আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

বেঁচে গেলেন প্রোটিয়া কোচ বাউচার

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৩৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সতীর্থের আনা অভিযোগের পর দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক ও বর্তমান হেড কোচ মার্ক বাউচারের বিরুদ্ধে গত ফেব্রুয়ারিতে বর্ণবৈষম্যের তদন্ত শুরু হয়। প্রায় তিন মাস পর সেই অভিযোগ থেকে মুক্তি মিললো তার। বর্ণবৈষম্যের অভিযোগ তোলা দুজন প্রত্যক্ষদর্শী শুনানিতে সাক্ষ্য দিতে অস্বীকৃতি জানানোয় বাউচারের রেহাই মিলেছে। ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকা তার বিরুদ্ধে তোলা ডিসিপ্লিনারি চার্জ তুলে নিয়েছে।

গত বছর বাউচারের বিরুদ্ধে বর্ণবৈষম্যের অভিযোগ আনেন দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক ক্রিকেটার পল অ্যাডামস। ১৯৯৫ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত প্রোটিয়াদের দলে খেলেন তিনি। দলের উইকেটরক্ষক ছিলেন বাউচার। সেই সময় বাউচার তাকে বর্ণবিদ্বেষী মন্তব্য করেছিলেন বলে অভিযোগ তোলেন অ্যাডামস। তার কথায় সমর্থন দেন সহকারী কোচ এনোচ এনকই। বাউচার দোষ স্বীকার করে নিয়ে ক্ষমা চাইলেও তার বিরুদ্ধে তদন্ত কমিশন গঠন করে দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট। বাউচারের আইনজীবীদের দল সেখানে আবেদন করে শুনানি পিছিয়ে দেওয়ার জন্য।

প্রথমে দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট জানিয়েছিল ৭ থেকে ১১ মার্চের মধ্যে শুনানি হবে। কিন্তু আইনজীবীরা আবেদনে জানান, ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজ রয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার। পরে ১৮ মার্চ থেকে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সিরিজ শুরু হবে। এই সময়ের মধ্যে শুনানি না করার আবেদন করেন তারা।

সেই আবেদন মেনে নেন তদন্তকারী দলের প্রধান টেরি মোটাউ। তিনি একটি বিবৃতিতে জানান, বাউচারের আইনজীবীরা যে আবেদন করেছেন তা মেনে নেওয়া হয়েছে। দলের ক্ষতি হোক এমন কোনও পদক্ষেপ করা হবে না। মে মাসে এই মামলার শুনানি হতে পারে।

সেই অনুযায়ী চলতি মে মাসে শুনানির কথা ছিল। কিন্তু শুনানির আগেই নিজেদের অভিযোগ তুলে নিয়েছেন দুই প্রত্যক্ষদর্শী। ফলে নির্দোষ প্রমাণিত হয়েছেন বাউচার। হাঁফ ছেড়ে বাঁচা প্রোটিয়া হেড কোচ বলেন, গত কয়েক মাস আমার ও পরিবারের জন্য সত্যিই খুব কঠিন সময় ছিল। শেষ পর্যন্ত এটা শেষ হয়েছে ভেবে ভালো লাগছে। আমার বিরুদ্ধে তোলা অভিযোগ যে ধোপে টেকার নয়, মেনে নিয়েছে ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকা আমি এখন আমার কাজে পূর্ণ মনোযোগ দিতে পারব।

নিউজ ট্যাগ: মার্ক বাউচার

আরও খবর



কুষ্টিয়ায় ছেলের হাতে বাবা খুন

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কুষ্টিয়ায় পারিবারিক কলহের জেরে ছেলের হাতে বাবা খুনের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার (২০ মে) সকাল ৬টার দিকে কুষ্টিয়া পৌরসভার ১০নং ওয়ার্ডের চর মিলপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত বাবু হোসেন (৪২) কুষ্টিয়া শহরের চর মিলপাড়া এলাকার মকবুল হোসেনের ছেলে। তিনি ঢাকায় ফেরি করে খেলনা বিক্রি করতেন। ঢাকা থেকে দুদিন আগে বাড়িতে এসেছিলেন। অভিযুক্ত রমিজ হোসেন (১৮) নিহত বাবুর দ্বিতীয় ছেলে। তিনি দড়ির মিলে কাজ করেন।

কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাব্বিরুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ জানায়, দুদিন ধরে পারিবারিক বিষয় নিয়ে বাবু ও তার ছেলে রমিজের মধ্যে ঝগড়া চলছিল। শুক্রবার সকালে দুজনের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে রমিজ বাঁশ দিয়ে আঘাত করলে বাবু গুরুতর আহত হন। তাকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় কুষ্টিয়া হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের স্বজনরা জানান, নিহত বাবু দুদিন আগে বাড়ি আসেন। বাড়িতে এসে টাকা নিয়ে ছেলের ঝগড়া চলছিল। সকালে রমিজ বাঁশ দিয়ে আঘাত করলে বাবুর মৃত্যু হয়।

নিহত বাবুর স্ত্রী বলেন, বাবার সঙ্গে টাকা নিয়ে ছেলের ঝগড়া হয়। ঝগড়ার জেরে বাঁশ দিয়ে মাথায় আঘাত করে রমিজ। এতে আমার স্বামীর মৃত্যু হয়েছে।

কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাব্বিরুল আলম বলেন, পারিবারিক ঝগড়াকে কেন্দ্র এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। তবে এ ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি।


আরও খবর



পরীমনির মামলায় নাসিরসহ তিনজনের বিচার শুরু

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৩৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকার বোট ক্লাবে পরীমনিকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে করা মামলায় ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদ ও তুহিন সিদ্দিকী অমিসহ তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত। এর মধ্য দিয়ে এ মামলার আনুষ্ঠানিক বিচার শুরু হলো।

আজ বুধবার (১৮ মে) ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৯-এর বিচারক হেমায়েত উদ্দিনের আদালত আসামিদের অব্যাহতির আবেদন খারিজ করে এ আদেশ দেন। 

এর আগে গত ১৯ এপ্রিল নাসির ও অমির পক্ষে তাদের আইনজীবী এ মামলার দায় থেকে অব্যাহতি চেয়ে আবেদন করেন।

অন্যদিকে বাদীপক্ষ অব্যাহতির আবেদনের বিরোধিতা করেন। এছাড়া রাষ্ট্রপক্ষ অভিযোগ গঠনের পক্ষে শুনানি করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত এ বিষয়ে আদেশের জন্য ১৮ মে দিন ধার্য করেন

গত বছরের ১৪ জুন ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে নাসির উদ্দিন ও তার বন্ধু অমির নাম উল্লেখ করে এবং আরো চারজনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করে পরীমনি ঢাকার সাভার থানায় মামলা করেন। তদন্ত শেষে ২০২১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কামাল হোসেন আদালতে নাসিরসহ তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। অপর দুই আসামি হলেন- তুহিন সিদ্দিকী অমি ও শহীদুল আলম। এরপর গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৯-এর বিচারক হেমায়েত উদ্দিন এ মামলার অভিযোগপত্র গ্রহণ করেন।


আরও খবর



এক গ্রামেই বিক্রি হবে ১০ কোটি টাকার লিচু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৪০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মিষ্টি, স্বাদ ও সুঘ্রাণের জন্য কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ার মঙ্গলবাড়িয়ার লিচুর খ্যাতি আজ দেশজুড়ে। ভরা মৌসুমে ক্রেতা-বিক্রেতার পদচারণায় মুখর এ গ্রামের লিচু বাগানগুলো। এবার গ্রামটির চাষিরা ১০ কোটি টাকার বেশি লিচু বিক্রির আশা করছেন।  জেলা সদর থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরে পাকুন্দিয়া উপজেলা মঙ্গলবাড়িয়া গ্রামের অবস্থান। গ্রামের প্রবেশপথেই দেখা মিলবে রাস্তার দুপাশে সারি সারি লিচু গাছ। হাজার হাজার লিচু থোকায় থোকায় ঝুলছে গাছগুলোতে। লাল টকটকে লিচু দেখলে যে কারও খেতে লোভ জাগবে। লিচু চাষ করেই দেশখ্যাত মঙ্গলবাড়িয়া গ্রাম, স্বাবলম্বী এখানকার চাষিরা।

মঙ্গলবাড়িয়ার লিচুর জাত ও উৎপাদন বিষয়ে স্থানীয়রা জানান, ঠিক কত বছর আগে এবং কীভাবে এ গ্রামে লিচুর চাষ শুরু হয়, তার সঠিক কোনও তথ্য নেই। তবে প্রবীণদের ধারণা, প্রায় ২০০ বছর আগে গ্রামের মো. হাশিম মুন্সী চীন থেকে চারা এনে তার বাড়ির আঙিনায় রোপণ করেন। তারপর থেকেই এ লিচুর জাত পুরো গ্রামে ছড়িয়ে পড়ে। পরে গ্রামের নামেই এ জাতের লিচুর নামকরণ হয়। আর এখন এই লিচুর জন্যই বিখ্যাত হয়ে উঠেছে মঙ্গলবাড়িয়া গ্রাম।

এদিকে মধু মাসে শুরু হয়েছে এখানকার লিচু আহরণের কাজ। আরও বেশ কিছু দিন ধরে চলবে লিচুর বেচাকেনা। প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসছে শত শত পাইকার ও খুচরা ক্রেতারা। প্রতি ১০০ লিচু বিক্রি হয়ে তিন থেকে চারশ টাকায়। শুধু দেশ নয়, প্রবাসীরা এ লিচুর স্বাদ নিচ্ছেন বহু বছর ধরে। আবার লিচুর এমন সময়ে মঙ্গলবাড়িয়া গ্রামের বাড়িগুলোতেও ভিড় করেন আত্মীয়-স্বজনরা। 

হোসেনপুর থেকে লিচু কিনতে আসা হাসান মাহমুদ বলেন, এ সময়ে আমি প্রতিবারই এখানে পরিবার নিয়ে বেড়াতে আসি। বাগানের টসটসে ও সুস্বাদু লিচু খেতে বাচ্চাদের একটা আবদার থাকে। এখানকার লিচুর স্বাদ একবার যে পাবে, তাকে বারবার আসতেই হবে। তাছাড়া স্বাদ আর দামেরও একটা ভালো বোঝাপড়া রয়েছে।  লিচু চাষি শামীম মিয়া বলেন, বংশানুক্রমে বছরের পর বছর এখানকার বেশিরভাগ মানুষ লিচু চাষের সঙ্গে যুক্ত। আমরাও বছরের পর বছর এখানকার লিচু চাষের ওপর নির্ভরশীল। এখানকার লিচু খেতেও সুস্বাদু, ঘ্রাণও সুন্দর এবং দেখতেও ভালো। প্রতি বছরই লিচু চাষ করে লাভের মুখ দেখেছি। লিচুর আয় থেকেই আমাদের ভোরণ-পোষণ ও সন্তানদের লেখাপড়ার খরচ চলে।  লিচু চাষি করিম বলেন, মঙ্গলবাড়িয়ায় ছোট-বড় মিলে প্রায় ২০০ বাগান রয়েছে। এসব বাগান থেকে প্রায় ১০ কোটি টাকার লিচু বিক্রির আশা করা হচ্ছে।

স্থানীয় লিচু চাষি তৌহিদ মিয়া বলেন, মঙ্গলবাড়িয়ার লিচু অনেক সুস্বাদু। বিভিন্ন জেলার মানুষ এখানে লিচু কেনার জন্য আসেন। ৪০ বছরের বেশি সময় ধরে এ এলাকায় লিচুর চাষ ও বিক্রি চলছে। এ বছর আমার দুইশ লিচুর গাছ রয়েছে। এখন পর্যন্ত প্রায় তিন লাখ টাকার লিচু বিক্রি করেছি। আশা করছি সবকিছু ঠিক থাকলে ১০-১২ লাখ টাকার লিচু বিক্রি করতে পারবো।

জেলা ‍কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবাড়িয়া গ্রামের লিচুর জাত খুবই ভালো। এ লিচু আমাদের দেশের একটি বড় সম্পদ। উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্র থেকে কয়েক বছর ধরেই এ লিচু চাষ নিয়ে কৃষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। ফলন ভালো হওয়ায় এবার গ্রাম থেকে ১০ কোটি টাকার উপরে লিচু বিক্রির সম্ভাবনা রয়েছে। আগামী বছর পুরো জেলায় এ জাতের লিচু চাষের উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।


আরও খবর



প্রয়োজনের তুলনায় কম খাবার কিনছেন ৪০ শতাংশ ব্রিটিশ

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | ৩৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মহামারীর শুরু থেকেই চলছে সরবরাহ ব্যবস্থায় প্রতিবন্ধকতা। ইউক্রেন সংকট এ প্রতিবন্ধকতাকে ব্যাপকভাবে বাড়িয়ে তুলেছে। ফলে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে বিভিন্ন পণ্যের দাম। রেকর্ড পর্যায়ে উন্নীত হয়েছে খাদ্য মূল্যস্ফীতি। ফলে যুক্তরাজ্যে সস্তা খাবারের স্বর্ণযুগ শেষ হয়ে গিয়েছে বলে সতর্ক করা হয়েছে। সম্প্রতি প্রকাশিত সরকারি পরিসংখ্যানেও উচ্চ জীবনযাত্রা ব্যয়ের সংকটের ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছে। এ অবস্থায় নতুন একটি সমীক্ষায় উঠে এসেছে, প্রতি পাঁচজনের মধ্যে দুজন ব্রিটিশ নাগরিক প্রয়োজনের তুলনায় কম খাবার কিনছেন।

যুক্তরাজ্যের দ্বিতীয় বৃহত্তম সুপারমার্কেট চেইন সেন্সবারিস পিএলসির সাবেক প্রধান জাস্টিন কিং বলেন, ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সৃষ্ট আর্থিক ধাক্কা পণ্যের দাম উল্লেখযোগ্য হারে বাড়িয়ে তুলেছে। এজন্য ক্রেতারা এখন কীভাবে তাদের অর্থ ব্যয় করবেন তা নিয়ে কঠিন সিদ্ধান্তের মুখোমুখি হয়েছেন। আমরা সম্ভবত সস্তা খাবারের স্বর্ণযুগের মধ্য দিয়ে চলেছি। কিন্তু এখন পরিস্থিতি পাল্টেছে। লোকেরা তাদের পারিবারিক বাজেটে অগ্রাধিকারগুলো পুনর্বিবেচনা করতে বাধ্য হচ্ছেন। এজন্য আশঙ্কা করছি, দীর্ঘ সময় ধরে পারিবারিক বাজেটের বড় একটি অংশ খাবারের পেছনে ব্যয় করতে দেখব।

অর্থনীতিবিদদের পূর্বাভাস, এপ্রিলের সামগ্রিক মূল্যস্ফীতি ৯ শতাংশে উন্নীত হয়েছে। এ হার দেশটির ইতিহাসে ১৯৮২ সালের পর সর্বোচ্চ। ব্যাংক অব ইংল্যান্ড পূর্বাভাস দিয়েছে, চলতি বছরের শেষ দিকে এ হার ১০ শতাংশ ছাড়িয়ে যাবে।

ব্রিটিশ রিটেইল কনসোর্টিয়ামের (বিআরসি) প্রধান নির্বাহী হেলেন ডিকিনসনও জানিয়েছেন যে ভোক্তারা একটি কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী খাদ্যের দাম রেকর্ড উচ্চতায় রয়েছে। এক্ষেত্রে জ্বালানি, পরিবহন ব্যয় এবং অত্যন্ত কঠিন শ্রমবাজার খাদ্যের দাম বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করেছে।

ক্রমবর্ধমান ব্যয় এরই মধ্যে মানুষের জীবনযাত্রায় বড় ধরনের পরিবর্তন আনতে বাধ্য করছে। সম্প্রতি প্রকাশিত অফিস ফর ন্যাশনাল স্ট্যাটিস্টিকসের (ওএনএস) জনমত ও সামাজিক প্রবণতা সমীক্ষা অনুসারে, প্রতি পাঁচজনের মধ্যে দুজন প্রাপ্তবয়স্ক কম খাবার কিনছেন। চলতি বছরের শুরুতেও এ হার প্রতি পাঁচজনে একজন ছিল।

জরিপে অংশগ্রহণ করা প্রাপ্তবয়স্কদের ১০ জনের মধ্যে নয়জনই ওএনএসকে বলেছেন, চলতি মাসে তাদের ব্যয়ের পরিমাণ গত মাসের তুলনায় বেশি ছিল। এর আগে গত নভেম্বরে যখন তাদের জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, তখন ব্যয় বাড়ার কথা বলা ব্রিটিশদের হার ছিল মাত্র ৬২ শতাংশ। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় উদ্বেগ ছিল খাদ্য ও জ্বালানির দাম নিয়ে। পরিস্থিতি মোকাবেলায় ব্রিটিশরা অপ্রয়োজনীয় ব্যয় কমিয়ে দিয়েছেন, কম জ্বালানি ব্যয় করে ঘর গরম রাখার চেষ্টা করছেন এবং খুব বেশি প্রয়োজন ছাড়া গাড়ি নিয়ে ভ্রমণ এড়িয়ে চলছেন। ৪০ শতাংশ মানুষ আশঙ্কা করছে, আগামী ১২ মাসে তারা কোনো অর্থ সঞ্চয় করতে পারবে না।

ব্রিটিশ আর্থিক পরিষেবা প্রতিষ্ঠান হারগ্রেভস ল্যান্সডাউনের একজন জ্যেষ্ঠ ব্যক্তিগত আর্থিক বিশ্লেষক সরাহ কোলস বলেন, উচ্চ দাম মানুষকে সত্যিই ভয়ঙ্কর আর্থিক সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করছে। খাবার কেনা কমিয়ে দেয়া লোকের সংখ্যা আশঙ্কাজনক পর্যায়ে পৌঁছেছে। এখন আর আশ্চর্যের নয় যে, এটা নিয়ে আমাদের এক-তৃতীয়াংশ মানুষ উদ্বিগ্ন। ওএনএসের জরিপ দেখায় খাদ্য নিয়ে বিপদের ঘণ্টা বাজছে। প্রয়োজনের তুলনায় কম খাবার কেনার অনুপাত ক্রমেই বাড়ছে। এর মধ্যে কিছু মানুষ ক্ষুধার্ত থাকবে। মূল্য বিশ্লেষণকারী প্রতিষ্ঠান অ্যাসোসিয়ার তথ্যে গত মাসে দৈনন্দিন খাবারের দাম লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ার চিত্র উঠে এসেছে। এপ্রিলে পাস্তার দাম ৪৫ শতাংশ, টিনজাত টমেটো ও ডিমের দাম ১৩ শতাংশ এবং কুকুরের খাবারের দাম ৪০ শতাংশেরও বেশি বেড়েছে।

নিউজ ট্যাগ: মূল্যস্ফীতি

আরও খবর



সিরাজগঞ্জে কালবৈশাখী ঝড়ে ১৭ শ্রমিক আহত

প্রকাশিত:শনিবার ৩০ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ৩০ এপ্রিল ২০২২ | ৫০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সিরাজগঞ্জের সদর উপজেলার চকশিয়ালকোল এলাকায় কালবৈশাখী ঝড়ে জিব্রাইল ট্রেডার্স প্লাস্টিক কাটিং এন্ড রিপেয়ারিং ফ্যাক্টরি ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার (২৯ এপ্রিল) রাত দশটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ সময় ফ্যাক্টরির প্রায় ১৭ শ্রমিক আহত হন। এর মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা গুরুতর। আহতরা হলেন মাইনুল ইসলাম জয়নাল, মোহাম্মদ জুয়েল, জুল হোসেন, মাসুদ ও চন্দন কুমার। তাদেরকে বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

এই বিষয়ে ফ্যাক্টরির মালিক জিনহার আলী বলেন, শুক্রবার রাতে কারখানায় কাজ করছিল প্রায় অর্ধশতাধিক শ্রমিক। এসময় হঠাৎ করে কালবৈশাখী ঝড় এলে শ্রমিকরা কারখানার ঘরে অবস্থান নেয়। কিন্তু প্রচণ্ড ঝড়ে ঘরের চাল উড়ে যায়। এ সময় ফ্যাক্টরির প্রায় সতের শ্রমিক আহত হন। এদের মধ্যে পাঁচজন গুরুতর আহত হয়েছে। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়।

এ সময় ফ্যাক্টরির প্রায় দশ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।


আরও খবর