আজঃ মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২
শিরোনাম

চাল নেই জেলা প্রশাসনে, আশ্রয় কেন্দ্রে খাবার সংকট

প্রকাশিত:সোমবার ২০ জুন ২০22 | হালনাগাদ:সোমবার ২০ জুন ২০22 | ৩৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সিলেট সদর উপজেলার মানসিনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আশ্রয় নিয়েছেন শরিফা বেগম। গেল ২ দিন পূর্বে সেখানে আশ্রয় নিলেও এখন পর্যন্ত কোনো ত্রাণ পাননি বলে জানান তিনি।

শরিফা বেগম বলেন, বাড়ি থেকে হাঁড়ি-পাতিল কিছুই আনতে পারিনি। খাবারও আনিনি। এখানে এখন পর্যন্ত কেউ ত্রাণ নিয়েও আসেনি। তাই খুব কষ্টে আছি।’

আশপাশের বাসিন্দারা মাঝে মাঝে খাবার নিয়ে আসেন বলেও জানান শরিফা।

নগরের ছড়ারপাড় এলাকার বাসিন্দা মোহাম্মদ আলী আশ্রয় নিয়েছেন দুর্গাকুমার পাঠশালায়। তিনি জানালেন, তিন দিনে কোনো সরকারি ত্রাণ পাননি। ব্যক্তি-উদ্যোগে কয়েকজন রান্না করা খাবার দিয়েছেন।

আলী বলেন, রান্না করা খাবার তো রাখা যায় না। একবেলায় খেয়ে ফেলতে হয়। তাই একবেলা খেলে পরের বেলা উপোস থাকতে হচ্ছে।’

বন্যায় সিলেটের দুর্গকুমার পাঠশালায় আশ্রয় নিয়েছেন ছড়ারপাড় এলাকার বাসিন্দা লিটন মিয়া। শুক্রবার এ আশ্রয়কেন্দ্র ওঠেন তিনি। বৃহস্পতিবার কিছু লোক এসে রান্না করা খাবার দিয়ে যান। এরপর আর কোনো সহায়তা পাননি লিটন।

তিনি বলেন, এক দিন কেবল খাবার পেয়েছিলাম। এরপর আর কিছু পাইনি। এখানে রান্নার সুযোগ নেই। তাই খুব কষ্টে আছি।

‘তবু তো উপোস থাকা যায় না। আমরা না হয় যেকোনো কিছু খেয়ে ফেললাম। বাচ্চারা তো বুঝতে চায় না। তাই পানি ডিঙিয়ে বাসায় গিয়ে রান্না করে এখানে খাবার নিয়ে আসি।’

বাসায় পানি উঠলেও চুলা ডুবেনি বলে জানান তিনি।

শুধু এ দুটি আশ্রয়কেন্দ্র নয়, সিলেটের সব আশ্রয়কেন্দ্রের চিত্রই এমন। আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে ঠাঁই নেয়া বানভাসি মানুষেরা ভুগছেন খাবারের তীব্র সংকটে। নগরে এখন পর্যন্ত সরকারি কোনো উদ্যোগে ত্রাণ তৎপরতা শুরু হয়নি।

নগরের বাইরে সেনাবাহিনী ও প্রশাসন ত্রাণ বিতরণ করলেও তা পর্যাপ্ত নয় বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

এদিকে নগরের ভেতরে ব্যক্তি ও বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান খাবার বিতরণ করলেও দুর্গম এলাকাগুলোতে আশ্রয় নেয়া মানুষেরা রয়েছেন তীব্র সংকটে।

নৌযানের অভাবে দুর্গম এলাকায় ত্রাণ তৎপরতা ব্যাহত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান।

তিনি জানান, আমরা বন্যাকবলিত মানুষদের উদ্ধার ও সহায়তায় সর্বোচ্চ চেষ্টা চালাচ্ছি। সেনাবাহিনীও এ ক্ষেত্রে সহায়তা করছে। তবে নৌকা সংকট ও যোগাযোগ বিচ্ছিন্নতার কারণে অনেক দুর্গম এলাকায় পৌঁছানো যাচ্ছে না। তবে আমাদের আন্তরিকতা ও চেষ্টার ঘাটতি নেই। এ পর্যন্ত জেলায় ৬১২ টন চাল, প্রায় আট হাজার প্যাকেট খাবার ও ৩৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা বিতরণ করা হয়েছে।’

তবে জেলা প্রশাসনের হিসাবে, জেলায় এ পর্যন্ত ৪৯৭টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এতে আশ্রিত আছেন প্রায় ২ লাখ ৩১ হাজার মানুষ ও ৩১ হাজার গবাদিপশু। আর সিলেট সিটি করপোরেশনের হিসাবে নগরে ৫৬টি আশ্রয়কেন্দ্রে প্রায় ছয় হাজার মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন।

সোমবার থেকে আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে ত্রাণ বিতরণ শুরু হবে জানিয়ে সিলেট সিটি করপোরেশনের বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী (আশ্রয়কেন্দ্রের অতিরিক্ত দায়িত্ব) রুহুল আলম বলেন, আমরা সরকারিভাবে বরাদ্দ দেয়া ২০ টন চাল পেয়েছি। এ ছাড়া কিছু প্যাকেট করা খাবারও পেয়েছি। এগুলো আজ (সোমবার) থেকে বরাদ্দ হবে।’

সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত ত্রাণ বিতরণ শুরু না হলেও কাউন্সিলরা ব্যক্তি-উদ্যোগে বিভিন্ন আশ্রয়কেন্দ্রে খাবার বিতরণ করছেন বলে জানান তিনি।


আরও খবর



১৯ জুন: ইতিহাসে আজকের এই দিনে

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ জুন ২০২২ | ৪১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আজ ১৯ জুন ২০২২, রোববার। ৫ আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ। গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জী অনুসারে বছরের ১৭০ তম (অধিবর্ষে ১৭১ তম) দিন।

এক নজরে দেখে নিন ইতিহাসের এ দিনে ঘটে যাওয়া উল্লেখযোগ্য ঘটনা, বিশিষ্টজনের জন্ম-মৃত্যুদিনসহ গুরুত্বপূর্ণ আরও কিছু বিষয়।

ঘটনাবলি:

১৪৬৪ - ফ্রান্সের রাজা একাদশ লুই ডাক ব্যবস্থা চালু করেন।

১৬২১ - তুরস্কের সেনাবাহিনীর কাছে পরাজিত হয় গ্রিস।

১৮২৯ - বৃটেনে আইন পাশের মাধ্যমে মেট্রোপলিটান পুলিশ প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল।

১৮৬১ - অ্যানহেইম পোস্ট অফিস প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৮৬২ - যুক্তরাষ্ট্রে দাস প্রথা বিলুপ্ত হয়।

১৮৬৭ - অস্ট্রিয়ার যুবরাজ ম্যাক্সিমিলানকে ফাঁসী দেয়া হয়।

১৮৭৭ - ভূমি থেকে আকাশে উলম্বভাবে উড্ডয়নের ও আকাশ থেকে ভূমিতে অবতরণের এবং আকাশে স্থির থাকার যান তথা আদি যুগের হেলিকপ্টার পরীক্ষা করা হয়।

১৯১১ - পর্তুগালকে প্রজাতন্ত্র ঘোষণা করা হয়।

১৯২১ - ব্রিটেনে আদশুমারি হয়।

১৯৪৩ - টেক্সাসে জাতিগত দাঙ্গা হয়।

১৯৪৪ - ফিলিপিন সাগরে যুদ্ধ শুরু হয়।

১৯৫১ - নর্থ আটলান্টিক ট্রিটি অর্গানাইজেশান বা ন্যাটো নামক সামরিক জোট গঠন করা হয়।

১৯৫৩ - গুপ্তচর বৃত্তির অভিযোগে আমেরিকার বিপ্লবী দম্পতি জুলিয়াস রোজেনবার্গ ও এথেল রোজেনবার্গের মৃত্যুদণ্ড।

১৯৬১ - কুয়েত স্বাধীনতা লাভ করে।

১৯৬৮ - পাকিস্তানের ইতিহাসের বহুল আলোচিত আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার (রাষ্ট্র বনাম শেখ মুজিব ও অন্যান্য) শুনানি শুরু।

১৯৮৯ - পোলান্ডের সাধারণ নির্বাচনে লেস ওয়ালেসার নেতৃত্বাধীন সলিডারিটি নিরঙ্কুশ বিজয় অর্জন করে।

১৯৯২ - ইসলামী সম্মেলন সংস্থা বা ও.আই. সি জানায় সার্বদের মাধ্যমে অবরুদ্ধ ও মুসলমান অধ্যুষিত বসনিয়ার রাজধানী সারাজেভোর মানুষ জীবন বাচাতে ঘাঁস লতা-পাতা খাচ্ছে। একই দিনে ও.আই. সি বসনিয়ায় সামরিক হস্তক্ষেপ করতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানায়।

১৯৯৩ - জাপানে মিয়াজাওয়া সরকারের পতনের পর এক মাসের মধ্যে সংসদ নির্বাচন হবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়।

জন্ম:

১৩০১ - জাপানের যুবরাজ মরিকুনির জন্ম।

১৯০৭ - শিক্ষাবিদ ও নারী শিক্ষা প্রচারক উমেশচন্দ্র দত্তের জন্ম।

মৃত্যু:

১৩৫০ - বিশিষ্ট ইসলামী আইনবিদ ও পন্ডিত ফাখরুল মুহাক্বেক্বীন ইন্তেকাল করেন।

১৯০২ - ইংরেজ ইতিহাসবিদ জন ডালবার্গের মৃত্যু।

১৯১৯ - কবি অক্ষয়কুমার বড়ালের মৃত্যু।

১৯৮২ - ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামী নলিনী দাসের মৃত্যু।

আজকের দিবস:

বিশ্ব সিকেল সেল দিবস


আরও খবর
২১ জুন: ইতিহাসের এই দিনে

মঙ্গলবার ২১ জুন ২০২২




ভারতে বাংলাদেশি তরুণীকে দলবেধে ধর্ষণে ২ জনকে সাজা

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৫ জুন ২০২২ | ৩৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কাজের প্রলোভন দেখিয়ে বাংলাদেশি এক তরুণীকে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে ডেকে নিয়ে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের দায়ে দুই ভারতীয়কে ২০ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন সেখানকার একটি আদালত। তরুণীকে আটকে রেখে যৌন-নিপীড়নের দায়ে শনিবার পশ্চিমবঙ্গের বনগাঁ মহকুমার অতিরিক্ত দায়রা আদালতের বিচারক শান্ত মুখোপাধ্যায় এই দণ্ড ঘোষণা করেছেন।

মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অশোক প্রামাণিক বলেন, ২০২১ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর বাগদা থানার হরিহরপুর এলাকায় বাংলাদেশি এক তরুণীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে শরিফুল মল্লিক ও মহসিন বিশ্বাস নামের দুই যুবকের বিরুদ্ধে। পরে তাদের গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়ে দেয় বাগদা থানার পুলিশ। আদালতের বিচারক দীর্ঘ শুনানির পর ওই দুই যুবককে দোষী সাব্যস্ত করে ২০ বছর করে কারাদণ্ডের নির্দেশ দিয়েছেন।

কারাদণ্ডের পাশাপাশি অভিযুক্তদের প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানাও করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন এই আইনজীবী। এছাড়া বাংলাদেশি ওই তরুণীকে আটকে রাখার দায়ে তাদের আরও ৬ মাসের কারাদণ্ডের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আদালতের বিচারক ও পুলিশ সূত্র বলছে, গত বছরের সেপ্টেম্বরে কাজের প্রলোভন দেখিয়ে এক বাংলাদেশি তরুণীকে বাগদার হরিহরপুরে ডেকে এনেছিল দুই যুবক। সেই সময় ওই তরুণীকে আটকে রাখেন তারা। একই বছরের ১৪ অক্টোবর হরিহরপুরের ফাঁকা মাঠের পাশের একটি বাগানে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করেন ওই দুই যুবক। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে বাগদা থানায় খবর দেয়। পুলিশ অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত দুই যুবককে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়ে দেয়।

পুলিশের বরাত দিয়ে পশ্চিমবঙ্গের স্থানীয় দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন বলছে, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ভারতের শিশু সুরক্ষা আইনে (পকসো) সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলা দায়ের করা হয়েছিল। পরবর্তীতে তরুণীর নাবালিকা হওয়ার কোনও প্রমাণ না মেলায় অভিযুক্তদের শিশু সুরক্ষা আইনের মামলা অব্যাহতি দেওয়া হয়।

অভিযুক্তদের আইনজীবী সঞ্জয় দাস বলেন, আমার মক্কেলদের পকসো ধারা থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। সংঘবদ্ধ ধর্ষণের মামলায় তাদের বিরুদ্ধে সাজা ঘোষণা করা হয়েছে। আমরা এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যাব।


আরও খবর



গাজীপুরে বগি লাইনচ্যুত, ট্রেন চলাচল বন্ধ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৬ জুন ২০২২ | ৩৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুর এলাকায় ভাওয়াল এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। এতে ঢাকা-ময়মনসিংহ রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) সকাল পৌনে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শ্রীপুর রেলওয়ে স্টেশন কর্মকর্তা হারুন অর রশিদ। তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিতে ঢাকাগামী ভাওয়াল এক্সপ্রেস ট্রেন শ্রীপুর স্টেশনে প্রবেশ করে। শ্রীপুর স্টেশনে তিস্তা এক্সপ্রেস ট্রেনকে ক্রসিং দিয়ে সকাল ৯টা ২০ মিনিটের দিকে ঢাকার উদ্দেশে স্টেশন ছেড়ে যায়। রাজেন্দ্রপুর স্টেশনে পৌঁছার আগেই ট্রেনের একটি বগির চারটি চাকা লাইনচ্যুত হয়ে যায়। এতে ঢাকার সঙ্গে ময়মনসিংহ অঞ্চলের ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, রাজেন্দ্রপুর এলাকায় ট্রেন লাইনচ্যুতের ঘটনায় ঢাকাগামী কমিউটার শ্রীপুর স্টেশনে ও ময়মনসিংহগামী মহুয়া এক্সপ্রেস ভাওয়াল গাজীপুর স্টেশনে দাঁড়িয়ে রয়েছে। ট্রেন লাইনচ্যুতের বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে বগিটি উদ্ধারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



আফগানিস্তানে ভূমিকম্পে নিহত বেড়ে ১০০০

প্রকাশিত:বুধবার ২২ জুন 20২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ জুন 20২২ | ২৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানে আঘাত হানা ৬.১ মাত্রার এক ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০০০ জনে দাঁড়িয়েছে বলে জানিয়েছেন দেশটির দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা। বুধবার ভোরে আঘাত হানা এই ভূমিকম্পে আরও ছয় শতাধিক মানুষ আহত হওয়ার কথা জানা গেছে। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, দুর্গম পার্বত্য গ্রাম থেকে তথ্য পেতে দেরি হচ্ছে। ফলে হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তারা।

আফগান সংবাদমাধ্যমে প্রচারিত ছবিতে দেখা যাচ্ছে, ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে বাড়িঘর। কম্বলে মোড়ানো মরদেহের সারি মাটিতে রাখা হয়েছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা সালাউদ্দিন আইয়ুবি জানিয়েছেন, আহতদের উদ্ধারে এবং খাবার ও জরুরি চিকিৎসা পণ্য পরিবহনে হেলিকপ্টার মোতায়েন করা হয়েছে। তিনি বলেন, কিছু গ্রাম পাহাড়ের দুর্গম অঞ্চলে থাকায় মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে এবং বিস্তারিত সংগ্রহ করতে কিছুটা সময় লাগবে’।

২০০২ সালের পর আফগানিস্তানের সবচেয়ে প্রাণঘাতী ভূমিকম্প হয়েছে বুধবার ভোরে। মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা (ইউএসজিএস) জানিয়েছে, ভূমিকম্পটির উৎপত্তি হয়েছে পাকিস্তান সীমান্তবর্তী দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ খোস্ত থেকে প্রায় ৪৪ কিলোমিটার দূরে।

সবচেয়ে বেশি নিহতের ঘটনা নিশ্চিত হওয়া গেছে পাকতিকা প্রদেশে। সেখানে ২৫৫ জন নিহত এবং আরও দুই শতাধিক মানুষ আহতের বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া গেছে বলে জানান সালাউদ্দিন আইয়ুবি। এছাড়া খোস্ত প্রদেশে আরও ২৫ জন নিহত এবং ৯০ জনকে হাসপাতালে নেওয়ার তথ্য জানান তিনি।

ক্ষমতাসীন তালেবানের সর্বোচ্চ নেতা হাইবাতুল্লাহ আখুন্দজাদা এক বিবৃতিতে ভূমিকম্পে হতাহতদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।


আরও খবর



বান্দরবান পাহাড়ধসের ঝুঁকি, স্থানীয়দের সরে যেতে মাইকিং

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ জুন ২০২২ | ৩৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বান্দরবানে তিন দিন ধরে ভারি বৃষ্টি হচ্ছে। আরও কয়েকদিন বৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। ফলে জেলায় পাহাড় ধসের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। শনিবার (১৮ জুন) সকাল থেকে পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসকারীদের নিরাপদ স্থানে সরে যেতে মাইকিং করা হচ্ছে।

বান্দরবান আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সনাতন কুমার মন্ডল জাগো নিউজকে বলেন, ১৫ জুন ৪৩, ১৬ জুন ২৪, ১৭ জুন ১৮, ১৮ জুন সকাল ৯টা পর্যন্ত ৩৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। এছাড়া রোববারও ভারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এ কারণে পাহাড় ধসের শঙ্কা রয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বান্দরবান সদর উপজেলার কালাঘাটা, কাসেমপাড়া, ইসলামপুর, বনরূপা পাড়া, হাফেজঘোনা, বাসস্টেশন এলাকা, স্টেডিয়াম এলাকা, নোয়াপাড়া, কসাইপাড়া, রুমা উপজেলার হোস্টেলপাড়া, রনিনপাড়া, লামা উপজেলার হরিনমারা, তেলুমিয়া পাড়া, ইসলামপুর, গজালিয়া, মুসলিম পাড়া, চেয়ারম্যানপাড়া, হরিণঝিরি, টিঅ্যান্ডটি এলাকা, সরই, রুপসীপাড়া, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার উত্তরপাড়া, বাইশফাঁড়ি, আমতলী, রেজু, তুমব্রু, হেডম্যানপাড়া, মনজয় পাড়া, দৌছড়ি, বাইশারীসহ সাত উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকি নিয়ে অপরিকল্পিতভাবে বসতি গড়ে তুলেছে প্রায় ৪০ হাজারেরও অধিক পরিবার।

স্থানীয়দের মতে, উন্নয়নের নামে শুষ্ক মৌসুমে নির্বিচারে পাহাড় কেটে সড়ক নির্মাণ, ইমারত নির্মাণ, বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ, সড়কে মাটি দেওয়া, নিম্নাঞ্চল ভরাটসহ অপরিকল্পিতভাবে ঝুঁকি নিয়ে গড়ে তোলা হয় বসতঘর। ফলে মাটির রক্ষাস্তর নষ্ট হয়ে বর্ষায় টানা বৃষ্টিতে ধসে পড়ে সে পাহাড়। এতে পাহাড়ের মাটি চাপা পড়ে ঘটে প্রাণহানির ঘটনা।

বান্দরবান সদরের ক্যাচিং ঘাটা এলাকায় পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসকারী মো. শফিক উদ্দীন বলেন, অর্থের অভাবে কম দামে পাহাড় থেকে জায়গা কিনেছি। ঝুঁকি আছে জেনেও পাহাড়ের নিচে একটু জায়গা সমান করে পরিবার নিয়ে কোনরকমে বসবাস করছি।

ইসলাম পুর এলাকার পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসকারী আনোয়ারা বেগম বলেন, এ ঘর ছাড়া আমাদের অন্য কোনো সম্বল নাই। তাই বাধ্য হয়েই এখানে বসবাস করছি।

তথ্য অফিস সূত্রে জানা য়ায়, গত পাঁচ বছরে বান্দরবানে পাহাড় ধসে ২১জন নিহত হন। এর মধ্যে ২০১৭ সালের ১৩ জুন সদরের কালাঘাটায় সাতজন, ২৩ জুলাই রুমা সড়কে পাঁচজন, ২০১৮ সালের ৩ জুলাই কালাঘাটায় একজন ও লামায় তিনজন, ২০১৯ সালের ১৪ জুলাই লামাতে একজন, ২০২০ সালের ১ সেপ্টেম্বর আলীকদমের মিরিঞ্জা এলাকায় একজন ও ২০২১ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর সাইঙ্গ‌্যা ঝিরিতে একই পরিবারের তিনজন প্রাণ হারান।

এ বিষয়ে বান্দরবান জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কায়েসুর রহমান বলেন, দুর্যোগ মোকাবিলায় সার্বিক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। পাহাড় ধসের ঝুঁকিতে থাকা বসবাসকারীদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিতে এরই মধ্যে প্রতিটি উপজেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, ইউএনও ও পৌর কর্তৃপক্ষকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে সচেতনতা বাড়াতে মাইকিং করা হচ্ছে।


আরও খবর