আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

১১ হাজার কর্মী ছাঁটাই করছে ফেসবুকের মালিকানা প্রতিষ্ঠান

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৯ নভেম্বর ২০২২ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের মালিকানা প্রতিষ্ঠান মেটা ১১ হাজারের বেশি কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘোষণা দিয়েছে। বুধবার কোম্পানিটির প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ এক ব্লগ পোস্টে এ দুঃসংবাদ দিয়েছেন।

মেটার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জাকারবার্গ এক ব্লগ পোস্টে বলেছেন, মেটার ইতিহাসে আমরা সবচেয়ে কঠিন কিছু পরিবর্তনের কথা আপনাদের জানাতে যাচ্ছি। আমাদের কর্মী ১৩ শতাংশ কমানোর পরিকল্পনা করেছি। আমাদের মেধাবী ১১ হাজারের বেশি কর্মীকে ছেড়ে দিতে হচ্ছে। এ বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মেটায় ৮৭ হাজারের বেশি কর্মী ছিলেন।

জাকারবার্গ আরও বলেন, আমরা প্রতিষ্ঠানটির কলেবর ছোট করতে ও আরও দক্ষ হিসেবে গড়ে তুলতে বাড়তি কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করছি। এর মধ্যে রয়েছে ব্যয় সংকোচন ও বছরের প্রথম প্রান্তিকে নতুন কর্মী নিয়োগ বন্ধ রাখার মতো নানা পদক্ষেপ।

মেটা বলেছে, ছাঁটাইকৃত কর্মীরা ১৬ সপ্তাহের মৌলিক বেতন এবং প্রতি বছর কাজের জন্য অতিরিক্ত দুই সপ্তাহের বেতন পাবেন। ছয় মাসের স্বাস্থ্যসেবার ব্যয়ও পাবেন কর্মীরা।

২০০৪ সালে ফেসবুক প্রতিষ্ঠার পর এটিই কোম্পানিটির বৃহত্তম কর্মী ছাঁটাই। ডিজিটাল বিজ্ঞাপন আয়ের পতন এবং ভার্চুয়াল রিয়েলিটি প্রকল্প মেটাভার্সে বিনিয়োগে আশানুরূপ সাড়া না পাওয়ার ফলে কোম্পানিটির আয় কমেছে উল্লেখযোগ্য মাত্রায়।


আরও খবর



মাগুরাকে রোল মডেল হিসেবে গড়ে তুলতে চান সাকিব আল হাসান

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

বিশ্ব নন্দিত ক্রিকেট অলরাউন্ডার মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য সাকিব আল হাসান স্থানীয় সরকারের মাগুরার জনপ্রতিনিধিদের সাথে সমন্বয় করে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে জেলার সবক্ষেত্রের উন্নয়ন এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আশা ব্যক্ত করেছেন।

সাকিব বলেন, মাগুরা আগে থেকেই ভাল আছে। তারপরও যে সমস্যাগুলো আছে সেগুলো চিহ্নিত করে আগামীতে এক সাথে সকলের সমন্বয়ে কাজ করবো। সেক্ষেত্রে তৃণমূল পর্যায়ের জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে পাঠিয়েছেন মাগুরার মানুষের সেবা করার জন্য। আমি সকলকে নিয়ে একসাথে কাজ করে প্রধানমন্ত্রীকে একটি সুন্দর মাগুরা উপহার দিতে চাই। যা দেশের মধ্যে একটি রোল মডেল হবে। সেজন্য সবাই আমাকে সহযোগিতা করবেন। আপনারা সকলে আমার পাশে থাকলে অবশ্যই আমি পারব। বিপিএল খেলার জন্য নির্বাচনের পরে একটু দেরিতে মাগুরায় এলাম। আশা করছি আগামিতে নিয়মিতভাবে যোগাযোগ হবে।

মাগুরা সদর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার (০১ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিজানুর রহমান, সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও রাঘবদাইড় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আশরাফুল আলম বাবুল ফকিরসহ ১৩টি ইউনিয়নের বেশ কয়েকজন চেয়ারম্যান।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




রাশিয়ার গোয়েন্দা বিমান ভূপাতিত করার দাবি ইউক্রেনের

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ইউক্রেনের সামরিক বাহিনীর দাবি, শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) চলতি মাসে দ্বিতীয়বারের মতো এ-৫০ নামের বিমানটিকে রাশিয়ার রোস্তভ-অন-ডন এবং ক্রাসনোদরের মধ্যবর্তী স্থানে ভূপাতিত করা হয়।

গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, জরুরি পরিষেবার কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিরা রাশিয়ার কানেভস্কয় শহরে ওই বিমানটির ভগ্নাংশ পরিষ্কার এবং বিস্ফোরিত যানটির আগুন নির্বাপিত করেছে বলে দাবি করেছে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী। তবে কিয়েভের বিবৃতিতে বলা হয়নি কিভাবে বিমানটি ধ্বংস করা হয়েছে।

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় তাৎক্ষণিকভাবে এ ব্যাপারে কোনও মন্তব্য করেনি।

এই ঘটনায় সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন ইউক্রেনের বিমান বাহিনীর প্রধান মাইকোলা ওলেশ্চুক। তিনি জানিয়েছেন, শুক্রবার ইউক্রেনের বিমান বাহিনী শত্রুদের একটি দূরপাল্লার রাডার শনাক্তকরণ বিমান এ-৫০ ভূপাতিত করা হয়েছে। কিয়েভের দাবি, রাশিয়ার গোয়েন্দা কাজে ব্যবহৃত হতো ভূপাতিত বিমানটি।

এর আগে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি আজভ সাগরে রাশিয়ার আরেকটি গোয়েন্দা বিমান ভূপাতিত করার দাবি করে ইউক্রেন।


আরও খবর



পরিবর্তন হতে পারে ঘুমধুম সীমান্তে এসএসসির পরীক্ষাকেন্দ্র

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ সংঘাত কেন্দ্র করে সীমান্ত পরিস্তিতি বিবেচনায় বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুমের একটি স্কুলে এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র পরিবর্তন করা হতে পারে। পরিবর্তন হলে পাশের আরেকটি স্কুলে কেন্দ্র স্থানান্তর করা হবে। সার্বিক পরিস্থিতি জানানো হয়েছে শিক্ষা বোর্ডকে। তারা এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে।

ঘুমধুম ইউনিয়নে সীমান্তঘেঁষা ঘুমধুম উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসির পরীক্ষার কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এবার এই কেন্দ্রে পরীক্ষার্থী ৫০২ জন। তাদের মধ্যে ঘুমধুম উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ১৫৯ জন। বাকিরা কক্সবাজারের বালুখালী ও কুতুপালংয়ের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের। সীমান্ত পরিস্থিত বিবেচনা করে ঘুমধুম উচ্চ বিদ্যালয় থেকে পরীক্ষা কেন্দ্র স্থানান্তর হতে পারে উত্তর ঘুমধুম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, পরীক্ষার্থীদের যাতে কোনো সমস্যা না হয় সেজন্য পদক্ষেপ নিচ্ছে স্থানীয় প্রশাসন। গতকাল (শনিবার) কেন্দ্রটি পরিদর্শন করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শান্তনু কুমার দাশ ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) উম্মে কুলসুম। তারা চিঠি দিয়ে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানাবেন।

ঘুমধুম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ খায়রুল বশর বলেন, পরীক্ষা যেহেতু নিতে হবে সেজন্য উত্তর ঘুমধুম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কেন্দ্র স্থাপনের জন্য বিকল্প হিসেবে বিবেচনা করছি। সেখানে কেন্দ্র হস্তান্তর করার জন্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা অধিদপ্তরের অনুমোদন প্রয়োজন। বিষয়টি তাদেরকে জানানো হয়েছে।

আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি বাংলা প্রথম পত্রের মধ্য দিয়ে শুরু হবে এবারের এসএসসি পরীক্ষা। শেষ হবে ১২ মার্চ। ২০২২ সালে এসএসসি পরীক্ষার সময়ও সীমান্তে সংঘর্ষ ছিল। সে সময় কেন্দ্রটি কক্সবাজার জেলার উখিয়া কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ে স্থানান্তর করা হয়েছিল।

নাইক্ষ্যংছড়ির ইউএনও শান্তনু কুমার দাশ বলেন, পরীক্ষাকেন্দ্রটি বাতিল কিংবা বিকল্প কেন্দ্র করা হয়নি। আগের পরীক্ষা কেন্দ্র বহাল আছে। সার্বিক পরিস্থিতি জানিয়ে শিক্ষা বোর্ডে চিঠি দিয়েছি। বোর্ড বিবেচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




২০২৩ সালে দেশে ৫১৩ শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সারা দেশে গত এক বছরে (২০২৩) স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের ৫১৩ জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন বলে তথ্য উঠে এসেছে। আত্মহননকারী এসব শিক্ষার্থীদের মধ্যে স্কুল ও সমমান পর্যায়ের ২২৭ জন, কলেজ পর্যায়ের ১৪০ জন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তত ৯৮ জন। শনিবার (২৭ জানুয়ারি) আঁচল ফাউন্ডেশন আয়োজিত ২০২৩ সালে শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যা: পদক্ষেপ নেওয়ার এখনই সময় শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

সম্মেলনে জানানো হয়, ২০২৩ সালজুড়ে শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার হার আগের বছরের কাছাকাছি। ২০২১ সালে শুধু বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার সংখ্যা ছিলো ১০১ জন। ২০২২ সালে দেশে আত্মহত্যাকারী স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছিল ৫৩২ জন। ২০২৩ সালে দেশের ১০৫টি জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকা এবং অনলাইন পোর্টাল থেকে শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার সংগ্রহকৃত এসব তথ্য অনুসারে, ২০২৩ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত ১২ মাসে ৫১৩ জন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং মাদ্রাসা শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন।

সম্মেলননে গত এক বছরের ডাটা সমন্বয়ের ফলাফল তুলে ধরেন আঁচল ফাউন্ডেশনের রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালাইসিস ইউনিটের টিম লিডার ফারজানা আক্তার লাবনী। তিনি বলেন, আঁচল ফাউন্ডেশনের একদল গবেষকের নিরলস পরিশ্রমের মাধ্যমে সংগ্রহকৃত তথ্য-উপাত্ত থেকে দেখা যায়, ২০২৩ সালে ৫১৩ জন শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন। এর মধ্যে স্কুলশিক্ষার্থী ২২৭ জন (৪৪.২ শতাংশ), কলেজ শিক্ষার্থী ১৪০ জন (২৭.২ শতাংশ), বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী ৯৮ জন (১৯.১ শতাংশ) এবং মাদ্রাসা শিক্ষার্থী ৪৮ জন (৯.৪ শতাংশ)।

আত্মহননকারী ৫১৩ জন শিক্ষার্থীর মাঝে পুরুষ ছিলো ২০৪ জন, যা ৩৯.৮ শতাংশ। অন্যদিকে নারী শিক্ষার্থী ছিলো ৩০৯ জন, যা ৬০.২ শতাংশ। ২০২২ সালে আত্মহত্যাকারী শিক্ষার্থী ছিল ৫৩২ জন। ২০২৩ সালে কিছুটা কমলেও ততটা আশানুরূপ নয় বলে এ সময় জানানো হয়।

লাবনী জানান, ২০২৩ সালে শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যার পেছনে সবচেয়ে বড় কারণ ছিল- অভিমান, যা সংখ্যায় ১৬৫ জন (৩২.২ শতাংশ)। এরপরেই প্রেমঘটিত কারণে আত্মহত্যা করে ১৪.৮ শতাংশ। মানসিক সমস্যায় জর্জরিত হয়ে আত্মহননের পথ বেছে নেন ৯.৯ শতাংশ শিক্ষার্থী, পারিবারিক কলহে ৬.২ শতাংশ, পারিবারিক নির্যাতনের শিকার হয়ে আত্মহত্যা করেন ১.৪ শতাংশ শিক্ষার্থী।

তিনি আরও বলেন, ২০২৩ সালে পড়াশোনার চাপের সম্মুখীন হয়ে আত্মহত্যার দিকে পা বাঁড়ান ৪.৫ শতাংশ শিক্ষার্থী। এছাড়া পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়ে ৩.৫ শতাংশ এবং পাবলিক পরীক্ষায় কাঙ্ক্ষিত ফলাফল অর্জনে ব্যর্থ হয়ে বেঁচে থাকার পথ রুদ্ধ করেন ১.৮ শতাংশ শিক্ষার্থী। যৌন হয়রানির শিকার হয়ে আত্মহত্যা করেন ২.৫ শতাংশ। অপমান বোধ করে ০.৮ শতাংশ আত্মহত্যা করেন।


আরও খবর



বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় বিমান হামলা

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

মিয়ানমারে চলছে উত্তেজনা। তীব্র আন্দোলনের মুখে পড়েছে জান্তা সরকার। একে একে হারাচ্ছে সেনাঘাঁটি ও শহর। বিদ্রোহীদের লাগাম টানতে নাজেহাল জান্তা প্রশাসন। এই উত্তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যে বাংলাদেশের সীমান্ত ঘেষা মিয়ানমারের অভ্যান্তরে বিমান হামলা চালিয়েছে জান্তা বাহিনী। শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) মিয়ানমারের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম নারিনজারার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার রাখাইন রাজ্যের মংডুর বাও ডি কনে সীমান্ত বাহিনীর চৌকিতে বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান আর্মির সেনারা হামলা চালায়। এরপর ওই অঞ্চলে তীব্র লড়াই শুরু হয়। একপর্যায়ে সেখানে বিমান হামলা চালায় মিয়ানমারের বিমানবাহিনী।

স্থানীয় এক বৌদ্ধ যাজক নারিনজারা নিউজকে বলেন, আমরা কামানের গোলা ও গুলির শব্দ শুনতে পেয়েছি। দুপুর পর্যন্ত তীব্র লড়াই হয়েছে। সেনারা অসংখ্য গুলি ছুড়েছে। সকালে একটি যুদ্ধবিমান থেকে দুটি বোমা ফেলা হয়েছে। এটির শব্দ আমার বাড়ি থেকেও শোনা গিয়েছে। স্থানীয় আরেক বাসিন্দাও বিমান হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

আরও পড়ুন>> ইসরাইলি হামলায় গাজায় নিহত বেড়ে প্রায় ২৯ হাজার

নারিনজারা নিউজ জানিয়েছে, মংডুর অনেক গ্রামের বাসিন্দারা বিদ্রোহী ও সেনাদের মধ্যকার লড়াইয়ের কারণে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

এর আগে গত ৭ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের আরেক সংবাদমাধ্যম ইরাবতীর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী এলাকায় মিয়ানমারের একটি সামরিক হেলিকপ্টার ভূপাতিত করেছে বিদ্রোহীরা।

আরাকান আর্মি (এএ) জানিয়েছে, চীন রাজ্যের পালেতোয়া শহরে সংঘর্ষের সময় হেলিকপ্টারটি ভূপাতিত করা হয়। বিদ্রোহী এ গোষ্ঠীটি এমন দাবি করার পর হেলিকপ্টারটির ছবিও প্রকাশ করেছে।

আরাকান আর্মির ‍মুখপাত্র খাইং তুখা ইরাবতীকে বলেন, আমরা পালেতোয়ায় যুদ্ধ চলাকালে একটি সামরিক হেলিকপ্টার গুলি করে ভূপাতিত করেছি। হেলিকপ্টারটি পিআই পর্বতমালায় জান্তার সামরিক ঘাঁটির কাছাকাছি গভীর বনে পড়েছে। কানখা পাহাড়ে গত ১৩ জানুয়ারি ঘাঁটিটি দখলের পর হেলিকপ্টারটির ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পেয়েছি।

সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, পালতোয়া শহরের উত্তরাঞ্চলের এ দুই পর্বতমালা বাংলাদেশ মিয়ানমারের সীমান্তবর্তী এলাকায় অবস্থিত। আরাকান আর্মি এ এলাকাটি দুই মাসের সংঘর্ষের পর জানুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে দখলে নেয়।


আরও খবর