আজঃ মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

বিএনপি-জামায়াতের নৈরাজ্যের প্রতিবাদে মাঠে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৯ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
মো: আফসার খাঁন, কালিয়াকৈর (গাজীপুর)

Image

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে হরতাল-অবরোধের নামে বিএনপি-জামায়াতের নৈরাজ্যের প্রতিবাদ, প্রতিরোধ ও জনগণের যানমাল নিরাপত্তায় বৃহস্পতিবার মাঠে ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর আলহাজ্ব এ্যাড. আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এমপি। তাঁর নেতৃত্বে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের বিভিন্ন এলাকায় সতর্ক অবস্থানে মাঠে ছিল আওয়ামী লীগ।

এলাকাবাসী ও দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির ডাকা তৃতীয় ধাপে ৪৮ ঘন্টা হরতাল-অবরোধের দ্বিতীয় দিনে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে সর্তক অবস্থানে মাঠে ছিল জেলা, উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগ। হরতাল-অবরোধের নামে বিএনপি-জামায়াতের নৈরাজ্যের প্রতিবাদ, প্রতিরোধ ও জনগণের যানমাল নিরাপত্তায় মাঠে নামেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী।

প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবার ভোর থেকে মন্ত্রীর নেতৃত্বে ঢাকা-টাঙ্গাল মহাসড়কের উপজেলার মৌচাক, সফিপুর, পল্লীবিদ্যুৎ, চন্দ্রা ত্রিমোড়সহ বিভিন্ন এলাকায় সর্তক অবস্থানে ছিল জেলা, উপজেলা, পৌর আওয়ামীলীগ ও অংগসংগঠনের নেতাকর্মীরা। এসব এলাকায় শান্তি মিছিল ও সমাবেশ করে হাজার হাজার আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আলহাজ্ব আ. ক. ম মোজাম্মেল হক এমপি, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুরাদ কবীর, গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক শিকদার মোশাররফ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আকবর আলী, সদস্য হাবিবুর রহমান ও লোকমান হোসেন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম আজাদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম তুষার, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সরকার মোশাররফ হোসেন জয়, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সারোয়ার হোসেন শামিম, সাবেক তথ্য ও বিষয়ক সম্পাদক আরিফ হোসেন খোকন, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি হিরু মিয়া, উপজেলা শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক হারিজ উজ্জামান হারিজসহ আরো অনেকে।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




নওয়াজ শরিফের চেয়ে এগিয়ে ইমরান খান

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের নির্বাচনের ফল ঘোষণা শুরু করেছে দেশটির নির্বাচন কমিশন। এখন পর্যন্ত ২১৭টি আসনের ফল ঘোষণা করা হয়েছে। এতে নওয়াজ শরিফকে প্রায় অর্ধেক ব্যবধানে পেছনে ফেলে এগিয়ে গেছেন ইমরান খানের পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্ররা।

আলজাজিরার প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২৬৫ আসনের মধ্যে এখন পর্যন্ত ২১৭টি আসনের ফল ঘোষণা করেছে পাকিস্তান নির্বাচন কমিশন। এতে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা পেয়েছেন ৮৮টি আসন। ইমরান খানের দল পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা পেয়েছেন ৭৭টি আসন, নওয়াজ শরিফের পিএমএল-এন পেয়েছে ৬১টি আসন এবং বিলাওয়াল ভুট্টোর পিপিপি পেয়েছে ৫০টি আসন এবং অন্যান্যরা পেয়েছে ১৮টি আসন।

পাকিস্তানের এবারের নির্বাচনে জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদ মিলিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১৭ হাজারের বেশি প্রার্থী। ভোটার সংখ্যা ১২ কোটি ৮০ লাখ। তাদের ভোটেই নির্ধারিত হচ্ছে আগামী পাঁচ বছর পরমাণু শক্তিধর এই দেশটির শাসন ক্ষমতায় কারা থাকবেন। 

আরও পড়ুন>> জান্তাবাহিনীর নির্মমতার শিকার হয়ে গর্ভবতী নারী-শিশুসহ ৬ জন নিহত

তবে এবারের নির্বাচনে প্রধান বিরোধীদলীয় নেতা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এবং তার দল পিটিআইকে অংশ নিতে দেওয়া হয়নি। চার মামলায় দোষী সাব্যস্ত করে ইমরানকে ৩৪ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। ১০ বছরের জন্য তাকে নির্বাচনে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে পিটিআই ও ইমরান-সমর্থকদের দাবি, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে তাকে এসব সাজা দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে কারাগারে বন্দি তিনি।

নির্বাচনে না দাঁড়ালেও জনগণের মাঝে ইমরান খান ও তার দল পিটিআইয়ের বেশ প্রভাব রয়েছে। ফলে এবারের ভোটে পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা বেশ ভালো করছেন।


আরও খবর
বিশ্ববাজারে আবারো কমেছে জ্বালানি তেলের দাম

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




জয়া-বাইডেনের সংসারে নতুন তিন অতিথি

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় বাঘ দম্পতি জো বাইডেন ও বাঘিনী জয়ার ঘরে তিনটি শাবক জন্ম নিয়েছে। শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় খাঁচার ভেতরে শাবক তিনটির জন্ম হয়। এ নিয়ে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় বাঘের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৭টিতে।

চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ জানায়, এখনও তাদের লিঙ্গ নির্ধারণ করা যায়নি। নতুন জন্ম নেওয়া বাঘ শাবকের লিঙ্গ নিশ্চিত হতে এক সপ্তাহ সময় লাগতে পারে।

চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ আরও জানায়, শাবক তিনটির মা বাঘিনী জয়ার জন্ম ২০১৮ সালের জুলাইয়ে এবং তাদের বাবা বাঘ জো বাইডেনের জন্ম ২০২০ সালের ২৮ ডিসেম্বরে। জো বাইডেন জন্মের পরপরই তার মা হতে পরিত্যক্ত হয়। এরপর তাকে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানার ব্যবস্থাপনায় লালনপালন করা হয়। এক বছর লালনপালন করার পর বিশেষ প্রক্রিয়ায় খাঁচায় অন্য বাঘ পরিবারের সঙ্গে সোশালাইজেশনের মাধ্যমে সদস্য হিসেবে রি-ইন্ট্রোডাকশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়। প্রাপ্তবয়স্ক হওয়ার পর প্রথমবারের মতো সে নিজের পরিবার তৈরি করল।

প্যারিস জলবায়ু পরিবর্তন চুক্তিতে সই করায় আমেরিকার প্রেসিডেন্টের সম্মানার্থে বাঘটির নাম রাখা হয়েছিল জো বাইডেন জানিয়ে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানার কিউরেটর ডা. শাহাদাত হোসেন শুভ বলেন, মানুষের হাতে লালনপালন হয়ে পুনরায় বাঘ পরিবারের সঙ্গে একত্রীকরণের মাধ্যমে বংশবিস্তার করার চক্র একটি বিরল ঘটনা। যার পুরো কৃতিত্ব বাঘ জো বাইডেনের।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




আমরা হানাহানি চাই না: নওয়াজ শরিফ

প্রকাশিত:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে কোনো দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার পথে নেই। এ পর্যন্ত পাওয়া ফলাফলে সবচেয়ে এগিয়ে আছেন ইমরানপন্থি স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। দ্বিতীয় অবস্থানে আছে নওয়াজ শরিফের দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ (পিএমএল-এন)। এমন পরিস্থিতিতে জোট গঠন ছাড়া সরকার গঠন অসম্ভব। তাই জোট গঠনে মরিয়া হয়ে উঠেছেন পিএমএল-এন সুপ্রিমো নওয়াজ শরিফ।

নওয়াজ শরিফ বলেছেন, পিএমএল-এন হানাহানি চায় না, কারণ পাকিস্তানের সেই সামর্থ্য নেই। তিনি পাকিস্তানের নাজুক অর্থনৈতিক অবস্থার কথা মনে করিয়ে দিয়ে বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় পাকিস্তানের অন্তত ১০ বছর স্থিতিশীলতা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, জোট সরকারের জন্য তার দল পিপিপি, এমকিউএম-পি, জেআইআই-এফের সঙ্গে যোগাযোগ করছে।

নওয়াজ শরিফ বলেছেন, তিনি তার ছোট ভাই শাহবাজকে জোট সরকার গঠনের জন্য পির আসিফ আলী জারদারি, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের ফজলুর রেহমান এবং এমকিউএম-পির খালিদ মকবুল সিদ্দিকীর সঙ্গে যোগাযোগ করতে বলেছেন।

পিএমএল-এন নেতা আরো বলেছেন, পাকিস্তান বর্তমানে যে সমস্যার মধ্যে রয়েছে তা থেকে বের করে আনতে সব রাজনৈতিক দলের একসঙ্গে বসে সরকার গঠন করা দরকার।

পাকিস্তানকে এই সংকট থেকে বের করে আনতে দেশের সব প্রতিষ্ঠান, প্রত্যেকের একসঙ্গে ইতিবাচক ভূমিকা পালন করা উচিত উল্লেখ করে নওয়াজ বলেন, এটা সবার পাকিস্তান, শুধু পিএমএল-এনের নয়। সবার উচিত মিলেমিশে বসে পাকিস্তানকে সমস্যা থেকে বের করে আনা।

এর আগে ইমরানপন্থি স্বতন্ত্র প্রার্থীদেরকে তার দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। নির্বাচনে জয়লাভের জন্য স্বতন্ত্র প্রার্থীদের তাদের অভিনন্দনও জানিয়েছেন নওয়াজ শরিফ।


আরও খবর
বিশ্ববাজারে আবারো কমেছে জ্বালানি তেলের দাম

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বিশ্ব ইজতেমায় খেজুর বিলিয়ে যৌতুকবিহীন ৭২ যুগলের বিয়ে

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
গাজীপুর প্রতিনিধি

Image

গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় দিন ৭২ যুগলের যৌতুকবিহীন বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) বাদ আসর যৌতুক বিহীন এই বিয়ে সম্পন্ন হয়। বিয়ে পড়ান ভারতের মাওলানা জোবায়রুল হাসান।

বিশ্ব ইজতেমা আয়োজক কমিটির গণমাধ্যম সমন্বয়ক হাবিবুল্লাহ রায়হান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বিয়েতে মোহরানা ধার্য করা হয় মোহর ফাতেমীর নিয়মানুযায়ী। এ নিয়ম অনুযায়ী মোহরানা ধরা হয় দেড়শ তোলা রুপা বা এর সমমূল্যের অর্থ।

লাখো মানুষের ইবাদত বন্দেগির মধ্যে শনিবার বিশ্ব ইজতেমার অন্যতম আকর্ষণ ছিল যৌতুক বিহীন বিয়ে। সম্পূর্ণ ইসলামি শরিয়া মেনে তাবলিগের রেওয়াজ অনুযায়ী ইজতেমার বয়ান মঞ্চের পাশেই বসে যৌতুকবিহীন বিয়ের আসর ।

কনের সম্মতিতে বর ও কনে পক্ষের লোকজনের উপস্থিতিতে সম্পন্ন হয় বিয়ে। এজন্য সকাল থেকেই অভিভাবকরা হবু দম্পতিদের নাম তালিকাভুক্ত করান। বিয়ের পর বয়ান মঞ্চ থেকেই মোনাজাতের মাধ্যমে নব দম্পতিদের সুখ-সমৃদ্ধিময় জীবন কামনা করা হয় এবং মঞ্চের আশপাশের মুসল্লিদের মাঝে খোরমা-খেজুর বিতরণ করা হয়।

বরিশালের ব্যবসায়ী ফাইজুল হক বলেন, আমি তাবলিগ জামাতের সাথে দীর্ঘদিন ধরে সম্পৃক্ত। আমার খুব ইচ্ছে ছিল বিশ্ব ইজতেমায় এসে বিয়ে করার। আজ আমার সেই আশা পূরণ হয়েছে। সকলের কাছে নতুন দম্পতির জন্য দোয়া চেয়েছেন তিনি।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সংরক্ষিত নারী আসনের দায়িত্ব প্রধানমন্ত্রীকে দিলেন স্বতন্ত্ররা

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সংসদের বিধিবিধান অনুযায়ী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৬২টি আসনে স্বতন্ত্র বিজয়ী প্রার্থীরা সংরক্ষিত নারী আসনে ১০ জনকে মনোনয়ন দিতে পারবেন। আর সেই সংরক্ষিত নারী আসনের দায়িত্ব প্রধানমন্ত্রীকে অর্পণ করেছেন বলে জানিয়েছেন স্বতন্ত্র সংসদ সদস্যরা।

রোববার (২৮ জানুয়ারি) রাতে গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে গণমাধ্যমের কাছে এসব কথা বলেন স্বতন্ত্র সংসদ সদস্যরা।

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য এ কে আজাদ বলেন, আমরা যেহেতু নৌকা পাইনি, আমরা দলের বিভিন্ন পদে আছি, দায়িত্বে আছি। আবার আমরা স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য। আমরা বলেছি, এলাকাতে কাজ করতে নানা অসুবিধা হচ্ছে। সুতরাং দলের মধ্যে যেহেতু আছি সেহেতু আমাদের একত্রিত করা হোক।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের বলেছেন, স্বতন্ত্র হিসেবেই তোমরা কাজ করো। এখানে কোনো সমস্যা হবে না। কারণ এটা আমার ডান হাত, ওটা আমার বাম হাত। যারা দলীয় মনোনয়ন পায়নি, তারা সংসদে বেশি আলোচনা ও সমালোচনার সুযোগ পাবে।

সংরক্ষিত নারী আসনে স্বতন্ত্রদের সিদ্ধান্তের বিষয়ে এ কে আজাদ বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীকে বলে এসেছি, যারা দীর্ঘদিন দলের জন্য কাজ করেছেন। যারা সংসদে জনগণের জন্য ভূমিকা রাখতে পারবেন এমন কাউকেই আপনি মনোনয়ন দেবেন। এটা আমরা নিজে থেকেই বলে এসেছি। যাদের ত্যাগের বিনিময়ে আজ আওয়ামী লীগ এখানে এসেছে, সেসব পরিবারকে স্বীকৃতিস্বরূপ সংরক্ষিত নারী আসন দিতে আমরা অনুরোধ করেছি।

ঢাকা-১৮ আসনের সংসদ সদস্য খসরু চৌধুরী বলেন, এখানে যারা উপস্থিত ছিলেন প্রায় সবাই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। আমি প্রধানমন্ত্রীকে বলেছি, আমাদের গায়ে যদি এখনো স্বতন্ত্রের সিল থাকে, তাহলে দলের পদে থেকে কাজ করতে আমাদের অসুবিধা হবে এবং এখনো হচ্ছে। মানুষ বিভিন্ন কথা বলছে।

সংরক্ষিত নারী আসনের ব্যাপারে কী সিদ্ধান্ত হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে খসরু চৌধুরী বলেন, এ ব্যাপারে আমরা নিজেরাই প্রধানমন্ত্রীর ওপর দায়িত্ব দিয়েছি। আমরা বলেছি, নেত্রী আপনি যেটা ভালো মনে করেন, সেটাই করবেন।

স্বতন্ত্র সংসদ সদস্যরা সংরক্ষিত নারী আসনের বিষয়ে কী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন জবাবে তিনি বলেন, আমরা হয়ত ১০টি বা ১১টির মতো সংরক্ষিত নারী আসন পাব। সবাই একমত হয়ে প্রধানমন্ত্রীকে বলে এসেছি, আমরা তাকে এটা দিয়ে এসেছি। তিনি (প্রধানমন্ত্রী) তার মতো করে সংরক্ষিত নারী আসনের মনোনয়ন দেবেন।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ৭ জানুয়ারি। দলীয় মনোনয়ন থেকে বঞ্চিত হয়েছিলেন অনেক আওয়ামী লীগ নেতা। তারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়ে জয়ী হন। বিজয়ী ৬২ স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে ৫৯ জন আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে জড়িত, কেউ কেউ আবার পদধারী।


আরও খবর