আজঃ শনিবার ২৯ জানুয়ারী ২০২২
শিরোনাম

বেতন-ভাতা না দিয়েই উধাও হয়ে গেছে বিতর্কিত প্রিয়া সাহার এনজিও শারি

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ ডিসেম্বর ২০২১ | ১৬৩০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দীর্ঘ ৯ মাসেরও অধিক সময় ধরে বেতন ভাতা বন্ধ রেখে সেই বিতর্কিত প্রিয়া সাহার এনজিও শারি রাতের আঁধারে অফিস গুটিয়ে চলে গেছে। কোথায় গেছে তাও কেউ বলতে পারছে না। অফিসের অনেক কর্তাব্যক্তিরা মোবাইলও রিসিভ করছেন না। তবে প্রতিষ্ঠানটির ফিনান্স সমন্বয়কারী প্রদীপ দাস বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন অফিস গুটিয়ে নেওয়া হয়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০২১ সালের এপ্রিল মাস থেকে উক্ত শারি এনজিও ঢাকা, মুন্সিগঞ্জ এবং খুলনা অফিসের আওতায় প্রায় ৮০জন কর্মকর্তা, কর্মচারিদের কোন প্রকার বেতনাদি দিচ্ছেনা। উপরন্তু আত্মসাতের উদ্দেশ্যে ওই সকল কর্মীদের পূর্বের পাওনা তথাকথিত স্টাফ ওয়েলফেয়ারের নামে কর্তনকৃত বেতনের ৫% হারে যে টাকা জমা হয়েছে, তাও দিচ্ছে না। টাকা চাইলেই অফিসের বর্তমান ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক ও সাবেক ডেসটিনি কর্মকর্তা শক্তিময়ী হীরা বলেন, আমেরিকায় প্রিয়া সাহার সাথে কথা বলতে। অনেকে আবার প্রিয়া সাহার সাথে কথা বললে তিনি ধমকের সুরে তাদেরকে থামিয়ে দেন বলে ভূক্তভোগীরা অভিযোগ করেছেন।

এদিকে খোঁজ নিয়ে আরও জানা গেছে, অফিসে কর্মরত কর্মীদের বেতন ভাতা না দেওয়ার উদ্দেশ্যেই হঠাৎ করে অফিস গুটিয়ে চলে গেছে এই সংস্থাটি। কোথায় গেছে তাও কেউ বলতে পারছে না। যদিও অফিসের সাথে সম্পর্কিত কেউ ফোনই ধরছে না। শারি সংস্থার সেই বিতর্কিত নির্বাহী পরিচালক প্রিয়া সাহার স্বামী মলয় সাহা অফিসের জেনারেল ফান্ডে থাকা সকল টাকা নিয়ে গেছেন বলে সংস্থার হিসাব শাখা থেকে জানা গেছে। যে কারণে কর্মীদের প্রাপ্য বেতন ভাতাদিও দিতে পারছে না এই সংস্থাটি। উল্লেখ্য যে, জার্মান ভিত্তিক দাতা সংস্থা ব্রেড ফর দ্যা ওয়ার্ল্ড এবং মিজেরিয়র’ বাংলাদেশের তথাকথিত বেসরকারী সংস্থা শারিকে প্রতি বছর অন্ততঃ আড়াই কোটি টাকা অনুদান দিত।

সর্বশেষ ২০২০ সালের শেষের দিকে করোনা চলাকালীন সময় ত্রাণের জন্য উক্ত দুটি দাতা সংস্থা থেকে ৪৫ লাখ টাকা অতিরিক্ত অনুদান দিলেও কোন ত্রাণ না দিয়ে পুরোটাই আত্মসাত করে আমেরিকায় প্রিয়া সাহার কাছে পাঠানো হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে দাতা সংস্থা ব্রেড ফর দ্যা ওয়ার্ল্ড তাদের নিজস্ব অডিট টিম পাঠিয়ে অডিট করালে ত্রাণের পাশাপাশি আরও বেশ কিছু আত্মসাতের বিষয় ধরা পড়ে। ফলে ওই দাতা সংস্থা শারিকে অনুদান বন্ধ করে দেয়।

জানা গেছে, দেশের দলিত সম্প্রদায়কে নিয়ে কাজ করার, তাদের জীবনমান উন্নয়নে কথা বলে আনা টাকার নামমাত্র কিছু টাকা খরচ করে কিছু ট্রেনিং প্রোগ্রামসহ কিছু সচেতনতামূলক সভা, সেমিনার করে অনুদানের বাকী টাকা আত্মসাৎ করতো শারি।

এ সকল বিষয় জানার জন্য শারি’র ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী পরিচালক শক্তিময়ী হীরা এর মোবাইল নম্বর ০১৬৭৬২৮৬০১৫ এ ফোন করা হলে তিনি তা রিসিভ করেন নি। অন্যদিকে সংস্থার ফিনান্স সমন্বয়কারী প্রদীপ দাস এর সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, অফিস গুটিয়ে নেওয়ার কথা সঠিক নয়। তবে ফান্ড না থাকায় বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ আপাতত বন্ধ রয়েছে। ফান্ড না পাওয়ায় ষ্টাফদের বেতনভাতাও একটু বকেয়া পড়েছে।

উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এর কাছে বাংলাদেশের হিন্দুদের নির্যাতন করা হয় এবং হিন্দুরা দেশ থেকে পালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করায় দেশব্যাপী সমালোচনার মুখে পড়ে বিতর্কিত হন পিরোজপুরের নাজিরপুরের মেয়ে এবং শারি’র নির্বাহী পরিচালক প্রিয়া সাহা।

২০১৯ সালের ১৭ জুলাই হোয়াইট হাউজে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের আয়োজনে সেকেন্ড মিনিস্টারিয়াল টু এ্যাডভান্স রিলিজিয়াস ফ্রিডম’ নামের একটি ইভেন্টে যোগ দিতে গিয়ে প্রিয়া সাহা তৎকালীন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এর কাচে অভিযোগ করেন, বাংলাদেশে থেকে (তার ভাষায়) ৩৭ মিলিয়ন হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীস্টান নিখোঁজ হয়েছে’, তার নিজের বাড়িঘরও আক্রান্ত হয়েছে কিন্তু এর কোন বিচার হয় নি। মি ট্রাম্পকে অনুরোধ করেন তিনি যেন বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের সাহায্য করেন- যাতে তারা দেশে থাকতে পারে।

প্রিয়া সাহা সেদিন ট্রাম্পকে বলেন, স্যার, আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। এখানে ৩৭ মিলিয়ন (তিন কোটি ৭০ লাখ) হিন্দু বৌদ্ধ এবং খ্রিস্টান নিখোঁজ হয়ে গেছে। দয়া করে আমাদের, বাংলাদেশী মানুষদের, সাহায্য করুন। আমরা আমাদের দেশে থাকতে চাই। সে দেশে এখনো ১৮ মিলিয়ন (১ কোটি ৮০ লাখ) সংখ্যালঘু আছেন। আমার অনুরোধ হচ্ছে, আমাদের সাহায্য করুন। আমরা আমাদের দেশ ছেড়ে যেতে চাই না। শুধু আমাদের দেশে থাকতে সাহায্য করুন।’

প্রিয়া সাহা আরো বলেন, আমি আমার বাড়ি হারিয়েছি। তারা আমাদের বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে। তারা আমাদের জমি নিয়ে নিয়েছে। কিন্তু এর কোন জাজমেন্ট (বিচার) হয় নি।’

এ সময় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাকে প্রশ্ন করেন বাড়ি ও জমি কে নিয়েছে ?

তখন প্রিয়া সাহা একটু কথা গুলিয়ে ফেললেও পর মুহূর্তেই বলেন, মুসলিম মৌলবাদী গোষ্ঠী। তারা সবসময়ই রাজনৈতিক আশ্রয় পাচ্ছে। সব সময়।’

এদিকে, মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে প্রিয়া সাহার এমন অভিযোগের বিষয়ে সে সময়ে বাংলাদেশ সরকার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায় এবং উক্ত অভিযোগ ভয়ংকর মিথ্যা, সাজানো গল্প বলে অভিহিত করে।

এ ঘটনার পরে তিনি আর বাংলাদেশে ফিরে আসেন নি। তিনি বর্তমানে মুক্তরাষ্ট্রেই বসবাস করছেন। সেখানে তার দুই মেয়েও রয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: প্রিয়া সাহা

আরও খবর



দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে তৈমূরের বাসভবনে আইভী

প্রকাশিত:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২ | ৫২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে পরাজিত মেয়র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকারের বাসায় গেছেন বিজয়ী প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী।

সোমবার বিকাল ৫টার দিকে শহরের মাসদাইর এলাকায় দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে তৈমূরের বাসভবনে যান আইভী। এসময় পাশাপাশি বসে কথা বলেন তারা।

এর আগে বাবারা তো মেয়েকে জিতিয়ে দেয় বলে মন্তব্য করেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের পর পর তিন বারের নির্বাচিত মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভী।

রোববার নির্বাচনে প্রাথমিক ফলাফলে বিজয়ের পর স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারের উদ্দেশে তিনি এ মন্তব্য করেন।

আপনার কাকার উদ্দেশে কিছু বলবেন; তিনি তো অনেক ভোট পেয়েছেন- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের পর পর তিন বারের নির্বাচিত মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভী বলেন, হ্যাঁ কাকা অনেক ভোট পেয়েছেন। কাকাকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। তাকে বলতে চাচ্ছি- তার মেয়েই জিতেছেন। মেয়ে তো জিতবে। বাবারা তো সব সময় মেয়েদেরই জিতিয়ে দেয়।

তিনি আরও বলেন, তিনি যেহেতু আমার চাচা, তিনিও নিশ্চয় খুশি হয়েছেন- চুনকার মেয়ে জিতেছে; উনারই মেয়ে জিতেছে। আমি তাকে নিয়েই কাজ করবো। তার যে পরিকল্পনা আছে; আশা করি তিনি আমাকে সহযোগিতা করবেন।


আরও খবর



প্রাথমিক স্কুলেও নতুন শপথ পাঠের নির্দেশ

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ জানুয়ারী ২০২২ | ৩২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

স্কুল-কলেজ ও মাদ্রাসার মতো প্রাথমিক বিদ্যালয়েও নতুন শপথ পাঠ করার বিষয়ে দিকনির্দেশনা দিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। গতকাল বৃহস্পতিবার প্রতিষ্ঠানটির এক আদেশে জেলা ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও বিভাগীয় উপপরিচালকদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রতিদিনের সমাবেশে জাতীয় সংগীতের পর নতুন শপথ পাঠ করানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

নতুন শপথে বলা হয়েছে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে পাকিস্তানি শাসকদের শোষণ ও বঞ্চনার বিরুদ্ধে এক রক্তক্ষয়ী মুক্তিসংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করেছে। বিশ্বের বুকে বাঙালি জাতি প্রতিষ্ঠা করেছে তার স্বতন্ত্র জাতিসত্তা। আমি দৃপ্ত কণ্ঠে শপথ করছি যে, শহীদদের রক্ত বৃথা যেতে দেব না। দেশকে ভালোবাসব, দেশের মানুষের সার্বিক কল্যাণে সর্বশক্তি নিয়োগ করব। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের আদর্শে উন্নত, সমৃদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার সোনার বাংলা গড়ে তুলব। মহান সৃষ্টিকর্তা আমাকে শক্তি দিন।

এর আগে ৩০ ডিসেম্বর দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের এই শপথ পাঠ করার বিষয়ে দিকনির্দেশনা দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। ওইদিন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব আলমগীর হুসাইনের সই করা অফিস আদেশে বলা হয়, সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রতিদিনের সমাবেশে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের পর নতুন শপথ পাঠ করতে হবে। ইংরেজি ও বিদেশি মাধ্যমের স্কুল-কলেজগুলোকেও মানতে হবে এ নির্দেশনা।

নিউজ ট্যাগ: শপথ পাঠ

আরও খবর



ভাসানচরের রোহিঙ্গাদের ২০ লাখ ডলার দেবে জাপান

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২ | ২২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে নোয়াখালীর হাতিয়ার ভাসানচরে স্থানান্তরিত রোহিঙ্গাদের জন্য ২০ লাখ মার্কিন সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে জাপান। শুক্রবার (২৮ জানুয়ারি) ঢাকার জাপান দূতাবাস থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, ভাসানচরের রোহিঙ্গাদের সহায়তায় দুই মিলিয় ডলার দেবে জাপান। এর মধ্যে এক মিলিয়ন ডলার সহায়তা দেওয়া হবে জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থাকে (ইউএনএইচসিআর)। আর এক মিলিয়ন ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রামকে দেওয়া হবে। সংস্থাটি দুটি ভাসানচরে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের জন্য এসব অর্থ ব্যয় করবে।

বিজ্ঞপ্তিতে ঢাকায় নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকিকে উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়, রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে এ অঞ্চলের শান্তি ও স্থিতিশীলতা গুরুত্বপূর্ণ। রোহিঙ্গাদের সুরক্ষায় বাংলাদেশ সরকার আন্তর্জাতিক সংস্থার সঙ্গে যে উদ্যোগ নিয়েছে তা প্রশংসনীয়। ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে জাতিসংঘ ভূমিকা রাখবে বলে আমি মনে করি।


আরও খবর



নতুন বই হাতে উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ জানুয়ারী ২০২২ | ৫০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বছরের শুরুতেই নতুন বইয়ের গন্ধে উচ্ছ্বসিত শিক্ষার্থীরা। বই হাতে নিয়ে নতুন উদ্যমে পড়াশোনায় বেশি মনযোগী হতে চায় তারা। করোনার ক্ষতি পুষিয়ে জীবনের লক্ষ্যপূরণে এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন সবার চোখে-মুখে। নতুন বই হাতে এমন উচ্ছ্বসিতই দেখা গেছে শিক্ষার্থীদের।

করোনার কারণে এ বছরও হচ্ছে না বই বিতরণ উৎসব। তবে নতুন বছরের প্রথম দিন শনিবার (১ জানুয়ারি) স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষার্থীদের মাঝে বই বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

এবার সারাদেশে ৪ কোটি ১৭ লাখ ২৬ হাজার আট শ ৫৬ জন শিক্ষার্থীর মাঝে, ৩৪ কোটি ৭০ লাখ ২২ হাজার এক শ ৩০ কপি বই বিনামূল্যে বিতরণ করা হচ্ছে। এর মধ্যে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য ব্রেইল পাঠ্যপুস্তক ও ৫টি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মাতৃভাষায় প্রণীত পাঠ্যপুস্তক রয়েছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) নির্দেশনা অনুযায়ী, ষষ্ঠ শ্রেণিতে ১ থেকে ৩ জানুয়ারি, সপ্তম শ্রেণিতে ৪ থেকে ৬ জানুয়ারি, অষ্টম শ্রেণিতে ৮ থেকে ১০ জানুয়ারি এবং নবম শ্রেণিতে ১১ থেকে ১৩ জানুয়ারি শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেওয়া হবে।

ইতোমধ্যে ১৭ কোটির বেশি বই পৌঁছে গেছে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। অবশিষ্ট বইও শিগগিরই পৌঁছে যাবে বলে জানায় মাউশি।

১৩ দিনব্যাপী দেশজুড়ে ৪ কোটি ১৭ লাখ ২৬ হাজার ৮৫৬ জন শিক্ষার্থীকে নতুন বই দেওয়া হবে।

এর আগে বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চ্যুয়ালি পাঠ্যবই বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন।


আরও খবর



বেগমগঞ্জে দুটি সড়ক নির্মাণে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৫ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

নোয়াখালী প্রতিনিধি : নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের আওতায় কয়েকটি নতুন রাস্তা নির্মাণ ও পুরোনো সড়ক সংস্কার কাজে সিডিউল বহির্ভূত ভাবে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরকারের জিওবি মেন্টেনেজ প্রকল্পের আওতায় এলজিইডি বেগমগঞ্জ উপজেলা কার্যালয়ের তত্তাবধানে চলছে এই নির্মাণকাজ।

এর মধ্যে দুটি রাস্তা নির্মাণে একেবারে নিন্মমানের ইট, ইটের খোয়া ও বালু ব্যবহার করা হয়েছে। এছাড়াও সড়কের পাশে থাকা গাইড ওয়াল গুলোও একেবারে নিন্মমানের ইট দিয়ে নির্মাণ করা হয়েছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, শিডিউলের তোয়াক্কা না করে ইচ্ছেমতো দুটি সড়কে নিন্মমানের কাজ করছেন ঠিকাদার। কাজের শুরু থেকেই তদারকি প্রতিষ্ঠানের যোগসাজশে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান তড়িঘড়ি করে এসব অনিয়ম করে চলছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, সড়কে নিন্মমানের ইটের খোয়া ও সড়কের পাশের গাইড ওয়াল গুলো একেবারে যেনতেন ভাবে নির্মাণ করা হয়েছে।

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কর্নধার আবদুল হামিদ রাজু নিন্মমানের ইট-বালু ব্যবহারের অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, রাস্তায় ইট-বালু ভালো মানের ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে যাঁদের কাছ থেকে এগুলো নেওয়া হচ্ছে, তাঁরা তারা ভুলবশত মাঝে মধ্যে এক নম্বর ইটের মধ্যে কিছু খারাপ ইট দিয়েছে। 

বেগমগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী কাজী কামরুল ইসলাম একজন সহকারী প্রকৌশলীর বরাত দিয়ে দাবি করেন  সড়কে নিন্মমানের কিছু খোয়া আছে। তবে সড়কে তেমন নিন্মমানের উপকরণ ব্যবহার করা হয়নি। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নোয়াখালী এলজিইডি নির্বাহী প্রকৌশলী মো.একরামুল হক বলেন, নিন্মমানের সামগ্রী ব্যবহার অভিযোগ পাওয়া গেলে নিন্মমানের উপকরণ সড়ক থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। তবে এলাকাবাসী তাঁর দাবি নাকচ করে দিয়ে দুষছেন ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে। তারা বলছে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের ভূমিকা থাকায় নিন্মমানের কাজ হয়। এটা রাষ্ট্রও জনগণের সাথে এক ধরনের প্রতারণা। 


আরও খবর
ভোটকেন্দ্রে গাঁজাসহ এজেন্ট আটক

রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২