আজঃ শনিবার ২৯ জানুয়ারী ২০২২
শিরোনাম

বাগেরহাটে ট্রাক-মাহিন্দ্রা সংঘর্ষে নিহত ৩

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৯ জানুয়ারী ২০২২ | ৫৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাগেরহাটের ফকিরহাটে কেরাত সম্মেলন শেষে মাদরায় ফেরার পথে ট্রাক ও থ্রিহুইলারের (মাহিন্দ্রা) মুখোমুখি সংঘর্ষে তিন হাফেজ নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও চারজন।

শনিবার (৮ জানুয়ারি) দিনগত রাত দেড়টার দিকে খুলনা-মোংলা মহাসড়কের শ্যামবাগাত মুনস্টার ঝুটমিলের সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- হাফেজ আব্দুল্লাহ, হাফেজ আব্দুল গফুর ও হাফেজ সালাউদ্দিন। তারা সবাই বাগেরহাট সদর উপজেলার হাকিমপুর কওমি মাদরাসার শিক্ষার্থী।

হাকিমপুর মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা আব্দুল মাবুদ বলেন, খুলনা আলিয়া কামিল মাদরাসায় অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক কেরাত সম্মেলন শেষে রাতে খুলনা থেকে মাহিন্দ্রাযোগে ছয় হাফেজ মাদরাসার উদ্দেশ্যে রওনা দেন। ঘন কুয়াশার কারণে পথে বিপরিতগামী ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংর্ঘষ হয়। এতে তিনজন ঘটনাস্থলেই মারা যান আর বাকি চার হাফেজ ও মাহিন্দ্রাচালক আহত হন। তাদের মধ্যে তিনজনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং একজনকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে ।

কাটাখালি হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলী বলেন, দুর্ঘটনার পর পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে কাটাখালী হাইওয়ে থানায় এবং আহতদের উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছি। ঘন কুয়াশার কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। ট্রাকটি পালিয়ে গেছে। আটকের চেষ্টা চলছে।


আরও খবর
সুন্দরবনের খাল থেকে বাঘের মরদেহ উদ্ধার

শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২




৭৩ রানের লিড নিয়েই মাঠ ছেড়েছে বাংলাদেশ

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৩ জানুয়ারী ২০২২ | ৫১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

টেস্ট ক্রিকেটে এমন দিন খুব কমই আসে বাংলাদেশের। বিশেষ করে নিউজিল্যান্ড, ইংল্যান্ডের মত দেশগুলোতে। টেস্টের তৃতীয় দিন শেষ হয়ে গেলো এবং এখনও পর্যন্ত টেস্টের চালকের আসনে বাংলাদেশ- বিষয়টা স্বপ্ন নয়, সত্যি। মাউন্ট মঙ্গানুইয়ের বে ওভালে তৃতীয় দিন শেষে ৭৩ রানের লিড নিয়েই মাঠ ছেড়েছে বাংলাদেশ দল।

দ্বিতীয় দিন সকাল থেকেই বাংলাদেশের আধিপত্য। বোলারদের দাপটে নিউজিল্যান্ড অলআউট ৩২৮ রানে। জবাব দিতে নেমে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে ১৭৫ রান নিয়ে দিন শেষ করে টাইগাররা। হাফ সেঞ্চুরি করে (৬৪ রানে) নাজমুল হোসেন শান্ত আউট হয়ে গেলেও ৭০ রান নিয়ে উইকেটে ছিলেন মাহমুদুল হাসান জয়।

তৃতীয় দিন এসেও অসাধারণ ব্যাটিং করলেন বাংলাদেশের ব্যাটাররা। জয়, মুশফিক, মুমিনুল আর লিটনের উইকেট হারাতে হয়েছে বাংলাদেশকে। এর মধ্যে কেবল মুশফিকই নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি। বাকিরা খেলেছেন বিগ ফিফটির ইনিংস। যদিও সেঞ্চুরি করতে না পারার হতাশা উপহার দিয়েছেন তারা।

দিন শেষে বাংলাদেশের রান ১৫৬ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ৪০১। ২০ রান নিয়ে মেহেদী হাসান মিরাজ এবং ১১ রান নিয়ে ব্যাট করছেন ইয়াসির আলি রাব্বি।

প্রথমে মাহমুদুল হাসান জয়, পরে মুমিনুল হক, সর্বশেষ সেঞ্চুরি মিসের হতাশা উপহার দিলেন লিটন কুমার দাসও। ৮৬ রান করে আউট হয়ে গেলেন লিটন। অসাধারণ খেলতে খেলতেই হঠাৎ করে একটি লুজ শট খেলে ফেললেন লিটন দাস। শরীরের অনেক বাইরের বল খেলতে গিয়ে ব্যাটের কানায় লাগালেন। উইকেটের পেছনে টম ব্লান্ডেল ক্যাচটি তালুবন্দী করলে বিদায় নিতে হয় লিটনকে।

১৭৭ বল খেলেছিলেন বাংলাদেশের এই উইকেরক্ষক ব্যাটার। বাউন্ডারি মারলেন ১০টি। সেঞ্চুরি থেকে ১৪ রান দুরে থাকতে আউট হয়ে গেলেন তিনি। মাহমুদুল হাসান জয় আউট হয়েছেন ৭৮ রানে, মুমিনুল হক আউট হয়েছেন ৮৮ রানে।

এর আগে ৮৮ রানে আউট হয়েছিলেন মুমিনুল হক। ট্রেন্ট বোল্টের একটি বলে পরাস্ত হন তিনি। জোরালো আবেদন কিউই বোলার এবং ফিল্ডারদের। লম্বা আবেদনের সামনে আম্পায়ার বাধ্য হলেন আঙ্গুল তুলে দিতে।

কিন্তু সন্তুষ্ট হতে পারলেন না মুমিনুল। তিনি রিভিউ চেয়ে বসলেন। তাতে দেখা গেলো, বলটি একটু উঁচুতে ছিল বটে। যদিও বল গিয়ে ভেতরের পায়ে আঘাত হানে। পরে ট্র্যাকারে দেখা গেলো বল আঘাত হানতো মিডল স্ট্যাম্পে। আম্পায়ারের সিদ্ধান্তই বহাল রইলো।

দিনের শুরুতে সেঞ্চুরি বঞ্চিত হয়ে আউট হয়েছিলেন ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়। তিনি করেছিলেন ৭৮ রান। সেঞ্চুরির আশা নিয়েই আজ ব্যাট করতে নেমেছিলেন মাহমুদুল হাসান জয়। দ্বিতীয় দিন শেষে তিনি অপরাজিত ছিলেন ৭০ রানে। তার সঙ্গী অধিনায়ক মুমিনুল হক অপরাজিত ছিলেন ৮ রানে। বাংলাদেশের স্কোর ছিল ২ উইকেটে ১৭৫ রান।

তৃতীয় দিন সকালে ব্যাট করতে নামার পর খুব বেশিক্ষণ টিকতে পারলেন না জয়। সেই নেইল ওয়াগনারের বলে ক্যাচ দিয়ে বসলেন হেনরি নিকোলসের হাতে। ওয়াগনারের বল কাট করতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু বলটি ঠিকমত ব্যাটে আসলো না। কাঁধ বরাবর উঠে গিয়েছিল। ব্যাটের কানা ছুঁয়ে বল চলে যায় গালিতে। সেখানে অসাধারণ ক্ষিপ্রতায় হেনরি নিকোলস বলটি তালুবন্দী করে নেন।

আর মাত্র ৮ রান যোগ করে, ব্যক্তিগত ৭৮ রানে আউট হয়ে গেলেন বাংলাদেশের তরুণ ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়। ২২৮ বল খেলে ৭৮ রান করেন তিনি। জয় আউট হতেই মাঠে নামেন মুশফিকুর রহিম। তবে তিনি খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি। ৫৩ বল খেলে ১২ রান করার পর ট্রেন্ট বোল্টের বলে বোল্ড হয়ে গেলেন। জুটিটা হলো মাত্র ১৯ রানের।


আরও খবর
সাড়ে ৩ বছর নিষিদ্ধ ব্রেন্ডন টেলর

শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২




মারা গেছেন অস্কারজয়ী প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ অভিনেতা

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০৮ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামিতে ১৯২৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে জন্ম নেন সিডনি পটিয়ার। বেড়ে ওঠেন বাহামা দ্বীপপুঞ্জে

অস্কারজয়ী প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ অভিনেতা সিডনি পটিয়ার মারা গেছেন। তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৪ বছর। তিনি বহুদিন ধরে বার্ধক্যজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন বলে জানা গেছে। সিডনি পটিয়ার জীবনের শেষ সময়টা কাটান বাহামায়। আর সেখানেই তিনি মারা যান বলে জানিয়েছে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রেড মিচেলের কার্যালয়।

১৯৫৫ সালে ব্যাকবোর্ড জঙ্গল সিনেমায় অভিনয়ের সুযোগ পান। লিলিস অব দ্য ফিল্ড চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য ১৯৬৩ সালে অস্কারে সেরা অভিনেতার পুরস্কার জিতেছিলেন পটিয়ার। এর পাঁচ বছর আগে 'দ্য ডিফিয়েন্ট ওয়ানস' চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ হিসেবে অস্কারে মনোনয়ন পেয়েছিলেন তিনি। ওই বছর বাফটা পান তিনি। সে সময় চলচ্চিত্রে কৃষ্ণাঙ্গদের ভালো কাজের সুযোগ কম থাকলেও অভিনয়ের গুণে পটিয়ার হয়ে উঠেছিলেন তাঁর সময়ের শীর্ষ অভিনেতাদের একজন।

যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামিতে ১৯২৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে জন্ম নেন সিডনি পটিয়ার। বেড়ে ওঠেন বাহামা দ্বীপপুঞ্জে। তাঁর বাবা-মা ছিলেন সাধারণ কৃষক। অল্প বয়সে সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়ে পটিয়ার দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। সেনাবাহিনীর চাকরি ছাড়ার পর তিনি কিছুদিন বাসন পরিষ্কারের কাজ করেন। এর পরই গুণী এই অভিনেতা আমেরিকার থিয়েটার স্কুল অব ড্রামায় ভর্তির সুযোগ পেয়ে যান।

তাঁর অভিনীত অনেক চলচ্চিত্রের মূল উপজীব্য ছিল মার্কিন নাগরিক আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে সামাজিক পরিবর্তন। এই তালিকায় উল্লেখযোগ্য নো ওয়ে আউট (১৯৫০), দ্য ব্ল্যাকবোর্ড জঙ্গল (১৯৫৫), অ্যা রেইজিন ইন দ্য সান (১৯৬১), অ্যা প্যাচ অব ব্লু (১৯৬৫), হিট অব দ্য নাইট (১৯৬৬), টু স্যার, উইথ লাভ (১৯৬৭), গেস হু’স ইজ কামিং টু ডিনার” (১৯৬৭)।

সিডনি পটিয়ারের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন বিনোদনসহ বিভিন্ন অঙ্গনের ব্যক্তিরা। ২০০৯ সালে সিডনি পটিয়ারকে আমেরিকার সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মান মেডেল অব ফ্রিডম’ দেন দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। এক শোকবার্তায় যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেন, ‘সিডনি পটিয়ার তার অভিনয় দিয়ে আমাদের একত্রিত করেছিলেন। একই সঙ্গে তিনি পরবর্তী প্রজন্মের জন্য অভিনয়ের দরজা খুলে দিয়েছিলেন।’

মার্কিন সম্প্রচারক ও সাংবাদিক অপরাহ উইনফ্রেও শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। তিনি বলেন, আমার মাথার ওপর থাকা সবচেয়ে বড় ছায়াটি আজ সরে গেল। তিনি ছিলেন বড় মনের মানুষ। আমার হৃদয়ে তাঁর জায়গা থাকবে চিরকাল।’


আরও খবর
টাকা দিয়ে ভোট কিনছেন জায়েদ খান : নিপুণ

শুক্রবার ২৮ জানুয়ারী ২০২২




ইভ্যালিকে ব্যাংক থেকে ২ কোটি ৩৫ লাখ টাকা তোলার অনুমতি

প্রকাশিত:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | ২৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সিটি ও সাউথ ইস্ট ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট থেকে ইভ্যালিকে ২ কোটি ৩৫ লাখ টাকা তোলার অনুমতি দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ইভ্যালির নামে থাকা ২২টি গাড়ি ভাড়া বা বিক্রি করে দেওয়ারও অনুমতি দিয়েছেন আদালত।

আজ রোববার বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের একক বেঞ্চ এ আদেশ দেন। সেই সঙ্গে ইভ্যালির সম্পদসহ যাবতীয় তথ্য দিতে বাংলাদেশ ব্যাংক ও এনবিআরকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

আদালতে ইভ্যালির বোর্ডের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মোরশেদ আহমেদ খান। রিটের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার সৈয়দ মাহসিব হোসাইন। মাহসিব হোসাইন বলেন, ইভ্যালির প্রধান কার্যালয়ে প্রতিদিন গ্রাহকেরা ভিড় করছে। নিরাপত্তার স্বার্থে সেখানে পুলিশ মোতায়েন করতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এ ছাড়া ইভ্যালির সাবেক চেয়ারম্যান ও এমডি কোথায় কীভাবে টাকা ব্যয় করেছেন তার তালিকা দিতে বাংলাদেশ ব্যাংক ও এনবিআরকে বলা হয়েছে।

গত বছরের ১৮ অক্টোবর ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি পরিচালনায় আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি এইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরীকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের বোর্ড গঠন করে দেন হাইকোর্ট। বোর্ডের অন্য সদস্যরা হলেন- স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন বিভাগের সাবেক সচিব মোহাম্মদ রেজাউল আহসান, তৎকালীন ওএসডিতে থাকা (বর্তমানে অবসরপ্রাপ্ত) অতিরিক্ত সচিব মাহবুব কবীর মিলন, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট ফখরুদ্দিন আহম্মেদ ও ব্যারিস্টার খান মোহাম্মদ শামীম আজিজ।


আরও খবর



‘পায়ের নিচে মাটি নেই তারা আবার সরকার পতনের দিবাস্বপ্ন দেখছে’

প্রকাশিত:শুক্রবার ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ | ৫৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিদায়ী বছরে নির্বাচনে জনগণের কাছ থেকে প্রত্যাখ্যান আর আন্দোলনে চরম ব্যর্থতাই বিএনপির একমাত্র প্রাপ্তি বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার (৩১ জানুয়ারি) সকালে তার বাসভবনে ব্রিফিংকালে এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, কোনো ওয়ার্মআপেই কাজ হবে না, নেতিবাচক এবং হটকারী রাজনীতির কারণে জনগণ বিএনপিকে চিনে ফেলেছে। যাদের পায়ের নিচে থেকে মাটি সরে যাচ্ছে, তারা আবার সরকার পতনের দিবাস্বপ্ন দেখছে। তারা ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা নেয়নি বলেই ঘোলা পানিতে মাছ শিকারে ব্যর্থ।

ওবায়দুল কাদের বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে বলেন, সরকার পতন, আন্দোলন-এসব মুখরোচক শব্দ সৃষ্টি করে কোনো লাভ নেই। গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে ব্যালটের মাধ্যম আর নির্বাচন ছাড়া সরকার পরিবর্তনের কোনো বিকল্প নেই, তাই অলিগলি পথে না হেঁটে নির্বাচনমুখী হন।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে দেশের স্বাধীনতা এসেছে, আওয়ামী লীগই এর সুরক্ষা দিতে পারে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে। বিএনপি এ দেশে ভোটারবিহীন নির্বাচন করে মানুষের ভোটাধিকার হরণ করেছিল, হরণ করেছিল কৃষক শ্রমিকের অধিকার। ভোট না দেওয়ার অভিযোগে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর নির্যাতন চালিয়েছিল, আগুন সন্ত্রাসের মাধ্যমে মানুষের স্বাধীন চলাচলের অধিকার হরণ করেছিল।

ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানুষের অধিকার ফিরিয়ে দিয়েছেন, এগিয়ে নিয়েছেন দেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে। এ জন্যই সরকারের উন্নয়নের রাজনীতিতে বিএনপি ঈর্ষাকাতর। বিএনপি নিজেদের অন্ধকার ভবিষ্যৎ দেখে হতাশায় কাতর। জনগণের সামনে দাঁড়ানোর সাহস এবং বলার মতো কিছুই নেই বিএনপির। তাইতো বিএনপি মিথ্যাচারের সঙ্গী ও অপপ্রচারের বন্ধু হয়েছে এবং জোট বেঁধেছে অপরাজনীতির সঙ্গে।

নিউজ ট্যাগ: ওবায়দুল কাদের

আরও খবর



জাফর ইকবালের অনুরোধে অনশন ভাঙছেন শিক্ষার্থীরা

প্রকাশিত:বুধবার ২৬ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৬ জানুয়ারী ২০২২ | ২৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অনশন ভাঙতে রাজি হয়েছেন। 'আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের দাবি পূরণ হবে' অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবালের এই নিশ্চয়তা দেয়ার প্রেক্ষিতে অনশন ভাঙবেন শিক্ষার্থীরা। হাসপাতালে চিকিৎসারত শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে এলে জাফর ইকবালের উপস্থিতিতে অনশন ভাঙবেন তারা।

জানা যায়, বুধবার ভোরে অধ্যাপক জাফর ইকবাল ও তার স্ত্রী ইয়াসমিন হক আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের দেখতে আসেন।

এ সময় আন্দোলনত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনায় তিনি বলেন, উচ্চ পর্যায়ে তার আলোচনা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে দাবি পূরণের প্রতিশ্রুতি পেয়েছেন। এ কারণেই তিনি ক্যাম্পাসে ছুটে এসেছেন। অনশন না ভাঙিয়ে তিনি যাবেন না। তার অনুরোধে অবশেষে অনশন ভাঙছেন শিক্ষার্থীরা।

 


আরও খবর