আজঃ শনিবার ২১ মে ২০২২
শিরোনাম

চাঁদপুরের বাস দুর্ঘটনার ভিডিও ভাইরাল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৩৫০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কে বেপরোয়া গতিতে চলা যাত্রীবাহী বাস দুর্ঘটনার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওটি দুর্ঘটনাকবলিত বাসের পেছনের অন্য আরেকটি বাস থেকে ধারণ করা হয়েছে। তবে কে তা ধারণ করেছেন তার পরিচয় ঘটনার একদিন পার হলেও এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

সোমবার (৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার মৌতাবাড়ি এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। এতে দুই নারী যাত্রী ঘটনাস্থলেই নিহত হন।

এদের একজন শাহরাস্তির নাওড়া গ্রামের বীভা রানী দাস এবং কুমিল্লার নিমসারের গীতা রানী দাস। এই দুজন পরস্পর আত্মীয়। এই দুর্ঘটনায় বাসের আরো বেশ কয়েকজন যাত্রী আহত হন।

পুলিশ জানিয়েছে, কুমিল্লা থেকে চাঁদপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা বোগদাদ পরিবহনের বাসটি শাহরাস্তির মৌতাবাড়ি এলাকায় পৌঁছে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশের খাদে পড়ে যায়।

শাহরাস্তি থানার ওসি আব্দুল মান্নান জানান, খুব বেপরোয়া গতিতে চলার কারণে এমন দুর্ঘটনা ঘটে। বাসটি জব্দ করা হয়েছে। তবে চালক পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা যায়নি।

দেশের বিশিষ্ট দারুশিল্পী সমীরণ দত্ত জানান, এই দুর্ঘটনায় তার বড়বোন নিহত হন। এর আগে আরেক দুর্ঘটনায় কয়েক বছর আগে তার বোনের স্বামীও নিহত হন।

অন্যদিকে স্থানীয়দের অভিযোগ, চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কে চলাচলকারী বোগদাদ পরিবহনের বাসগুলো প্রায় এমন বেপরোয়া গতিতে চলার কারণে দুর্ঘটনার শিকার হয়।



নিউজ ট্যাগ: সড়ক দুর্ঘটনা

আরও খবর



কুয়াকাটায় ভাইকে গাছের সাথে বেঁধে ৬ বছরের বোনকে ধর্ষণ

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | ৮৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কুয়াকাটায় ছয় বছরের এক শিশু কন্যাকে ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে ওই শিশুর মা মহিপুর থানায় অভিযুক্ত হাছান শরীফকে (১৬) প্রধান আসামি করে চার জনের নামে মামলাটি দায়ের করেন। এ ঘটনায় পুলিশ এখনও কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। অভিযুক্ত হাছান কুয়াকাটা পৌর এলাকার ইব্রাহিম শরীফের ছেলে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

স্থানীয় ও মামলা সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার বিকালে চার টার দিকে পশ্চিম কুয়াকাটা এলাকার ওই শিশু তার বড় ভাইয়ের (৯) সাথে পার্শ্ববর্তী একটি মাছের ঘেরে যায়। এ সময় হাছান ওই শিশুর ভাইকে আম গাছের সঙ্গে রশি দিয়ে বেঁধে রেখে। পরে পাশের ঝোপের মধ্যে নিয়ে ওই শিশুকে ধর্ষণ করে। এতে ওই শিশুর প্রচুর রক্তক্ষরণ হলে তাকে কলাপাড়া হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য পটুয়াখালী হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

মহিপুর থানার ওসি আবুল খায়ের জানান, বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।


আরও খবর



সিরাজগঞ্জে কাভার্ডভ্যান চাপায় প্রাণ গেল নারী ও শিশুর

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৩৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার মুলিবাড়ীতে বঙ্গবন্ধু পশ্চিম সংযোগ মহাসড়কে কাভার্ডভ্যান চাপায় ব্যাটারি চালিত অটোভ্যানের যাত্রী এক নারী ও এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (১৮ মে) বেলা সাড়ে ১০টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ভ্যানচালকসহ তিনজন আহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন- সদর উপজেলার সয়দাবাদ ইউনিয়নের বাঐতারা গ্রামের রোজিনা সুলতানা (৩৭) ও একই গ্রামের নাজমুল হাসানের মেয়ে আয়েশা খাতুন (৬)।

বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত  কর্মকর্তা মোসাদ্দেক হোসেন জানান, মুলিবাড়ী চেকপোস্ট এলাকায় অটোভ্যানটি মহাসড়ক পার হচ্ছিল। এসময় দ্রুতগতির একটি কাভার্ডভ্যান চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই অটোভ্যানের যাত্রী নারী ও শিশু দুজন মারা যায়। দুর্ঘটনায় শিশুটির মা-নানী ও চালক আহত হয়েছেন। সংবাদ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে হতাহতদের উদ্ধার করে হাসপাতাল পাঠায়।


আরও খবর



ঈদের ৫ নাটকে পড়শীর গান

প্রকাশিত:শনিবার ৩০ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ৩০ এপ্রিল ২০২২ | ৭৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দরজায় কড়া নাড়ছে ঈদুল ফিতর। মুসলমানদের সবচেয়ে বড় এই উৎসবকে ঘিরে শোবিজ পাড়া সরগরম। নতুন গান, নাটক, সিনেমা এসব নিয়ে জমজমাট রঙিন বিনোদন জগত। শিল্পীরা পার করছেন চূড়ান্ত ব্যস্ত সময়। ব্যতিক্রম নন কণ্ঠশিল্পী সাবরিনা পড়শীও। তিনি এবারের ঈদে একাধিক ভূমিকায় ভক্তদের সামনে হাজির হচ্ছেন। এর মধ্যে চমকপ্রদ খবর হলো, একটি নাটকে অভিনয় করেছেন তিনি। যেখানে তাকে কলকাতার অভিনেতা ঋষি কৌশিকের সঙ্গে দেখা যাবে।

এবার গায়িকা জানালেন, কেবল অভিনয়ে নয়, গায়িকা হিসেবেও ঈদে থাকছেন তিনি। এই ঈদের পাঁচটি নাটকে গান গেয়েছেন পড়শী। যা ভক্তদের জন্য তার মূল উপহার বলে মনে করছেন তিনি।

এক নজরে জেনে নেওয়া যাক, কোন কোন নাটকে পড়শীর গান থাকছে: নাটকের নাম নসিব। নির্মাণ করেছেন মহিদুল মহিম। এতে অভিনয় করেছেন মুশফিক আর ফারহান ও কেয়া পায়েল। এতে পড়শী গেয়েছেন একটা গল্প শোন শিরোনামের গান। তার সহশিল্পী আভরাল সাহির। এম এ আলম শুভর লেখা গানটির সুর-সংগীত করেছেন আভরাল সাহির। এটি উন্মুক্ত হবে ইউটিউবে সুলতান এন্টারটেইনমেন্ট চ্যানেলে।

নাটকের নাম হাঙর। পরিচালনা করেছেন মাহমুদ মাহিন। অভিনয়ে আছেন মুশফিক আর ফারহান ও সামিরা খান মাহি। গানের শিরোনাম আকাশ হবো তোমার। এটি লেখা, সুর-সংগীতের পাশাপাশি পড়শীর সঙ্গে কণ্ঠও দিয়েছেন আভরাল সাহির। এই নাটকটিও আসবে সুলতান এন্টারটেইনমেন্টে।

নাটকের নাম ওয়েডিং। জাকারিয়া সৌখিন পরিচালিত এ নাটকে অভিনয় করেছেন মুশফিক আর ফারহান ও তানজিন তিশা। এতে পড়শী ও আভরাল সাহির জুটি হয়ে গেয়েছেন পারব না শিরোনামের গান। লিখেছেন রবিউল ইসলাম জীবন। সুর-সংগীতে আভরাল সাহির। নাটকটি দেখা যাবে সিএমভি ইউটিউব চ্যানেলে।

নাটকের নাম মারিয়া ওয়ান পিস। নির্মাণে সাজিন আহমেদ বাবু। অভিনয়ে আছেন পড়শী ও ঋষি কৌশিক। নাটকটিতে এই প্রথম বার শীর্ষক গানে কণ্ঠ দিয়েছেন পড়শী। লিখেছেন এম এ আলম শুভ। সুর-সংগীতে আভরাল সাহির। এটি দেখা যাবে আরটিভিতে।

নাটকের নাম প্রিয়জন। পরিচালনা করেছেন মহিদুল মহিম। অভিনয়ে জিয়াউল ফারুক অপূর্ব ও সাবিলা নূর। পড়শী ও সাগর গেয়েছেন তবে চল বলি এই পৃথিবীটাকে শিরোনামের গান। স্নেহাশীষ ঘোষের লেখা গানটির সুর করেছেন ইমরান মাহমুদুল। সংগীতায়োজনে তন্ময়। ঈদে সিএমভি ইউটিউব চ্যানেলে প্রচার হবে এটি।


আরও খবর



সকাল সকাল তীব্র বাতাস ও বৃষ্টিতে শীতল ঢাকা

প্রকাশিত:শনিবার ২১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২১ মে ২০২২ | ১০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় ভোর থেকেই দেখা গেছে ঝড়-বৃষ্টি। শনিবার (২১ মে) ভোর সাড়ে ৫টার দিকে রাজধানীর মিরপুর, মগবাজার, মৌচাক, মালিবাগ, পল্টন, প্রেসক্লাব, গুলিস্থান, গুলশান, বারিধারা, মোহাম্মদ, শ্যামপুর, কদমতলী ও পোস্তগোলাসহ বেশ কিছু এলাকায় চারদিক অন্ধকার করে বৃষ্টি নামে। এসময় তীব্র বাতাসও ছিল।

ছুটির দিনে হঠাৎ বৃষ্টিতে রাস্তায় তেমন যানবাহন দেখা যায়নি। তবে ভোগান্তিতে পড়ে শিক্ষার্থীরা। সকাল ৭টার দিকে মিরপুর ১০, ১৩ ও ১৪ এবং ভাসানটেক এলাকায় বৃষ্টির মধ্যে স্কুলগামী ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবক ছাতা হাতে ও রেইনকোট পরে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়।

যদিও আবহাওয়া অফিস শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীসহ দেশের অধিকাংশ অঞ্চলে বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দিয়েছিল।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, রংপুর, রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায়; চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দুই-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়া সঙ্গে বিজলী চমকানোসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী বর্ষণ হতে পারে।

এদিকে আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, বর্তমান উপসাগর ও এর আশপাশ মিয়ানমারে সৃষ্ট লঘুচাপটি ঘনিভূত হয়ে প্রথমে সুস্পষ্ট লঘুচাপ, পরবর্তীতে নিম্নচাপে পরিণত হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে। এটি উত্তরপূর্ব দিকে সরে গিয়ে মিয়ানমার উপকূলের দিকে অগ্রসর হতে পারে।

অপর একটি লঘুচাপের বাড়তি অংশ বিহার, পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল হয়ে উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।


আরও খবর



ওয়াশিংটন টাইমসে যেসব বিষয় তুলে ধরলেন সজীব ওয়াজেদ জয়

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | ৩৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মহামারীতে বিশ্বজুড়েই যখন কর্মসংস্থান হৃাস পাচ্ছে, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি কমে যাচ্ছে, তখন ডিজিটালাইজেশনের সুবিধা নিয়ে বাংলাদেশ কীভাবে এগিয়ে যাচ্ছে সে বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেছেন সজীব ওয়াজেদ জয়।

লকডাউনের মধ্যে নিজস্ব অফিসের বাইরে মানুষকে বাড়িতে বসে অফিস করতে হয়েছে, আর সেই সুযোগ নিয়ে বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সাররা কীভাবে দুনিয়া দাপিয়ে বেড়াচ্ছে সে বিষয়েও বিস্তারিত উঠে এসেছে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য-প্রযুক্তি উপদেষ্টার লেখায়।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী দৈনিক ওয়াশিংটন টাইমসে মঙ্গলবার ডিজিটাল লিপস হেলস্‌ বাংলাদেশ ন্যাভিগেইট দ্য প্যানডেমিক শীর্ষক জয়ের কলামটি প্রকাশিত হয়।

কলামে সজীব ওয়াজেদ জয় লিখেছেন, কোভিড-১৯ মহামারী বিশ্বজুড়ে শ্রমবাজারকে ব্যাহত করেছে এবং এই ধারা আজও অব্যাহত রয়েছে। স্বল্পমেয়াদী ফলাফল ছিল দ্রুত ও তীব্র। লক্ষ লক্ষ মানুষকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয় এবং আরো লক্ষ লক্ষ মানুষ বাড়ি থেকে কাজ শুরু করেছিল। মহামারীর দীর্ঘমেয়াদী এই প্রভাব নিয়ে এখনো বিতর্ক হচ্ছে। কিন্তু একটা বিষয় নিশ্চিত; শ্রমের চাহিদা এবং আমাদের কাজ করার পদ্ধতি চিরতরে পরিবর্তিত হয়েছে।

অনেক সরকার এবং শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো এই ধাক্কা মানিয়ে নিতে সংগ্রাম করছে। কিন্তু বাংলাদেশের সরকারের অর্থনীতি, শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবাখাতকে আধুনিক ও ডিজিটাল করার যে পরিকল্পনা, তার মধ্যে এ বিষয়ে কিছু উত্তর মিলছে।

পেশাদার তথ্য-প্রযুক্তিবিদ জয়ের লেখায় ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রগতির কথা এবং দেশের মানুষের ইন্টারনেট প্রাপ্তির সুবিধার কথা উঠে এসেছে।

সজীব ওয়াজেদ লিখেছেন, ২০০৯ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশ উদ্যোগ বাস্তবায়ন শুরুর পর দ্রুত ইন্টারনেট অ্যাক্সেস বৃদ্ধি এবং বহুমুখী অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথ প্রশস্ত করে। সংক্ষেপে, ডিজিটাল বাংলাদেশ ইন্টারনেটের ব্যবহার ও স্মার্টফোন-ভিত্তিক প্রোগ্রামগুলির ব্যবহার ধীরে ধীরে সহজ করে তুলেছে এবং কাগজ-ভিত্তিক সরকারি পরিষেবাগুলিকে প্রতিস্থাপন করেছে।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, সরকার ৮৫০০ টিরও বেশি ডিজিটাল সেন্টারের নেটওয়ার্ক তৈরি করেছে যা সর্বত্র অনলাইন পরিষেবা সরবরাহ করছে। ২০০৮ সালে এই পরিষেবাগুলির সবই ছিল সাধারণ মানুষের আওতার বাইরে। তখন মাত্র ৮ লাখ মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করতো। কিন্তু এখন বাংলাদেশে ১২ কোটিরও বেশি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী রয়েছে। ইন্টারনেট আওতায় রয়েছে দেশের ৯৮ ভাগ অঞ্চল।

তিনি আরও লিখেছেন, ডিজিটাল বিশ্বে সফল হওয়ার জন্য বাংলাদেশ লক্ষ লক্ষ মানুষকে প্রয়োজনীয় উপকরণ দিয়ে সজ্জিত করেছে। উদাহরণস্বরূপ, সরকার ৮৬ হাজার ডিজিটাল ক্লাসরুম তৈরি করেছে এবং ১৫ লাখ শিক্ষার্থীকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিতে (আইসিটি) প্রশিক্ষণ দিয়েছে। ফলস্বরূপ, ২০০৮ সালের ২৫ মিলিয়ন ডলারের তথ্য প্রযুক্তি রপ্তানি ২০২১ সালের ২০০০ মিলিয়নে(২ বিলিয়ন) পৌঁছেছে।

মহামারীর মধ্যে ঘরে বসে কাজ করা এবং এই সুযোগ নিয়ে বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সারদের কাজের প্রসার বৃদ্ধি পাওয়ার বিষয়টিও তুলে ধরেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য-প্রযুক্তি উপদেষ্টা লিখেছেন, মহামারীর ফলে উত্থাপিত অনেক শ্রম ও অর্থনৈতিক বিষয়ক প্রশ্নের উত্তর মিলছে ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে। যখন বিশ্বজুড়ে অনেকেই জিজ্ঞাসা করেছিল, যখন কর্মক্ষেত্রে ব্যক্তিগত জমায়েতের জন্য বন্ধ হয়ে গেছে তখন আমি কীভাবে জীবিকা অর্জন করব? বাংলাদেশিরা তাদের বাড়িতে কম্পিউটারে কাজ করেছে এবং ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে দুরে বসেও কাজ করার সুবিধা গ্রহণ করেছে।

প্রকৃতপক্ষে, বাংলাদেশে ফ্রিল্যান্সিং বুমিং হচ্ছে। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অনলাইন ফ্রিল্যান্সার সরবরাহকারী দেশ এখন বাংলাদেশ। সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ পরিচালিত জরিপ অনুযায়ী, বাংলাদেশে রয়েছে ৫০ হাজার ফেসবুক-ভিত্তিক উদ্যোক্তা। বাংলাদেশে প্রায় ৪৩ মিলিয়ন ফেসবুক অ্যাকাউন্ট রয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের এই প্ল্যাটফর্মটি বিস্তৃত পরিসরে ব্যবসার সুযোগ সৃষ্টি করে। এটি মহামারী চলাকালীন একটি স্থিতিস্থাপক কর্মসংস্থান মডেল হিসাবেও প্রমাণিত, কারণ কাজের ধরণ অফিসে ব্যক্তিগতভাবে উপস্থিতির পরিবেশ থেকে দূরে সরে গেছে।

তিনি লিখেছেন, ফ্রিল্যান্স কাজের মধ্যে রয়েছে কম্পিউটার প্রোগ্রামিং, ওয়েব ডিজাইন, ট্যাক্স প্রস্তুতি, সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশান ও মার্কেটিং। বিশ্বের আউটসোর্সিং সেবা প্রদানের জন্য এশিয়া এক নম্বর অঞ্চলে পরিণত হয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন শুরুর পর বাংলাদেশে বিজনেস প্রসেসিং আউটসোর্সিং (বিপিও) সেক্টর সমৃদ্ধ হয়েছে। বিপিও খাত বছরে প্রায় ২৪ শতাংশ হারে বাড়ছে। ২০০৮ সালে এ খাতে প্রায় ৪ মিলিয়ন ডলারের রাজস্ব রেকর্ড করে। আজ, সেক্টরটি বছরে ৬৮ মিলিয়ন ডলার আয় করে। এর আরও ভাল দিক যে, এই খাতে ৪৫ হাজারেরও বেশি মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

জয় লিখেছেন, বাংলাদেশ সরকার তথ্য প্রযুক্তি খাতকে সহায়তা দেয় এমন নীতি তৈরি করতে কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে। সম্প্রতি দেশে প্রায় সাড়ে ৬ লাখ স্ব-নিযুক্ত পেশাদার ফ্রিল্যান্সার আইডেন্টিফিকেশন কার্ড দেওয়া শুরু হয়েছে। আইডি দিয়ে ফ্রিল্যান্সাররা তাদের সুবিধাগুলি উপভোগ করতে পারবে, যা আগে শুধুমাত্র যারা বেতনের চাকরিতে করতেন তাদের কাছে পরিচিত ছিল। ফলস্বরূপ, ফ্রিল্যান্সাররা তাদের উদ্যোক্তা প্রচেষ্টাকে এগিয়ে নিতে ক্রেডিট কার্ড ও ব্যাংক ঋণ পেতে পারেন। এছাড়াও তাদের জন্য রয়েছে অন্যান্য প্রণোদনা, বিশেষ করে উল্লেখযোগ্য কর ছাড়ের বিষয়টি।

বাংলাদেশের প্রথম জিওস্টেশনারি কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ ডিজিটাল কাজের গতি বাড়িয়েছে। ২০১৮ সালে চালু হওয়া স্যাটেলাইটটি বাংলাদেশের ইন্টারনেট কাভারেজ প্রত্যন্ত অঞ্চলে প্রসারিত করে, যেটির মাধ্যমে এমনকি গ্রামীণ বাংলাদেশিরাও টেলিমেডিসিন সহায়তা, ই-লার্নিং ও ই-ব্যাংকিং সেবা পেতে পারে।

তিনি লিখেছেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ এবং এটি যে নতুন ধরনের কর্মসংস্থানের সুযোগ প্রদান করে তার সুবিধা নেওয়ার জন্য বাংলাদেশের তরুণ জনসংখ্যা (প্রায় ৬৫ শতাংশ ২৫ বছরের কম বয়সী) উপযুক্ত অবস্থানে রয়েছে। বাংলাদেশে শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানো হয়েছে এবং এখন বছরে ৫ লাখ ডিজিটাল কর্মী গ্র্যাজুয়েট করছে।

কোভিড-১৯-এর অর্থনৈতিক বিপর্যয় মোকাবেলায় ডিজিটাল বাংলাদেশের ফল সঠিক সময়েই পেকেছে। নতুন কর্মক্ষেত্রটি দেখতে কেমন তা নির্ধারণ করার জন্য যখন বিশ্ব চেষ্টা করছে, তখন বাংলাদেশ তার দ্রুত ডিজিটাইজেশন ও দূরবর্তী কাজের স্থানান্তরের একটি মডেল প্রদান করেছে।


আরও খবর