আজঃ মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

ছেলের সামনেই গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা

প্রকাশিত:শনিবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২ | অনলাইন সংস্করণ
Image

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলায় পরকীয়ার জেরে রাজিয়া বেগম (৪০) নামে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা করেছে পিয়াস বালা ও তার পরিবার। বৃহস্পতিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) রাত ১০টার দিকে তাকে হত্যা করা হয়।

নিহত রাজিয়া ভেদরগঞ্জ উপজেলার চরসেন্সাস ইউনিয়নের বালার বাজার এলাকার জাকির হোসেন মোল্লার স্ত্রী। তিনি ৩ সন্তানের জননী।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, রাজিয়া ঢাকায় থাকতেন। তার স্বামী ঢাকায় টেইলারিংয়ের কাজ করেন। তবে গত কয়েকবছর ধরে ছোট ছেলে শান্তকে নিয়ে গ্রামেই থাকেন রাজিয়া। দেশে আসার পর থেকে বাড়ির পাশের ফারুক বালার সঙ্গে পরকীয়ার সম্পর্ক করছেন বলে অভিযোগ ওঠে। এ নিয়ে মাঝে মধ্যেই ফারুক বালার স্ত্রী পারভীন আক্তারের সঙ্গে ঝগড়া হতো। বৃহস্পতিবার রাতে একই বিষয় নিয়ে তাদের মধ্যে আবারও ঝগড়া বাধে। ঝগড়ার এক পর্যায়ে ফারুক বালা ও তার ছেলে পিয়াস বালা মিলে রাজিয়াকে মারধর করে। রাজিয়াকে বাঁচাতে ছেলে শান্ত এগিয়ে আসলে তাকে দা নিয়ে তাড়া করে। শান্ত দৌড়ে প্রতিবেশীদের ডেকে আনলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

প্রতিবেশীরা রাজিয়াকে উদ্ধার করে ভেদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছেন।

রাজিয়া বেগমের স্বামী জাকির হোসেন মোল্লা বলেন, ছোট বিষয় নিয়ে মাঝে মধ্যেই ঝগড়া হতো। পরকীয়া বা অন্য কোনো বিষয়ে কিছুই জানায়নি তারা আমাকে। মিথ্যা অভিযোগে গত রাতে আমার স্ত্রীকে আমার ছেলের সামনেই পিটিয়ে হত্যা করেছে ফারুক বালা ও তার পরিবার।

ঘটনার পর থেকে ফারুক বালা ও তার পরিবারের সদস্যরা পলাতক রয়েছে।

ঘটনার সত্যতার নিশ্চিত করে সখিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আসাদুজ্জামান বলেন, এ ঘটনায় মামলা করা হয়েছে। দোষীদের ধরার জন্য আমরা অভিযান চালাচ্ছি।


আরও খবর



জান্তাবাহিনীর নির্মমতার শিকার হয়ে গর্ভবতী নারী-শিশুসহ ৬ জন নিহত

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

মিয়ানমারের এক গর্ভবতী নারী ও ৩ শিশুসহ ৬ কারেনি নৃগোষ্ঠীর সদস্যকে হত্যা করেছে জান্তাবাহিনী। নিহতদের মধ্যে ৩ জন নারী ও ৩ জন শিশু। শিশুদের সবার বয়সই ১০ বছরের নিচে। কায়াহ রাজ্যের শাদাও শহরে এই ঘটনা ঘটেছে। একই দিনে, শাদাও থেকে ২৪৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মিয়ানমারের সংবাদমাধ্যম ইরাবতীর এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত সপ্তাহের রোববার জান্তাবাহিনী শাদাও শহরে অভিযান শুরু করে। সে সময় বিনা কারণে জান্তাবাহিনী ৩ নারীকে হত্যা করে। তাদের মধ্যে একজন গর্ভবতী ছিলেন। এ ছাড়া তাদের সঙ্গে থাকা ৩ শিশুকেও হত্যা করে জান্তাবাহিনী।

কায়াহের বিদ্রোহী গোষ্ঠী কারেনি আর্মি জানিয়েছে, শাদাও শহরে প্রবেশ করে জান্তাবাহিনী গণহারে ধরপাকড় চালিয়ে ২৪৯ জনকে গ্রেপ্তার করে। তাদের মধ্য থেকে পুরুষেরা পালিয়ে গেলেও ওই গর্ভবতী নারী ও অপর দুই প্রতিবন্ধী নারী ও যথাক্রমে ৩, ৫ ও ৭ বছর বয়সী তিন শিশু পালাতে ব্যর্থ হয়। পরে জান্তাবাহিনী নির্যাতন চালিয়ে এই ৬ জনকে হত্যা করে।

পরে কারেনি আর্মি ও কারেনি ন্যাশনালিটিজ ডিফেন্স ফোর্সের সদস্যরা যৌথ অভিযানের সময় শাদাও শহর থেকে এই ৬ জনের মরদেহ উদ্ধার করে। নিহত ৩ নারীর পরিচয়ও প্রকাশ করেছে তারা। নিহত নারীরা হলেনসোয়ে মেল, লাও মেল এবং মে মোহ। তাদের সবার বয়সই ৩০ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে।

কারেনি আর্মি জানিয়েছে, নিহত শিশুদের একজন সোয়ে মেলের নাতি এবং একজন লাও মেলের কন্যা। অপর শিশুর পরিচয় এখনো জানা যায়নি বলে জানিয়েছে গোষ্ঠীটি।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম কান্তারাবতী টাইমস জানিয়েছে, তৃতীয় শিশুটিকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। যখন তাকে খুঁজে পাওয়া যায় তখনো তার শ্বাস চলছিল। কিন্তু উদ্ধারকারীরা শিশুটিকে বাঁচাতে পারেনি। শিশুটির পিঠে গুলির একটি বড় ক্ষত ছিল এবং ব্যাপক রক্তক্ষরণের কারণে শিশুটি উদ্ধারের একটু পরই মারা যায়।


আরও খবর
আইনি লড়াইয়ে বড় জয় পেলেন ট্রাম্প

মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪




স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণের সময় নাগরিকদের সতর্ক থাকার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

Image

ভুয়া চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট সবাইকে আরও সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন বলেছেন, সরকার এরই মধ্যে এসবের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছে। আশা করি, আপনারা এ ব্যাপারে সরকারকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবেন।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর একটি হোটেলে চতুর্থ আন্তর্জাতিক বৈজ্ঞানিক সম্মেলন-২০২৪ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যে রাষ্ট্রপতি এ কথা বলেন। বাংলাদেশ কার্ডিওভাসকুলার রিসার্চ ফাউন্ডেশন ও যুক্তরাষ্ট্রের ইন্টারভেনশনাল একাডেমি এ সম্মেলনের আয়োজন করে।

রাষ্ট্রপতি চিকিৎসকদের সংবেদনশীলতা ও উদারতার সঙ্গে রোগীদের চিকিৎসা করতে এবং রোগীর মর্যাদা ও গোপনীয়তা রক্ষায় সর্বোচ্চ যত্নবান হওয়ার আহ্বান জানান।

সাহাবুদ্দিন বলেন, চিকিৎসা বিজ্ঞান প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল, যত নতুন নতুন রোগের আবির্ভাব হচ্ছে, চিকিৎসা বিজ্ঞান সেগুলোকে প্রতিরোধ করতে এগিয়ে যাচ্ছে।

চিকিৎসাবিষয়ক শিক্ষা, চিকিৎসা, সেবা ও গবেষণা কার্যক্রমে গতিশীলতা এবং উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থাপনার প্রশংসা করে রাষ্ট্রপতি বলেন, বিভিন্ন ধরনের রোগের প্রকৃতি মাথায় রেখে চিকিৎসা, শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

হৃদরোগ, ক্যানসার, এইডসসহ অন্যান্য প্রাণঘাতী রোগ প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধির প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

জনগণের দোরগোড়ায় সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে সরকারের নিরন্তর প্রচেষ্টার কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, সরকারের লক্ষ্য প্রত্যেক নাগরিকের জন্য দূষণমুক্ত, পরিবেশবান্ধব স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন নিশ্চিত করার মাধ্যমে কল্যাণমূলক সমাজ ও রাষ্ট্র গঠন করা।

দেশের সামগ্রিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থার আরও উন্নয়ন নিশ্চিত করতে সরকারি, বেসরকারি খাত ও চিকিৎসকদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

দেশের বিশাল জনগোষ্ঠীকে মানসম্মত চিকিৎসা সেবা প্রদান চ্যালেঞ্জ উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, সরকার উন্নত চিকিৎসাসেবার জন্য ইতোমধ্যে পদক্ষেপ নিয়েছে। দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে চিকিৎসাসেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দিতে হবে। তারা (গরীবরা) যেন চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত না হয় বা অর্থের অভাবে অবহেলিত না হয় তা নিশ্চিত করতে হবে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ, ইন্টারভেনশনাল একাডেমির কোর্স চেয়ারম্যান ডা. রাজেশ এম দেব, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ এবং বাংলাদেশ কার্ডিওভাসকুলার রিসার্চ ফাউন্ডেশনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. এস মোস্তফা জামান প্রমুখ।


আরও খবর



‘সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট প্রমাণ করে প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সরকার সাংবাদিকবান্ধব’

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত বলেছেন, সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন ও পরিচালনা প্রমাণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তাঁর নেতৃত্বাধীন সরকার সাংবাদিকবান্ধব।

আজ সোমবার বিকেলে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি বোর্ডের ২৯তম সভায় প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন। সভায় ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে সভাপতিত্ব করেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ও বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি বোর্ডের ভাইস-চেয়ারম্যান মো. হুমাযুন কবীর খোন্দকার, বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্য সচিব সুভাষ চন্দ্র (বাদল), তথ্য অধিদফতরের প্রধান তথ্য অফিসার ও ট্রাস্টি বোর্ড সদস্য মো. শাহেনুর মিয়া, অর্থ বিভাগের যুগ্মসচিব ও ট্রাস্টি বোর্ড সদস্য মোহাম্মদ সাদেকুর রহমান, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব ও ট্রাস্টি বোর্ড সদস্য মো. কাউসার আহাম্মদ, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ও ট্রাস্টি বোর্ড সদস্য ওমর ফারুক, দৈনিক সংবাদ-এর ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ও ট্রাস্টি বোর্ড সদস্য কাশেম হুমায়ুন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ও ট্রাস্টি বোর্ড সদস্য সোহেল হায়দার চৌধুরী সভায় উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকারিভাবে সাংবাদিকদের জন্য অনেক কিছু করার বর্তমান সরকারের প্রচেষ্টা আছে। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংবাদিকদের কল্যাণে ২৫ কোটি টাকা দিয়েছেন। তিনি আরও ১০ কোটি টাকা দেওয়ার কথা বলেছেন। তারপরও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে কিছু কিছু জায়গা থেকে কখনও কখনও অপপ্রচার করা হয়, প্রশ্ন তোলা হয় যে, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার সাংবাদিকতার জায়গা সংকুচিত করছে না প্রসারিত করছে। অথচ সাংবাদিকদের কল্যাণের জন্য সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট গঠনের এতো বড় উদ্যোগ প্রমাণ করে তিনি সাংবাদিকবান্ধব প্রধানমন্ত্রী। তাঁর নেতৃত্বাধীন সরকার যে সাংবাদিকবান্ধব সরকার কল্যাণ ট্রাস্ট গঠনের মাধ্যমে এটি প্রমাণ হয়। এ বিষয়গুলো আরও সামনে নিয়ে আসা দরকার জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে।

তিনি আরও বলেন, সাংবাদিক কণ্যাণ ট্রাস্টের কাজে পেশাদারিত্ব ও স্বচ্ছতা আছে। সাংবাদিকদের কল্যাণ ট্রাস্ট থেকে সহযোগিতা দেওয়ার জন্য সাংবাদিক বেছে নেওয়ার প্রক্রিয়া আরও স্বচ্ছ ও পেশাদারিত্বে সাথে যেনো হয় সে বিষয়টি  লক্ষ রাখা প্রয়োজন। বাছাইয়ের প্রতিটি স্তরে যেনো সাংবাদিকদের প্রতিনিধি থাকে সেটা নিশ্চিত করা হচ্ছে। কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি বোর্ড থেকে আমরা পক্ষপাতহীন ও পেশাদারি সিদ্ধান্ত দিতে চাই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে উদ্দেশ্যে সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্ট গঠন করেছেন তার বাস্তবায়ন আমরা চাই। সত্যিকার অর্থে যেনো সাংবাদিকদের কল্যাণ কাজেই ট্রাস্টের অর্থ ব্যয় হয় সেটিই আমাদের চাওয়া।

সভায় সাংবাদিকদের কল্যাণ অনুদান বরাদ্দের বিষয়ে নীতিমালা প্রণয়ন সংক্রান্ত কমিটি গঠন করা হয় এবং কমিটিকে এক মাসের মধ্যে খসড়া নীতিমালা প্রণয়নের সময় দেওয়া হয়। এছাড়া দুস্থ, অস্বচ্ছল, দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত ও মৃত সাংবাদিকদের মেধাবী সন্তানদের জরুরি শিক্ষাবৃত্তি প্রদানের ক্ষেত্রে অর্থ বরাদ্দের বিষয়ে আলোচনা হয়।


আরও খবর



এক যুগ পর চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি আভাস

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

Image

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের এক দশক পুরোনো কমিটি অবশেষে ভাঙার তোড়জোড় শুরু হয়েছে। দীর্ঘ এক দশক পর নগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এতে শীর্ষ পদ প্রত্যাশীদের শিগগিরই বায়োডাটা আহ্বান করতে যাচ্ছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ।  নগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠনে আবার তৃণমূল পর্যায়ে ছড়িয়ে পড়ায় নেতাকর্মীদের মাঝে উচ্ছ্বাস বিরাজ করছে।

ইতোমধ্যে নতুন কমিটির জন্য জীবনবৃত্তান্তও চাওয়া হয়েছে নেতাকর্মীদের কাছে। তবে আগের কমিটিগুলো এমইএস কলেজ ও সিটি কলেজকেন্দ্রিক হলেও এবারের কমিটির ক্ষেত্রে কিছু পরিবর্তন আনতে চায় কেন্দ্র। চেনাবৃত্তের বাইরে থেকে বড় পদ বাগিয়ে নিতে পারেন অন্যান্য কলেজের নেতাকর্মীরা এমনটাই শোনা যাচ্ছে। তবে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে শিগগির কমিটি দেওয়ার যে ঘোষণা, তা বাস্তবায়ন হবে কিনাসেটি নিয়ে কিছু শঙ্কায়ও আছে চট্টগ্রামের নেতাকর্মীরা। এর আগে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ এবং চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) কমিটির জন্য জীবনবৃত্তান্ত চাওয়া হলেও পরে আর কমিটি ঘোষণা হয়নি।

গত বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের জন্য পদপ্রত্যাশীদের কাছ থেকে জীবনবৃত্তান্ত চেয়ে বিজ্ঞপ্তি দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। এরপর থেকে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগ কমিটি ভাঙনের কথা বেশিই শোনা যাচ্ছে। ২০১৩ সালের ২৯ অক্টোবর সরকারি সিটি কলেজের ইমরান আহমেদ ইমুকে সভাপতি এবং ওমরগণি এমইএস কলেজের নূরুল আজিম রনিকে সাধারণ সম্পাদক করে চট্টগ্রাম মহানগরের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। এদিকে বিংশ শতাব্দীর পর সবেমাত্র তিনটি কমিটি পেয়েছে চট্টগ্রাম নগর ছাত্রলীগ। এরমধ্যে একটি স্টিয়ারিং কমিটি ও বাকি দুটি পূর্ণাঙ্গ। সেই ২৩ বছরের হিসেবে দেখা গেছে, পদগুলোর মধ্যে বেশিরভাগ কমিটির প্রধান পদগুলো ভাগাভাগি হয়েছে চট্টগ্রাম শহরের রাজনীতির আতুঁড়ঘর নামে খ্যাত ওমরগণি এমইএস কলেজ এবং সরকারি সিটি কলেজের নেতাকর্মীরা। তবে এই নতুন কমিটির বেলায় সেই চিরচারিত নীতি ভাঙার একটা সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

বর্তমানে দুই কলেজের বাইরে তৈরি হয়েছে নেতৃত্বযোগ্য নেতা। তাই গ্রুপ লিডাররাও দুই কলেজের বাইরে গিয়ে নতুন চিন্তা করছেন এমনটাই চর্চা হচ্ছে রাজনীতিপাড়ায়। সেই নেতৃত্বের দৌড়ে এগিয়ে আছে চট্টগ্রাম কলেজ, ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজ ও সরকারি কমার্স কলেজ ছাত্রলীগের নেতারা। নতুন নগর ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের দৌড়ে এমইএস ও সিটি কলেজকে হারিয়ে এবার হয়তো নতুন ইতিহাস লেখা হতে পারে। নগর ছাত্রলীগের নতুন কমিটির জন্য বিশেষ করে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক সহ শীর্ষ পদ প্রত্যাশীরা সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের বিভিন্ন গ্রুপ ও উপগ্রুপের মাধ্যমে তদবির করছেন। এবার নগর ছাত্রলীগের পদ প্রত্যাশিদের কাছ থেকে আহবান করা হবে বলে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতারা জানিয়েছেন।

নির্বাচনের পর পরই মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি গঠন নিয়ে জোর আলোচনা শুরু হয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দের কাছে। শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল গ্রুপ মহানগর ছাত্রলীগের শীর্ষ পদে সম্ভাব্য প্রার্থী যারা চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদুল করিম, হালিশহর থানা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আবদুর রহিম জিসান, সিটি কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আকবর খান, পতেঙ্গা থানা ছাত্রলীগের সভাপতি হাসান হাবীব সেতু, ডবলমুরিং থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিব হায়দার, চান্দগাঁও থানা ছাত্রলীগের যুগ্ম সম্পাদক তৌহিদুল আলম বাবু, মহানগর ছাত্রলীগের সদস্য আরাফাত রুবেল, মোশাররফ চৌধুরী পাভেল, ইসলামিয়া কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি কাজী মো. আসিফ আলভী, কমার্স ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল আলম আলভী, সিটি কলেজ নৈশ শাখার ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আশীষ সরকার নয়ন, ভিপি মো. তাসিন, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ.জ.ম নাছির উদ্দীন গ্রæপ বাকলিয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও নগর ছাত্রলীগের উপসম্পাদক রাশেদ চৌধুরী এবং নগর ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক শৈবাল দাশ, উপসম্পাদক ইমরান আলী মাসুদ, নাছির উদ্দিন কুতুবী, হুমায়ুন কবির আজাদ, ওসমান গনি, ফাহাদ আনিস ও কোতোয়ালী থানা ছাত্রলীগের সভাপতি অনিন্দ্য দেব, মহানগর বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শামীমুর রহমান, পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম রাকিব।

প্রসঙ্গত, কেন্দ্র থেকে ২০১৩ সালের ২৯ অক্টোবর ইমরান আহমেদ ইমুকে সভাপতি ও নুরুল আজিম রনিকে সাধারণ সম্পাদক করে ২৪ জনের আংশিক কমিটি দেওয়া হয়। এরপর ২০১৪ সালের ১১ জুলাই ওই ২৪ জনসহ ২৯১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ নগর ছাত্রলীগের কমিটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। বিভিন্ন ঘটনায় আলোচিত-সমালোচিত হওয়ার পর ২০১৮ সালের ১৯ এপ্রিল ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে পদত্যাগ করেন নুরুল আজিম রনি। তাঁর স্থলাভিষিক্ত হন কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীর। পরবর্তীতে তাকেও ভারমুক্তও করা হয়। এক বছর মেয়াদের ওই কমিটি ইতোমধ্যে দশ বছর পার করেছে।

নিউজ ট্যাগ: চট্টগ্রাম

আরও খবর



জ্বালানি তেলের দাম নিয়ে সুখবর দিলেন প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ০৩ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

চলতি মাসে দেশে গ্রাহক পর্যায়ে জ্বালানি তেলের দাম কমবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। রোববার (৩ মার্চ) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ কথা বলেন।

নসরুল হামিদ বলেন, নতুন ফর্মুলায় শিগগিরই দেশে প্রথমবারের মতো জ্বালানি তেলের দাম ঘোষণা করা হবে। চলতি মাসেই গ্রাহক পর্যায়ে দাম কমিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, জ্বালানি তেলের নতুন দাম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর তরফ থেকে প্রস্তাবিত নতুন দামের অনুমোদন পাওয়ার পর এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।

এর আগে গত ১ মার্চ বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপনে জানিয়েছিল, আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয় রেখে সরকার প্রতিমাসে জ্বালানি তেলের স্বয়ংক্রিয় মূল্য নির্ধারণ করবে। চলতি মার্চ থেকেই জ্বালানি তেলের স্বয়ংক্রিয় মূল্য নির্ধারণ এ পদ্ধতি কার্যকর হবে।

এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, পেট্রোলিয়াম পণ্য (ডিজেল, কেরোসিন, অকটেন ও পেট্রোল) তথা সরকার যে সব গ্রেডের জ্বালানি তেলের বিক্রয় মূল্য নির্ধারণ করে, সেগুলোর জন্য এই স্বয়ংক্রিয় মূল্য নির্ধারণ পদ্ধতি প্রযোজ্য হবে। জ্বালানি তেলের স্বয়ংক্রিয় মূল্য নির্ধারণ নির্দেশিকা প্রকাশ করে সরকার।

তবে প্রয়োজনে অন্যান্য পেট্রোলিয়াম পণ্যের ক্ষেত্রেও শর্ত সাপেক্ষে উক্ত নির্দেশনা প্রয়োগ করতে পারবে সরকার বা বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি)।


আরও খবর