আজঃ রবিবার ০৫ ডিসেম্বর ২০২১
শিরোনাম

চাকরি দেওয়ার কথা বলে বন্ধুকে ডেকে নিয়ে হত্যা!

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ নভেম্বর ২০২১ | ৬০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি:

গত ২০ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যার পরে শিবচরের মাদবরচর ইউনিয়নের কালাইহাজীর কান্দি গ্রামে একটি পরিত্যক্ত টিনশেডের ঘর থেকে অর্ধগলিত এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। 

ওইদিন বিকেলে ঘরের ভেতর থেকে দুর্গন্ধ বের হচ্ছিল। বিকেলে খেলতে থাকা ছোট ছেলেরা ঘরে উঁকি দিয়ে একটি মরদেহ দেখলে স্থানীয়দের জানায়। পরে পুলিশে খবর দিলে তারা এসে মরদেহটি উদ্ধার করে। মৃতদেহটির মুখমণ্ডল দাহ্য কোন পদার্থ দ্বারা ঝলসানো ছিল।

অজ্ঞাতনামা হিসেবে মরদেহটি মাদারীপুর মর্গে পাঠানো হলে খবর পেয়ে পরের দিন বগুড়া থেকে নিহতের স্বজনরা মরদেহটি রেজাউলের বলে শনাক্ত করে।

সেসময় নিহতের স্বজনেরা জানান, রেজাউল করিম বগুড়া থেকে শিবচরে তার এক বন্ধুর বাড়িতে বেড়াতে আসে। সবশেষ শিমুলিয়া থেকে লঞ্চে ওঠার পর ফোনে কথা হয় তার সঙ্গে। এরপর থেকে নিখোঁজ ছিল সে। ওই ঘটনায় নিহতের ভাই আজিজুল হক শিবচর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

দীর্ঘ ১ মাস ২৬ দিন পর সোমবার (১৫ নভেম্বর) ওই হত্যাকাণ্ডে জড়িত এমদাদুল মুন্সী (২৩) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করে শিবচর থানা পুলিশ। রেজাউল করিম হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে চাঞ্চল্যকর তথ্য দেন তিনি। মঙ্গলবার দুপুরে তাকে মাদারীপুর আদালতে পাঠানো হয়। গ্রেফতার এমদাদুল মুন্সী শিবচরের মাদবচর ইউনিয়নের কালাইহাজীর কা‌ন্দি গ্রা‌মের তোতা মুন্সীর ছে‌লে।

গ্রেফতার এমদাদুলের দেওয়া তথ্যমতে শিবচর থানা পুলিশ জানায়, বগুড়ার সদর উপজেলার চকসূত্রাপুর গ্রামের মৃত মোহাম্মদ আলীর ছেলে মো. রেজাউল করিম (৪০) ও কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলার চর আমলা গ্রামের সরোয়ার হোসেনের ছেলে রোলাস মালিথা রনি (৪০) কর্মসূত্রে কয়েক বছর আগে নেপাল ছিল। সেখান থেকে তাদের দুইজনের মধ্যে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। আড়াই বছর আগে দেশে আসার পরও তাদের মধ্যে যোগাযোগ ছিল। ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে রেজাউলকে পদ্মা সেতুর প্রকল্পে কাজ দেওয়ার কথা বলে রনি শিবচরের মাদবরচরে তার শ্বশুরবাড়িতে আসতে বলে। গত ১০ সেপ্টেম্বর রেজাউল ৩ হাজার টাকা নিয়ে শিবচরের মাদবরচর আসে। তখন রনি তার সহযোগী এমদাদ মুন্সীকে (২৩) প্রকল্পের কর্মকর্তা সাজিয়ে রেজাউলকে নিয়ে রাতে শিবচরের মাদবরচরের কালাই হাজীকান্দি একটি নির্জন এলাকার পরিত্যক্ত ঘরের কাছে নিয়ে যায়। রাত গভীর হলে মোবাইলে কথা বলার অভিনয় করে সরে গিয়ে রেজাউলকে পেছন থেকে গলায় ফাঁস দেয়। রেজাউল বাঁচার জন্য ছুটতে চাইলে দুইজনে মিলে তার মৃত্যু নিশ্চিত করে। এরপর এমদাদ রেজাউলের ছবি তুলে তার পরিবারের কাছে পাঠিয়ে দুই লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। কিন্তু দরিদ্র পরিবারটি টাকা দিতে ব্যর্থ হয়। পরে পরিচয় গোপন করতে মরদেহটির মুখ পুড়িয়ে পালিয়ে যায় দুই ঘাতক।

পরে শিবচর থানা পুলিশ তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় নিহতের পরিচয় নিশ্চিত হয়ে হত্যার রহস্য উদঘাটনে নামে। শিবচর থানার উপ-পরিদর্শক সঞ্জীব জোয়াদ্দারের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল সোমবার (১৫ নভেম্বর) ঢাকার কেরানীগঞ্জের কবুতরপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে এমদাদুল হক মুন্সিকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতার এমদাদুল পুলিশের কাছে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। 

শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিরাজ হোসেন বলেন, আমরা বিভিন্ন তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় খুনের রহস্য উদঘাটন করি এবং খুনের সঙ্গে জড়িত এমদাদুলকে ঢাকার কেরানীগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করি। এমদাদুলের স্বীকারোক্তি মোতাবেক ঘটনাস্থলের পাশের একটি পাটক্ষেত থেকে নিহত রেজাউলের ব্যাগ ও জামাকাপড় উদ্ধার করা হয়। রেজাউল করিম হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে গ্রেফতার এমদাদুল সরাসরি জড়িত ছিল বলে স্বীকার করেছে। অপর আসামি রোলাস মালিথা রনিকে ধরতে আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।


আরও খবর



পাহারা দিয়ে নির্বাচনী সহিংসতা ঠেকানো যায় না: সিইসি

প্রকাশিত:বুধবার ১০ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ নভেম্বর ২০২১ | ৬৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, ঘরে ঘরে, মহল্লায় মহল্লায় পুলিশি পাহারা দিয়ে নির্বাচনী সহিংসতা ঠেকানো যায় না। এটি ঠেকানোর একমাত্র উপায়, যারা নির্বাচনে অংশ নেন এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি যারা আছেন, তাদের সহনশীলতা এবং আচরণবিধি মেনে চলা।

বুধবার (১০ নভেম্বর) সন্ধ্যায় আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে ৮৯তম কমিশন বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

নির্বাচনে মৃত্যু ও সহিংসতা সম্পর্কে সিইসি বলেন, আমরা পুলিশ, ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ দিয়েছি। যার যার দায়িত্ব সে সে পালন করে যাচ্ছে। বিশেষ করে তারা আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় যথেষ্ট ভূমিকা রাখছেন বলে আমি বিশ্বাস করি। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অজান্তে এসব ঘটনা ঘটে, তাদের অনুপস্থিতিতে এটা ঘটে যায়। এটা এত বড় একটা নির্বাচন, যেখানে হাজার হাজার, লাখ লাখ লোক নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে।

তিনি বলেন, আমি প্রথমেই বলেছি নির্বাচনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষার একমাত্র উপায় হলো যারা ভোটের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকেন তাদের সহনশীলতা। সুতরাং এটার দায়দায়িত্ব প্রশাসনের অথবা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অথবা নির্বাচন কমিশনকে দেওয়া যায় না। এরাই দায়ী এ কথা বলার কোনো সুযোগ নেই।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, অনেক ঘটনা একেবারে এলাকাভিত্তিক ঘটেছে। কাজী বংশ, খান বংশ, চৌধুরী বংশ, তালুকদার বংশ এরকম হয়। রাস্তার এপার ওপার এরকম হয়। এছাড়া দলীয় কোন্দলে হয়, পূর্বশত্রুতার কারণে হয়। কতগুলো ঘটনার বিশ্লেষণ করে দেখেছি তারা প্রায় প্রত্যেকেই বলেছেন স্থানীয় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ও পূর্বশত্রুতার জেরে ঘটনাগুলো ঘটেছে। এসবের দায়দায়িত্ব এখন কাকে দেবো। আমার তো মনে হয় যারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন তাদের যদি সহনশীল ভূমিকা থাকে তাহলে আমাদের এত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোকের দরকার হয় না। আমাদের এত তৎপরতার দরকার হয় না।

সিইসি বলেন, এজাতীয় ঘটনা পাহারা দিয়ে ঠেকানো যায় না। বাস্তবতা হলো এটাই। এটা আপনাদের বুঝতে হবে। ঘরে ঘরে, মহল্লায় মহল্লায় পুলিশি পাহারা দিয়ে এ জাতীয় সহিংসতা ঠেকানো যায় না।


আরও খবর



ঢাকাই সিনেমায় গাইলেন বলিউডের জুবিন

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৬ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৬ নভেম্বর ২০২১ | ২৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকাই সিনেমার শীর্ষ নায়ক শাকিব খানের অন্তরাত্মা সিনেমায় প্লেব্যাক করেছেন বলিউডের জনপ্রিয় গায়ক জুবিন নটিয়াল।

অন্তরাত্মা শিরোনামের গানটির কথা লিখেছেন রবিউল ইসলাম জীবন, সুর ও সংগীত করেছেন ভারতীয় জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত সংগীত পরিচালক ইন্দ্রদীপ দাশগুপ্ত।

এই নিয়ে দ্বিতীয়বার বাংলাদেশি সিনেমাতে কণ্ঠ দিলেন জুবিন নটিয়াল। নতুন এই গানটি প্রসঙ্গে এক ভিডিও বার্তায় জুবিন বলেছেন, বাংলাদেশের সিনেমার গানে নতুন অভিজ্ঞতা হলো। সুন্দর একটি গান করলাম।

ওয়াজেদ আলী সুমনের পরিচালনায় অন্তরাত্মা সিনেমায় শাকিব খানের বিপরীতে জুটি বেঁধেছেন কলকাতার তরুণ চিত্রনায়িকা দর্শনা বণিক। আরও অভিনয় করেন অরুণা বিশ্বাস, আল মামুন, এস এম মহসিন, ঝুনা চৌধুরী, মাসুম বাশার প্রমুখ। প্রযোজনার পাশাপাশি সিনেমাটির গল্প সোহানী হোসেনের, শিগগির সিনেমাটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে।


আরও খবর



আগাম আলু তুলতে ব্যস্ত কৃষকেরা

প্রকাশিত:সোমবার ২২ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২২ নভেম্বর ২০২১ | ৪৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নীলফামারী কিশোরগঞ্জ উপজেলার কৃষকেরা আগাম আলু তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। ফলন একটু কম হলেও চড়া দামে বিক্রি করে লাভবান হবেন এমনটাই আশা করছেন আলু চাষিরা। দেশের বাজারে এই প্রথম নতুন আলু উঠতে শুরু করেছে। এ আলু ঢাকা, চট্টগ্রাম, বরিশাল, খুলনাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের সরবরাহ করা হয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, কৃষক মমিনুর রহমান জানান, ২ বিঘা জমিতে আলু লাগিয়েছি ভালো দামের আশায়। তবে জমি উঁচু হওয়ায় আশ্বিনা বৃষ্টিপাতে তেমন কোন ক্ষতি হয়নি। এখন সেই জমির আলু তুলছি। যা ১০ থেকে ১২ বস্তা আলু হবে। এতে খরচ বাদে দ্বিগুণ টাকা আয় হবে। স্থানীয় কৃষকরা জানান, আগাম আলুর মৌসুমে বৈরী আবহাওয়ায় কারণে আগাম আলু চাষিরা বিপাকে না পড়লে ইতোমধ্যে ৩০ শতাংশ জমির আলু বাজারে চলে আসত। এখন আলু তোলা শুরু হয়েছে।

আর কদিন গেলে উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে আলু উত্তোলন শুরু হবে। তবে বাজার দর ঠিক থাকলে আলু চাষিরা লাভবান হবেন। আলু উত্তোলনের পর ওই জমিতে পুনরায় নমলা আলুসহ  সাথী ফসল হিসেবে ভুট্রা, মিষ্টি কুমড়া, কাঁচামরিচ ও শীতকালীন সবজি চাষ করা হয়। পরবর্তীতে ওই ফসলগুলোতে সার প্রয়োগের প্রয়োজন হয় না।

কিশোরগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার মো. হাবিবুর রহমান জানান, চলতি বছর ৬ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। নতুন আলু উঠতে শুরু করেছে। বর্তমান আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় আলুর বাম্পার ফলনের আশা করা হচ্ছে। কৃষকরা ভাল দাম পেলে আগামীতে আগাম আলু চাষে উৎসাহিত হবেন। মাঠ পর্যায়ে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা প্রতিনিয়ত কৃষকদের পরামর্শ দিচ্ছেন।

 

নিউজ ট্যাগ: আগাম আলু

আরও খবর
চা-চাষে সম্ভাবনার দুয়ার খুলেছে নীলফামারীতে

বৃহস্পতিবার ০৭ জানুয়ারী ২০২১




বিচারক কামরুন্নাহারকে এজলাসে না বসার নির্দেশ

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ নভেম্বর ২০২১ | ৬১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রেইনট্রি হোটেলে ধর্ষণ মামলার রায় দেওয়া ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭ এর বিচারক বেগম মোছা: কামরুন্নাহারকে আজ রবিবার সাড়ে ৯টা থেকে এজলাসে না বসার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি। বিচারক কামরুন্নাহারের ফৌজদারি বিচারিক ক্ষমতা সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে।

বিচারক কামরুন্নাহারকে আদালত থেকে প্রত্যাহার করে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগে সংযুক্ত করতে চিঠি দেওয়া হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ বিচারকদের সঙ্গে আলোচনা করে প্রধান বিচারপতি এ নির্দেশ দিয়েছেন। সুপ্রিম কোর্টের মুখপাত্র ও স্পেশাল অফিসার মোহাম্মদ সাইফুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেন। 

গত ১১ নভেম্বর দুই শিক্ষার্থী ধর্ষণের মামলার রায় ঘোষণা করেন বিচারক বেগম মোছা: কামরুন্নাহার। রায়ে সব আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে। খালাস পাওয়া পাঁচ আসামি হলেন আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার হোসেনের ছেলে শাফাত আহমেদ, শাফাত আহমেদের বন্ধু সাদমান সাকিফ, নাঈম আশরাফ, শাফাতের দেহরক্ষী রহমত আলী ও গাড়িচালক বিল্লাল হোসেন।

রায়ের পর্যবেক্ষণে বিচারক বলেন, মামলার দুই ভিকটিম আগে থেকেই সেক্সুয়াল কাজে অভ্যস্ত। তারা স্বেচ্ছায় হোটেলে গিয়েছেন। সেখানে গিয়ে সুইমিং করেছেন। ঘটনার ৩৮ দিন পর তারা বললেন, আমরা ধর্ষণের শিকার হয়েছি। অহেতুক তদন্তকারী কর্মকর্তা প্রভাবিত হয়ে আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দিয়েছেন। এতে আদালতের ৯৪ কার্যদিবস নষ্ট হয়েছে। এরপর থেকে পুলিশকে এ বিষয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিচ্ছি। এ ছাড়া এরপর থেকে ধর্ষণের ৭২ ঘণ্টা পর যদি কেউ মামলা করতে যায়- তা না নেওয়ার পরামর্শ দিচ্ছি।

বিচারকের পর্যবেক্ষণের প্রতিক্রিয়ায় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, আমি রায়ের বিষয়বস্তু নিয়ে মন্তব্য করতে চাই না। অবজারভেশনে (৭২ ঘণ্টা পরে পুলিশ যেন কোনো ধর্ষণ মামলার এজাহার না নেয়) বিচারক যে বক্তব্য দিয়েছেন এ সম্পর্কে আমি বলতে পারি, এটা সম্পূর্ণ বেআইনি এবং অসাংবিধানিক।


আরও খবর



দিনাজপুরকে মধু জেলা রূপান্তরের লক্ষে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ নভেম্বর ২০২১ | ৩৪৫জন দেখেছেন

Image

দিনাজপুর প্রতিনিধি: 

দিনাজপুর জেলাকে মধুময় জেলা ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে তরুণদের প্রশিক্ষণের আওতায় এনে তাদের মৌখামার স্থাপনে সহযোগিতা করছেন দিনাজপুর সদর উপজেলা প্রশাসন।

সোমবার দিনাজপুর সদর উপজেলা প্রশাসন কার্যালয়ে খামার স্থাপনে উৎসাহী পাঁচজন তরুণকে মৌবক্স উপহার প্রদানের মাধ্যমে মৌচাষে উৎসাহী তরুণ উদ্যোক্তাদের উৎসাহ প্রদান করেন সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মর্তুজা আল-মুঈদ। যুব সংগঠন "আলোর পথে জাগো যুব, দিনাজপুর" কর্মসংস্থান সৃষ্টিমূলক কার্যক্রমের সহযোগিতায় পাঁচজন তরুণকে মৌবাক্স প্রদান করা হয়। এসময় আলোর পথে জাগো যুব দিনাজপুরের সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

মৌচাষে উৎসাহী তরুণ উদ্যোক্তাদের মাঝে মৌবাক্স প্রদানকালে উপজেলা নির্বাহি অফিসার মর্তুজা আল-মুঈদ বলেন, এই জেলায় বিভিন্ন এলাকা থেকে মৌচাষে উৎসাহী তরুণ উদ্যোক্তাদের সমন্বয় করে তাদের প্রশিক্ষণের আওতায় এনে প্রশিক্ষণ প্রদানের মাধ্যমে মৌচাষে উৎসাহী তরুণ পরিশ্রমী উদ্যোক্তাদের মৌচাষ প্রদানের জন্য দিনাজপুর সদর উপজেলা প্রশাসন সার্বিক সহযোগিতা করবে। এজন্য প্রয়োজন পরিশ্রমী মৌচাষে উৎসাহী তরুণ উদ্যোক্তা এবং দিনাজপুরের সকল সুশীল সমাজের একাত্মতা দিনাজপুর জেলাকে মধুময় শিল্প হিসেবে গড়ে তোলার জন্য আমাদের সবাইকে এই বিষয়টা নিয়ে সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে। এই কাজ শুধু এই ক্ষুদে তরুণ পরিশ্রমী উদ্যোক্তাদের না, আমরা যে যেখানে আছি তার নিজ নিজ স্থান হতে তাদের এই কাজে উৎসাহ প্রদানের জন্য সার্বিক দিকনির্দেশনা প্রদান করতে হবে।


আরও খবর
উত্তরে বৃষ্টির মতো ঝরছে ঘনকুয়াশা

বৃহস্পতিবার ২৫ নভেম্বর ২০২১

দিনাজপুরে বাড়ছে শীতের প্রকোপ

সোমবার ১৫ নভেম্বর ২০২১