আজঃ মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

বর্তমান সরকারের অগণিত সাফল্যের মধ্যে পার্বত্য শান্তিচুক্তি অন্যতম : চবি উপাচার্য

প্রকাশিত:বুধবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

Image

চট্টগ্রাম সেন্টার ফর রিজিওনাল স্টাডিজ, বাংলাদেশ (সিসিআরএসবিডি) কর্তৃক ‘‘পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির ২৬ বছর পূর্তি: শান্তি, সম্প্রীতি, উন্নয়ন ও রাজনৈতিক অংশগ্রহণের নিরিখে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের গুরুত্ব শীর্ষক এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বুধবার (৬ ডিসেম্বর) সকালে চবি উপাচার্য দপ্তরের সম্মেলন কক্ষে এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার।

চবি সিনেট ও সিন্ডিকেট সদস্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আবুল মনছুরের সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন চবি আইন অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. আবদুল্লাহ আল ফারুক, চবি জাদুঘরের পরিচালক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ বশির আহাম্মদ ও চবি নজরুল গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আনোয়ার সাঈদ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন চবি শিক্ষার্থী পার্থ প্রতীম মহাজন।

চবি উপাচার্য বলেন, বর্তমান সরকারের অগণিত সাফল্যের মধ্যে পার্বত্য শান্তিচুক্তি অন্যতম। দীর্ঘদিন ধরে পার্বত্য এলাকায় বিভিন্ন জনপদে যে নৈরাজ্য, বিশৃংখলা বিরাজ করেছিল; প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুরদর্শী নেতৃত্ব ও বিচক্ষণতার সাথে শান্তিচুক্তি করার ফলে তার অবসান হয়েছে। পার্বত্য এলাকায় বসবাসরত উপজাতি ও অন্য উপজাতি জনগণের মাঝে শান্তি ফিরে এসেছে।

তিনি বলেন, পার্বত্য শান্তিচুক্তির পরবর্তী সময়ে অত্র অঞ্চলে মানুষের জীবন-মান জেলার স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল, যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ সর্বক্ষেত্রে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। জাতি, ধর্ম, বর্ণ, গোত্র নির্বিশেষে আমাদের বড় পরিচয় হলো আমরা সবাই বাংলাদেশী

উপাচার্য জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলমত নির্বিশেষে পাহাড়ী জনগোষ্ঠীসহ দেশের সর্বস্তরের নাগরিকের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণের মাধ্যমে দেশের সার্বিক উন্নয়ন-অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখার আহবান জানান। 

অনুষ্ঠানে চবি সিনেট ও সিন্ডিকেট সদস্যবৃন্দ, চবি শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ, রেজিস্ট্রার, কলেজ পরিদর্শক, হলের প্রভোস্ট ও হাউজ টিউটরবৃন্দ, বিভিন্ন বিভাগীয় সভাপতি, ইনস্টিটিউট ও গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালকবৃন্দ, প্রক্টর ও সহকারী প্রক্টরবৃন্দ, শিক্ষকবৃন্দ, চবি বিভিন্ন সমিতির নেতৃবৃন্দ, চবি অফিস প্রধানবৃন্দ, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ, শিক্ষার্থীবৃন্দ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন


আরও খবর



বিশ্বজুড়ে মেডিকেল সেক্টরে বড় মাফিয়া চক্র কাজ করে: হাইকোর্ট

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

বাংলাদেশসহ বিশ্বজুড়ে মেডিকেল সেক্টরে বড় মাফিয়া চক্র কাজ করে বলে মন্তব্য করেছেন হাইকোর্ট। রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর বাড্ডার সাতারকুলে ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে খতনার পর শিশু আয়ানের (৫) মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা রিটের শুনানিতে এমন মন্তব্য করেন উচ্চ আদালত।

আদালত বলেছেন, মেডিকেলে মাফিয়াদের বড় টার্গেট তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোই।

এদিন মামলায় পক্ষভুক্ত হয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মুহাম্মদ শিশির মনির। তিনি মেডিকেল নেগলিজেন্স নিয়ে আবেদন করেছেন। পরে এ বিষয়ে আগামী মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) শুনানি ও আদেশের জন্য দিন ঠিক করেন বিচারপতি মোস্তাফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি আতাবুল্লার সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ।আজ আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের প্রতিবেদন তুলে ধরেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।

আদালতে পক্ষভুক্ত হওয়ার শুনানিতে ছিলেন শিশির মনির। তাকে সহযোগিতা করেন অ্যাডভোকেট যায়েদ বিন আমজাদ। রিটের পক্ষে আইনজীবী এ বি এম শাহজাহান আকন্দ নিজেই শুনানি করেন। শুনানির সময় শিশুটির বাবা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

এদিন শিশু আয়ানের পরিবারসহ ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যাওয়া ক্ষতিগ্রস্ত অন্যান্য ভুক্তভোগীরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এর আগে গত ১১ ফেব্রুয়ারি শিশু আয়ানের মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা রিটের বিষয়ে শুনানি ও আদেশের জন্য আজকের দিন ধার্য করেন উচ্চ আদালত। সেই ধারাবাহিকতায় আজ সেটি শুনানির জন্য আদালতের কার্যতালিকায় ওঠে।

সুন্নাতে খতনা করাতে গত ৩১ ডিসেম্বর রাজধানীর সাতারকুল ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল শিশু আয়ানকে। অনুমতি ছাড়াই ফুল অ্যানেস্থেসিয়া দিয়ে সুন্নতে খতনা করান চিকিৎসক। এরপর আর জ্ঞান ফেরেনি তার। অস্ত্রোপচারের সময় অবস্থা বেগতিক দেখে সাতারকুল ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ থেকে আয়ানকে পাঠানো হয় গুলশান-২ ইউনাইটেড হাসপাতালে। সেখানে টানা সাত দিন লাইফ সাপোর্টে থাকার পর শিশু আয়ান মারা যায়।


আরও খবর



রাজধানীর ওয়ারীতে রেস্টুরেন্টে আগুন

প্রকাশিত:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

Image

রাজধানীর ওয়ারীতে একটি রেস্টুরেন্টে আগুন লেগেছে। শুক্রবার (১ মার্চ) রাতে ওয়ারীর একটি ভবনের দোতলার রেস্টুরেন্টটিতে আগুন দেখে ফায়ার সার্ভিসে ফোন দেন স্থানীয়রা।

ফায়ার সার্ভিসের মিডিয়া কর্মকর্তা মো. আনোয়ারুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, রাত সোয়া ১০ টায় আগুনের সংবাদ পেয়ে রেস্টুরেন্টটিতে যায় ফায়ার সার্ভিস। ১৬ মিনিটের মাথায় রেস্টুরেন্টে পৌঁছে ফায়ার এক্সটিংগুইশার ব্যবহার করে আগুন নেভানো হয়েছে।

রেস্টুরেন্টটির কিচেনে আগুন লেগেছিল। এপর্যন্ত হতাহতের কোন সংবাদ পাওয়া যায়নি। প্রাথমিকভাবে রেস্টুরেন্টের নাম জানা যায়নি।


আরও খবর



বেইলি রোডে আগুন: নিহত ৩৮ জনকে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর

প্রকাশিত:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

রাজধানীর বেইলি রোডের কাচ্চি ভাই রেস্টুরেন্টে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৬ জন মারা গেছেন। এরমধ্যে ৪০ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ৩৮ জনের মৃতদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

শুক্রবার (০১ মার্চ) সকাল ১১টা পর্যন্ত ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল থেকে এসব মৃতদেহ হস্তান্তর করা হয়। ঢাকা জেলা প্রসাশকের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এ কে এম হেদায়েতুল ইসলাম এসব তথ্য জানান।

এদিকে আজ সকালে অগ্নিদগ্ধদের দেখতে হাসপাতালে যান স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন। তিনি জানান, অগ্নিকাণ্ডে ৪৬ জন মারা যান। আর অগ্নিদগ্ধ ১২ জন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তাদের মধ্যে বার্ন ইউনিটে ১০ জন ও ঢাকা মেডিক্যালে দুইজন শঙ্কটাপন্ন অবস্থায় রয়েছেন।


আরও খবর



মিরসরাইয়ে স্কোয়াশ চাষে সফল কৃষক মুসলিম

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ফিরোজ মাহমুদ, মিরসরাই (চট্টগ্রাম)

Image

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে স্কোয়াশ চাষে সফল হয়েছেন কৃষক মুসলিম উদ্দিন। উপজেলার কাটাছড়া ইউনিয়নে বাড়ির পাশে প্রথমবারের মতো পরীক্ষামূলক ১০ শতক জমিতে স্কোয়াশ চাষ করেছেন তিনি। দুএকদিন পর পর জমি থেকে ফলন তুলে স্থানীয় বাজারে বিক্রি করছেন। অনেকে এসে জমি থেকে কিনে নিয়ে যাচ্ছেন।

মুসলিম উদ্দিন মিরসরাই উপজেলার কাটাছড়া ইউনিয়নের পূর্ব কাটাছড়া গ্রামের মরহুম মৌলভী মাঈন উদ্দিনের ছেলে। এইচএসসি পাস করার পর তিনি কৃষিকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন।

সরেজমিনে জানা গেছে, ১০ শতক জমিতে আবাদকৃত স্কোয়াশ গাছে ফলন এসেছে। প্রতি পিস ফলনের ওজন ৫০০ গ্রাম থেকে দেড় কেজি পর্যন্ত। দুজন শ্রমিক নিয়ে জমিতে পরিচর্যা করছেন তিনি। পাশের জমিতে চাষ করেছেন টমেটো, কাঁচা মরিচ, ফুলকপি, বাঁধাকপি ও বেগুনসহ নানা ধরনের শীতকালীন সবজি।

কৃষক মুসলিম উদ্দিন জানান, ৬ বছর ধরে কৃষি কাজ করছি। কৃষিকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছি। এবার প্রথমবারের মতো ১০ শতক জমিতে পরীক্ষামূলক স্কোয়াশ চাষ করেছি। মিঠাছড়া বাজার থেকে ১৮০ পিস বীজ নিয়ে বপন করেছি। প্রথমবারই সফল হয়েছি। জমিতে আগে থেকে মালচিং করা ছিল। তাই তেমন খরচ হয়নি। মাত্র ৩ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এরই মধ্যে ২৫ হাজার টাকা বিক্রি করেছি। আরও ৪০ হাজার টাকা বিক্রি করতে পারবো।

তিনি আরো বলেন, একটি গাছে ১০-২০ কেজি পর্যন্ত ফলন হয়। ঢাকার কয়েকটি সুপার শপের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তারা আগামীতে আমার কাছ থেকে স্কোয়াশ কিনে নেবেন। তাই আগামীতে সিদ্ধান্ত নিয়েছি চাষের পরিধি আরও বাড়াবো। এছাড়া ৬ বছর ধরে আগাম সবজি চাষ করে যাচ্ছি। প্রথমে ৫ শতক জায়গায় আগাম টমেটো চাষ শুরু করি। এখন ৮৫ শতক জমিতে টমেটো চাষ করেছি। এ বছর প্রায় ২ লাখ টাকার টমেটো বিক্রি করেছি। আরও ৩০ হাজার টাকা বিক্রি করতে পারবো।

মিরসরাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা প্রতাপ চন্দ্র রায় বলেন, উপজেলার কাটাছড়া ইউনিয়নের মুসলিম খুবই পরিশ্রমী একজন কৃষক। তিনি সব সময় আগাম সবজি চাষ করে ভালো লাভবান হয়ে থাকেন। এবার স্কোয়াশ চাষ করে সফল হয়েছেন। তাকে সব সময় কৃষি অফিস থেকে পরামর্শসহ বিভিন্ন ধরনের সহযোগিতা করা হয়।

নিউজ ট্যাগ: স্কোয়াশ চাষ

আরও খবর



ইউক্রেইনের ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় ৬০ রুশ সেনা নিহত

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

রুশ অধিকৃত ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলীয় একটি প্রশিক্ষণ এলাকায় দুইটি ক্ষেপণাস্ত্র হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ৬০ জন রুশ সেনা নিহত হয়েছে। আজ বুধবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এই ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত বিভিন্ন সূত্র বিবিসিকে বলেছে, সিনিয়র একজন রুশ কমান্ডারের আগমন নিয়ে দোনেতস্ক অঞ্চলে সেনারা জড়ো হয়েছিল। সেখানেই হামলা হয়েছে। ভিডিও ফুটেজে বহু সংখ্যক নিহত সেনাকে দেখা যাচ্ছে বলে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। তবে বিবিসির পক্ষ থেকে এখনো এসব ভিডিও-এর সত্যতা যাচাই করা হয়নি।

রাশিয়ার একজন কর্মকর্তা অঞ্চলটিতে এ হামলার তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তবে এই হামলা নিয়ে যেসব রিপোর্ট হয়েছে সেইসবকে 'অতিরঞ্জিত' হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রী সের্গেই শোইগুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করার কয়েক ঘণ্টা আগে এই হামলা হয়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

বৈঠকে শোইগু বিভিন্ন অঞ্চলের সম্মুখসারিতে রাশিয়ার সাফল্যের দাবি ও সম্প্রতি ইউক্রেনীয় শহর আভদিভকা দখলে নেওয়ার কথা বলেছেন। তবে দোনেতস্ক অঞ্চলে হামলা নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, ত্রুদোভস্কি গ্রামের কাছে এক প্রশিক্ষণ এলাকায় ৩৬তম মোটর চালিত রাইফেল ব্রিগেডের সদস্যরা পূর্ব সামরিক অঞ্চলের ২৯তম সেনাবাহিনীর কমান্ডার মেজর জেনারেল ওলেগ মোইসিয়েভের আগমনের জন্য অপেক্ষা করছিলেন।

এই ঘটনায় বেঁচে যাওয়া একজন সৈনিক জানান, ব্রিগেডের কমান্ডাররা তাদের একটি খোলা মাঠে দাঁড় করে রেখেছিলেন। সেখানে যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি হিমার্স দিয়ে হামলা হয়েছে।

ট্রান্সবাইকালের গভর্নর আলেকজান্ডার ওসিপভ টেলিগ্রাম চ্যানেলে হামলার তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এদিকে এই হামলা নিয়ে এখন পর্যন্ত মুখ খুলেনি ইউক্রেন।


আরও খবর
আইনি লড়াইয়ে বড় জয় পেলেন ট্রাম্প

মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪