আজঃ বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

বরিশালে ট্রলারডুবি: মা-মেয়ের মরদেহ উদ্ধার, নিখোঁজ ৩

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৮ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৮ এপ্রিল ২০২২ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জে জানাজায় যাওয়ার পথে গজারিয়া নদীতে ট্রলারডুবিতে মা-মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। নিখোঁজ তিনজনকে উদ্ধারে অভিযান চালাচ্ছে কোস্টগার্ড। মেহেন্দিগঞ্জের দ‌ড়িরচর খাজু‌রিয়া ইউনিয়নে শুক্রবার (৮ এপ্রিল) বেলা ১১টার দিকে ট্রলারটি ডুবে যায়।

মৃতরা হলেন মাহেনুর বেগম ও তার মেয়ে নাসরিন বেগম।

বিষয়‌টি নি‌শ্চিত ক‌রে‌ছে মে‌হে‌ন্দিগঞ্জ থানা পু‌লি‌শের প‌রিদর্শক মো. শ‌হিদুজ্জামান ব‌লেন, মাঝিরচর থেকে দ‌ড়িরচর খাজু‌রিয়া ইউনিয়নে জানাজায় যাওয়ার জন্য প্রায় ২৫ জন ট্রলারটি ভাড়া করে। গজারিয়া নদী উত্তাল থাকায় খাজু‌রিয়া ইউনিয়নে এটি ডুবে যায়। এ ঘটনায় মা-মেয়ের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনজনের খোঁজ এখনও পাওয়া যায়নি। তাদের উদ্ধারে কোস্টগার্ডের অভিযান চলছে।


আরও খবর



আ.লীগের ইশতেহার দেশের ইশতেহারে পরিণত হয়েছে : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
দিনাজপুর প্রতিনিধি

Image

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্যাপক কর্মসংস্থান সৃষ্টিসহ স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার যে ইশতেহার আওয়ামী লীগ দিয়েছে, সেটি এখন বাংলাদেশের ইশতেহারে পরিণত হয়েছে।

শনিবার (২৭ জানুয়ারি) দুপুরে দিনাজপুরের বোচাগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

দিনাজপুরে-২ আসনের সংসদ সদস্য খালিদ মাহমুদ চৌধুরী প্রতিমন্ত্রী হিসেবে আবারও দায়িত্ব পাওয়ায় তাকে এ সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

এ সময় বোচাগঞ্জ এলাকার জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী বলেন, আপনাদের ভালোবাসাই আমার পথ চলার প্রেরণা। নির্বাচনকালীন সময়ে বারবার একটা কথা বলেছি, আমরা বাংলাদেশকে স্মার্ট বাংলাদেশ হিসেবে গড়তে চাই। এটি একটি স্লোগান বা রাজনৈতিক স্লোগান নয়; দীর্ঘ নির্বাসিত জীবন থেকে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা দেশের মাটিতে ফিরে এসে বলেছিলেন বাংলার মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য এসেছি। বঙ্গবন্ধু সোনার বাংলার গড়তে যে শপথ নিয়েছিলেন তিনি, তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ সোনার বাংলাদেশ হয়েছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই দারিদ্র্যতাকে জয় করেছি। উন্নয়নশীল দেশে পদার্পণ করেছি, ২৬ সালের মধ্যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে। এখানেই শেষ নয়, ৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ হবে।

আওয়ামী লীগের ইশতেহার বাংলাদেশের ইশতেহারে পরিণত হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ইশতেহার বাস্তবায়ন করতে গেলে স্মার্ট ও আধুনিক পদক্ষেপ আমাদের নিতে হবে। বেকারত্ব ঘোচাতে হবে, কর্মসংস্থান তৈরি করতে হবে। আমি নির্বাচনী প্রত্যেকটি পথসভায় তরুণ যুবকদের বলেছিলাম, আগামীর বাংলাদেশ হচ্ছে তোমাদের বাংলাদেশ। সেজন্য দক্ষ নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে নিজেকে। এসময় শিক্ষাব্যবস্থা আধুনিকায়ন এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের উপযোগী হিসেবে গড়ে তুলতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ঢেলে সাজানোর প্রয়োজনীয়তার কথাও বলেন প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বিভিন্ন স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা থেকে শিক্ষক, ছাত্রছাত্রী এসেছেন। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে, কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই। প্রত্যেকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাতে মানসম্মত শিক্ষা আমরা চালু করতে পারি। আমাদের এলাকার সব শিক্ষক এবং অভিভাবকের পবিত্র দায়িত্ব, আসুন আমরা শপথ নিই, আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে আমরা মানসম্পন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলে দক্ষ নাগরিক গড়ে তুলব। সেই দক্ষ নাগরিকরাই আগামীর স্মার্ট বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলবে।

এ সময় বোচাগঞ্জ উপজেলার জনগণকে উদ্দেশ্য করে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার অনেক উন্নয়ন করেছে, আরও বাকি আছে। শেখ হাসিনার হাতে দেশ-পথ হারাবে না বাংলাদেশ। রাস্তা-ঘাটসহ অবকাঠামো ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। আপনারা নিরাপদ সমাজব্যবস্থার জন্য নৌকায় ভোট দিয়েছেন। বোচাগঞ্জের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য আমরা লড়াই করে যাব। এ সময় রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব যাতে সৎ ও নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করতে পারেন সেজন্য এলাকাবাসীর দোয়া ও আশীর্বাদ চান খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। তার ওপর আস্থা রাখায় বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানান তিনি।

এ সময় বোচাগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু সৈয়দ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আফসার আলী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ডালিম সরকার, থানার ওসি আবু বক্কর সিদ্দিক রাসেল, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাইফুল হুদা, বোচাগঞ্জ উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. জাফর উল্লাহ, বোচাগঞ্জ উপজেলার সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান, আওয়ামী লীগের বিভিন্ন শাখা ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা এবং সকল সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারা ফুল দিয়ে বরণ করে নেন।


আরও খবর



ট্রান্সজেন্ডার অপারেশন করতে গিয়ে জানলেন ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা!

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৬ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

চেয়েছিলেন নারী থেকে পুরুষ হতে। করিয়েছিলেন স্তন অপসারণও। পরের ধাপে যখন আবারও লিঙ্গ পরিবর্তনের জন্য অপারেশন করাতে গেলেন তখনই জানা গেল এক অবাক তথ্য। ডাক্তার জানালেন, নারী থেকে পুরুষ হতে চাওয়া ওই ট্রান্সপার্সন পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। স্থানীয় সময় গত মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) মার্কিন গণমাধ্যম নিউইয়র্ক পোস্ট এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ট্রান্সজেন্ডার থেকে যাওয়া ওই ইতালির নাগরিকের নাম মার্কো। দেশটির রাজধানী রোমের একটি হাসপাতালে জরায়ু অপারেশনের প্রস্তুতি নেওয়ার সময় তার গর্ভাবস্থার বিষয়টি শনাক্ত হয়েছে। এর আগে তিনি ম্যাস্টেক্টমি অর্থাৎ স্তন অপসারণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছেন।

বিচিত্র এ ঘটনাটি প্রথম আবিষ্কার করেছে ইতালির স্থানীয় পত্রিকা লা রিপাবলিকা। যেখানে বলা হয়েছে, মার্কো নামের ওই নারী বায়োলজিক্যালি শিশুটির মা হবেন। তবে আইনত তাকে শিশুটির পিতা হিসেবে রেজিস্ট্রার করা হবে। এ ধরনের ঘটনা ইতালিতে এটাই প্রথম। 

আরও পড়ুন>> গাজায় জাতিসংঘের আশ্রয়কেন্দ্রে হামলা, নিহত অন্তত ৯

অ্যান্ডোক্রিনোলজিস্ট ডা. জিউলিয়া সেনোফন্টে শিশুটির স্বাস্থ্য নিয়ে সতর্কবার্তা দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন, হরমোন থেরাপি শিশুটির স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি তৈরি করতে পারে। এজন্য যত দ্রুত সম্ভব এটি বন্ধ করা দরকার বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি জানান, যদি থেরাপি অবিলম্বে বন্ধ না করা হয়, তাহলে এর পরিণতি ভয়াবহ হতে পারে। কেননা শিশুটির অঙ্গপ্রত্যঙ্গ বৃদ্ধির জন্য প্রথম তিন মাস বেশ গুরুত্বপূর্ণ সময়।

এদিকে অনাগত সন্তানের যাতে কোনো ক্ষতি না হয় সে বিষয়টি নিশ্চিত করতে চিকিৎসকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন নারী থেকে পুরুষে রূপান্তরিত হতে চাওয়া মার্কো। চিকিৎসকরাও মার্কো এবং শিশুটির নিরাপত্তার জন্য রূপান্তর প্রক্রিয়া স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, নারী থেকে পুরুষ হতে চাওয়ার প্রক্রিয়া এখনও পর্যন্ত মার্কো এবং শিশুটির ওপর কোনো খারাপ প্রভাব ফেলেনি।


আরও খবর
সাত দশক পর পাকিস্তানে প্রথম নারী মুখ্যমন্ত্রী

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

রাশিয়াকে ‘জুলফিকার’ ক্ষেপণাস্ত্র দিচ্ছে ইরান

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সচিবদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক সোমবার

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবদের নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈঠক করবেন সোমবার (৫ ফেব্রুয়ারি)। এটি নতুন সরকারের প্রথম সচিব সভা। সাধারণত মন্ত্রিপরিষদ সচিবের সভাপতিত্বে সচিব সভা হয়, যেখানে সরকারের সব সচিবরা অংশ নেন। মাঝে মাঝে প্রধানমন্ত্রী সচিব সভায় অংশ নেন। সবশেষ ২০২২ সালের ২৭ নভেম্বর সচিব সভায় যোগ দিয়েছিলেন শেখ হাসিনা।

আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়নের নির্দেশনার পাশাপাশি দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে করণীয় নিয়ে সরকারপ্রধান সচিব সভায় দিকনির্দেশনা দেবেন বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

একজন কর্মকর্তা জানান, ২০২২ সালের সচিব সভায় প্রধানমন্ত্রী যেসব নির্দেশনা দিয়েছেন, সেগুলোর বাস্তবায়ন অগ্রগতি তুলে ধরা হবে সচিব সভায়। এছাড়া আওয়ামী লীগের এবারের নির্বাচনী ইশতেহারের আলোকে মন্ত্রণালয়-বিভাগুলোকে নির্দেশনা দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

এছাড়া সামনে রমজান, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণেও সংশ্লিষ্ট সচিবদের নির্দেশনা দিতে পারেন প্রধানমন্ত্রী। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে যেসব পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, সে বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করতে সংশ্লিষ্টরা বিস্তারিত প্রতিবেদন তৈরি করে রেখেছেন বলে জানা গেছে। ৫৮টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগ এবং সচিব পদমর্যাদার কর্মকর্তাদের পদায়ন করা এমন সরকারি দপ্তরে বর্তমানে ৮৫ জন সিনিয়র সচিব ও সচিব দায়িত্ব পালন করছেন।


আরও খবর
দেশে ৩০ শতাংশ খাদ্য অপচয় হয়: কৃষিমন্ত্রী

বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




রাবিতে ভর্তি হতে প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বেন ৪৭ পরীক্ষার্থী

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আসিক আদনান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

Image

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার চূড়ান্ত আবেদনের সময়সীমা শেষ হয়েছে। এতে মোট আবেদন জমা পড়েছে ১ লাখ ৮৫ হাজার ৬৮০টি। এবার মোট আসন রয়েছে ৩ হাজার ৯০৪টি। প্রতি আসনের বিপরীতে লড়বেন ৪৭ জন ভর্তিচ্ছু।

বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তর প্রশাসক অধ্যাপক প্রদীপ কুমার পাণ্ডে।

তিনি বলেন, রাবির ভর্তি পরীক্ষার চূড়ান্ত আবেদনের সময়সীমা শেষ হয়েছে। গত ২৬ জানুয়ারি থেকে ২৯ জানুয়ারি প্রথম দফার আবেদন পূর্ণ না হওয়া সাপেক্ষে দ্বিতীয় দফায় ১ থেকে ৩ ফেব্রুয়ারি, তৃতীয় দফায় ৬ থেকে ৭ ফেব্রুয়ারি এবং চতুর্থ দফায় ১০ ও ১১ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চূড়ান্ত আবেদনের সুযোগ পান ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থীরা।

আবেদন জমা হওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, তিনটি ইউনিটে সর্বমোট আবেদন জমা পড়েছে ১ লাখ ৮৫ হাজার ৬৮০টি। ইউনিটে (মানবিক বিভাগ) চূড়ান্ত আবেদন জমা পড়েছে ৭৪ হাজার ৭৮৫টি, বি ইউনিটে (বাণিজ্য বিভাগ) ৩৪ হাজার ৫৪১টি ও সি ইউনিটে (বিজ্ঞান বিভাগ) ৭৬ হাজার ৩৫৪টি।

যেহেতু বি ইউনিটে চূড়ান্ত আবেদনকারীর সংখ্যা খুবই কম, তাই বি ইউনিটে আবেদনের আর কোনো সুযোগ রাখা হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাধারণত বি ইউনিটে চূড়ান্ত আবেদনকারীর সংখ্যা একটু কমই হয়। আবেদনের জন্য সময় বেশি দেওয়া হলেও আবেদনকারীর সংখ্যা খুব একটা বাড়বে না। তাই আমরা আর অতিরিক্ত সময় দেবো না।

আগামী ৫ মার্চ সি ইউনিট, ৬ মার্চ ইউনিট এবং ৭ মার্চ বি ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। গত বছরের মতো এ বছরও দ্বিতীয়বার ভর্তি পরীক্ষার সুযোগ থাকছে। এবারের ভর্তি পরীক্ষায় গত বছরের মতো ৮০টি বহুনির্বাচনি প্রশ্নের মান হবে ১০০ নম্বর। ১ ঘণ্টা সময়সীমায় অনুষ্ঠিত প্রতিটি বহুনির্বাচনি প্রশ্নের মান হবে ১.২৫। ভর্তি পরীক্ষা তিনটি ইউনিটে অনুষ্ঠিত হবে।


আরও খবর
আজ থেকে শুরু জাবির ভর্তি পরীক্ষা

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




জিআই অনুমোদন পেল আরও ৪ পণ্য

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
অর্থ ও বাণিজ্য ডেস্ক

Image

আরও চারটি পণ্যকে বাংলাদেশের ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্য হিসেবে অনুমোদন দিয়ে জার্নাল প্রকাশিত হয়েছে। পণ্য চারটি হলো- রংপুরের হাঁড়িভাঙ্গা আম, মৌলভীবাজারের আগর, মৌলভীবাজারের আগর আতর ও মুক্তাগাছার মন্ডা। এ নিয়ে বাংলাদেশে অনুমোদিত জিআই পণ্যের সংখ্যা দাঁড়ালো ২৮টি। সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) শিল্প মন্ত্রণালয় এ তথ্য জানিয়েছে।

২০০৩ সালে বাংলাদেশে এ কাজের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেড মার্কস অধিদপ্তর (ডিপিডিটি) যাত্রা শুরু করে। বর্তমানে একে পেটেন্ট, শিল্প-নকশা ও ট্রেড মার্কস অধিদপ্তর (ডিপিডিটি) নামে অভিহিত করা হয়। শিল্প মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগের ফলে ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য (নিবন্ধন ও সুরক্ষা) আইন, ২০১৩ পাস হয়। এর দুই বছর পর ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য বিধিমালা, ২০১৫ প্রণয়ন করা হয়। ২০১৬ সালে জামদানি শাড়িকে বাংলাদেশে প্রথম জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। এরপর স্বীকৃতি পায় আরও ২০টি পণ্য।

সেগুলো হলো- বাংলাদেশের ইলিশ, চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাত আম, বিজয়পুরের সাদা মাটি, দিনাজপুর কাটারীভোগ, বাংলাদেশ কালিজিরা, রংপুরের শতরঞ্জি, রাজশাহী সিল্ক, ঢাকাই মসলিন, রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জের ফজলি আম, বাংলাদেশের বাগদা চিংড়ি, বাংলাদেশের শীতল পাটি, বগুড়ার দই, শেরপুরের তুলশীমালা ধান, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ল্যাংড়া আম, চাঁপাইনবাবগঞ্জের আশ্বিনা আম, নাটোরের কাঁচাগোল্লা, বাংলাদেশের ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল, টাঙ্গাইলের পোড়াবাড়ির চমচম, কুমিল্লার রসমালাই ও কুষ্টিয়ার তিলের খাজা।

সম্প্রতি অনুমোদিত তিনটি পণ্য টাঙ্গাইল শাড়ি, নরসিংদীর অমৃতসাগর কলা ও গোপালগঞ্জের রসগোল্লার অনুমোদনের কপি ও জার্নাল গতকাল রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে তুলে দেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এবং শিল্প মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব জাকিয়া সুলতানা। এতে জিআই পণ্যের সংখ্যা হয় ২৪টি। আজ ৪টি জিআই পণ্যের জার্নাল প্রকাশিত হওয়ায় মোট অনুমোদিত জিআই পণ্যের সংখ্যা দাঁড়ালো ২৮টি।

এছাড়া আরও দুটি পণ্য জিআই পণ্য হিসেবে অনুমোদনের জন্য প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। সেগুলো হলো- জামালপুরের নকশিকাঁথা এবং যশোরের খেজুর গুড়। আগামী সপ্তাহে এই দুটি পণ্যের জার্নাল প্রকাশিত হবে বলে আশা করা যাচ্ছে।


আরও খবর