিয়ে যাওয়ার সময় তাদেরকে মারতে দেখে মটরসাইকেল থেকে নেমে সন্ত্রাসীদের ধাওয়া করলে তারা পালিয়ে যায়। পরে ফায়ার সার্ভিস আহত দুইজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

গুরুতর আহত সাইদুর রহমান টিটু বলেন, আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আলাউদ্দিন খান ও অ্যাডভোকেট শহিদুল হক খান পান্নার নির্দেশে শংকর পাশা ইউনিয়নের আলাউদ্দিন হাওলাদার ও আইনজীবী সহকারি হুমায়ূন কবিরসহ ৮/১০ জন তাদের উপর হামলা করে। 

জেলা হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসক ডাক্তার আসিফ আহমেদ বলেন, আহত সাইদুর রহমান টিটুর দুই পা গুরুতর জখম আছে। শরীরেও কিছু আঘাতের চিহ্ন আছে। অবস্থা খারপের দিকে যেতে পারে। অবস্থা খারাপ হলে আমরা উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল অথবা খুলনায় স্থানন্তর করে দেবো। রোগী যতক্ষণ আমাদের এখানে আছে আমাদের সাধ্যমত চিকিৎসা দিবো।   

এ বিষয়ে আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল আউয়াল বলেন, বহিরাগতদের দ্বারা আইনজীবীদের আহতের ঘটনায় আমরা মামলা করার প্রস্তুতি নিয়েছি। অচিরেই বিচারের দ্বারস্থ হবো। যাতে করে বহিরাগতরা আমাদের আইজীবী সদস্যদের ওপর নগ্ন হস্তক্ষেপ না করতে পারে। এ জন্য আমরা বিচার বিভাগের হস্তক্ষেপ কামনা করি। 

পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আসিকুজ্জামান বলেন এ ঘটনায় আমার এখনও কোন অভিযোগ পাই নাই। অভিযোগ পেলে মামলা গ্রহণ করবো।


আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মন্ত্রিসভার আকার বাড়ছে, শুক্রবার সন্ধ্যায় নতুনদের শপথ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

গুঞ্জন চলছিল দু-একদিনের মধ্যে বাড়ছে মন্ত্রিসভার আকার। নতুন করে যুক্ত হতে পারে সাত থেকে আট নতুন মুখ। বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) এমন ইঙ্গিতও দিয়েছেন মন্ত্রিসভার একজন সদস্য। অবশেষে রাতেই বিশ্বস্ত সূত্র জানায়, নতুন মুখদের শপথের কথা।

জানা গেছে, আরও একজন পূর্ণমন্ত্রী, চারজন প্রতিমন্ত্রী ও তিনজন উপমন্ত্রী যোগ হতে পারেন মন্ত্রিসভায়। যদিও কারা এই নতুন মুখ এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে তাদের দায়িত্ব গ্রহণের বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ প্রাথমিক প্রস্তুতি নিয়েছে বলেও শোনা যাচ্ছে।

মন্ত্রিসভা আকার বাড়ার বিষয়ে এখনও কিছু জানেন না বলেছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন। তিনি জানান, তার কাছে এমন কোনো সংবাদ নেই। তিনি জানার পর বিস্তারিত বলতে পারবেন।

সরকারি বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, বর্তমান মন্ত্রিসভার দু-একজন সিনিয়র মন্ত্রীর দফতর পরিবর্তন হতে পারে। এ ছাড়া সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্যদের মধ্যে থেকেও তিন-চারজন আসতে পারেন।

৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর ১১ জানুয়ারি শপথ নেয় নতুন মন্ত্রিসভা। এতে অভিজ্ঞ ও নতুন মুখ নিয়ে ৩৭ জন সদস্য জায়গা পান। মন্ত্রিসভার আকার আরও বাড়ার বিষয়ে শুরু থেকেই আলোচনায় রয়েছে। শোনা যাচ্ছিল, সংসদে সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্যদের নির্বাচিত হওয়ার পর মন্ত্রিসভার সদস্য বাড়বে।

সংসদে ৪৮ সংরক্ষিত নারী সদস্যের মনোনয়ন দিয়েছিল ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। আর বিরোধী দল জাতীয় পার্টি দিয়েছিল দুজনকে। তাদের সবাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। সবশেষ বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) তাদের শপথ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বর্তমান মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রী বাদে পূর্ণ মন্ত্রী ২৫ জন এবং প্রতিমন্ত্রী ১১ জন। ৩৭ সদস্যের এই মন্ত্রিসভায় কোনো উপমন্ত্রী নেই। এখনও দুটি মন্ত্রণালয়ে কোনো মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী দেয়া হয়নি। এর মধ্যে শ্রম ও কর্মসংস্থান এবং সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ে দুজন নারী সদস্যকে অন্তর্ভুক্ত করার কথা আলোচনায় রয়েছে। বর্তমান মন্ত্রিসভায় বড় বড় বেশ কিছু মন্ত্রণালয়ে একজন মন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রীকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এসব মন্ত্রণালয়ে আগে একাধিক মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী কিংবা উপমন্ত্রী ছিলেন।

সূত্র বলছে, সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচিত একজনকে অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হতে পারে। ওই নারী সদস্য এবার দ্বিতীয় দফায় সংরক্ষিত আসনে সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়েও একজন প্রতিমন্ত্রী দেয়া হতে পারে। আগের মন্ত্রিসভায় টেকনোক্র্যাট কোটায় পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ছিলেন শামসুল আলম। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়েও একজন প্রতিমন্ত্রী কিংবা উপমন্ত্রী দেয়া হতে পারে। এ ছাড়া স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে একজন প্রতিমন্ত্রী কিংবা উপমন্ত্রী দেয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়েও একজন প্রতিমন্ত্রী বা উপমন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হতে পারে। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রীর পাশাপাশি একজন পূর্ণ মন্ত্রী দেয়া হয়েছে বরাবরই। এবার এখন পর্যন্ত প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক একাই দায়িত্ব সামলাচ্ছেন। এই মন্ত্রণালয়ে পূর্ণ মন্ত্রী কিংবা বিভাগ ভাগ করে আরেকজন প্রতিমন্ত্রী নিয়োগের বিষয়টি আলোচনায় রয়েছে।


আরও খবর



পোস্তগোলা সেতু পুরোপুরি বন্ধ থাকবে যে দিনগুলোতে

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সংস্কার কাজ চলছে পোস্তগোলা সেতুর। এ জন্য আজ সোমবার পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে সেতুটি। তবে শুধু আজই নয়, আগামী ১, ৪ ও ৮ মার্চ পুরোপুরি বন্ধ থাকবে এটি। এ সময়ে যানবাহন চলাচল করতে হবে বিকল্প পথে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক বিভাগ এ তথ্য জানিয়েছে। তারা জানায়, এই চার দিন সেতু দিয়ে কোনো যানবাহন পারাপার হতে পারবে না।

ঢাকা জোনের সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী মো. সবুজ উদ্দিন খান বলেছেন, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ১, ৪ ও ৮ মার্চ পোস্তগোলা সেতুতে সব ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে।

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী শিশির কান্তি রাউৎ জানান, এ পর্যন্ত পোস্তগোলা সেতুর ৫০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। গার্ডার-২ এর কাজ চলছে। এরপর গার্ডার ১ এর কাজ শুরু হবে।

গতকাল রবিবার বিকেলে সড়ক ও জনপথ বিভাগের গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পোস্তগোলা সেতু মেরামতে বাবুবাজার ব্রিজ ব্যবহারের ফলে যানজট বাড়ায় বিকল্প সড়ক ব্যবহারের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পদ্মা সেতু থেকে সিলেট, নারায়ণগঞ্জ ও চট্টগ্রামমুখী হালকা যানবাহন মুক্তারপুর সেতু ব্যবহার করবে। পদ্মা সেতু হতে ঢাকাগামী যানবাহন শ্রীনগর-দোহার-নবাবগঞ্জ-কেরানীগঞ্জ হয়ে বছিলা সেতু দিয়ে মোহাম্মদপুর সড়ক ব্যবহার করবে।


আরও খবর



বগুড়া প্রায় সাড়ে ৮শ’ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই শহিদ মিনার

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বগুড়া প্রতিনিধি

Image

বগুড়া বিভিন্ন উপজেলায় প্রায় সাড়ে ৮শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নেই শহিদ মিনার। প্রতিবছর একুশে ফেব্রুয়ারি এলেই তিনটি কলাগাছ দিয়ে অস্থায়ী শহিদ মিনার নির্মাণ করা হয়। তারপর সেই শহিদ মিনারে স্কুলের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা ভাষা শহিদের ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলার কর্ণিবাড়ী ইউনিয়নের শোনপচা উচ্চ বিদ্যালয়ে গত ৩০ বছর থেকে এভাবেই শহিদদের স্মরণ করা হয়।

ওই বিদ্যালয়ের মত আরও বেশি সময় থেকে জেলার আদমদীঘি উপজেলার পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষার্থীরা ভাষা শহিদদের স্মরণে পায়ে হেঁটে  প্রায় দেড় মাইল দূরে উপজেলা সদরের শহিদ বেদীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। একইভাবে বগুড়ার কাহালু উপজেলার পাঁচপীর মাজার বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা প্রায় এক কিলোমিটার দূরের অপর একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শহিদ বেদীতে ফুল দিয়ে ভাষা শহিদদের স্মরণ করেন।

শুধু এই তিনটি বিদ্যালয়ই নয়, ভাষা আন্দোলনের ৭২ বছর পরও বগুড়ার অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই এখনও নির্মাণ করা হয়নি শহিদ মিনার। যেসব প্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার নেই ভাষা দিবস এলেই ওই প্রতিষ্ঠানগুলোর কলাগাছ কিংবা বাঁশ-কাঠ দিয়ে অস্থায়ীভাবে শহিদ মিনার তৈরি করে শহিদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে হয়।

আবার কোনো কোনো প্রতিষ্ঠানে শুধু পতাকা উত্তোলন করে বিশেষ দিবস পালন করা হয়। ফলে শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছে দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার শিক্ষা অর্জনে। জাতীয় দিবসের গুরুত্ব ও শহিদদের সম্পর্কেও জানতে পারছে না তারা। বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে ৫২'র রাজপথ রক্তে ভিজিয়ে ছিলেন আমাদের পূর্ব-পুরুষেরা।

তাদের আত্মত্যাগের ফসল আজকের এই বাংলা ভাষা। পৃথিবীর ইতিহাসে একমাত্র বাঙালিরাই ভাষার জন্যে জীবন দিয়েছে, রক্ত দিয়েছে। বাঙালীদের সাথে সাথে সারা বিশ্ব ২১ ফেব্রুয়ারিকে পালন করেন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে।

১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের বীর শহিদদের আত্মত্যাগকে শ্রদ্ধা জানাতে তৈরী করা হয়েছিলো শহিদ মিনার। সরকারী নির্দেশনায় প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার থাকার কথা থাকলেও জেলার শিক্ষা দপ্তরগুলোর তথ্য অনুযায়ী জেলায় প্রাথমিক, নিম্ন মাধ্যমিক, মাধ্যমিক, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরী সরকারি-বেসরকারি সব মিলে ২ হাজার ৭৩০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

এরমধ্যে প্রায় সাড়ে ৮শ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এখনও শহিদ মিনার নির্মাণ করা হয়নি। প্রাথমিকে ১ হাজার ৬৫৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১ হাজার ৫৫২টি বিদ্যালয়ে শহিদ মিনার রয়েছে বলে জেলার প্রাথমিক শিক্ষা দপ্তর দাবি করছে।

মাত্র ৭২টিতে নেই বলে তারা জানিয়েছে। অপরদিকে সরকারি-বেসরকারি সব মিলে জেলায় নিম্ন মাধ্যমিক, মাধ্যমিক, স্কুল এন্ড কলেজ, কলেজ, স্নাতক পর্যায়ের কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ১ হাজার ৭৭টি রয়েছে। এরমধ্যে মাত্র ৩১০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার রয়েছে, ৭৬৭টি প্রতিষ্ঠানে নেই বলে জানিয়েছে জেলা শিক্ষা দপ্তর।

আদমদীঘি উপজেলার পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুস সালাম তালুকদার জানান, ১৯৬৯ সালে প্রতিষ্ঠানটি স্থাপন হয়। অর্ধ শতাধিক বছর পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত বিদ্যালয়ে শহিদ মিনার নির্মাণ করা হয়নি। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানে প্রায় দেড় হাজার শিক্ষার্থী রয়েছে। ভাষা দিবসসহ বিশেষ দিবসগুলোতে প্রায় দেড় কিলো দূরে উপজেলা সদরের শহিদ মিনারে গিয়ে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

তিনি জানান, প্রতিষ্ঠানটিতে শহিদ মিনার নির্মাণের জন্য একাধিকবার স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সরকারি কর্মকর্তাদের অবগত করা হয়েছে। তারাও বারবার নির্মাণের আশ্বাস দিলেও এখন পর্যন্ত কার্যকর হয়নি। সারিয়াকান্দি উপজেলার কর্ণিবাড়ী ইউনিয়নের শোনপচা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ রবিউল ইসলাম জানান, ১৯৯৪ সালে ওই বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়।

প্রতিষ্ঠার ৩০ বছরেও ওই বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়নি। অথচ বর্তমানে ওই বিদ্যালয়ে ৪৫৩জন শিক্ষার্থী রয়েছে। ভাষা দিবসসহ বিভিন্ন বিশেষ দিবসে কলাগাছ দিয়ে শহীদ মিনার নির্মাণ করে শহিদদের শ্রদ্ধা জানানো হয়। প্রায় ৯০ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত হওয়া বগুড়া শহরের অভিজাত এলাকায় গড়ে ওঠা ইয়াকুবিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে আজ অব্দি নির্মাণ করা হয়নি শহিদ মিনার।

ভাষা দিবসসহ বিশেষ দিবসগুলোতে ওই বিদ্যালয় জেলা প্রশাসনের সাথে মিলিত হয়ে দিবসগুলো পালন করে বলে স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ শাহাদৎ হোসেন জানান। তিনি বলেন, স্কুলে শহিদ মিনার নির্মাণের জন্য ইতোমধ্যে নক্শার কাজ শুরু করা হয়েছে, আশা করা যাচ্ছে আগামি বছর ভাষা শহিদ দিবসের আগেই শহিদ মিনার নির্মাণ হবে।

এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শহিদ মিনার বিষয়ে শিক্ষা দপ্তরগুলোর পাঠানো তথ্যের সাথে বাস্তবের তেমন মিল নেই।

সম্প্রতি জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ে শহিদ দিবস পালনের প্রস্তুতি সভায় জেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শহিদ মিনার বিষয়ক তথ্য শিক্ষা কর্মকর্তাদের কাছে জানতে চাওয়া হলে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা তাৎক্ষণিকভাবে জেলা সার্বিক তথ্য দিলেও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সে সময় কোন তথ্যই দিতে পারেননি। পরে তড়িঘড়ি করে এই যে তথ্য জেলা প্রশাসকের দফতরে পাঠিয়েছেন, তার সাথে বাস্তবতার গড়মিল খুঁজে পাওয়া গেছে।

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ হজরত আলী জানান, যেসব প্রতিষ্ঠানে শহিদ মিনার নেই সেইসব প্রতিষ্ঠানকে শহিদ মিনার নির্মাণের জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে। শহিদ মিনার নির্মাণে খুব বেশি অর্থের প্রয়োজন হয় না, আন্তরিকতাটাই বড়। প্রতিষ্ঠান প্রধান, ম্যানেজিং কমিটি এবং স্থানীয় গণ্যমান্য বা ধনাঢ্য ব্যক্তিরা যদি একটু আন্তরিক হন তবে অবশ্যই প্রতিটি প্রতিষ্ঠানেই শহিদ মিনার নির্মিত হবে। তবে তারা তা না করে জেলা শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের বরাদ্দের অপেক্ষায় থাকেন , যা সত্যি দুঃখজনক।

নিউজ ট্যাগ: শহিদ মিনার

আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




পর্যটকবাহী বাস-পিকআপ সংঘর্ষে দুই নারী নিহত, আহত ১৫

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় পর্যটকবাহী বাসের সঙ্গে পিকআপের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে দুজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন আরও ১৫ জন। এর মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) সকালে মাটিরাঙ্গার সাপমারা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন জেলা শহরের বসুন্ধরা এলাকার বাসিন্দা মৃত ননী গোপাল গুহের স্ত্রী প্রীতি বালা গুহ (৪৫) ও মৃত গৌরাঙ্গ ঘোষের স্ত্রী অনিমা ঘোষ (৬৫)। 

আরও পড়ুন>> রমজানে ভোক্তাদের ক্রয় ক্ষমতায় থাকবে ডিম-মুরগি

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, খাগড়াছড়ি থেকে যাত্রী নিয়ে একটি পিকআপ জেলার গুইমারা যাচ্ছিল। বিপরীত দিক থেকে আসা একটি পর্যটকবাহী বাসের সঙ্গে সাপমারা এলাকায় মুখোমুখি সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে। এতে পিকআপে থাকা দুই নারী ঘটনাস্থলেই মারা যান। এ সময় আহত হন অন্তত ১৫ জন। স্থানীয়রা হতাহতের উদ্ধার করে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার মুক্তা ধর।

তিনি বলেন, দুর্ঘটনাকবলিত গাড়ি দুটি পুলিশ হেফাজতে রয়েছে। হতাহতদের উদ্ধার করা হয়েছে। দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এতে কোনো পর্যটক হতাহত হয়নি।


আরও খবর
৯ ছাত্রীর চুল কাটার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪