আজঃ শুক্রবার ০৩ ডিসেম্বর ২০২১
শিরোনাম

চাঁদপুরে সড়কে ঝরলো ২ এসএসসি পরীক্ষার্থীর প্রাণ

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১ | ৩৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চাঁদপুরে পথচারী এক বীর মুক্তিযোদ্ধাকে বাঁচতে গিয়ে মোটরসাইকেলের দুই আরোহী নিহত হয়েছেন। তারা দুজনই এবারের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) দিনগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের মহামায়া এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। বেপরোয়া গতিতে মোটরসাইকেল চালানোর কারণে এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয়রা জানায়।

নিহতের মধ্যে ঘটনাস্থলে শান্ত (১৭) এবং হাসপাতালে নেওয়ার পথে আসিফ (১৮) নামে আরও একজন মারা যায়। এই ঘটনায় গুরুতর আহত পথচারী বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম (৭০) এবং মোটরসাইকেল আরোহী সাজ্জাদকে (১৮) উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

চাঁদপুর সদর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সুজন বড়ুয়া বলেন, ঘটনার সময় ময়ামায়া এলাকায় সড়ক পার হচ্ছিলেন স্থানীয় বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম। এসময় তিন আরোহী নিয়ে বেপরোয়া গতির মোটরসাইকেল ওই পথচারীর সামনে পড়ে। এতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কে ছিটকে পড়ে তিন আরোহীসহ মোটরসাইকেল। ঘটনাস্থলেই মারা যায় শান্ত। পরে স্থানীয়রা অন্যদের উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি হাসপাতালে নেওয়ার পথে আসিফ নামে আরেকজনের মৃত্যু হয়।

চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রোমান হোসেন বলেন, গুরুতর আহত বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম ও সাজ্জাদ নামে আরেকজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।



আরও খবর
বগি লাইনচ্যুত, ট্রেন চলাচল বন্ধ

বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1




খুব দ্রুত আমরা গ্যাস উত্তোলন শুরু করব: এরদোগান

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৪ নভেম্বর ২০২১ | ৫১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান বলেছেন, তুরস্ক জ্বালানি সংক্রান্ত বহু জটিলতা কাটিয়ে উঠেছে। খুব দ্রুত আমরা প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলন শুরু করব। যার মাধ্যমে শুধু রাষ্ট্র নয় নাগরিকরাও লাভবান হবেন।

জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টির (একেপি) ক্ষমতা গ্রহণের ১৯তম বার্ষিকী উদযাপন করে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান এসব কথা বলেন। তুরস্কের হুররিয়াত ডেইলি নিউজ এ তথ্য জানায়।

আঙ্কারায় এরদোগান সাংবাদিকদের বলেন, আমরা ১৯ বছরেরও বেশি সময় ধরে আমাদের জাতির অনুগ্রহ নিয়ে এই পর্যায়ে এসেছি। কোনো অসুবিধা ছাড়াই আমাদের পরিধি বাড়ছে।

আমরা আমাদের দেশের সমস্ত কোণ অবকাঠামো, সুপার স্ট্রাকচার এবং সব ধরনের সেবার মাধ্যমে সজ্জিত করেছি। আমাদের প্রচেষ্টা এখনও অব্যাহত রয়েছে, যোগ করেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট।

পরে টুইটারে এরদোগান লেখেন, আমরা ২০০২ সালের ৩ নভেম্বর থেকে যেভাবে দেশের সেবা করে আসছি সামনেও তা অব্যাহত থাকবে। এরদোগানের নেতৃত্বে ২০০১ সালে গঠিত হয় একেপি। যিনি ২০০৩ সালে তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেন। ২০১৪ সাল থেকে যিনি তুরস্কের প্রেসিডেন্ট।

২০১৮ সালে গণভোটের পর তুরস্ক প্রধানমন্ত্রী শাসিত শাসন ব্যবস্থা বদলে রাষ্ট্রপতি শাসিত শাসন ব্যবস্থায় স্থানান্তরিত হয়। দেশটিতে ২০২৩ সালে নতুন নির্বাচন হতে পারে।


আরও খবর
ভারতে ধরা পড়ল ওমিক্রন

বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1

দেশে দেশে ছড়িয়ে পড়েছে ওমিক্রন

বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1




চালকদের কমিশন ১০ শতাংশে কমিয়ে আনল পাঠাও

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১ | ৪৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশীয় বাইক রাইড শেয়ারিং সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান পাঠাও তার চালকদের কমিশন ১০ শতাংশে কমিয়ে এনেছে। এই সিদ্ধান্তের ফলে চালকরা ট্রিপের ভাড়া থেকে সর্বোচ্চ ৯০ শতাংশ আয় করতে পারবেন।

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) থেকে নতুন এই নীতি কার্যকর হচ্ছে। এদিন থেকে পিক আওয়ারে (সকাল ৮টা থেকে সকাল ১১টা এবং বিকেল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত) পাঠাও বাইকে ১০ শতাংশ করে কমিশন নেবে। এছাড়া, অফ-পিক আওয়ারে নেবে সর্বোচ্চ ১৫ শতাংশ কমিশন। এটি বাংলাদেশের সকল রাইড শেয়ারিং প্ল্যাটফর্মের মধ্যে সর্বনিম্ন কমিশন।

এর আগে, পাঠাও বাইকে ঢাকায় ১৫শতাংশ এবং চট্টগ্রাম ও সিলেটে ২৫ শতাংশ কমিশন প্রযোজ্য ছিলো। নতুন নির্ধারিত এই কমিশন সারাদেশের জন্য প্রযোজ্য হবে।

পাঠাওয়ের এই পদক্ষেপের ফলে যাত্রীদের জন্য পাঠাও বাইক আরো বেশি নির্ভরযোগ্য ও সহজলভ্য হবে। বিশেষ করে পিক আওয়ারে যখন রাইড শেয়ারিং সার্ভিসের চাহিদা তুলনামূলকভাবে অনেক বেড়ে যায় তখন যাত্রীরা আরো সহজে সেবা পাবেন এবং চালকরাও নিজেদের আয় বাড়াতে সক্ষম হবেন।

এ প্রসঙ্গে পাঠাও এর সিইও অ্যান্ড ম্যানেজিং ডিরেক্টর ফাহিম আহমেদ বলেন, 'চালকদের আয় বৃদ্ধি এবং তাদের জীবনমানের উন্নয়নে পাঠাও সুযোগ তৈরি করেছে। এরি ফলশ্রুতিতে পাঠাও এর সাথে থাকা বিশাল রাইডার কমিউনিটির ইনকাম আরো বাড়াতে এবং তাদের নিরাপদ ও নির্ভরযোগ্য রাইড শেয়ারিং সেবা প্রদানের স্বীকৃতি স্বরূপ পাঠাও বাইকে কমিশন কমিয়ে আনা হয়েছে।'


আরও খবর
আলেশা মার্টের কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা

বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1




ইসরায়েলের সঙ্গে আমিরাত-বাহরাইনের প্রথম নৌ মহড়া

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ নভেম্বর ২০২১ | ৪১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইসরায়েলের যৌথ নৌ মহড়ায় অংশ নিয়েছে আরব আমিরাত এবং বাহরাইন। উপসাগরীয় কোনো দেশের নৌবাহিনী, আমেরিকান নৌবাহিনীর সমন্বয়ে পরিচালিত ইসরায়েলি রণতরীর সঙ্গে যৌথ নৌ মহড়ার ঘটনা এই প্রথম। মাত্র ৩ বছর আগেও বিষয়টা ছিল অচিন্তনীয়।

লোহিত সাগরে পাঁচ দিনের এই নৌ মহড়ায় অংশ নিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন, ইসরায়েল এবং আমেরিকার রণতরীগুলো। এই মহড়া শুরু হয়েছে গত বুধবার (১০ নভেম্বর) এবং জাহাজের মুক্ত চলাচল নিশ্চিত করতে জাহাজে ওঠা, অনুসন্ধান চালানো এবং তা জব্দ করার কৌশল এই মহড়ায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

মার্কিন নৌবাহিনীর কেন্দ্রীয় কমান্ড বলছে আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা বাড়াতে যৌথভাবে কাজ করতে অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর নৌবাহিনীর দক্ষতা বৃদ্ধি এই প্রশিক্ষণের লক্ষ্য।

২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে আরব আমিরাত এবং বাহরাইন ইসরায়েলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে অ্যাব্রাহাম চুক্তি নামে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করার পর এই যৌথ মহড়ায় দেশগুলো অংশ নিচ্ছে। ওই চুক্তি স্বাক্ষরের পর ইসরায়েল এবং উপসাগরীয় দেশ দুটির মধ্যে কূটনৈতিক, সামরিক এবং গোয়েন্দা যোগাযোগের ব্যাপারে ব্যাপকভিত্তিতে আলাপ আলোচনা হয়েছে, বিশেষ করে ইরান বিষয়ে এই দেশগুলোর একই ধরনের উদ্বেগের পটভূমিতে।

ইসরায়েলি গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের প্রধান নিজে বাহরাইনে গেছেন এবং অক্টোবর মাসে ইউএই-র বিমান বাহিনীর অধিনায়ক প্রথমবারের মতো এধরনের একটি সফরে ইসরায়েল গেছেন।

ইরান যেভাবে তার শক্তি বৃদ্ধি করেছে

ইরানও সম্প্রতি হরমুজ প্রণালীতে তাদের নিজস্ব নৌ মহড়া চালানোর ঘোষণা দিয়েছে। উপসাগরীয় এলাকায় আমেরিকান এবং অন্যান্য পশ্চিমা নৌবাহিনীর উপস্থিতির ঘোর বিরোধিতা করছে ইরান।

শাহ-এর শাসনামলে ওই এলাকায় নৌ সামরিক শক্তিতে সবচেয়ে ক্ষমতাধর দেশ ছিল ইরান। ১৯৭৯ সালের ইসলামিক বিপ্লবের পর, ইরান, উপসাগরীয় আরব দেশগুলো থেকে মার্কিন সেনাবাহিনীকে বহিষ্কারের জন্য প্রায়শই আহ্বান জানিয়েছে।

ইরান আরব দেশগুলোকে বলার চেষ্টা করেছে উপসাগরীয় এলাকার নিরাপত্তার দায়িত্ব গ্রহণের জন্য স্বাভাবিকভাবে ইরানের সাথেই জোটে তাদের অংশীদার হওয়া উচিত। কিন্তু ইরানের এই আহ্বানে তারা কর্ণপাত করেনি। ৬টি আরব রাষ্ট্রের প্রত্যেকেই আমেরিকাকে তাদের দেশে সামরিক ঘাঁটি তৈরির কাজ চালিয়ে যেতে দিয়েছে।

সৌদি আরব, বাহরাইন এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত ইরান এবং তার ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কোর (আইআরজিসি) সম্পর্কে গভীরভাবে সন্দিহান।

ইরান আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা সফলভাবেই অগ্রাহ্য করে যেভাবে মধ্যপ্রাচ্যে শক্তিশালী বিকল্প মিলিশিয়া বাহিনীর নেটওয়ার্ক গড়ে তুলেছে, তার ওপরেও তারা উদ্বেগের সাথে নজর রেখেছে।

সৌদি নেতৃত্বে ইয়েমেনে হামলা

সৌদি নেতৃত্বে ইয়েমেনের ওপর ৬ বছরের বেশি সময় ধরে চালানো বিমান হামলা ইরানের সমর্থনপুষ্ট হুথি বিদ্রোহীদের পরাজিত করতে পারেনি। লেবাননে হেযবোল্লাহ আগের চেয়ে আরও বেশি শক্তিশালী হয়েছে।

ইরাক এবং সিরিয়াতে মিলিশিয়াদের অর্থ ও অস্ত্রের যোগান দিয়ে এবং সিরিয়াতে তাদের নিজস্ব বাহিনী পাঠিয়ে ইরান প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ প্রশাসনের হাত শক্ত করে এই দুটি দেশে তাদের অবস্থান আরও সুদৃঢ় করেছে।

ইরান তার ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের সম্ভার আরও উন্নত করেছে এবং এসব ক্ষেপণাস্ত্র উপসাগরের যেকোনো জায়গায় আঘাত হানতে সক্ষম। রেভল্যুশনারি গার্ডের নৌবাহিনীও দ্রুত তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি করে তাদের নৌ অস্ত্র সম্ভারে যুক্ত করেছে দ্রুত আঘাত হানার এবং মাইন পাতার উপযোগী জাহাজ।

উপসাগরীয় আরব দেশগুলোর উদ্বেগের সাথে সহমত ইসরায়েল। ইরানের পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে তারা ক্রমশই আরও বেশি উদ্বিগ্ন উঠছে। বিশেষ করে ২০১৫ সালে তথাকথিত যৌথ সার্বিক কর্ম পরিকল্পনা (জেসিপিওএ) নামে যে পরমাণু চুক্তি হয়েছিল, প্রথমে যুক্তরাষ্ট্র এবং পরে ইরান সেই চুক্তির প্রতিশ্রুতি থেকে সরে আসার পর।

ইসরায়েল সন্দেহ করে ইরান পারমাণবিক যুদ্ধাস্ত্র তৈরির লক্ষ্যে কাজ করছে। যা ইরান অস্বীকার করে।

রহস্যজনক হামলা

ইসরায়েল এবং ইরানের মধ্যে অঘোষিত একটা চাপা নৌ সংঘাতও চলেছে সাম্প্রতিক সময়ে। এমনকি লোহিত সাগর এবং ওমান উপসাগরেও জাহাজের ওপর রহস্যজনক হামলা হয়েছে। জুলাই মাসে ওমান উপকূলের অদূরে ইসরায়েলের সাথে সংশ্লিষ্ট একটি তেলবাহী জাহাজের ওপর একটি বিস্ফোরক ভর্তি ড্রোন হামলায় একজন ব্রিটিশ নিরাপত্তা রক্ষী ও একজন রোমানিয়ান নাবিকের মৃত্যুর জন্য ইরানকে দায়ী করা হয়েছে। ইরান এই ঘটনায় তাদের জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের কার্যকলাপের নিন্দা জানানোর ব্যাপারে ঐতিহাসিকভাবে সবচেয়ে সোচ্চার দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে সৌদি আরব। বিশেষ করে যুবরাজ মোহাম্ম বিন সালমান আল সাউদ ২০১৫ সালে দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণের পর সৌদি ইরানের সমালোচনায় আরও মুখর হয়েছে।

তবে ২০১৯ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর ঘটা একটি ঘটনা রিয়াদে কৌশল পরিকল্পনাকারীদের সব হিসাব নিকাশ আমূল বদলে দেয়। সেদিন ভোরের আলো ফোটার আগে অন্ধকারের মধ্যেই সৌদি আরবের আবকেইক ও খুরাইশে গুরুত্বপূর্ণ তেল পরিশোধন স্থপনার ওপর এসে আঘাত হানে সুনির্দিষ্ট নিশানয় ছোঁড়া এক ঝাঁক ড্রোন ও মিসাইল। ওই একটা মাত্র হামলায় সৌদি আরবের তেল উৎপাদন সাময়িকভাবে অর্ধেকে নেমে যায়।

ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীরা হামলার দায় স্বীকার করে। কিন্তু ক্ষেপণাস্ত্রগুলো ছোঁড়া হয়েছিল উত্তর দিক থেকে এবং পরে তদন্তে জানা যায় সীমান্তের অপর পাড়ে দক্ষিণ ইরাক থেকে ইরানের প্রক্সি মিলিশিয়ারা ওই ক্ষেপণাস্ত্রগুলো ছুঁড়েছিল।

ইরানের স্পষ্ট বার্তা

ইরানের পক্ষে বার্তাটা ছিল স্পষ্ট: ইরান চাইলে সৌদি আরব এবং তার মিত্র দেশগুলোর গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষতিসাধনে সক্ষম, যার মধ্যে রয়েছে গুরুত্বপূর্ণ পানি লবণ-মুক্ত করার স্থাপনা এবং অর্থনৈতিক প্রাণকেন্দ্রগুলো।

সৌদি আরব সেই হামলার জবাব দিতে মুখর হয়ে ওঠেনি, যেটা ছিল উল্লেখযোগ্য এবং সাম্প্রতিক কয়েক মাসে ইরানি এবং সৌদি কর্মকর্তারা উত্তেজনা প্রশমনের জন্য কথাবার্তা বলেছেন। তবে এর অর্থ এই নয় যে, তেহরান আর রিয়াদ তাদের মধ্যে সহসা একটা বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে তুলতে চাইছে।

এর অর্থ হলো ভবিষ্যতে কোনো সংঘাতের পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে দুই দেশই যে ক্ষতিগ্রস্ত হবে তা স্বীকার করে নেওয়া। এছাড়াও তাদের মধ্যে বিভেদ সত্ত্বেও ওই অঞ্চলে একটা স্থিতিশীলতা বজায় রাখা যে কতটা গুরুত্বপূর্ণ সেটা মেনে নিয়ে একটা সমঝোতার পথ বের করার গুরুত্ব অনুধাবন করা। 


আরও খবর
ভারতে ধরা পড়ল ওমিক্রন

বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1

দেশে দেশে ছড়িয়ে পড়েছে ওমিক্রন

বৃহস্পতিবার ০২ ডিসেম্বর 2০২1




মেসির সপ্তম ব্যালন ডি’অর জয়

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ | ২৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সোমবার রাতে ফুটবলপ্রেমীদের চোখ ছিল ফ্রান্সে এক বর্ণিল সন্ধ্যায়। কে জিতবেন ব্যালন ডিঅর? নাম গিয়ে ঠেকেছিল মাত্র দুটিতে। বায়ার্ন মিউনিখের গোলমেশিন পোলিশ স্ট্রাইকার রবের্ত লেওয়ানডস্কি আর পিএসজির আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসি। আর সেই যুদ্ধে লেওয়ানকে হারিয়ে সপ্তমবারের মতো ব্যালন ডিঅর জয় করলেন মেসি।

তালিকায় বায়ার্ন তারকা ছাড়াও আরও ছিলেন চেলসির ইতালিয়ান মিডফিল্ডার জর্জিনিও, রিয়াল মাদ্রিদের ফরাসি ফরোয়ার্ড করিম বেনজেমা ও চেলসির ফরাসি মিডফিল্ডার এনগোলো কন্তে। তবে মেসির নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন লেওয়ানডস্কি।

ভোটাভুটিতে লেওয়ানডস্কিকে হারিয়ে নিজের সর্বোচ্চসংখ্যক ব্যালন ডিঅর জয়ের রেকর্ডকে আরও এক ধাপ উঁচুতে নিয়ে গেলেন ৩৪ বছর বয়সি আর্জেন্টাইন তারকা।

২০২১ সালটা মেসির জন্য ঘটনাবহুল, স্মৃতিময়। উচ্ছ্বাস আর চাপা কষ্টের কান্না দুটোই রয়েছে এই বছরে।  ধুঁকতে থাকা বার্সেলোনাকেও জিতিয়েছিলেন কোপা দেলরে শিরোপা, লা লিগায় করেছিলেন তৃতীয়ও।

এরপর দেশকে ২৮ বছরের শিরোপার খরা ঘোচান। এনে দেন কাঙিক্ষত কোপা আমেরিকা শিরোপা। ওই টুর্নামেন্টে ৪ গোল ও ৫ অ্যাসিস্ট করে হয়েছিলেন টুর্নামেন্টসেরাও।

এরপর আসে তার কান্নার দিন। ২১ বছরের সম্পর্ক শেষ করে বার্সেলোনা ছেড়ে কাঁদতে কাঁদতে পাড়ি জমান প্যারিসে। গায়ে চড়ান পিএসজির জার্সি।

এর আগে ছয়বার ফ্রান্স ফুটবল ম্যাগাজিনের দেওয়া সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কারটি উঠেছিল মেসির হাতে - ২০০৯, ২০১০, ২০১১, ২০১২, ২০১৫ ও ২০১৯ সালে। এক বছর বিরতি দিয়ে আবারও জিতলেন এই ট্রফি।

প্রসঙ্গত, ১৯৫৬ সালে প্রথমবার চালু হয় ব্যালন ডিঅর। তখন কেবল ইউরোপের সেরা খেলোয়াড়কে দেওয়া হতো এই পুরস্কার। ১৯৯৫ সাল থেকে ইউরোপে খেলা বিশ্বের যেকোনো খেলোয়াড়ের জন্য পুরস্কারটি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ২০০৭ সাল থেকে সেটি দেওয়া হচ্ছে বিশ্বের যেকোনো জায়গায় খেলা ফুটবলারদের।


আরও খবর



অভিনয় থেকে বিরতি নিয়েছেন ক্যাটরিনা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ নভেম্বর ২০২১ | ৬৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কদিন পরই বিয়ের পিঁড়িতে বসতে যাচ্ছেন বলিউড সেনসেশন ক্যাটরিনা কাইফ ও অভিনেতা ভিকি কৌশল। এ খবর এখন ভারতজুড়ে টক অব দ্য টাউন।  ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে তাদের বিয়ের প্রস্তুতির সব আপডেট জানানো হচ্ছে।  ডিসেম্বরে বিয়ে সামনে রেখে অভিনয় থেকে বিরতি নিয়েছেন ক্যাটরিনা। টাইমস অব ইন্ডিয়ার বরাত দিয়ে এ খবর দিয়েছে ভারতের বিনোদনভিত্তিক ওয়েবসাইট বলিউড হাঙ্গামা।

সম্প্রতি রিলিজ পাওয়া সুরাইয়াভানশি ছবি দিয়ে প্রশংসায় ভাসছেন ক্যাট। যেটি বক্স অফিসে তোলপাড় সৃষ্টি করেছে।

চলচ্চিত্রটি মুক্তির পর ফুরফুরে মেজাজে থাকা ক্যাটরিনা কাজ থেকে এক মাস বিরতি নিয়েছেন। মূলত ডিসেম্বরে বিয়ের প্রস্তুতির কথা মাথায় রেখেই নায়িকা এ বিরতি নিয়েছেন বলে খবর।

ভিকি-ক্যাটরিনা এখন তাদের বিয়ের সাজসজ্জা নিয়ে ব্যস্ত। জুলুতে নতুন অ্যাপার্টমেন্ট ভাড়া করেছেন।  বিয়ের পর নাকি সেখানেই উঠবেন তারা।


আরও খবর