আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

আবারও বেসামাল নিত্যপণ্যের বাজার

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | ৪৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আবারও বেসামাল হয়ে পড়েছে নিত্যপণ্যের বাজার। সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধির পর গেল কয়েক দিনে সংকট কিছুটা কমেছে। তবে পেঁয়াজ আমদানির মেয়াদ শেষ হওয়ায় প্রতিবেশী দেশ ভারত থেকে পণ্যটি আসা বন্ধ রয়েছে। এতে দেশের খুচরা ও পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। এ ছাড়া সবজি, রসুন ও ডিমের দাম এক সপ্তাহ ব্যবধানে বেড়েছে। অন্য পণ্যের দাম অবশ্য অপরিবর্তিত রয়েছে।

শুক্রবার (১৩ মে) রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এসব তথ্য জানা গেছে।

ঈদের পর বাজারে সবজির চাহিদা বেড়েছে। এ ছাড়া গত কয়েক দিন ধরে টানা বৃষ্টি থাকায় সবজির দাম কিছুটা বেড়েছে।

চলতি সপ্তাহে ৪০ টাকা কেজি দরে মিষ্টি কুমড়া, মুলা ও পেঁপে বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া এ সপ্তাহে ৬০ টাকা কেজি দরে শসা, টমেটো, চিচিঙ্গা, পটল, বরবটি ও ধুন্দল বিক্রি হচ্ছে। আকারভেদে চাল কুমড়া প্রতিপিস ৫০ টাকা এবং লাউ ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে, প্রতি কেজি কাঁচামরিচ ১৩০ টাকা এবং পেঁয়াজের দাম ২৫-৩০ টাকা থেকে কয়েক দফা বেড়ে ৪৫-৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ২০ টাকা।

প্রতি কেজি দেশি রসুনের দাম ৪০-৫০ টাকা থেকে দ্বিগুণ বেড়ে ৯০-১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া আমদানি করা রসুনের দাম কেজিপ্রতি ১০০-১২০ টাকা থেকে বেড়ে ১৪০-১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

খোলা সয়াবিন তেল খুচরা বাজারে কেজিপ্রতি ২২০-২৫০ টাকায়, পাম অয়েল কেজিপ্রতি ১৯৫-২০০ টাকায় এবং বোতলজাত পাঁচ লিটার সয়াবিন তেল ৯৮০-৯৮৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে, গরুর মাংস প্রতি কেজি ৭০০ টাকা, খাসির মাংস প্রতি কেজি ৯০০ টাকা, ব্রয়লার মুরগি প্রতি কেজি ১৭০-১৮০ টাকা, সোনালি মুরগি প্রতি কেজি ৩০০-৩১০ টাকা এবং লেয়ার মুরগি প্রতি কেজি ২৭০-২৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

প্রতি ডজন লাল ডিম ১১৫ টাকা, প্রতি ডজন হাঁসের ডিমের ১৬০ টাকা এবং প্রতি ডজন দেশি মুরগির ডিম ১৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

তবে মাছের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। প্রতি কেজি রুই মাছ ৩০০-৮৫০ টাকা, তেলাপিয়া ও পাঙাস মাছ কেজিপ্রতি ১৬০-১৭০ টাকা, প্রতি কেজি পাবদা মাছ ৩০০-৪০০ টাকা এবং শোল মাছ প্রতি কেজি ৪০০-৬০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।


আরও খবর



হাসপাতাল বেডে ভিক্ষুক নির্যাতন: ৪ এসআই বরখাস্ত

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৫২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বেডে চিকিৎসাধীন এক ভিক্ষুক ও তার পরিবারের সদস্যদের শারীরিক নির্যাতন ও গ্রেফতারের ঘটনায় ৪ এসআইকে সাময়িক বরখাস্ত এবং ২ কনস্টেবলকে  প্রত্যাহার করা হয়েছে।

বুধবার (১১ মে) জামালপুরের পুলিশ সুপার মো. নাছির উদ্দীন আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

সাময়িক বরখাস্তরা হলেন-সরিষাবাড়ী থানার এসআই আলতাব হোসেন, এসআই সাইফুল ইসলাম, এসআই ওয়াজেদ আলী ও এসআই মুন্তাজ। এছাড়া কনস্টেবল মোজাম্মেল হক ও নারী কনস্টেবল সাথী আক্তারকে পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

জানা গেছে, সরিষাবাড়ী পৌরসভার বাউসি বাজার এলাকার মৃত মহির উদ্দিনের ছেলে ভিক্ষুক আব্দুল জলিল (৬৫) বিশ শতক জমিতে বসতভিটা বানিয়ে দীর্ঘদিন বসবাস করে আসছিলেন। সম্প্রতি ওই জমি একই এলাকার প্রভাবশালী মুজিবুর রহমান দাবি করায় দুপক্ষের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। পরবর্তীতে ঐ জমি নিয়ে জজ আদালতে মামলা হলে আদালত ভিক্ষুক আব্দুল জলিলের পক্ষে ডিক্রি প্রদান করেন। আদালতের আদেশ অমান্য করে সোমবার (৯ মে) সকালে প্রতিপক্ষ মুজিবুর রহমান তার সহযোগীদের নিয়ে আব্দুল জলিলের পরিবারের ওপর হামলা চালায়। হামলায় আব্দুল জলিল (৬৫), তার স্ত্রী লাইলী বেগম, বড় ছেলে আবু বক্কর সিদ্দিক, মেজো ছেলে ওয়ায়েজ করোনি, ছোট ছেলে হামদাদুল হকসহ পরিবারের অন্য সদস্য জসিম মিয়া আহত হন। পরে এলাকাবাসী আহতদের উদ্ধার করে সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।  হামলার পর উল্টো মুজিবুর রহমান বাদী হয়ে চিকিৎসাধীন ৪ জনসহ ১৫ জনকে আসামি করে সরিষাবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে মঙ্গলবার দুপুরে চিকিৎসাধীন ভিক্ষুক আব্দুল জলিলসহ ৪ জনকে হাসপাতালের বেডে শারীরিক নির্যাতন ও গ্রেফতার করে নিয়ে যায় সরিষাবাড়ী থানার পুলিশ। পরে তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়।

পুলিশ সুপার মো. নাছির উদ্দীন আহমেদ জানান, এ ঘটনায় ৪ এইআইকে বরখাস্ত ও ২ কনস্টেবলকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে সরিষাবাড়ী থানার ওসি মীর রকিবুল হাসানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



গাইবান্ধায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে শ্বশুর–জামাইয়ের মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | ৪১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে শ্বশুর ছায়েদ আলী (৬২) ও জামাতা সাজু মিয়ার (৪০) মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১২ মে) বিকালে উপজেলার দরবস্ত ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার দরবস্ত ইউনিয়নের কালিকাপুর গ্রামের ছায়েদ মিয়া (৬৩) ও তাঁর জামাতা সাজু মিয়া (৪০)।

স্থানীয়রা জানান, বাড়ির উঠান থেকে ধানমাড়াইয়ের মেশিন ঘরের বারান্দায় তুলতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন জামাতা সাজু মিয়া। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পরে তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে শ্বশুর ছায়েদ আলীও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। এতে দু’জনেরই মৃত্যু হয়।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ প্রধান মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, পরিবারটিকে আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে।’

গোবিন্দগঞ্জ থানার এসআই সঞ্জয় কুমার বলেন, অভিযোগ না থাকায় মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’


আরও খবর



এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে ভ্রাম্যমাণ আদালত: মেয়র তাপস

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৪ মে ২০২২ | ১৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে আগামী ১৫ জুন হতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ঢাদসিক) আওতাধীন ১০টি অঞ্চলে ১০টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাদসিক মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ঢাদসিক) প্রধান কার্যালয় নগর ভবনের মেয়র মোহাম্মদ হানিফ মিলনায়তনে করপোরেশনের দ্বিতীয় পরিষদের চতুর্দশ বোর্ড সভায় ঢাদসিক মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এ তথ্য জানান।

ঢাদসিক মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, আমাদের কাছে জনগণের প্রত্যাশা অনেক বেশি। সেই প্রেক্ষিতেই আমরা মনে করি যে, আমাদের আরও করণীয় রয়েছে এবং সেভাবেই আমরা এবারের কর্মপরিকল্পনা সাজিয়েছি। কর্মপরিকল্পনায় আলোকে ১ আষাঢ় (১৫ জুন) থেকেই আামদের কার্যক্রম আমরা পূর্ণাঙ্গভাবে শুরু করব। আমাদের ১০টি অঞ্চলে ১০ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের জন্য আমরা এরই মাঝে আবেদন করেছি। আশা করছি আমরা অচিরেই পেয়ে যাব। সেই প্রেক্ষিতে আপনাদের নেতৃত্বে আমরা ১০টি অঞ্চলে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করব। এছাড়াও আমাদের চিরুনি অভিযান পরিচালিত হবে।

গতবারের তুলনায় এবার বেশি সময় ধরে চিরুনি অভিযান তদারকি করা হবে জানিয়ে ঢাদসিক মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, গতবার আমরা ১ মাস নিয়ন্ত্রণ কক্ষ পরিচালনা করেছিলাম। এবার সেটা আমরা দুই মাস ধরে পরিচালনা করব এবং এই নিয়ন্ত্রণ কক্ষের মাধ্যমে আমরা চিরুনি অভিযানগুলো তদারকি করব।

এ সময় ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে জনগণকে সহযোগিতার আহ্বান জানিয়ে ঢাদসিক মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, আপনারা যারা বাসাবাড়ির মালিক, স্থাপনার মালিক-এটা আপনাদেরই দায়িত্ব যে, আপনার আঙিনায়, ছাদে, টবে, পরিত্যক্ত মালামালের মধ্যে যাতে কোনো পানি না জমে। বৃষ্টি হলে কোথাও পানি জমেছে কি না সেটা দেখবেন। পানি জমে থাকলে সেটা ফেলে দিন। তিনদিনের জন্য অপেক্ষা না করে- নিয়মিত প্রতিদিন জমা পানি ফেলে দিন।                               

২০১৯ সালের তুলনায় ২০২১ সালে ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে তুলনামূলক সফলতার জন্য ঢাদসিক মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বোর্ড সভায় কাউন্সিলরদের ধন্যবাদ জানিয়ে এবার আরও বেশি সজাগ থাকার আহবান জানান।

বোর্ড সভায় করপোরেশনের কাউন্সিলরবৃন্দ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদ আহাম্মদ, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমোডর সিতওয়াত নাঈম, প্রধান প্রকৌশলী সালেহ আহম্মেদ, সচিব আকরামুজ্জামান, ভারপ্রাপ্ত প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ফজলে শামসুল কবির, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আরিফুল হক, প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা রাসেল সাবরিন, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।


আরও খবর



২ বিমানের ধাক্কা : প্রধান প্রকৌশলীসহ বরখাস্ত ৫

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | ৩৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গারে (উড়োজাহাজ রক্ষণাবেক্ষণের স্থান) বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের দুটি উড়োজাহাজের সংঘর্ষের ঘটনায় সংস্থাটির প্রধান প্রকৌশলী মোহাম্মদ বদরুল ইসলামসহ ৫ জনকে বরখাস্ত করা হয়েছে। বুধবার (১১ মে) বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং সিইও ড. আবু সালেহ মোস্তফা এই তথ্য জানিয়েছেন।

বরখাস্ত হওয়া অপর চারজন হলেন- বিমানের প্রকৌশলী মো. মাইনুল ইসলাম, সৈয়দ বাহাউল ইসলাম, সেলিম হোসেন খান এবং জিএসই অপারেটর মো. হাফিজুর রহমান।

জানা গেছে, চলতি বছরের ১০ এপ্রিল বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গারে আগে থেকেই বিমানের একটি বোয়িং ৭৭৭ উড়োজাহাজ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য রাখা ছিলো।এরপর আরেকটি বোয়িং ৭৩৭ উড়োজাহাজ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য হ্যাঙ্গারের দিকে নেওয়া হয়। হ্যাঙ্গারের ভেতরে প্রবেশ করানোর সময় ৭৩৭ উড়োজাহাজের সামনের অংশের সঙ্গে ভেতরে থাকা ৭৭৭ উড়োজাহাজের পেছনে অংশের সংঘর্ষ বাঁধে। এতে দুই উড়োজাহাজই ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

এ ঘটনায় বিমানের প্রধান প্রকৌশলী (কোয়ালিটি অ্যাসুরেন্স) আলী নাসেরকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি এবং বিমানের চিফ অব সেফটির নেতৃত্বে আরেকটি কমিটি গঠন করা হয়। এ ছাড়া বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়।

আজ বেসামরিক বিমান পরিবহণ ও পর্যটন মন্ত্রণালয় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ওই পাঁচ জনকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদনে বাংলাদেশ বিমান করপোরেশন এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন (১৯৭৯) প্রবিধানমালার ৫৫ ধারা লঙ্ঘনের জন্য তাদের দায়ী করা হয়েছে। একইসঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।


আরও খবর



দিল্লির তাপমাত্রা পৌঁছাতে পারে ৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসে

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | ৩৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আরও একবার তাপপ্রবাহ উত্তর-পশ্চিম ভারতে। আবহাওয়া অধিদফতরের পক্ষ থেকে তীব্র তাপপ্রবাহের আশঙ্কার কারণে কমলা সতর্কতা জারি করা হয়েছে রাজধানী দিল্লিতে। বলা হয়েছে, দিল্লির তাপমাত্রা পৌঁছে যেতে পারে ৪৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

গত দুদিন ধরে তাপপ্রবাহ চলছে দিল্লি ও আশপাশের এলাকায়। রোববারের জন্য হলুদ সতর্কতা জারি করেছে আবহাওয়া দফতর। আবহাওয়ার খামখেয়ালিপনার সাক্ষী থাকছে ভারতের জাতীয় রাজধানী। প্রবল গরমে পুড়ছে দিল্লির বিস্তীর্ণ এলাকায়।

গত দুই দিন ধরেই এই অবস্থা রয়েছে। পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে বলেও সংকেত দিয়েছে ভারতের আবহাওয়া দফতর। বলা হয়েছে রোববার ও সোমবার দিল্লির কোনও কোনও এলাকার তাপমাত্রা ৪৬-৪৭ ডিগ্রি থাকতে পারে। রোববারের জন্য দিল্লিতে হলুদ সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

শুক্রবারই নাজাফগড়ের তাপমাত্রার পারদ ৪৬.১ ডিগ্রি সেলসিয়াল হয়েছে। জাফরপুরও মুঙ্গেসপুরের তাপমাত্রা  ছিল ৪৫.৬ ও ৪৫.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এই অস্থায় প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বের না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে প্রশাসন। আগামী সপ্তাহের প্রথম দিকে বজ্র বিদ্যুৎসহ বৃষ্টি হলে তাপমাত্রা সাময়িক কিছুটা কমবে। হাওয়া অফিস আরো জানিয়েছে এই মৌশুমে এই নিয়ে এখনও পর্যন্ত পাঁচবার তাপপ্রবাহের কবলে পড়ল দিল্লি।


আরও খবর