আজঃ মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২
শিরোনাম

৪৪তম বিসিএস প্রিলির ফল প্রকাশ

প্রকাশিত:বুধবার ২২ জুন 20২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ জুন 20২২ | ২৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

৪৪তম বিসিএসের প্রিলিমিনারির ফল প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। আজ বুধবার বিকেলে ফল প্রকাশ করা হয়। এতে উত্তীর্ণ হয়েছেন ১৫ হাজার ৭০৮ জন প্রার্থী।

এর আগে, আজ দুপুরে পিএসসির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা শেষে পিএসসির ওয়েবসাইটে ফল প্রকাশ করা হয়।

গত ২৭মে ৪৪তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ শহরের ২৫০টি কেন্দ্রে একযোগে নেওয়া হয় এ পরীক্ষা। এই বিসিএসে আবেদনকারীর সংখ্যা ছিল ৩ লাখ ৫০ হাজার ৭১৬ জন। তবে পরীক্ষাকেন্দ্রে ৭৩ হাজার ৯৫৬ জন অনুপস্থিত ছিলেন। পরীক্ষায় অংশ নেন ২ লাখ ৭৬ হাজার ৭৬০ জন প্রার্থী। অংশগ্রহণের হার ছিল ৭৮ দশমিক ৯১ শতাংশ।

গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর ৪৪তম বিসিএসের আবেদন শুরু হয়। আবেদনের শেষ সময়সীমা ছিল গত ২ মার্চ। এই বিসিএসে বিভিন্ন ক্যাডারে ১ হাজার ৭১০ জন কর্মকর্তা নেওয়ার কথা রয়েছে। এর মধ্যে প্রশাসন ক্যাডারে ২৫০ জন, পুলিশ ক্যাডারে ৫০, পররাষ্ট্র ক্যাডারে ১০, আনসার ক্যাডারে ১৪, নিরীক্ষা ও হিসাবে ৩০, করে ১১, সমবায়ে ৮, রেলওয়ে পরিবহন ও বাণিজ্যিকে ৭, তথ্যে ১০, ডাকে ২৩, বাণিজ্যে ৬, পরিবার পরিকল্পনায় ২৭, খাদ্যে ৩, টেকনিক্যাল ক্যাডারে ৪৮৫ ও শিক্ষা ক্যাডারে ৭৭৬ জন নিয়োগ পাবেন।

৪৪তম বিসিএসের প্রিলিমিনারির ফল দেখতে এই ক্লিক করুন।


আরও খবর



দাম কমার খবর পান না দেশীয় ব্যবসায়ীরা!

প্রকাশিত:সোমবার ৩০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ৩০ মে ২০২২ | ৬৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গত মাসের শেষ দিকে খবর ছড়ায়, পাম তেল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে ইন্দোনেশিয়া। বিশ্বের শীর্ষ পাম তেল রপ্তানিকারক দেশটির ঘোষণা কার্যকর হওয়ার আগেই প্রভাব পড়ে দেশের বাজারে। ফলে আগে থেকেই অস্থিতিশীল তেলের বাজার তেতে ওঠে আরও। ২৮ এপ্রিল ইন্দোনেশিয়া যখন নিষেধাজ্ঞা কার্যকরের ঘোষণা দেয়, তখন তেলশূন্য হয়ে পড়ে দেশের খোলাবাজার। মুহূর্তে বাজার থেকে উধাও হতে থাকে সয়াবিন তেল। রাতারাতি দাম বেড়ে যায় সরিষার তেলেরও। কিন্তু এর তিন সপ্তাহ পর ইন্দোনেশিয়ায় নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলে সে খবর যেন কানেই পৌঁছেনি ব্যবসায়ীদের!

এর আগে সংকটময় পরিস্থিতিতে সরকার এক লাফে সয়াবিনের দাম লিটারে ৩৮ টাকা বাড়ায়। বাড়ে পাম তেলের দামও। দাম বাড়ার ঠিক পরপরই দোকানে দোকানে ফের তেল পাওয়া যেতে শুরু করে। পূর্ণ হয়ে ওঠে তেলের শূন্য ড্রামগুলো। বিভিন্ন জেলায় গুদাম থেকে উদ্ধার হতে থাকে হাজার হাজার লিটার তেল। কিন্তু বিশ্ব বাজারে দাম কমার পর গল্পটা উল্টো। এক সপ্তাহ আগে খবর এসেছে রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা তুলে নিচ্ছে ইন্দোনেশিয়া। সেটি সোমবার (২৩ মে) থেকে কার্যকরও হয়েছে। এতে বিশ্বব্যাপী পাম তেল সরবরাহ স্বাভাবিক হচ্ছে। দামও কমছে। প্রতিবেশী দেশ ভারত এরই মধ্যে তেলের দাম কমিয়ে ফেলেছে। অন্যদিকে দেশে সয়াবিন তেলের সিংহভাগ আসে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা থেকে। এ দুই দেশেই এপ্রিলের শেষ দিকের তুলনায় মে মাসে সয়াবিন তেলের দাম কমেছে প্রায় ৯ শতাংশ। পরিবর্তিত এ পরিস্থিতিতে মুখে যেন কুলুপ এঁটেছেন বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা। যেন তারা এসব খবর পান-ই না। এ বিষয়ে কোনো আলাপই নেই। দেশের বাজারে তেলের দাম কমার কোনো লক্ষণও নেই। উল্টো ভোজ্যতেলের আমদানিকারকরা এখন শোনাচ্ছেন ডলারের মূল্যবৃদ্ধির নতুন গল্প।

ভোক্তা অধিকার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিশ্ববাজারে দাম বাড়ার খবর এলেই দেশের বাজারে দাম বেড়ে যায়। কিন্তু নিম্নমুখী হলে সেটা যথাসময়ে কার্যকর হয় না কখনো। দাম কমার খবর এলেই গড়িমসি শুরু করেন ব্যবসায়ীরা। যতটা কালক্ষেপণ করতে পারেন, তাদের মুনাফা ততই বাড়ে। ফলে বিশ্ববাজারে দর কমা ও বাড়া, উভয় ক্ষেত্রেই প্রতারিত হন সাধারণ মানুষ। মূল্যবৃদ্ধির ক্ষেত্রে তাদের শতভাগেরও বেশি মাশুল গুনতে হলেও কমার সুফল তারা পান খুব কম।

এ বিষয়ে কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সভাপতি ও সাবেক বাণিজ্য সচিব গোলাম রহমান  বলেন, আমাদের ব্যবসায়ীদের কোনো নীতি নৈতিকতা নেই। তারা যে কোনো অজুহাত পেলে সেটাকে ইস্যু বানিয়ে ভোক্তার পকেট কাটেন। সরকার ব্যবসার প্রসার চায়। কিন্তু সে সুযোগ নিয়ে তারা ভোক্তাকে জিম্মি করছে। ব্যবসার প্রসার ভোক্তার পকেট কাটার লাইসেন্স হতে পারে না। তাদের নৈতিক করার জন্য অবশ্যই সরকারের কঠিন মনিটরিং করতে হবে।

বাজার বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, শুধু তেলের ক্ষেত্রে এমন হচ্ছে তা নয়। বর্তমানে বাজারে আমদানি সংকটের অজুহাতে আটা-ময়দা ও পেঁয়াজের দামও অস্থিতিশীল রয়েছে। চলতি মাসের শুরুতে যে অজুহাতে আটা, ময়দা ও গমের দাম বেড়েছিল, সেটি কার্যকর হয়নি। তবে বাড়তি দাম ঠিকই কার্যকর রয়েছে। ভারত গম রপ্তানি বন্ধের ঘোষণা দিতে না দিতেই পাইকারি বাজারে গমের দাম ২৫ শতাংশের মতো বেড়েছিল। নিষেধাজ্ঞা শিথিল হলেও সে দাম আর কমেনি। ১৪ মে ভারত গম রপ্তানি বন্ধ করলেও বাংলাদেশের জন্য সে শর্ত শিথিল রয়েছে। তারপরও দেশে বেড়েছে গম, তা থেকে তৈরি আটা ও ময়দার দাম। ফলে আটা-ময়দা দিয়ে তৈরি বিস্কুট, ব্রেড ও প্রায় সব বেকারি পণ্যের দাম বেড়েছে। এমনকি রেস্তোরাঁয় পরোটার দামও বেড়েছে।

ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্য অনুযায়ী, গত এক মাসেই আটার দাম বেড়েছে ২৬ দশমিক ৭৬ শতাংশ আর ময়দার ১৪ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ। একইভাবে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির আইপিও বন্ধের কারণে দেশে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম বেড়েছিল। যা দেশি পেঁয়াজের পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকার পরেও স্বাভাবিক হয়নি।

এসব বিষয়ে কয়েকজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা হলে তারা বলেন, পুরোনো ওইসব সংকট কাটলেও বর্তমানে ডলারের মূল্যবৃদ্ধির করণে কম দামে পণ্য কেনা যাচ্ছে না। বিশ্ববাজারে তেলের দাম কমার প্রভাব দেশের বাজারে নেই কেন, এমন প্রশ্ন করা হলে শীর্ষ আমদানিকারক বা তাদের প্রতিনিধিদের কেউই কথা বলতে চাননি। সার্বিক বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এবং জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এএইচএম সফিকুজ্জামান  বলেন, তেলের ক্ষেত্রে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ইন্দোনেশিয়ার নিষেধাজ্ঞার সময় দাম নির্ধারণ করেছিল। এখন নিষেধাজ্ঞা কেটে গেছে। নতুন করে আমদানি করা তেলের মূল্য বিবেচনায় আগামীতে দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হবে।


আরও খবর



সাইকেল উল্টে রাস্তায় পড়ে গেলেন বাইডেন!

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৯ জুন ২০২২ | ৩৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

যুক্তরাষ্ট্রের ডেলাওয়ার অঙ্গরাজ্যে নিজের সৈকত সংলগ্ন বাড়ির কাছে সকালবেলা সাইকেল নিয়ে বের হন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। সঙ্গে ছিলেন ফার্স্ট লেডি জিল বাইডেনও। সাইকেল চালানোর সময় হঠাৎই ঘটে বিপত্তি।

সাইকেল চালাতে গিয়ে পড়ে যান প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। যদিও কোনও চোট বা আঘাত লাগেনি তার। পড়ার সঙ্গে সঙ্গে নিজেই উঠে পড়েন তিনি এবং সবাইকে আস্বস্ত করে ৭৯ বছর বয়সী বাইডেন বলেন, আমি ভালো আছি।

বাইডেনের সেই সাইকেল থেকে পড়ে যাওয়ার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। হাজার হাজার লাইকও পড়ে তাতে। অনেকে আবার এটাও বলছেন, এ কেমন আচারণ! কেউ পড়ে গেলে বুঝি লাইক দিতে হয়! কেউ আবার মন্তব্য করেন, এটি পুতিনের কারসাজি!


আরও খবর



নিজেদের অভিষেকেই আইপিএল চ্যাম্পিয়ন গুজরাট

প্রকাশিত:সোমবার ৩০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ৩০ মে ২০২২ | ৪৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

প্রথমবারের আইপিএলে অংশ নিয়েই ফাইনালে উঠে চমকে দিয়েছিল গুজরাট টাইটান্স। আর ফাইনালে তারা রাজস্থান রয়্যালসের মতো পুরনো ও অভিজ্ঞ দলকে হারিয়ে জিতে নিল শিরোপাও।

অর্থাৎ প্রথমবারেই বাজিমাত করলো গুজরাট। আর দলটির এই সাফল্যে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিলেন অধিনায়ক হার্দিক পান্ডিয়া।

পঞ্চদশ আইপিএলের গ্র্যান্ড ফাইনালে আজ রাজস্থানকে ৭ উইকেট হারিয়ে চ্যাম্পিয়নের তকমা জিতেছে গুজরাট। আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে শুরুতে ব্যাট করে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৩১ রানের লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েছিল রাজস্থান, যা ৩ উইকেট হারিয়ে ১১ বল হাতে রেখেই পেরিয়ে যায় গুজরাট।

এবারই প্রথম আইপিএলে যাত্রা শুরু করা গুজরাট শীর্ষে থেকেই লিগ শেষ করেছিল। এই রাজস্থানকেই প্রথম কোয়ালিফায়ারে হারিয়ে তারা উঠেছিল ফাইনালে। অন্যদিকে রাজস্থান ১৪ বছর পর ফাইনালে উঠেছিল। দলটির স্বপ্ন ছিল দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপাটি ঘরে তোলার। কিন্তু তাদের সেই স্বপ্ন গুঁড়িয়ে দিল গুজরাট। ফাইনালসহ এবারের আসরে মুখোমুখি হওয়া ৩ ম্যাচেই গুজরাটের কাছে হেরেছে রাজস্থান। ফাইনালেও তার অন্যথা হয়নি।

রাজস্থানের দেওয়া লক্ষ্য তাড়ায় গুজরাট অবশ্য শুরুর দিকেই ধাক্কা খেয়েছিল। ওপেনার ঋদ্ধিমান সাহা মাত্র ৫ রান করেই বিদায় নেন। এরপর ম্যাথু ওয়েডও ফেরেন অল্প রানেই (৮)। কিন্তু এরপর আরেক ওপেনার শুভমান গিল ও অধিনায়ক হার্দিক মিলে ৬৩ রানের জুটি গড়ে ম্যাচের চাকা ঘুরিয়ে দেন। দেখেশুনে খেলতে থাকা হার্দিক অবশ্য দলকে জয়ের পথে রেখে যুজবেন্দ্র চাহালের শিকার হয়ে ফেরেন। তার ব্যাট থেকে আসে ৩০ বলে ৩৪ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস। এরপর বাকি পথ কোনো বিপদ হতে দেননি গিল ও ডেভিড মিলার। এর মধ্যে গিল ৪৩ বলে ৪৫* রানের ধৈর্যশীল ইনিংস খেলেন। অন্যদিকে মিলার আরও একবার বিধ্বংসী ব্যাটিং প্রদর্শনীতে 'ফিনিশারের' ভূমিকায় অবতীর্ণ হন। মাত্র ১৯ বলে ৩২ রান করে অপরাজিত থাকার পথে এই প্রোটিয়া বাঁহাতি ব্যাটার ৩টি চার ও ১টি ছক্কা হাঁকান।

বল হাতে রাজস্থানের প্রসিদ্ধ কৃষ্ণা, ট্রেন্ট বোল্ট এবং চাহাল ১টি করে উইকেট নেন। এর মধ্যে কিউই পেসার বোল্ট ৪ ওভারে খরচ করেন মাত্র ১৪ বল। কিন্তু বাকি বোলারদের অনিয়ন্ত্রিত বোলিং ও 'কিলার' মিলারের তাণ্ডবে হেরে যায় তারা।

এর আগে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে গুজরাটের বোলারদের সামনে হাঁসফাঁস অবস্থায় পড়েন রাজস্থানের ব্যাটাররা। বিশেষ করে গুজরাটের অধিনায়ক হার্দিকা পান্ডিয়া দুর্দান্ত বোলিং করেছেন। 

পান্ডিয়াবাহিনীর নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের কারণেই দেখেশুনে শুরু করে রাজস্থান। দুই ওপেনার যশস্বী জসওয়াল এবং জস বাটলার ধীরে ধীরে রানের গতি বাড়ানোর চেষ্টা করছিলেন। চতুর্থ ওভারের শেষ বলে যশস্বীকে (১৬ বলে ২২) ফেরান জশ দয়াল। এরপর নবম ওভারে গুজরাট অধিনায়ক হার্দিক পান্ডিয়ার শিকার হন রাজস্থান অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসন (১১ বলে ১৪)। দুর্দান্ত ফর্মে থাকা জস বাটলার ছিলেন সাবধানী। প্রথম ১০ ওভারে আসে তাদের রান মাত্র ৭১।

বাটলার তবু সুযোগ পেলে হাত খুলছিলেন, কিন্তু দেবদূত পাডিক্কাল রানই তুলতে পারছিলেন না। ১০ বলে ২ রান করে দেবদূত মোহাম্মদ শামির তালুবন্দি হন রশিদ খান। এরপর সবচেয়ে বড় উইকেটটি শিকার করেন হার্দিক। ৩৫ বলে পাঁচ বাউন্ডারিতে ৩৯ রান করা জস বাটলার ধরা পড়েন উইকেটকিপার ঋদ্ধিমান সাহার গ্লাভসে। ৭৯ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে রাজস্থান তখন দিশেহারা। বল হাতে আগুন ঝরাচ্ছিলেন হার্দিক। 

১২ বলে ১১ করা শিমরন হেটমায়ারকে কট অ্যান্ড বোল্ড করে রাজস্থানের বিপদ আরও বাড়িয়ে তোলেন হার্দিক পান্ডিয়া। এরপর রাজস্থানকে ৯৮ রানে রেখে ফেরেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। শেষদিকে রায়ান পরাগের ১৫ বলে ১৫* এবং ওবেদ ম্যাকয়ের ৫ বলে ৮ রানের ছোট ইনিংসে ভর করে মান বাঁচানো সংগ্রহ পায় রাজস্থান। 

বল হাতে হার্দিক পান্ডিয়া ৪ ওভারে মাত্র ১৭ রানে নেন ৩ উইকেট। সাই কিশোর নেন ২ উইকেট। আফগান লেগ স্পিনার রশিদ খান ৪ ওভারে মাত্র ১৮ রান খরচে নেন ১ উইকেট। এছাড়া ১টি করে উইকেট গেছে শামি, যশ দয়ালের ঝুলিতে। 

আইপিএলের ইতিহাসে মাত্র তৃতীয় অধিনায়ক হিসেবে ফাইনালের ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হয়েছেন হার্দিক পান্ডিয়া (৩৪ রান ও ১৭ রানে ৩ উইকেট)। এর আগে ২০০৯ সালে ডেকান চার্জার্সের বিপক্ষে  ১৬ রানে ৪ উইকেট নিয়ে ভারতের কিংবদন্তি স্পিনার অনিল কুম্বলে এবং ২০১৫ সালে চেন্নাই সুপার কিংসের বিপক্ষে ২৬ বলে ৫০ রান করে ভারতীয় ওপেনার রোহিত শর্মা ম্যাচ সেরা হয়েছিলেন।


আরও খবর



যুদ্ধের আগুনে ঘি ঢালছে নেটো আর সেই আঁচে পুড়ছে ইউক্রেন

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | ৩৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আমেরিকা-সহ পশ্চিমের দেশগুলোর পাঠানো অস্ত্র আর যা-ই হোক রাশিয়ার বিশেষ অভিযান থামাতে পারবে না। বরং যুদ্ধের আগুনে ঘি ঢালছে তারা। আর সেই আঁচে পুড়ছে ইউক্রেন। এমনই মন্তব্য করল মস্কো। তাদের দাবি, ইউক্রেনের পাঁচ ভাগের এক ভাগ এখন রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে। প্রতিপক্ষের উদ্দেশে ইউক্রেনের বার্তা, তারা ফের সেভেরোডনেৎস্ক শিল্পাঞ্চলের বেশ কিছু জায়গা, অন্তত ২০ শতাংশ জমি রুশদের হাত থেকে ছিনিয়ে নিয়েছে।

ডনবাস অঞ্চলে এখন অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি সেভেরোডনেৎস্কের। মারিয়ুপোলের মতো এটিও কৌশলগত ভাবে গুরুত্বপূর্ণ শহর। রাশিয়ার থেকে এটিকে বাঁচাতে প্রাণপণে লড়ছে ইউক্রেন। এবং একই রণকৌশলে মারিয়ুপোলের মতো এটিকেও গুঁড়িয়ে, মাটিতে মিশিয়ে দেওয়ার চেষ্টায় উঠেপড়ে লেগেছে রুশ বাহিনী।

দীর্ঘদিন ধরেই এই লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিয়েছিল মস্কো। একটু একটু করে গিলে ফেলছিল শহরটাকে। সম্প্রতি লুহানস্কের গভর্নর সেরি হাইডাই জানিয়েছিলেন, শহরের ৭০ শতাংশ রাশিয়ার হাতে চলে গিয়েছে। কিন্তু আজ তিনি জানিয়েছেন, প্রায় ২০ শতাংশ জমি রুশ দখলদারদের থেকে ছিনিয়ে নিয়েছে তারা। হাইডাই বলেন, আমাদের হাতে যত ক্ষণ পশ্চিমের পাঠানো দূরপাল্লার যুদ্ধাস্ত্র রয়েছে, তত ক্ষণ আমরা ওদের এগোতে দেব না। আমার বিশ্বাস, যা অস্ত্র রয়েছে, ওরা এক সময় পালাতে বাধ্য হবে।

পূর্ব ডনবাসের অন্যত্রও আকাশপথে রুশ হামলা বাড়ছে। একের পর এক সেতু উড়িয়ে দিচ্ছে তারা। কৃষ্ণসাগরে আজ ইউক্রেনীয় সেনাবাহিনীর একটি পণ্যবাহী বিমান গুলি করে নামিয়েছে রাশিয়া। ডনেৎস্কে আজ একটি গির্জায় গোলা বর্ষণ করে মুস্কোর বাহিনী। কাঠের তৈরি গির্জায় দ্রত আগুন ছড়িয়ে পড়ে। ইউক্রেনের অর্থোডক্স গির্জা কর্তৃপক্ষ বলেছেন, ধর্মস্থানের মূল গম্বুজটি পুরোপুরি ভস্মীভূত হয়ে গিয়েছে। এক ইউক্রেনীয় সেনাকর্তা ফেসবুকে আগুনের একটি ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, ফের এক জঘন্য অপরাধ। ওদের কাছে পবিত্র বলেও কিছু নেই।

কয়েকশো বছরে পুরনো ওই গির্জা গত শতকে কমিউনিস্ট-শাসনে বন্ধ পড়ে ছিল। ১৯৯২ সালে সোভিয়েত পতনের পরে এটি ফের খুলে দেওয়া হয়। এ দিনের ঘটনাতে রাশিয়া যথারীতি কিভের কাঁধেই দায় চাপিয়েছে।


আরও খবর



প্রেমের টানে প্রেমিক যুগলের নদীতে ঝাঁপ, শেষ মুহূর্তে ঘটল অভিনব ঘটনা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৯ জুন ২০২২ | ৬৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

প্রিয় মানুষটিকে না পেয়ে আত্মহননের পথ বেছে নেওয়ার ঘটনা বিরল নয়। এমনকি পরিবার বা সমাজের কারণে মনের মানুষের সঙ্গে ঘর বাঁধতে না পেরে একসঙ্গে প্রেমিক যুগলের আত্মঘাতী হওয়ার নজিরও আছে। এক্ষেত্রেও একসঙ্গে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে আত্মঘাতী হতে গিয়েছিলেন প্রেমিক যুগল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে ঘটে অভিনব ঘটনা।

ভারতের উত্তরপ্রদেশের প্রয়াজরাজ এলাকার ওই প্রেমিক যুগল একে অপরকে ভালোবাসলেও ঘর বেঁধেছিলেন আলাদা আলাদা মানুষের সঙ্গে। পরিবার ও সমাজের চাপে প্রিয় মানুষকে নিজের করে না পাওয়ায় একসঙ্গে আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নেন তারা।

আত্মহত্যার দিন-তারিখ-সময়ও ঠিক করে ফেলেন তারা। দুজনে হাজির হন যমুনা নদীর একটি ব্রিজের ওপর। বিরহের চেয়ে মরণও ভালোনীতিতে বিশ্বাস করে নদীতে ঝাঁপ দেন প্রেমিকা। কিন্তু ঝাঁপ দিয়েই বুঝতে পারেন প্রেমিক প্রতারণা করেছেন তার সঙ্গে; নদীতে ঝাঁপ না দিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন ব্রিজের ওপরেই।

ভাবছেন প্রেমিকা নদীতে ডুবে আক্ষরিক অর্থেই মৃত্যুকে বরণ করে নিয়েছেন। এখানেও আছে চমক। মোটেও পানিতে ডুবে মৃত্যুকে বরণ করে নেননি তিনি। বরং সাঁতরে দিব্যি পার হয়ে গেছেন নদী!

তবে চমকের এখানেই শেষ নয়। নদী পার হয়েই ক্ষান্ত হননি ৩২ বছর বয়সী প্রেমিকা।  ছয় বছর বয়সী এক মেয়ের মা ওই প্রেমিকা নদী পার হয়েই ধর্ণা দিয়েছেন পুলিশের কাছে।  রীতিমতো প্রতারণার অভিযোগে দুই বছরের ছোট প্রেমিকের বিরুদ্ধে এফআরআই দায়ের করেছেন তিনি।

পুলিশ জানায়, ওই নারী বর্তমানে হাসপাতাল চিকিৎসাধীন। অন্যদিকে প্রেমিকের বিরুদ্ধে খুনের চেষ্টা ও মোবাইল ফোন নষ্ট করার অভিযোগ দায়ের করেছে পুলিশ।

নিউজ ট্যাগ: নদীতে ঝাঁপ

আরও খবর