আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪
শিরোনাম

বিপিএলের উন্নয়নে সহায়তা দেওয়ার আশ্বাস সৌরভ গাঙ্গুলীর

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

বাংলাদেশ ক্রিকেটের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন সৌরভ গাঙ্গুলী। তিনি সাকিব-মুশফিক-মুস্তাফিজদের খেলা নিয়মিত দেখেন বলেও জানিয়েছেন। এছাড়া বাংলাদেশের নতুন কোচ চান্ডিকা হাথুরুসিংহেকে নিয়েও কথা বলেছেন সৌরভ। আজ শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর গুলশানে ক্রিকেটের নানা বিষয় নিয়ে তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

সৌরভ গাঙ্গুলী বলেন, এখানে যারা আছেন, বিশেষ করে কোচ আছেন হাথুরুসিংহে; উনি একটু সময় দিলে ভালো করবে বাংলাদেশ দল। টি-টোয়েন্টি আজ খুব গুরুত্বপূর্ণ ফরম্যাট। বাংলাদেশে ট্যালেন্ট রয়েছে প্রচুর। এখন শুধু পাওয়ার হিটিংটা আয়ত্ত করতে পারলে হয়ে যাবে। আর সেই পাওয়ার হিটিং মানে হেভি হিটিং; যেমন- হার্দিক পান্ডিয়া, রোহিত শর্মা, সূর্যকুমার যাদব বা ইংল্যান্ডের বাটলার, অস্ট্রেলিয়ার ম্যাক্সওয়েল, হেড, ক্যামেরুন গ্রিন এদের মতো।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বিশেষ করে বিপিএলের উন্নয়নে সহায়তা দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন ভারতের সাবেক অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলী। বিপিএলের মান কীভাবে ভালো করা যায় সে বিষয়ে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সঙ্গে কথা বলেছেন সৌরভ গাঙ্গুলী।

বিপিএল নিয়ে সৌরভ বলেন, বিপিএলকে আরও ভালো করা যাবে। আমি পাপন ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলেছি। পাপন ভাই আমার দাদার মতো। কখনো ডাকলে ভেবে দেখব। তিনি আরও বলেন, বয়সভিত্তিক ক্রিকেটে বাউন্সি এবং গ্রিন পিচ বানাতে হবে। ওদেরকে অভ্যস্ত করতে হবে। তাহলেই তোমাদের ক্রিকেট স্ট্রাকচার আরও ভালো হবে।

এর আগে বৃহস্পতিবার ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন আয়োজিত মেয়র কাপ সিজন-৩-এর লোগো ও ট্রফি উন্মোচন করতে ঢাকায় আসেন সৌরভ গাঙ্গুলী। বিকেলে রাজধানীর গুলশানের ওয়েস্টিন হোটেলের বল রুমে এ লোগো ও ট্রফি উন্মোচন করেন তিনি।


আরও খবর



সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তুলেছে ‘অল আয়েস অন রাফা’

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

বিরাট এলাকাজুড়ে ফিলিস্তিনি শরণার্থীদের তাঁবু, আর সেগুলো দিয়ে লেখা একটি স্লোগান অল আয়েস অন রাফা বা সব চোখ রাফার দিকে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে তৈরি এই ছবিটি কয়েকদিন ধরে ব্যাপকভাবে শেয়ার হচ্ছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

ছবিটি প্রথমবার শেয়ার হয়েছিল মালয়েশিয়া থেকে। এরপর দ্রুতই প্রায় সাড়ে চার কোটি ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারী তা শেয়ার করেন, যাদের মধ্যে ভারত, পাকিস্তান, মধ্যপ্রাচ্যের বহু তারকাও রয়েছেন।

মূলত দক্ষিণ গাজার রাফা শহরে বাস্তুচ্যুত ফিলিস্তিনিদের একটি শরণার্থী শিবিরে ইসরায়েলি বিমান হামলার পর ছবিটি ভাইরাল হয়। গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাবে, ওই হামলায় অন্তত ৪৫ জন নিহত হয়েছেন। আরও শত শত মানুষ পুড়ে যাওয়া ও শরীরে বোমার আঘাতের চিকিৎসা নিচ্ছেন। বেশ কয়েকজন বিশ্বনেতা, রাষ্ট্রপ্রধান ও আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রধান এই হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন এবং প্রাণহানির ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করেছেন।

রাফার শরণার্থী শিবিরে এই হামলার পরপরই ছবিটি ভাইরাল হয়। বিবিসি অ্যারাবিকের তথ্য অনুযায়ী, ছবিটি প্রথমে মালয়েশিয়ার এক যুবক তার সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে পোস্ট করেছিলেন।

স্লোগানটি নেওয়া হয় মূলত দখলকৃত ফিলিস্তিনি অঞ্চলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি রিচার্ড পিপারকর্নের একটি উক্তি থেকে। গত ফেব্রুয়ারিতে তিনি সাংবাদিকদের বলেছিলেন, অল আয়েস অন রাফা বা আমাদের সবার চোখ এখন রাফার দিকে। তিনি এর মাধ্যমে রাফায় হামলার পরিকল্পনা করা ইসরায়েলি সেনাবাহিনীকে একটি সতর্কবার্তা দেন।

জেনেভায় জাতিসংঘ সদর দপ্তরে সাংবাদিকদের সামনে পিপারকর্ন জানান, তার শঙ্কা, ইসরায়েলি সেনারা যদি রাফায় ব্যাপক অভিযান চালায়, তাহলে অকল্পনীয় দুর্ভোগ নেমে আসবে।

এরপর থেকে পিপারকর্নের বলা ওই কথাটি অন্য কর্মকর্তা ও অ্যাক্টিভিস্টরা বারবার ব্যবহার করে আসছিলেন রাফায় ইসরায়েলি অভিযানের বিরোধিতা করতে ও তাদের উদ্বেগ জানাতে।

ছবিটি সোশ্যাল মিডিয়ায় এত ছড়ালো কেন?

অল আয়েস অন রাফা স্লোগানটি ব্যানারে লিখে দেশে দেশে বড় শহরগুলোতে প্রতিবাদ করতে দেখা গেছে।

যেসব তারকা এই স্লোগানসহ ছবিটি শেয়ার করেছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন পপ তারকা রিকি মার্টিন, তুরস্কের অভিনেত্রী তুবা বায়ুকুস্তান, ভারতের প্রিয়াঙ্কা চোপড়া, আলিয়া ভাট, বরুণ ধাওয়ান, সিরিয়ার অভিনেত্রী কিনদা আলুশ প্রমুখ।

ই-মার্কেটিং এবং আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) কনসালট্যান্ট মাহের নামারি জানান, ছবিটি যখন ব্যাপক আকারে শেয়ার হতে থাকে, তখন ইনস্টাগ্রামের একটি ফিচার অ্যাড ইয়োরস এতে ব্যবহার করা হয়। ফলে মাত্র দুটি ক্লিকেই ব্যবহারকারীরা এতে অংশ নিতে পারে, যা এই প্রচারণায় মিলিয়ন মিলিয়ন মানুষকে খুব সহজে যুক্ত করে নেয়।

কিন্তু নামারি মনে করিয়ে দেন, ঘটনাটি এতটাই হৃদয়বিদারক, যার ফলে অনলাইনে এর সহজলভ্যতা ছবিটিকে দ্রুত ছড়িয়ে দিতে সাহায্য করেছে। তার কথায়, রাফায় হামলা সারাবিশ্বের মানুষকে দুঃখভারাক্রান্ত করেছে।

নামারি বলেন, আরও একটি কারণেও ছবিটি এত বেশি ছড়িয়েছে। তা হলো- এতে কোনো রক্ত, সত্যিকার মানুষ, কোনো নাম বা মর্মান্তিক দৃশ্য নেই। ইনস্টাগ্রামের নিয়ম অনুযায়ী, তাহলে এটি নিয়ন্ত্রিত হয়ে পড়তো।


আরও খবর



ফের ডিপফেকের শিকার রাশ্মিকা মান্দানা

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

আবারও ডিপফেকের শিকার অভিনেত্রী রাশ্মিকা মান্দানা। লিফট গার্লের পর এবার ঝরনার নিচে লাল বিকিনি পরে দাঁড়িয়ে পোজ দেওয়ার ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। যার সঙ্গে রাশ্মিকার ছবির মিল নিয়েও দাবি করা হচ্ছে। যদিও বিষয়টি সত্যি নয়, ভিডিওতে অন্য মহিলার মুখের উপর তার ছবি বসিয়ে দেওয়া হয়েছে।

তবে এই ভিডিও নিয়ে কোনও মন্তব্য করেননি রাশ্মিকা। সম্প্রতি কলম্বিয়ার মডেল ও কন্টেন্ট ক্রিয়েটার ড্যানিয়েলা ভিলারিয়াল একটি ভিডিও শেয়ার করেন ইনস্টাগ্রামে। যেখানে তাকে এক ঝরনার সামনে বিকিনি পরে নানা রকমের পোজ দিতে দেখা যায় । সেই ভিডিওতে রাশ্মিকা মান্দানার ছবি বসিয়ে দেওয়া হয়েছিল।

গত বছর অভিনেত্রী রাশ্মিকার একটি ডিপফেক ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল। পরবর্তীতে মানুষ বিশ্বাস করতে শুরু করে সেই ভিডিও সত্যিই অভিনেত্রী রাশ্মিকার। কিন্তু ভিডিওটি ছিল ব্রিটেনের এক প্রভাবশালী নারী জরা প্যাটেলের।

কিছুদিন ধরেই রাশ্মিকা ও বিজয় ডেটিং করছেন বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভক্তদের মাঝে গুঞ্জন উঠেছে। যদিও তাদের সম্পর্ক নিয়ে নানা ধরনের গুজব রয়েছে, তবে তারা কখনোই প্রকাশ্যে তাদের সম্পর্কের কথা স্বীকার বা অস্বীকার করেন নি।

চলতি বছরের এপ্রিলে আবুধাবিতে রাশ্মিকা মান্দানার জন্মদিন তারা একসঙ্গে উদযাপন করেছেন বলে জানা গিয়েছে। তবে নেটিজেনরা এমনটাও লক্ষ্য করেছে যে বিজয় তার ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন। সেই ভিডিও রশ্মিকা নিজেও শেয়ার করেছেন।

উল্লেখ্য, অভিনেত্রীকে বর্তমানে পুষ্পা ২’-এ দেখা যাবে। ইতোমধ্যে এই সিনেমায় তার লুকও প্রকাশ্যে এসেছে। এছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে দেখা যাবে আল্লু অর্জুন ও ফাহাদ ফাসিলকে। অমিতাভ বচ্চন-অভিনীত গুডবাই’-এর হাত ধরে বলিউডে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন রাশ্মিকা এবং তারপর মিশন মজনু’তে দেখা গিয়েছিল তাকে। তেলুগু এবং কন্নড়েও প্রচুর ছবিতে কাজ করেছেন তিনি।


আরও খবর



নির্বাচনী সহিংসতায় নোয়াখালীতে গুলিবিদ্ধ ৫

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নোয়াখালী প্রতিনিধি

Image

নোয়াখালী সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সহিংসতায় গুলিবিদ্ধ হয়ে ৫ জন আহত হয়েছে।

বুধবার (২৯ মে) সন্ধ্যার দিকে উপজেলার ৯ নং কালাদরাপ ইউনিয়নের উত্তর শুল্লুকিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতরা হলেন, উপজেলার কালাদরাপ ইউনিয়নের ৯নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর শুল্লুকিয়া গ্রামের মোহাম্মদ উল্যার ছেলে আব্দুল মান্নান (৪০) শাহ আলমের ছেলে মামুনুর রশিদ মান্না (২৬) মো.হানিফের ছেলে রাকিব (২২) আবুল কালামের ছেলে মো.কবির (২২), একই গ্রামের রফিক উল্যার ছেলে মো.জামাল (৫৫)।  

আহতদের স্বজনরা জানান, কেন্দ্রের সামনে প্রার্থীদের পাল্টাপাল্টি শ্লোগানকে কেন্দ্র করে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। ওই সময় পুলিশ এসে অতর্কিত গুলি চালায়। এতে ঘটনাস্থলেই ৫জন গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন। তাৎক্ষণিক স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। বর্তমানে তারা সবাই হাসপাতালের ১নং ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এই ঘটনায় সুধারাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, ভোট গণনা চলছিলো তখন কিছু লোকজন উত্তেজিত হয়ে কেন্দ্রে প্রবেশ করে ভাংচুর ও ভোট বাক্স লুটের চেষ্টা করলে প্রিসাইডিং অফিসারে নির্দেশে পুলিশ গুলি ও লাঠিপেটা করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। যারা ভোট কেন্দ্রে আক্রমণ করেছে প্রিসাইডিং অফিসার বাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।


আরও খবর



চট্টগ্রামে ফিলিস্তিনের মুক্তিকামীর জনতার পক্ষে সংহতি সমাবেশ

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রাহুল সরকার, চট্টগ্রাম ব্যুরো

Image

ফিলিস্তিনে ইসরাইলের বর্বর গণহত্যা বন্ধের দাবিতে শনিবার (১ জুন) বিকেলে নগরীর চেরাগী পাহাড় মোড়ে চট্টগ্রামের প্রগতিশীল রাজনৈতিক-সামাজিক- সাংস্কৃতিক সংগঠনসমূহের উদ্যোগে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের মদদে, তাদের দেয়া অর্থ আর অস্ত্রে ফিলিস্তিনে যে হত্যায্জ্ঞ ইসরাইলি দখলদার বাহিনী চালাচ্ছে, এটা নিছক গণহত্যা নয়। এটা মানবতার বিরুদ্ধে জঘন্যতম অপরাধ। গত আট মাসে ৩৬ হাজার মানুষকে ইসরাইলিরা হত্যা করেছে। আর তাদের দোসর আমেরিকা নানা ছলাকলায়, কথার জাল বুনে এ অপরাধকে বৈধতা দিচ্ছে। মধ্যপ্রাচ্যে অশান্তি তৈরি করে সাম্রাজ্যবাদের বিস্তার ঘটানোই আমেরিকা-ইসরাইলের কৌশল। এ দুই দেশকে মানবতার শত্রু হিসেবে চিহ্নিত করে বিশ্বের সকল বিবেকমান মানুষকে তাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। বিশ্বের সকল শান্তিকামী রাষ্ট্রকে যুদ্ধবাজ আমেরিকা-ইসরাইলের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে হবে। বাংলাদেশকেও ফিলিস্তিনের মুক্তিকামী জনতার পাশে দাঁড়াতে হবে রাষ্ট্রীয়ভাবে।

খেলাঘরের কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রকৌশলী দেলোয়ার মজুমদারের সভাপতিত্বে ও সাংবাদিক রমেন দাশগুপ্তের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, কথাসাহিত্যিক-সাংবাদিক বিশ্বজিৎ চৌধুরী, নারীনেত্রী নূরজাহান খান, উদীচী চট্টগ্রাম জেলা সংসদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. চন্দন দাশ, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি), চট্টগ্রাম জেলার সভাপতি অধ্যাপক অশোক সাহা ও  সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, সিপিবি দক্ষিণ জেলার সভাপতি অধ্যাপক কানাই দাশ, ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র চট্টগ্রাম জেলার আইন বিষয়ক সম্পাদক নুরুচ্ছাফা ভূঁইয়া, বোধন আবৃত্তি পরিষদের সভাপতি আবদুল হালিম দোভাষ, খেলাঘর কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য রথীন সেন, রবীন্দ্রসঙ্গীত শিল্পী সংস্থার সভাপতি লাকী দাশ, নজরুল সঙ্গীত শিল্পী সংস্থার সাধারণ সম্পাদক দীপেন চৌধুরী, ছড়াকার অধ্যাপক অ্যালেক্স আলীম, খেলাঘর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য দিলীপ দাশ, ন্যাপ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মিটুল দাশ গুপ্ত, বাংলাদেশ কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক দেবপ্রিয় বড়ুয়া অয়ন, চট্টগ্রাম জেলা যুব ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক রাশিদুল সামির, চট্টগ্রাম জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি টিকলু কুমার দে, অগ্নিবীণা পাঠাগারের সাধারণ সম্পাদক সানি চৌধুরী এবং মুক্তধারা পাঠাগারের সংগঠক হামিদ উদ্দিন।

সভাপতির বক্তব্যে খেলাঘর কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রকৌশলী দেলোয়ার মজুমদার বলেন, '১৯৪৮ সালে ইসরাইল নামে এ লাঠিয়াল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পর মধ্যপ্রাচ্যে সাম্রাজ্যবাদের শেকড় বিস্তৃত হয়েছে। আরব রাষ্ট্রগুলোতে যখন গাদ্দাফি বা সাদ্দাম হোসেনের মতো শাসক যারা সাম্রাজ্যবাদকে নির্দ্বিধায় কুর্নিশ করে না, তাদের মিথ্যা অজুহাত দেখিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তেমনি ভাবে আমেরিকা হামাসের মতো একটি সংগঠন জম্ম দিয়ে তাদের মাধ্যমে উসকানি সৃষ্টি করে মধ্যপ্রাচ্যে অশান্তি সৃষ্টি করার এবং মধ্যেপ্রাচ্যেকে ক্রমাগতভাবে সাম্রাজ্যবাদের নখরের মধ্যে আটকে রাখার পরিস্থিতি সৃষ্টির পাঁয়তারা করে চলেছে।'

তিনি আরও বলেন, 'মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের মদদে ও সহযোগিতায় ইসরাইল এখন পর্যন্ত ফিলিস্তিনে যে হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে, সেটাকে আমি শুধু গণহত্যা বলতে রাজি নয়। আর কত হাসপাতালে, শরনার্থী শিবিরে, ত্রাণের লাইনের দাঁড়িয়ে থাকা নারী ও অবুঝ শিশুকে বোমা মেরে হত্যা করলে সেটা গণহত্যা হবে ? মার্কিন সাম্রাজ্যেবাদের মতো নিষ্ঠুর প্রকৃতির শাসকগোষ্ঠী এ নীতিবাক্যের কোনো জাবাব দেবে না। তার বিরুদ্ধে একমাত্র জবাব আমরা মানুষ ঐক্যবদ্ধ হওয়া। সারা পৃথিবীর ৯৯ শতাংশ মানুষ আজ এ সাম্রাজ্যবাদ ও পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে।

চট্টগ্রাম জেলা কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি অশোক সাহা বলেন, 'সাত দশক ধরে প্যালেস্টাইনের জনগণ যে জাতীয় মুক্তিসংগ্রাম করছে সেটাকে টুটি টিপে হত্যা করার শেষ আয়োজন চলছে গাজায়। এ ইসরাইলি জায়নবাদ আমেরিকার দালালরা দীর্ঘকাল ধরে প্যালেস্টাইনের লাখ লাখ মানুষ খুন করেছে। তারাই চক্রান্ত করে প্যালেস্টাইনের অবিসংবাদিত নেতা ইয়াসির আরাফাতকে খুন করেছে।'

তিনি বলেন, ফিলিস্তিন জাতিসত্ত্বাকে পৃথিবীর ইতিহাস থেকে মুছে দিতে চায় মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ ও ইসরাইল। জাতিসত্ত্বা এমন এক জিনিস জবরদখল বা জবরদস্তি করে, বোমা মেরে ধ্বংস করা যায় না। দুনিয়ার যত অঘটন ঘটে, যত যুদ্ধের দামামা হয় সেখানেই আমেরিকান সাম্রাজ্যবাদ। এ আমেরিকা দেশে দেশে খুনোখুনি কম করেনি। আমাদের বাংলদেশেও  পাকিস্তানি হানাদার ও তাদের দোসররা যতরকমের বর্বর কাজ করেছে সব কিছুর হোতা এ আমেরিকান সাম্রাজ্যবাদ। এ চক্রান্তকারী শক্তির বিরুদ্ধে আমরা সবাই প্রতিবাদ না জানালে সংকটের সমাধান হবে না।'

সাংবাদিক ও কথাসাহিত্যিক বিশ্বজিৎ চৌধুরী বলেন, 'ইসরাইলের ইহুদিরাও বিভিন্ন দেশে আজ ফিলিস্তিনে বর্বর গণহত্যার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছে। এ যে মনোভাব একজন ইসরাইলি ইহুদির সে মনোভাব আজ সারা পৃথিবীর প্রত্যেকটি মানুষের। সাম্রাজ্যবাদী ক্ষমতাসীনেরা কারও কথা শুনে না। তারা পৃথিবীর প্রতিটি প্রান্তে যুদ্ধকে ছড়িয়ে রেখেছে। গাজায়ও তাদের অস্ত্রের ঝনঝনি আমরা শুনতে পায়। আমাদের এ প্রতিবাদ পৃথিবীর প্রতিটি মানুষের প্রতিবাদের সঙ্গে একাকার হয়ে যাক।'

নারীনেত্রী নূরজাহান খান বলেন, ফিলিস্তিনে যে গণহত্যা চালানো হচ্ছে সেটা অমানবিকতার শীর্ষ পর্যায়ে। পৃথিবীর অনেক দেশই এ বর্বর হত্যাযজ্ঞের বিরোধিতা করেছে। ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। আমরাও ফিলিস্তিনের মুক্তিকামী জনতার পাশে আছি।'

উদীচী চট্টগ্রাম জেলার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. চন্দন দাশ বলেন, 'ফিলিস্তিনে গণহত্যা আজ একদিন ধরে চলছে না। দীর্ঘদিন ধরে ইসরাইল এ হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে আসছে। গাজা থেকে হামাসের পক্ষ থেকে যে হামলা চালানো হয়েছে সেটা একটি মার্কিনীদের কৌশল। এ হামলাকে কেন্দ্র করে আজ সেখানে বর্বর গণহত্যা চালাচ্ছে ইসরাইল। শান্তিপ্রিয় মানুষ হিসেবে এটাকে কেউই মেনে নেবে না। গাজা আজ শিশুদের কবরে পরিণত হয়েছে।'

নিউজ ট্যাগ: চট্টগ্রাম

আরও খবর



সানভীস বাই তনির শোরুম খুলে দিতে হাইকোর্টের নির্দেশ

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

আলোচিত নারী উদ্যোক্তা রোবাইয়াত ফাতিমা তনির ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সানভীস বাই তনি’র গুলশানের শোরুম খুলে দেওয়ার আদেশ দিয়েছেন উচ্চ আদালত। সোমবার (১০ মে) তনির রিট পিটিশনের শুনানি শেষে বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি এস এম মাসুদ হোসাইন দোলনের বেঞ্চ এ আদেশ দিয়েছেন।

এদিন তনির পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী সৈয়দ খালেকুজ্জামান অরুন ও রবিউল আলম বুদু। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায় ও অন্যরা।

এর আগে গত ২১ মে রিট পিটিশনটি দায়ের করেন রোবাইয়াত ফাতিমা তনি। তখন তনির শোরুম বন্ধ কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে জারি করেছিলেন আদালত।

উল্লেখ্য, গত ১৩ মে সানভীস বাই তনির পুলিশ প্লাজায় অবস্থিত প্রধান শাখায় অভিযান চালিয়ে বন্ধ করে দেন ভোক্তা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক আব্দুল জব্বার মন্ডল। পরের দিন অধিদপ্তরের দুটি অপরাধের দায়ে ৫০ হাজার ও দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

লুবনা ইয়াসমিন নামের এক নারীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ইন্দ্রানী রায়। লুবনা ইয়াসমিন নামের ওই ক্রেতা সানভীস থেকে একটি পোশাক কিনেছিলেন ৯ ফেব্রুয়ারি। এর ৫৩ দিন পর ৩ এপ্রিল ওই নারী ভোক্তা অধিদপ্তরে অভিযোগ করেন। ফলে তার অভিযোগটি আমলযোগ্য নয় বলে মনে করেন তনির আইনজীবী সৈয়দ খালেকুজ্জামান অরুন।

অন্যদিকে, রাজু নামের এক ব্যক্তির অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। তবে রাজু নামে আসলে কেউ অভিযোগ করেননি বলে দাবি করেছেন তনি। রাজু নামের কারও অভিযোগের জন্য তনিকে কোনো নোটিশ বা শুনানি করা হয়নি বলেও জানান তনি।

এ ছাড়া লুবানার অভিযোগের শুনানি হয় ঢাকা বিভাগীয় উপপরিচালক ইন্দ্রানী রায়ের অধীনে।

অন্যদিকে জব্বার মণ্ডল ঢাকা জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক। ইন্দ্রানীর কাছে শুনানি থাকলেও একই সময় জব্বার মণ্ডল সেখানে গিয়ে ভুয়া অভিযোগে দুই লাখ জরিমানা করেন। জরিমানার টাকা না দিলে অন্যান্য শোরুম বন্ধ করে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে টাকা আদায় করেন বলে রিট পিটিশনে উল্লেখ করেছেন তনি।

এ বিষয়ে রোবাইয়াত ফাতিমা তনি গণমাধ্যমকে বলেন, আমি আদালতে ন্যায়বিচার পেয়েছি। আমার শোরুম অবৈধভাবে বন্ধ করেছিল। জরিমানা করার পরও শোরুম বন্ধ করে আমার ক্ষতি করা হয়েছে। এজন্য আদালতে এসেছিলাম।

এ বিষয়ে জব্বার মন্ডল গণমাধ্যমকে বলেন, আইন মেনেই সব পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। উচ্চ আদালত যে সিদ্ধান্ত দিয়েছে সে বিষয়ে অধিদপ্তরের আইনজীবীরা কথা বলবেন।


আরও খবর