আজঃ মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

‘৭ মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধু একটি জাতির কষ্ট, শোষণ ও সমাধানের পথ তুলে ধরেছিলেন’

প্রকাশিত:শনিবার ১১ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১১ মার্চ ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, ৭ মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধু বিদ্যমান অবস্থা, অতীতের শোষণ, করণীয়, সমাধানের পথ তুলে ধরেছেন। ১৮ মিনিটের ভাষণে বঙ্গবন্ধু একটি জাতির কষ্টের কথা তুলে ধরেছেন, জনগণের ম্যান্ডেটের কথা তুলে ধরেছেন, বাঙালির অত্যাচার-নিপীড়নের চিত্র তুলে ধরেছেন, বিকল্প প্রস্তাবের কথা তুলে ধরেছেন, বাঙালির করণীয় তুলে ধরেছেন।

শনিবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির নসরুল হামিদ মিলনায়তনে অগ্নিঝরা মার্চ ও বঙ্গবন্ধু শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এই মন্তব্য করেন। বজ্রকন্ঠ-প্রেরণায় ৭ মার্চ নামক অনলাইনভিত্তক সংগঠনের আত্মপ্রকাশ উপলক্ষ্যে সংগঠনটি এ আলোচনা সভা আয়োজন করে।

এ সময় মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু গ্রাম-গঞ্জ, তৃণমূলে বাঙালিদের একত্রিত করে বাঙালি জাতিসত্তাকে একটা জায়গায় নিয়ে এসেছিলেন। হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান সবাইকে বাঙালি হিসাবে একই পরিচয়ে পরিচিত করেছিলেন। বর্তমানে স্বাধীনতাবিরোধী এবং তাদের উত্তরসূরিরা দেশে ও দেশের বাইরে ভয়ঙ্কর ষড়যন্ত্র করছে। তারা অনলাইনে দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছে। তাদের বিরুদ্ধে শক্তিশালী অবস্থান নিতে হবে। অস্তিত্বের উৎস ধরে রাখতে হলে বজ্রকণ্ঠ শাণিত করতে হবে। শুধু মুখে মুখে নয়, আত্মায়, বিশ্বাসে ও চেতনায় বাঙালিত্ব ধারণ করতে হবে।

রেজাউল করিম যোগ করেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ দিয়ে যেমন বাঙালিত্বের আত্মপ্রকাশ হয়েছিল, ২৬ মার্চের ঘোষণায় যেমন স্বাধীন বাংলাদেশের আত্মপ্রকাশ হয়েছিল তেমনি বজ্রকণ্ঠ-প্রেরণায় ৭ মার্চ আত্মপ্রকাশের মাধ্যমে সে চেতনা ধারণ করতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের নিউক্লিয়াস, শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের অস্তিত্ব। বঙ্গবন্ধুকে নির্মমভাবে হত্যার পর তাকে ঘিরেই ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ ফিনিক্স পাখির মতো ঘুরে দাঁড়িয়েছিল। আওয়ামী লীগের ভিত্তি হচ্ছে তৃণমূল কর্মীরা। যখনই কোনো দুঃসময় এসেছে তৃণমূলকে ভর করে আওয়ামী লীগ টিকে রয়েছে। বঙ্গবন্ধুর সম্পদ ছিল সে সময়ের সাত কোটি মানুষ, এখন শেখ হাসিনার সম্পদ দেশের ১৭-১৮ কোটি সাধারণ জনগণ।

তিনি যোগ করেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা রক্ষায় যুদ্ধ করলে সেটাই হবে আওয়ামী লীগের কাজ। শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রচারণা চ্যালেঞ্জ করে অনলাইনে কাজ করলে সেটাই হবে আওয়ামী লীগের কাজ। দুর্বৃত্ত ও স্বাধীনতাবিরোধীদের বিরুদ্ধে যদি একটা শব্দ উচ্চারণ করা হয় সেটাই হবে আওয়ামী লীগের কাজ।

শ ম রেজাউল করিম আরো বলেন, বাংলাদেশ যতদিন থাকবে, যতদিন বাঙালি থাকবে, লাল সবুজের পতাকা কেউ কেড়ে নিতে পারবে না। পতাকার ধারক ও বাহক হিসেবে সব বাঙালিকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেপুটি রেজিস্ট্রার ডা. হেলাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বজ্রকণ্ঠ-প্রেরণায় ৭ মার্চ নামক সংগঠনের সদস্যরা এ সময় বক্তব্য দেন।


আরও খবর



মাগুরাকে রোল মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে চান সাকিব আল হাসান

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

বিশ্ব নন্দিত ক্রিকেট অলরাউন্ডার মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য সাকিব আল হাসান স্থানীয় সরকারের মাগুরার জনপ্রতিনিধিদের সাথে সমন্বয় করে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে জেলার সবক্ষেত্রের উন্নয়ন এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আশা ব্যক্ত করেছেন।

সাকিব বলেন, মাগুরা আগে থেকেই ভাল আছে। তারপরও যে সমস্যাগুলো আছে সেগুলো চিহ্নিত করে আগামীতে এক সাথে সকলের সমন্বয়ে কাজ করবো। সেক্ষেত্রে তৃণমূল পর্যায়ের জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে পাঠিয়েছেন মাগুরার মানুষের সেবা করার জন্য। আমি সকলকে নিয়ে একসাথে কাজ করে প্রধানমন্ত্রীকে একটি সুন্দর মাগুরা উপহার দিতে চাই। যা দেশের মধ্যে একটি রোল মডেল হবে। সেজন্য সবাই আমাকে সহযোগিতা করবেন। আপনারা সকলে আমার পাশে থাকলে অবশ্যই আমি পারব। বিপিএল খেলার জন্য নির্বাচনের পরে একটু দেরিতে মাগুরায় এলাম। আশা করছি আগামিতে নিয়মিতভাবে যোগাযোগ হবে।

মাগুরা সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার (০১ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান, সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও রাঘবদাইড় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আশরাফুল আলম বাবুল ফকিরসহ ১৩টি ইউনিয়নের বেশ কয়েকজন চেয়ারম্যান।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




আগাম নির্বাচনের দাবিতে ইসরায়েলজুড়ে বিক্ষোভ

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

গাজায় ইসরায়েলের অব্যাহত যুদ্ধের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর পদত্যাগ এবং আগাম নির্বাচনের আহ্বানের দাবি করেছে বিক্ষোভকারীরা। এ ঘটনায় ইসরায়েলি পুলিশ তেল আবিবে বেশ কয়েকজন বিক্ষোভকারীকে গ্রেপ্তার করেছে। ইসরায়েলি পত্রিকা ইয়েদিওথ আহরোনোথ অনুসারে, কাপলান স্কোয়ারে শত শত বিক্ষোভকারীকে ছত্রভঙ্গ করে পুলিশ এবং তারা যে সরঞ্জাম দিয়ে প্রতিবাদ করছিল তা জব্দ করা করে।

প্রতিবেদন অনুসারে, বিক্ষোভকারীরা নির্বাচন এবং নেতানিয়াহুকে অবিলম্বে পদত্যাগ করার জন্য স্লোগান দেয়। ইসরায়েলের আরও বেশ কয়েকটি অঞ্চলেও হাজার হাজার বিক্ষোভে অংশগ্রহণকারী নেতানিয়াহু সরকারের বরখাস্ত এবং গাজায় বন্দিদের মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ করেন। ইসরায়েলি সম্প্রচার কর্তৃপক্ষ এবং ইয়েদিওথ আহরোনোথের মতে, ওই অঞ্চলগুলোর মধ্যে রয়েছে, জেরুজালেম, হাইফা, সিজারিয়া, কেফার সাভা, রেহোভট এবং বের্শেবা।

বিক্ষোভ তীব্র হওয়ায় নেতানিয়াহু গাজায় জিম্মিদের পরিবারের বিক্ষোভকে অকার্যকর এবং হামাসের দাবির সমর্তন বলে সমালোচনা করেছেন। ইসরায়েলি কর্মকর্তারা ধারণা করেছেন, গাজায় এখনও ১৩৬ জন জিম্মি রয়েছেন।


আরও খবর



এসএসসি পরীক্ষা সামনে রেখে ডিএমপির ১৮টি সুপারিশ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে সারাদেশে শুরু হচ্ছে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা। এ সময় পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে যাওয়া সহজ করতে ১৮টি সুপারিশ করেছে ডিএমপি ট্রাফিক বিভাগ।

মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে মিডিয়া সেন্টারে এ সুপারিশের কথা জানান ডিএমপির ট্রাফিকের অতিরিক্ত কমিশনার মুনিবুর রহমান।

তিনি বলেন, পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে যাওয়া সহজ করতে ট্রাফিকের কুইক রেসপন্স টিম কাজ করবে। পাশাপাশি প্রতিটি কেন্দ্রের আশপাশে একাধিক ভ্রাম্যমাণ টিম কাজ করবে। কেন্দ্রের আশপাশের সড়কে হকার থাকতে দেয়া হবে না বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

ঢাকা মহানগরীতে ১২২টি কেন্দ্র আছে জানিয়ে অতিরিক্ত কমিশনার পরীক্ষা কেন্দ্রের পাশের সড়কে অযাচিত হর্ন না বাজাতে অনুরোধ করেন।

গড়ে প্রতিদিন শতাধিক ব্যাটারিচালিত রিকশার ডাম্পিং করা হচ্ছে জানিয়ে পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, অবৈধ যেকোনো বাহনের বিরুদ্ধে ট্রাফিক বিভাগ প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে।

এ বছর এসএসসি, দাখিল, এসএসসি (ভোকেশনাল) ও দাখিল (ভোকেশনাল) পরীক্ষায় ২৯ হাজার ৭৩৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৩ হাজার ৭০০টি কেন্দ্রে ২০ লাখ ২৪ হাজার ১৯২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেবে।


আরও খবর



‘ডার্ক ওয়ার্ল্ড’র শুটিংয়ে ঢাকায় এসেছেন কৌশানি

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

ঢাকায় এসেছেন টালিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী কৌশানি মুখার্জি। ডার্ক ওয়ার্ল্ড ছবির শুটিংয়ে অংশ নিতে বুধবার (০৭ ফেব্রুয়ারি) বাংলাদেশে এসেছেন এই অভিনেত্রী। সিনেমাটি নির্মাণ করছেন মোস্তাফিজুর রহমান মানিক। এতে নায়িকার বিপরীতে জুটি বেঁধেছেন প্রযোজক ও অভিনেতা মুন্না খান।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (০৮ ফেব্রুয়ারি) থেকে শুরু হতে যাচ্ছে সিনেমাটির শুটিং। এই সিনেমায় পুলিশ কর্মকর্তার চরিত্রে দেখা যাবে কৌশানীকে।

ডার্ক ওয়ার্ল্ড সিনেমার অভিনেত্রী ছিলেন মাহিয়া মাহি। গত বছর শুরু হয়েছিলো সিনেমার শুটিং। ডার্ক ওয়ার্ল্ড ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পর ৯ অক্টোবর শুটিংও শুরু করেছিলেন মাহিয়া মাহি। কিন্তু একদিনের শুটিং করে সিনেমা থেকে সরে দাঁড়ান মাহি।

এই সিনেমা দিয়েই মাতৃত্বকালীন বিরতির পর ফিরেছিলেন মাহি। কিন্তু একদিন শুটিং করেই মুন্নার বিপরীতে কাজ করতে অনাগ্রহ প্রকাশ করেন তিনি।

শেষমেশ বন্ধ হয়ে যায় শুটিং। সেসময় জানা যায়, মুন্না খানের এক বক্তব্যের জন্যই সিনেমা থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন তিনি। এক সাক্ষাৎকারে এ ছবিতে পরী মণিকে নায়িকা হিসেবে পাওয়ার ইচ্ছে পোষণ করেছিলেন নায়ক। তাতেই বাঁধে বিপত্তি।

প্রসঙ্গত, কৌশানী অভিনীত প্রথম বাংলাদেশি ছবি প্রিয়া রে। তবে আজও এটি আলোর মুখ দেখেনি। শাপলা মিডিয়া প্রযোজিত সিনেমাটি আদৌ মুক্তি পাবে কিনা তা নিয়ে রয়েছে ধোঁয়াশা। ২০২১ সালে ঢালিউড সিনেমায় নাম লেখিয়ে ঢাকায় এসেছিলেন এই অভিনেত্রী। টালিউডে শেষ তাকে দর্শক দেখেছিল ডাল বাটি চুরমা সিনেমায়।


আরও খবর
ফের বিয়ে করছেন অনুপম রায়, পাত্রী কে?

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




চড়ুই পাখির কিচিরমিচির শব্দে ঘুম ভাঙে যে শহরের

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রেদওয়ানুল হক, ঠাকুরগাঁও

Image

বসন্তের ছোয়া লেগেছে প্রকৃতিতে। শীতের হাত থেকে মুক্ত আকাশে পাখা মেলেছে পাখির দল। উড়ন্ত পাখিরা নির্ভয়ে এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ঘুরে ফিরছে গাছের ডালে।

পাখ-পাখালির কথা উঠলেই চোখে ভেসে ওঠে সবুজে ঘেরা গ্রাম। শ্যামল-ছায়া আর সুনিবিড় সেই গ্রামজুড়ে থাকে পাখির কিচিরমিচির। তবে ইট-পাথরের শহরে কোলাহলের মাঝেও পাখিরা যে গলা ছেড়ে গাইতে পারে- তা চোখে না দেখলে বিশ্বাসই হবে না।

ঠাকুরগাঁও শহরের ব্যস্ততম এলাকা বাসস্ট্যান্ড তেমনই ব্যতিক্রমী একটি জায়গা। যেখানে পাখিরা খুঁজে পেয়েছে তাদের নিরাপদ আবাস। তাইতো ছোট দুই-তিনটি গাছেই প্রতিদিন বিকেল হলেই জড়ো হয় হাজার হাজার চড়ুই। সেই সঙ্গে সন্ধ্যা নামতেই কিচিরমিচির ছন্দে তাল মিলিয়ে মেতে ওঠে তারা। আবার ভোরের আলো ফুটতেই উড়াল দেয় অজানায়।

পশ্চিমে সূর্য ঢলে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে ঝাঁকে ঝাঁকে চড়ুইপাখি আসে এই শহরের প্রাণকেন্দ্রে। আবার পূর্ব আকাশে ভোর হলেই বেরিয়ে পড়ে খাবারের সন্ধানে। এ যেন রোজকার রুটিন তাদের। শহরের যান্ত্রিকতা কিংবা কর্মব্যস্ত মানুষের ঘরে ফেরার শোরগোল ছাপিয়ে এই কলতান যেনো রঙ ছড়ায় পথের গল্পে, যা শুনে মুহূর্তের জন্য হলেও থমকে দাঁড়ায় পথিক। তাদের এমন ইতিউতি উড়াউড়ি আর খুঁনসুটি নাগরিক মন খুঁজে পায় গ্রামীন পরশ। হয়ে ওঠে ভীষণ রকম নস্টালজিক। যদিও গ্রামগঞ্জে দিনকে দিন হারিয়ে যাচ্ছে চড়ুই।

ঠাকুরগাঁও বাসস্ট্যান্ড মোড় এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, গোধূলি নামতেই ঝাঁকে ঝাঁকে ছুটে আসে গাছের দিকে পাখির দল। এরা গাছের এক ডাল থেকে আরেক ডালে ছোটাছুটি শুরু করে। কিচিরমিচির ডাকে মাতিয়ে তোলে পুরো শহর। সন্ধ্যা হলেই সেখানে কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে যান পথচারীরা। যারা নতুন আসেন তারা দীর্ঘ সময় ধরে পাখির উড়াউড়ি দেখেন, মোবাইলে ভিডিও ধারণ করেন, তোলেন ছবিও।

স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বলছেন, কয়েক বছর ধরেই শহরের ব্যস্ততম বাসস্ট্যান্ড চত্বরকে ঘিরে বিদ্যুতের তারে ও গাছের ডালে চড়ুই পাখির এমন বাড়ি দেখা যাচ্ছে। বিকেল হলেই এরা দলে দলে আসতে থাকে। শুরু হয় কিচিরমিচির, ওড়াউড়ি। রাত বাড়লে বিদ্যুতের খুঁটিকে ঘিরে ঘন হয়ে আসে। একসময় চুপ হয়ে যায়। হঠাৎ করে পাখি বলে মনেও হবে না। মনে হতে পারে, গোলাকার কোনো কিছু তারে তারে ঝুলে আছে। শীত, ঝড়-বৃষ্টি সব সময়ই এরা কমবেশি আছে। কোনো কারণে মানুষ বিরক্ত করলে মাঝেমাঝে তারা একটু-আধটু এদিক-ওদিক স্থান বদল করে। কিছুদিন পর আবার পুরোনো স্থানে ফিরে আসে।

ওয়াজেদ নামে এক শিক্ষার্থী বলেন, প্রতিদিন পড়ন্ত বিকেলে পাখিরা এখানে এসে আশ্রয় নেয়। সন্ধ্যায় পুরো এলাকা পাখির কলকাকলিতে মুখর হয়ে ওঠে। নির্বিঘ্নে রাত কাটায় আর ভোর হলেই উড়ে যায় এরা। দিনের শেষে আবার নীড়ে ফেরে।

পরিবেশ কর্মী এস.এম. মনিরুজ্জামান বলেন, আগে বাসা-বাড়িতে প্রচুর চড়ুই পাখি দেখা যেত। এখন পাকা ঘর হওয়ায় আর তেমন দেখা যায় না। শহরের বাসস্ট্যান্ড মৌড়ে অনেকগুলো চড়ুই পাখি। এরা বিদ্যুতের খুঁটি ও তারে রাত কাটায়। যান্ত্রিক শহরে একসঙ্গে এত পাখির চঞ্চলতা ভালোই লাগে।