আজঃ বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

বেতাগীতে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে জখম

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ মার্চ ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
Image

বেতাগী (বরগুনা) প্রতিনিধি:

বরগুনার বেতাগীতে উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ টুটুল খান (৩৫) কে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে।

শুক্রবার (২৪ শে মার্চ) রাত ৯ টায় পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের ব্যাকা পোল এলাকায় যাওয়ার সময় হঠাৎ দুর্বৃত্তরা তার ওপর হামলা চালায়। হামলাকারীরা টুটুল খান হাত-পা কুপিয়ে মারাত্মক ভাবে জখম করে। পরে আহত অবস্থায় এলাকাবাসী তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে।

গুরুতর আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে প্রেরণ করেন।  

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাক্তার লিখন জানান, রোগীর ডান পা এর পোকের চিহ্ন আছে এবং ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গুল এর ৯০ভাগ কেটে ফেলা হয়েছে। এছাড়া শরীরের বিভিন্নস্থানে কোপ এবং ফুলা জখম আছে।

বেতাগী থানার অফিসার ইনচার্জ আনোয়ারা হোসেন জানান, ঘটনা শুনে সাথে সাথে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়েছি। অবস্থা গুরুতর থাকায় তাকে বরিশাল প্রেরণ করা হয়েছে। স্বজনরা এজাহার দিলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরও খবর



চরম দুর্ভোগে জয়পুরহাট শহরবাসী

প্রকাশিত:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
সুজন কুমার মন্ডল, জয়পুরহাট

Image

ফোরলেন না কি টু লেন? এমন প্রশ্বের উত্তর খুঁজে পাচ্ছেন না শহরবাসী। প্রকল্প অনুমোদনের ৬ বছর পার হলেও এখনও ড্রেন নির্মাণেই সময় পার করছেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। ফলে যানজট ও জলজটে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শহরবাসীকে। এরপরও বরাবরের মতো দ্রুত কাজ শেষ করার আশ্বাস সংশ্লিষ্টদের।

জয়পুরহাট শহরের জিরো পয়েন্ট থেকে হাড়াইল মোড় পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার ফোরলেনের কাজ চলছে গেল ৬ বছর ধরে। এতে প্রতিনিয়ত দুর্ভোগে নাকাল হচ্ছেন জেলাবাসী। তবে ড্রেন নির্মাণ কাজ প্রায় শেষ হলেও দুই পার্শ্বের ময়লা আবর্জনাসহ আলগা মাটি এখনও ফিনিশিং না করায় যেখানে সেখানে গর্তের সৃষ্টি হয়ে পানি জমে রয়েছে। ফলে যানজট ও জলজটে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শহরবাসীকে।

ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর জামিরুল ইসলাম জানালেন-দুই পার্শ্বে ড্রেন নির্মাণের কারণে রাস্তার পানি সরে যাচ্ছে না। যে কারণে যেখানে সেখানে গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। আর এ জন্যই প্রায় প্রতিনিয়তই ছোটখাটো দুর্ঘটনা ঘটছে।

স্থানীয় বাসিন্দা আবুল কালাম মোটরসাইকেল আরোহী শফিকুল আলম, কাপড় ব্যবসায়ী সুব্রত কুমার অনেকটা ক্ষোভের স্বরে জানান, এই শহরটা মানুষ চলাচলকারী অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। মূলত এ শহরের কোনো অভিভাবক নেই। যদি থাকতো, তাহলে প্রকল্প অনুমোদনের পর বছরের পর বছর সময় লাগতো না ড্রেন নির্মাণ ও ফোরলেন কাজ হতে।

জানা যায়, ২০১৭ সালের ১১ মে একনেকের বৈঠকে গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ প্রকল্পের আওতায় ফোরলেন সড়কের জন্য ২৫ কোটি টাকা এবং দুই পাশে ড্রেন নির্মাণের জন্য ৩০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। ওই সময় তিনটি প্যাকেজে দুটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে ২০১৭ সালের ২৪ ডিসেম্বর ও ২০১৮ সালের ২৭ জুন কার্যাদেশ দেওয়া হয়।

প্রথমে কয়েক দফা সময় বাড়িয়েও কাজ শুরু করতে না পারা নাভানা কন্সট্রাকশন লাপাত্তা হলে পরবর্তীতে ২০২০ সালে রিলাইয়েবল বিল্ডার্স লি. ও মাহফুজ খান জয়েন্ট ভেঞ্চার নামে দুটি প্রতিষ্ঠান কাজ পায়। এরপর তারাও এক দফা সময় বাড়িয়ে চলতি বছরের ৩০ জুন ফোরলেন কাজ সমাপ্ত করার কথা থাকলেও এখনও শুরুই করতে পারেনি। ফলে জয়পুরহাট শহরের প্রধান সড়কটি এখন চলচলের জন্য অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

এ বিষয়ে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান রিলাইয়েবল বিল্ডার্স লিমিটেডের সিনিয়র প্রজেক্ট ম্যানেজার সাজ্জাদ কাদির খান বলেন, প্রথমতো পৌরসভার ড্রেন থাকায় এবং দ্বিতীয়ত দুই পাশের ড্রেন নির্মাণ দেরিতে হওয়ায় আমরা ফোরলেনের কাজ শুরু করতে পারছি না। তারা ড্রেন নির্মাণ কাজ শেষ করলেই আমরা ফোরলেনের কাজ শুরু করব।

এদিকে নানা কারণে ড্রেন ও ফোরলেন কাজ ধীরগতিতে হওয়ায় চরম ভোগান্তিতে রয়েছেন শহরবাসী- বিষয়টি অকপটে স্বীকার করে পৌর মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক বলেন, কাজটি দ্রুত বাস্তবায়নে পৌরসভা, পুলিশ প্রশাসন ও সড়ক বিভাগের পক্ষ থেকে নিয়মিত তদারিক করা হচ্ছে।

আর সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী শাহিনুর রহমান বলেন, স্থাপনা প্রসারণ ও নানা কারণে ড্রেন নির্মাণ কাজ কিছুটা দেরি হওয়ায় ফোরলেন কাজ শুরু করতে পারছেন না ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। চলতি বছরের ৩০ জুন ফোরলেন কাজ সম্পন্ন করার কথা থাকলেও, মেয়াদ বাড়িয়ে ২০২৫ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত করা হয়েছে। আশা করছি এই অর্থ বছরে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান পুরোপুরি কাজটি সম্পন্ন করে আমাদের হাতে তুলে দেবেন।

জয়পুরহাট সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্র জানায়, শহরের পাঁচুর মোড় থেকে হাড়াইল কবরস্থান পর্যন্ত আড়াই কিলোমিটার সড়কের প্রতিটি লেন হবে ১২ ফিট করে। আর মাঝখানে থাকবে একটি সৌন্দর্যবর্ধক ডিভাইডার।


আরও খবর



জঙ্গিবাদ এখন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে : এসবি প্রধান

প্রকাশিত:সোমবার ০১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০১ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

দেশে এখন জঙ্গিবাদ পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চ (এসবি) প্রধান ও অতিরিক্ত আইজিপি মনিরুল ইসলাম।

সোমবার (১ জুলাই) গুলশানে দীপ্ত শপথ ভাস্কর্যে হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় নিহতদের স্মৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

মনিরুল ইসলাম বলেন, আজ থেকে ৮ বছর আগে গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে নারকীয় জঙ্গি হামলা হয়েছিলো। ওই রাতে পুলিশের দুই সদস্যসহ বিভিন্ন দেশের নাগরিকরা নিহত হয়েছিলেন। এটি শুধু বাংলাদেশে নয় আন্তর্জাতিক বিশ্বেও আলোচিত ঘটনা হিসেবে বিবেচিত। অনেক দেশ মনে করেছিল এই জঙ্গি হামলার পর বাংলাদেশ আর ঘুরে দাঁড়াতে পারবে না। আরও জঙ্গি হামলায় বাংলাদেশ আফগানিস্তানে পরিণত হবে বলেও অনেকে মনে করেছিলো।

এসবি প্রধান বলেন, ওই ঘটনার পর আমরা জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক অভিযানে নামি। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অভিযানের পাশাপাশি সচেতনতাসহ জঙ্গিদের বিরুদ্ধে নানা কৌশল গ্রহণ করি। হলি আর্টিজানের ঘটনার পরপরই শোলাকিয়াতে একটি হামলা হয়। এরপর থেকে জঙ্গিরা ছোট কিংবা বড় কোনো হামলা করতে পারেনি। জঙ্গিরা সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করলে আমরা গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ করে তাদের বিরুদ্ধে আগেই অভিযান পরিচালনা করি। ফলে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদ পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে চলে আসে, যা এখনো আছে।

তিনি বলেন, জঙ্গিরা একটি ভুল মতাদর্শ নিয়ে কাজ করে। ফলে এটি দমন করা অনেক লম্বা সময় প্রয়োজন ও জটিল প্রসেস। এই মতাদর্শ এখনো রয়েছে। তাই তারা অনলাইন ও বিচ্ছিন্নভাবে সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করে। জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী গোয়েন্দা তথ্য, গবেষণা ও ক্ষেত্র বিশেষে অভিযান পরিচালনা করছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের ১ জুলাই গুলশান-২ এর লেক পাড়ের হলি আর্টিজান বেকারিতে ঘটেছিল দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় জঙ্গি হামলা। আট বছর আগের ওই রাতে অস্ত্রের মুখে বেকারিতে থাকা দেশি-বিদেশি নাগরিকদের জিম্মি করে নারকীয় হত্যাযজ্ঞ শুরু করে জঙ্গিরা। ভয়াবহ সেই হামলায় দুই পুলিশ কর্মকর্তা ও ১৭ জন বিদেশি নাগরিকসহ নিহত হন ২২ জন।


আরও খবর
ট্রেন চলাচলের সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি

বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪




বৃষ্টি-বন্যার মধ্যেই বুধবার খুলছে প্রাথমিক বিদ্যালয়

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ঈদুল আযহা ও গ্রীষ্মকাল মিলিয়ে মোট ২০ দিনের ছুটি কাটিয়ে আগামীকাল বুধবার খুলছে প্রাথমিক স্কুল। স্কুল এমন এক সময়ে খুলছে যখন সারা দেশে মুষলধারে বৃষ্টি এবং সিলেটে বন্যা হচ্ছে। তবে এসব কারণে স্কুল খোলায় কোনো প্রভাব ফেলবে না জানিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

গত ১৩ জুন শুরু হয় চলতি বছরের ঈদুল আযহা ও গ্রীষ্মকালীন ছুটি। শিক্ষাপঞ্জি হিসেবে আজ ২ জুলাই পর্যন্ত বন্ধ থাকবে প্রাথমিক বিদ্যালয়। আগামীকাল ৩ জুলাই যথারীতি শুরু ক্লাস শুরু হবে।

শিখন ঘাটতি পোষাতে মাধ্যমিকে ঘোষিত ছুটি এক সপ্তাহ কমিয়ে গত ২৬ জুন থেকে খুলে দেওয়া হয়েছে স্কুল কলেজ। তবে প্রাথমিকে পূর্বঘোষিত ছুটি বহাল রাখা হয়।

প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান তুহিন বলেন, ঈদ ও গ্রীষ্মকালীন ২০ দিনের ছুটি শেষে আগামীকাল প্রাথমিক বিদ্যালয় খুলছে। বন্যা ও অতি বৃষ্টির কারণে স্কুলের ছুটি বাড়ানোর কোনো সিদ্ধান্ত নেই।

এর আগে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, মন্ত্রণালয়ের অধীন নিম্নমাধ্যমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এবারের গ্রীষ্মের ছুটি কমানো হয়েছে। ২ জুলাই পর্যন্ত এই ছুটি থাকার কথা ছিল। এখন নতুন সিদ্ধান্ত হলো, বুধবার (২৬ জুন) থেকে খুলে দেওয়া হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। তবে শুক্রবারের পাশাপাশি শনিবারও সাপ্তাহিক ছুটি থাকবে।

ছুটি সংক্ষিপ্ত করার কারণ হিসেবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুক্তি হলো, পাঠদানের কর্মদিবস বছরব্যাপী কমেছে। এ ছাড়া শনিবারের বন্ধ পুনর্বহাল রাখার কারণে কর্মদিবস কমে যাবে। তাই গ্রীষ্মের ছুটি কমানো হয়েছে।


আরও খবর
যে কারণে চাকরি ছাড়লেন জাবি শিক্ষক

বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪




সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত কারফিউ শিথিল

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আজও সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত শিথিল থাকবে কারফিউ। ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর ও নরসিংদী বাদে বাকি ৬০ জেলায় কারফিউ শিথিলের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে স্থানীয় প্রশাসনকে।

কোটা সংস্কার আন্দোলনকে কেন্দ্র করে দেশে সহিংসতা শুরু হয়। এ অবস্থায় দেশের সার্বিক পরিস্থিতি অবনতির দিকে যাওয়ায়, শুক্রবার রাতে জারি করা হয় কারফিউ। বেসামরিক প্রশাসনকে সহায়তায় সেদিন মধ্যরাতে মাঠে নামে সেনবাহিনী।

এতে রোববার থেকে সব ধরনের অফিস ও গার্মেন্টস বন্ধ ঘোষণা করে জারি করা হয় সাধারণ ছুটি। ছুটির পর বুধবার থেকে খুলছে সরকারি বেসরকারি সব অফিস। তবে, সকাল ৯ টার পরিবর্তে অফিস শুরু হবে সকাল ১১ টা থেকে এবং বিকেল ৫ টার পরিবর্তে অফিস চলবে বিকেল ৩ টা পর্যন্ত।

কারফিউ শিথিলের সময় সারাদেশে দোকানপাট ও শপিংমল খোলা। চলবে তৈরি পোশাক শিল্প কারখানার কাজ।

এদিকে, কারফিউ শিথিল সময়ে মহাসড়কে চলবে দূরপাল্লার যানবাহন। সকাল থেকে রাজধানীতে আসা-যাওয়া করছে পণ্যবাহী ট্রাক, পিকআপ ও যাত্রীবাহী বাস। সড়কে নিরাপত্তা নিশ্চিতে সতর্ক অবস্থানে আছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী।


আরও খবর



নাটোরে জেলা বিএনপির আহ্বায়ককে কুপিয়ে জখম, আহত ৭

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

নাটোরে জেলা বিএনপির আহ্বায়ক শহিদুল ইসলাম বাচ্চুকে কুপিয়ে জখম করেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে আয়োজিত সমাবেশে যোগ দিতে আসা জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের আরও ৫ নেতাকে আহত করা হয়। বুধবার (৩ জুলাই) সকাল ৯টার দিকে শহরের আলাইপুরে সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

এদিকে সমাবেশের প্রধান অতিথি বিএনপির নির্বাহী কমিটির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে আহত করা হয়েছে বলে দাবি করেন জেলা বিএনপির সদস্য সচিব রহিম নেওয়াজ।

অপর আহতরা হলেন, জেলা শ্রমিকদলের দপ্তর সম্পাদক রফিক, পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক চপল, পৌর বিএনপির ৫ নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক হিপলু।

জেলা বিএনপির সদস্য সচিব রহিম নেওয়াজ বলেন, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে নাটোরে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে আয়োজিত সমাবেশে আগত নেতাকর্মীদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক শহিদুল ইসলাম বাচ্চুকে নৃশংসভাবে হাত এবং পায়ে কুপিয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাকে রাজশাহী মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বিএনপি নেতা ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকেও আহত করেছে সন্ত্রাসীরা। সমাবেশে যোগ দিতে আসা অসংখ্য নেতাকর্মীকে শহরের বিভিন্ন জায়গায় ব্যারিকেড দিয়ে পিটিয়ে আহত করা হয়েছে।

রহিম নেওয়াজ বলেন, যারা হামলা করছে তারা চিহ্নিত। একের পর এক হামলার পরেও কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় সন্ত্রাসীরা নতুন করে হামলা করার সাহস পাচ্ছে। এ সময় পুলিশ নির্লিপ্ত থাকারও অভিযোগ করেন জেলা বিএনপির জ্যেষ্ঠ এই নেতা।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার তারিকুল ইসলাম বলেন, বিএনপির পূর্বনির্ধারিত একটি কর্মসূচি ছিল। কর্মসূচিতে যোগ দিতে আসার পথে বিএনপি নেতা শহীদুল ইসলাম বাচ্চুসহ ৩ জনের ওপর হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। জেনেছি তাকে রাজশাহীতে পাঠানো হয়েছে। কারা হামলা চালিয়েছে তা উদঘাটনের জন্য পুলিশ কাজ করছে। তবে বিএনপি নেতা মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের আহতের বিষয়টি জানা নেই।


আরও খবর