আজঃ বুধবার ১৯ জুন ২০২৪
শিরোনাম
হাওরাঞ্চলের আতঙ্ক বজ্রপাত

বেশি করে বজ্র নিরোধক দণ্ড স্থাপনের দাবী স্থানীয়দের

প্রকাশিত:শনিবার ২০ মে ২০23 | হালনাগাদ:শনিবার ২০ মে ২০23 | অনলাইন সংস্করণ
Image

ধর্মপাশা (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি:

হাওরাঞ্চলে আতঙ্কের আরেক নাম বজ্রপাত। হাওর অধ্যুষিত ধর্মপাশা ও নবগঠিত মধ্যনগর উপজেলায় বৈশাখ থেকে শ্রাবণ মাসে ঝড়-বৃষ্টির সাথে আকাশ থেকে পড়া বজ্রপাতে প্রাণ হারায় হাওরের কৃষক, জেলে ও গৃহপালিত পশু।

বজ্রপাতকে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ঘোষণার পর বজ্র নিরোধক দণ্ড স্থাপন করার প্রকল্প হাতে নেয় সরকার। তবে গত বছর ধর্মপাশা ও মধ্যনগরের ১০ উপজেলার মধ্যে মাত্র তিন ইউনিয়নে তিনটি বজ্র নিরোধক দন্ড স্থাপন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন>> চাঁদাবাজির লাইসেন্স দিয়েছে ঘাটাইল পৌরসভা

উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, বালিজুরি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আঃ রশিদ মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় ও দৌলতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এই বজ্র নিরোধক দণ্ড স্থাপন করা হয়েছে যা হাওর অধ্যুষিত এ দুই উপজেলার জন্য  একেবারেই অপ্রতুল। হাওরের কৃষক ও জেলেদের স্বার্থে বেশি করে বজ্র নিরোধক দণ্ড স্থাপনের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

জানা যায়, বছরের এই সময় থেকে হাওর এলাকায় শুরু হয় ঝড়-বৃষ্টির সঙ্গে বজ্রপাত। চলে মে-জুন মাস পর্যন্ত। এই কয়েকমাস সুনামগঞ্জের হাওর এলাকায়, বজ্রপাতে স্বজন হারানোদের আহাজারিতে ভারি হয়ে ওঠে চারপাশ। হাওরে কাজ করার সময় বজ্রপাত শুরু হলে দিশেহারা হয়ে পড়েন কৃষক-জেলে।

বালিজুরি গ্রামের শাহজাদুল ইসলাম  বলেন, আমাদের এলাকায় বজ্র নিরোধ করতে একটি টাওয়ার দেওয়া হয়েছে। এতে কিছু মানুষ নিরাপদ থাকলেও পুরো হাওর অরক্ষিত। আমি মনে করি হাওরে বজ্র নিরোধের টাওয়ার বসালে জেলেরা নিরাপদে মাছ ধরতে পারত। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি এ বিষয়টি নজরে আনার জন্য।

বৃদ্ধ আঃ রহিম বলেন, আমরা যখন ছোট ছিলাম টাডা (বজ্রপাত) পইরা ওহনের মত অত মানুষ মরতে দেখছি না। ওহন টাডা পড়লেই হুনি(শুনি) মানুষ মরছে।

আরও পড়ুন>> গাজীপুরে আগুনে পুড়ল ১১ ঝুটগুদাম

কলেজ শিক্ষার্থী রবিন বলেন, আকাশে বিদ্যুৎ চমকাতে দেখলেই ভিতরে ভয় জাগে। আমরা হয়তো বিদ্যুত চমকাতে দেখলেই নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যাই। কিন্তু যারা হাওরে মাছ ধরতে যায় তাদের নিয়ে খুব চিন্তা। ওদের কথা ভেবে সরকারের উচিত হাওরে নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্র স্থাপন করা।

বজ্র নিরোধক দণ্ড স্থাপন প্রকল্পের প্রকৌশলী সালাউদ্দিন বললেন, হাওরের দিন দিন বেড়েই চলেছে বজ্রপাতে মৃতের সংখ্যা। তাই সুনামগঞ্জে গত বছর জেলার ৬ টি উপজেলায় আমরা ২৪টি লাইটেনিং এরেস্টার স্থাপন করেছি। ৬ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত প্রতিটি  দণ্ড এর ৩শ ফুট এরিয়ার মধ্যে কোনো বজ্রপাত হলে তা টেনে মাটিতে পাঠিয়ে দেবে। একই সঙ্গে ওই স্থানে মোট কতটি বজ্রপাত হয়েছে তা গণনা করে রাখবে। মানুষের পাশাপাশি গরু-ছাগলের প্রাণও বাঁচবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শীতেশ চন্দ্র সরকার বলেন, হাওর এলাকা হওয়ায় এখানে বজ্রপাতে প্রাণহানি বেশি হয়। বজ্রনিরোধক দণ্ড স্থাপন একটি ব্যায়বহুল ব্যাপার। তাছাড়া এই দণ্ড মাত্র ৩০০ ফুট জায়গার নিরাপত্তা দিচ্ছে। এটির পরিধি কিভাবে বাড়ানো যায় সে ব্যাপারে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে আনার চেষ্টা করব। পাশাপাশি আমরা বেশি বেশি তালগাছ রোপন করতে পারি। এছাড়া এ ব্যাপারে সবাইকে আরো বেশি সচেতন হতে হবে।


আরও খবর



মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পেলেন ৫০৪ বীরাঙ্গনা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) সুপারিশে ৫০৪ জন বীরাঙ্গনাকে নারী মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) জাতীয় সংসদে বাজেট অধিবেশনে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য শামীম শাহনেওয়াজের লিখিত প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ তথ্য জানান। এসময় সংসদে সভাপতিত্ব করেন স্পিকার শিরীন শারমিন।

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক বলেন, যুদ্ধকালীন মুক্তিযুদ্ধের সহায়তাকারী সব নারীকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার কার্যক্রম চলমান আছে। জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের সুপারিশের আলোকে এরই মধ্যে ৫০৪ জন বীরাঙ্গনাকে নারী মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। তাদের নাম গেজেটে প্রকাশিত হয়েছে।

সরকার দলীয় সংসদ সদস্য সৈয়দা জাকিয়া নূরের প্রশ্নের জবাবে আ ক ম মোজাম্মেল হক জানান, বীর মুক্তিযোদ্ধা যাদের নাম এমআইএস এবং সমন্বিত তালিকায় রয়েছে, তাদের অনুকূলে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে এক লাখ ৯৩ হাজার ৭৮০টি ডিজিটাল সনদ এবং জীবিত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য এক লাখ ৮০৫টি স্মার্ট আইডি কার্ড বিতরণ করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, তাদের মধ্যে প্রবাসে অবস্থানকারী বীর মুক্তিযোদ্ধাও রয়েছেন। তবে এমআইএস ও সমন্বিত তালিকায় যেসব বীর মুক্তিযোদ্ধার নাম রয়েছে, কিন্তু অদ্যাবধি ডিজিটাল সনদ ও স্মার্ট আইডি কার্ড পাননি, তাদের অনুকূলে ডিজিটাল সনদ, স্মার্ট আইডি কার্ড প্রস্তুত ও প্রদানের কার্যক্রম চলমান আছে।


আরও খবর
আজ ভয়াল ২৫ মার্চ, গণহত্যা দিবস

সোমবার ২৫ মার্চ ২০২৪




বাড্ডায় গ্যাস লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ, নিহত ১

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ঢামেক প্রতিবেদক

Image

রাজধানীর বাড্ডা এলাকার একটি ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এতে একজন নিহত হয়েছেন। প্রাথমিকভাবে ওই ব্যক্তির নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও একজন।

বৃহস্পতিবার (৩০ মে) ভোরের দিকে বিস্ফোরণ ঘটে বাড্ডা ডিআইটি রোডের তিনতলা একটি ভবনের নিচতলায়। ঘটনার পরপরই বারিধারা ফায়ার স্টেশনের দুটি ইউনিট গিয়ে উদ্ধার অভিযান চালায়।

ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার (সদর) তালহা বিন জসিম জানান, প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে গ্যাস সিলিন্ডার লিকেজ থেকে এই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনায় একজন পুরুষ নিহত হয়েছেন ও একজন আহত হয়েছেন।

প্রাথমিকভাবে নিহত ব্যক্তির নাম পরিচয় জানা যায়নি। তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত ঘটনার বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না।

নিউজ ট্যাগ: গ্যাস লিকেজ

আরও খবর



টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় কৃষি কর্মকর্তাসহ নিহত ২

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

Image

টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে পিকআপ ভ্যান-মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাসহ দুইজন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরও একজন।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ আঞ্চলিক মহাসড়েকের উপজেলার কদমতলি নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার দিগড় ইউনিয়নের গারট্র গ্রামের জাকির হোসেনের ছেলে আলমগীর হোসেন ও একই ইউনিয়নের কাশতলা গ্রামের জুয়েল রানা। জুয়েল গোপালপুর উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

পুলিশ জানায়, আজ সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে মোটরসাইকেলের তিন আরোহী কদমতলি থেকে ঘাটাইলের দিকে যাচ্ছিল। এসময় মধুপুর থেকে ছেড়ে আসা পিকআপ ভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে মোটরসাইকেলে থাকা তিনজন সড়কের পাশে ছিটকে পড়ে গুরুতর আহত হয়। পরে আহতাবস্থায় আলমগীরকে ঘাটাইল ও জুয়েলকে কালিহাতী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষনা করেন। আহত একজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়েছে।

ঘাটাইল থানার ওসি আব্দুস ছালাম মিয়া জানান, লাশ হাসপাতালে রয়েছে। চালককে আটক করা হয়েছে। পিকআপ ভ্যানটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান তিনি।


আরও খবর



যুক্তরাজ্যে ২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসেই ‘তাপপ্রবাহের’ সতর্কতা!

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

মঙ্গলবার (১৮ জুন) সকালে এই প্রতিবেদন লেখার সময় ঢাকার তাপমাত্রা দেখাচ্ছিল ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এটি নিঃসন্দেহে উষ্ণ আবহাওয়া হলেও গত এপ্রিল-মে মাসের তাপপ্রবাহের তুলনায় যেন কিছুই না। ওই সময় দেশের বিভিন্ন অংশ নিয়মিত ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপর তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল। খোদ রাজধানীতেও ৩৭-৩৮ ডিগ্রি ছিল রোজকার তাপমাত্রা।

সেই অভাবনীয় তাপ সহ্য করা মানুষদের সামনে যদি বলা হয়, ২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস মানে ভয়ানক গরম, তাহলে হাসি তো আসতেই পারে! কারণ এ দেশে অনেকের এয়ারকন্ডিশনের (এসি) তাপমাত্রাই থাকে ২৪-২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অথচ, যুক্তরাজ্যে তার থেকে মাত্র এক ডিগ্রি বেশি তাপমাত্রাকে বলা হচ্ছে ভয়ংকর তাপপ্রবাহ!

গত সপ্তাহে আবহাওয়া সংক্রান্ত এক প্রতিবেদনে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য মিররের শিরোনাম ছিল, ইউকে ওয়েদার: ফোরটি এইট আওয়ার টোয়েন্টি সিক্স ডিগ্রি সেলসিয়াস হিটওয়েভ টু হিট অ্যান্ড ফাইভ ইংলিশ সিটিস উইল বি দ্য হটেস্ট। অর্থাৎ যুক্তরাজ্যে ৪৮ ঘণ্টাব্যাপী ২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের তাপপ্রবাহ আঘাত হানবে এবং ইংল্যান্ডের পাঁচটি শহর থাকবে সবচেয়ে উষ্ণ।

খবরে বলা হয়, জুন মাসের শেষের দিকে যুক্তরাজ্যে একটি তাপপ্রবাহের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। ওই সময় তাপমাত্রা ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের দিকে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

যুক্তরাজ্যের আবহাওয়ার এই পূর্বাভাস সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন অনেকেই, বিশেষ করে ভারতীয় উপমহাদেশের মানুষজন। সেখানে উঠে এসেছে মজার মজার সব মন্তব্য।

একজন লিখেছেন, ভারতে এটি (২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস) এসির তাপমাত্রা। আরেকজন বলেছেন, আমার এসির তাপমাত্রা এখন যুক্তরাজ্যের তাপপ্রবাহের স্তরে রয়েছে। তৃতীয় এক ব্যক্তি লিখেছেন, কারও তাপপ্রবাহ, কারও ঘরের তাপমাত্রা।

দুই অঞ্চলের আবহাওয়ার এমন পার্থক্যের কারণও ব্যাখ্যা করেছেন কেউ কেউ। যুক্তরাজ্যের শীতপ্রধান আবহাওয়ার কথা উল্লেখ করে এক ব্যক্তি লিখেছেন, সেখানে ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে আরামদায়ক উষ্ণতা অনুভূত হবে, কিন্তু ভারতে প্রচণ্ড ঠান্ডা মনে হতে পারে। একইভাবে, ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ভারতে যেমন আনন্দদায়ক, তা যুক্তরাজ্যে একেবারেই অসহনীয়।


আরও খবর



নিরাপত্তা বিশ্লেষক আব্দুর রশীদ মারা গেছেন

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

নিরাপত্তা বিশ্লেষক অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল আব্দুর রশীদ মারা গেছেন। শুক্রবার (১৪ জুন) ভোর ৫টা ৩০ মিনিটে ঢাকা সেনানিবাসের সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিল ৭০ বছর।

শুক্রবার বাদ জুমা মিরপুর ডিওএইচএস কেন্দ্রীয় মসজিদে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হবে এবং আর্মি কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হবে।

পরিবারের সদস্যরা জানান, গত দুমাস ধরে সিএমএইচে চিকিৎসাধীন ছিলেন মেজর জেনারেল আব্দুর রশীদ। এর আগে তিনি চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর যান। সেখান থেকে দেশে ফেরার পর তার স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটলে সিএমএইচে ভর্তি করা হয়।

সেনাবাহিনীতে চাকরির সময় অতি মেধাবী অফিসার হিসেবে পরিচিত মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুর রশীদ। বিভিন্ন টকশোতে একজন স্পষ্টভাষী ও নির্ভীক বক্তা হিসেবে অংশ নেন এবং তার লেখা কলাম বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় নিয়মিত প্রকাশিত হয়।


আরও খবর