আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

আজ পোষা প্রাণী দিবস

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ এপ্রিল ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১১ এপ্রিল ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মানুষ বিভিন্ন প্রাণী পুষতে ভালোবাসেন এবং এসব প্রাণীর কাছাকাছি থাকতে পছন্দ করেন। এভাবে বিভিন্ন প্রাণী ও মানুষের মাঝে এক ধরনের বন্ধন গড়ে ওঠে। পোষা প্রাণীর তালিকায় সাধারণত বিড়াল, কুকুর, পাখি কিংবা মাছ বেশি থাকে। তবে, কেউ কেউ সাপ, কচ্ছপ বা হাতিও পুষে থাকেন।

যাইহোক, যারা বিভিন্ন প্রাণী পছন্দ করেন কিংবা কিংবা পোষেন আজকের দিনটি তাদের জন্য। কারণ আজ পোষা প্রাণী দিবস। মূলত মানুষকে বিভিন্ন প্রাণীর প্রতি আরও বেশি সহানুভূতিশীল করতে এই দিবসটির প্রচলন।

প্রাণীকল্যাণ বিষয়ক আইনজীবী, পোষা প্রাণী ও জীবনযাপন বিশেষজ্ঞ কলিন পেজ ২০০৬ সালে পোষা প্রাণী দিবসটির প্রচলন করেন। তার উদ্দেশ্য ছিল বিভিন্ন প্রাণীদের প্রতি মানুষকে আরও যত্নশীল হতে উদ্বুব্ধ করা। কলিনের প্রচলন করা দিবসটি যুক্তরাষ্ট্রে উদযাপন শুরু হলেও খুব শিগগির তা আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ছড়িয়ে পড়ে। বর্তমানে যুক্তরাজ্য, আয়ারল্যান্ড, ইতালি, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, ইসারায়েল, স্পেন, গুয়াম, স্কটল্যান্ডসহ অনেক দেশে দিবসটি পালন করা হয়।

এমনকি অনেক হলিউড সেলিব্রেটিও এই দিবসটি উদযাপনে এগিয়ে এসেছেন। যেমন- টেইলর সুইফট, এলেন ডি জেনেরেস, রিকি গারভাইস, সি লো গ্রিন, জিমি ফ্যালন, উইলি নেলসন, কেভিন বেকন, সেথ মায়ার্স এবং ক্যারি আন্ডারউড। তারা পোষা প্রাণী দিবসে বিভিন্ন সচেতনতামূলক বার্তা ছড়িয়ে দেন।

আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন, বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় পোষা প্রাণী কোনটি? এই প্রশ্নের উত্তরে বেশিরভাগ মানুষ হয়তো বলবেন- কুকুর, তারপর বিড়াল! কিন্তু এরপর কী হতে পারে? হয়তো মাছ, তারপর পাখি। এর পরে ইঁদুর, কচ্ছপ, খরগোশ, ঘোড়া এবং সাপ ইত্যাদি।


আরও খবর



গাংনীতে ১১ কোটি টাকার চারটি প্রকল্পের উদ্বোধন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আব্দুল আলিম, মেহেরপুর

Image

মেহেরপুরের গাংনীর পৌর সভার ডাম্পিং স্টেশনসহ ১১ কোটি টাকা মুল্যের চারটি প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার মেহেরপুর-২ (গাংনী) আসনের সংসদ সদস্য ডা. এএসএম নাজমুল হক সাগর প্রধান অতিথী হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রকল্প গুলোর উদ্বোধন করেন।

গাংনী পৌর মেয়র আহম্মেদ আলীর সভাপতিত্বে পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন প্রকল্পের আওতায় ডাম্পিং স্টেশন নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে সাত কোটি ৩১ লাখ ৬৫ হাজার টাকা। কাজটির বাস্তবায়নে রয়েছে বিএমডাবলুএসএসপি ডিপিএইচই অ্যান্ড গাংনী পৌরসভা।

অপরদিকে গাংনী পৌরসভা রোড থেকে শিশিরপাড়া রাইস মিল পর্যন্ত রাস্তার উদ্বোধন করা হয়েছে। নগর পরিচালন ও অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় বাস্তবায়নে আইইউজিআইপি, এলপিজইডি, গাংনী পৌর সভার ৯৪৬ মিটার রাস্তার ব্যয় ধরা হয়েছে এক কোটি ২৭ লক্ষ ৩৭ হাজার টাকা, নগর পরিচালন ও অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় গাংনী সন্ধানি স্কুল এ্যান্ড কলেজ থেকে মাইদির মাঠ পর্যন্ত ৯৩৫ মিটার রাস্তা সংস্কার ব্যয় ধরা হয়েছে এক কোটি ৭৪ লক্ষ ২৯ হাজার টাকা, ফতাইপুর রাস্তা ৫২০ মিটার সংস্কার কাজে ব্যয় ধরা হয়েছে ৮৯ লক্ষ ৮৮ হাজার টাকা।

অনুষ্ঠানে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারী জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা কর্মী ও স্থানীয় গণ্যমান্য লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

নিউজ ট্যাগ: মেহেরপুর

আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বিগত বছরে নিহত ৯৯ সাংবাদিকের মধ্যে ৭২ জন গাজা যুদ্ধে নিহত : সিপিজে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্টস (সিপিজে) বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) জানিয়েছে, ২০২৩ সালে নিহত ৯৯ জন সাংবাদিকের মধ্যে ৭২ জন ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধে নিহত হয়েছেন। নিহতের এই সংখ্যা প্রায় এক দশকের মধ্যে গণমাধ্যমের জন্য সবচেয়ে প্রাণঘাতী ছিল।

সোমালিয়া ও ফিলিপাইনে মৃত্যুর সংখ্যা স্থিতিশীল থাকলেও সিপিজে বলছে, গাজা, ইসরায়েল ও লেবাননে নিহতের সংখ্যা না থাকলে বিশ্বজুড়ে সাংবাদিক হত্যার ঘটনা বছরওয়ারি কমে যেত।

সাংবাদিক নিহতের এই সংখ্যা ২০১৫ সালের পর থেকে সর্বোচ্চ এবং ২০২২ সালের পরিসংখ্যানের প্রায় ৪৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

২০২৩ সালের ডিসেম্বরে সিপিজে জানিয়েছিল, ইসরায়েল-গাজা যুদ্ধের প্রথম তিন মাসে পুরো এক বছরে কোনো দেশে যত সাংবাদিক নিহত হয়েছেন, তার চেয়ে বেশি সাংবাদিক নিহত হয়েছেন।

ইসরায়েল-হামাস সংঘাতে নিহত ৭২ সাংবাদিকের মধ্যে তিনজন লেবাননের ও দুজন ইসরায়েলি বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

সিপিজের প্রধান নির্বাহী জোডি গিন্সবার্গ বলেন, গাজার সাংবাদিকরা সামনের সারিতে আছেন।


আরও খবর



শবে বরাতে যেসব কাজ থেকে বিরত থাকবেন

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শবে বরাত একটি ফজিলতপূর্ণ রাত। শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাতকে শবে বরাত বলা হয়। হাদিস ভাষায় একে নিসফ শাবান বা শাবান মাসের মধ্যরাত বলা হয়েছে।

শবে বরাত শব্দটি ফারসি। শব মানে রাত, বরাত মানে মুক্তি; শবে বরাত অর্থ মুক্তির রজনী।

শবে বরাতের ফজিলত

হাদিসে এই রাতের বিশেষ ফজিলত বর্ণনা করা হয়েছে। হজরত আবু সালাবা  রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে বর্ণিত, যখন অর্ধ শাবানের রাত আসে, তখন আল্লাহ তায়ালা মাখলুকাতের প্রতি রহমতের দৃষ্টিতে তাকান; মুমিনদের ক্ষমা করে দেন, কাফিরদের ফিরে আসার সুযোগ দেন এবং হিংসুকদের হিংসা পরিত্যাগ ছাড়া ক্ষমা করেন না। (কিতাবুস সুন্নাহ, তৃতীয় খণ্ড, পৃষ্ঠা: ৩৮২)।

আরেক হাদিসে হজরত মুআয ইবনে জাবাল রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু থেকে বর্ণিত, নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, আল্লাহ তায়ালা অর্ধ শাবানের রাতে মাখলুকাতের দিকে রহমতের দৃষ্টি দেন এবং মুশরিক ও বিদ্বেষ পোষণকারী ছাড়া আর সবাইকে ক্ষমা করে দেন। (সহিহ ইবনে হিব্বান, হাদিস, ৫৬৬৫)।

শবে বরাতে যেসব কাজ করবেন না

এই রাত ফজিলতপূর্ণ এবং ইবাদতের। তবে এ রাতকে ঘিরে আমাদের সমাজে ইবাদত মনে করে বেশ কিছু কাজের প্রচলন রয়েছে ইসলামি শরিয়তে যার কোনো ভিত্তি নেই। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম, সাহাবায়ে কেরাম, তাবেয়ি, তাবে-তাবেয়িদের যুগে যেসব আমলের কোনো অস্তিত্ব ছিল না। শবে বরাতে পরিহারযোগ্য- এমন কিছু কাজের তালিকা তুলে ধরা হলো-

>>এই রাতকে উপলক্ষ করে মসজিদে বিপুল পরিমাণ জনসমাগমের আয়োজন করা যাবে না।

>> শুধু শবে বরাতকে কেন্দ্র করে মসজিদে বা ঘরে প্রয়োজন অতিরিক্ত লাইটিং করা যাবে না।

>> ইবাদত মনে করে হালুয়া-রুটির আয়োজন করা যাবে না।

>> ইবাদত মনে করে খাশি জবেহ করা যাবে না।

>> আতশবাজি,পটকা ফোটানো যাবে না।

>> নফল ইবাদত-বন্দেগি বাদ দিয়ে অযথা ঘোরাফেরা করা যাবে না।  

>> গর্হিত ও অশ্লীল কোনো কাজ করা যাবে না।

>> অন্য কারও ইবাদতের বা ঘুমের বিঘ্ন ঘটানো যাবে না

>> দলবেঁধে কবরস্থানেও যাওয়া যাবে না।

>> শিরকে লিপ্ত হওয়া থেকে বিরত থাকা।

>> হিংসাত্মক কাজ না করা।

>> আল্লাহর নাফরমানীমূলক কাজ না করা।

>> মাজার ও কবরস্থান আলোকসজ্জায় সজ্জিত না করা।

>> এ রাতে মৃত ব্যক্তির আত্মা তার গৃহে ফিরে আসে এমন ধারণা পোষণ না করা।


আরও খবর
শবে বরাত সম্পর্কে হাদিসে যা বলা হয়েছে

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




পাকিস্তানে প্রথম নারী মুখ্যমন্ত্রী হলেন মরিয়ম নওয়াজ

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশে প্রথমবারের মতো নারী মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের কন্যা মরিয়ম নওয়াজ। দেশটির সাত দশকের বেশি সময়ে ইতিহাসে এবারই প্রথম কোনো প্রদেশ নারী মুখ্যমন্ত্রী পেল।

পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) এর প্রাথী মরিয়ম ২২০ ভোট পেয়ে মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছেন। পাঞ্জাব পরিষদের স্পিকার মালিক আহমেদ খান ফল ঘোষণা করেন।

পিএমএল-এনের প্রতিদ্বন্দ্বী ও ইমরান খানের দলের জোট সুন্নি ইত্তেহাদ কাউন্সিলের (এসআইসি) প্রার্থী আফতাব খান নির্বাচন বর্জন করেন। তাই তিনি কোনো ভোট পাননি।

অধিবেশনের শুরুতে স্পিকার খান তাকে কথা বলতে না দেওয়ায় তিনি ও অন্যান্য এসআইসি আইনপ্রণেতারা অধিবেশন বর্জন করেন।

এদিকে, নবনির্বাচিত মুখ্যমন্ত্রী মরিয়ম নওয়াজ পাঞ্জাব অ্যাসেম্বলিতে তার বিজয়ী বক্তৃতায় বলেন, রাজনীতিক হিসেবে যাত্রাপথে আমি গ্রেপ্তার হয়েছি। আমার বাবা গ্রেপ্তার হয়েছেন। আমি মাকে হারিয়েছি। তবুও আমার মধ্যে প্রতিশোধের কোনো মনোভাব নেই।

মরিয়ম আরও বলেছেন, পুলিশের উচ্চ হস্তক্ষেপের বিষয়ে জিরো টলারেন্স থাকবে। গত সপ্তাহে তক্ষশীলার ঘটনার তদন্ত করা হবে।

এর আগে তক্ষশিলায় শনিবার এক পুলিশ একজন বয়স্ক নারীকে চড় মারে ও পরে ওই নারী মাটিয়ে লুটিয়ে পড়ে। ঘটনার ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর তাকে বরখাস্ত করা হয়েছিল।


আরও খবর



সংরক্ষিত আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হচ্ছেন ৫০ নারী

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

দ্বাদশ জাতীয় সংসদের ৫০টি সংরক্ষিত নারী আসনে জমা পড়া মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে সব মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

রোববার (২৫ ফেব্রুয়ারি) কোনো প্রার্থী মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেননি। ফলে ৫০ জন নারী প্রার্থীকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করেছে ইসি। এসব প্রার্থীদের বিজয়ী ঘোষণা করে মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) গেজেট প্রকাশ করা হবে। রোববার সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত রিটার্নিং কর্মকর্তা (যুগ্ম সচিব) মুনিরুজ্জামান তালুকদার এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে নির্বাচনে ৫০ প্রার্থীর সবার মনোনয়নপত্র বৈধ বলে ঘোষণা করা হয়েছে। ২৫ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন রাখা হয়েছিল। কোনো প্রার্থী তাদের প্রার্থিতা প্রত্যাহার না করায় সবাইকে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৪৮ জন আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও দুজন জাতীয় পার্টির। এসব প্রার্থীদের নামে মঙ্গলবার গেজেট ঘোষণা হবে, যেহেতু সোমবার সরকারি ছুটির দিন।

সংরক্ষিত নারী আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত এমপিরা হলেন:

১. রেজিয়া ইসলাম (পঞ্চগড়)

২. দ্রৌপদী দেবি আগরওয়াল (ঠাকুরগাঁও)

৩. আশিকা সুলতানা (নীলফামারী)

৪. রোকেয়া সুলতানা (জয়পুরহাট)

৫. কোহেরী কুদ্দুস মুক্তি (নাটোর)

৬. জারা জেবিন মাহবুব (চাঁপাইনবাবগঞ্জ)

৭. রুনু রেজা (খুলনা)

৮. ফরিদা আক্তার বানু (বাগেরহাট)

৯. ফারজানা সুমি (বরগুনা)

১০. খালেদা বাহার বিউটি (ভোলা)

১১. ফরিদা ইয়াসমিন (নরসিংদী)

১২. উম্মে ফারজানা সাত্তার (ময়মনসিংহ)

১৩. নাদিরা বিনতে আমির (নেত্রকোনা)

১৪. মাহফুজা সুলতানা মলি (জয়পুরহাট)

১৫. পারভীন জামান কল্পনা (ঝিনাইদহ)

১৬. আরমা দত্ত (কুমিল্লা)

১৭. লায়লা পারভীন (সাতক্ষীরা)

১৮. মুন্নুজান সুফিয়ান (খুলনা)

১৯. বেদৌরা আহমেদ সালাম (গোপালগঞ্জ)

২০. শবনম জাহান (ঢাকা)

২১. পারুল আক্তার (ঢাকা)

২২. সাবেরা বেগম (ঢাকা)

২৩. শাম্মী আহমেদ (বরিশাল)

২৪. নাহিদ ইজহার খান (ঢাকা)

২৫. ঝর্ণা আহসান (ফরিদপুর)

২৬. ফজিলাতুন নেছা (মুন্সীগঞ্জ)

২৭. সাহেদা তারেক দীপ্তি (ঢাকা)

২৮. অনিমা মুক্তি গোমেজ (ঢাকা)

২৯. শেখ আনার কলি পুতুল (ঢাকা)

৩০. মাসুদা সিদ্দিক রোজী (নরসিংদী)

৩১. তারানা হালিম (টাঙ্গাইল)

৩২. শামসুন নাহার (টাঙ্গাইল)

৩৩. মেহের আফরোজ চুমকি (গাজীপুর)

৩৪. অপরাজিতা হক (টাঙ্গাইল)

৩৫. হাসিনা বারী চৌধুরী (ঢাকা)

৩৬. নাজমা আক্তার (গোপালগঞ্জ)

৩৭. ফরিদুন্নাহার লাইলী (লক্ষ্মীপুর)

৩৮. আশরাফুন নেছা (লক্ষ্মীপুর)

৩৯. কানন আরা বেগম (নোয়াখালী)

৪০. শামীমা হারুন লুবনা (চট্টগ্রাম)

৪১. ফরিদা খানম (নোয়াখালী)

৪২. দিলারা ইউসুফ (চট্টগ্রাম)

৪৩. ডরথি তঞ্চঙ্গা (রাঙ্গামাটি)

৪৪. সানজিদা খানম (ঢাকা)

৪৫. নাছিমা জামান ববি (রংপুর)

৪৬. নাজনীন নাহার রোশা (পটুয়াখালী)

৪৭. ওয়াসিকা আয়শা খান (চট্টগ্রাম)

৪৮. রুমা চক্রবর্তী (সিলেট)

অন্যদিকে জাতীয় পার্টি থেকে সাবেক সংসদ সদস্য সালমা ইসলাম ও দলের ভাইস চেয়ারম্যান নুরুন নাহার এমপি নির্বাচিত হয়েছেন।


আরও খবর