আজঃ মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

অ্যান্টিগুয়া ও বারবুডার পতাকাবাহী বাণিজ্যিক জাহাজে ইয়েমেনি যোদ্ধাদের ক্ষেপণাস্ত্র হামলা

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ইয়েমেন উপকূলে শনিবার (৮ জুন) মধ্যরাতে অ্যান্টিগুয়া ও বারবুডার পতাকাবাহী একটি বাণিজ্যিক জাহাজে হামলা চালিয়েছে ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীরা। সমুদ্রে চলাচল করা বাণিজ্যিক জাহাজের নিরাপত্তা ফার্ম অ্যামব্রে এ তথ্য জানিয়েছে। খবর আরব নিউজ

জাহাজটি এডেন উপসাগর থেকে দক্ষিণপশ্চিম দিকে ৮.২ কেটিএস গতিতে যাওয়ার পথে এর ওপর ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়। এতে জাহাজটিতে আগুন ধরে যায়। তবে পরবর্তীতে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয় বলে এক বিবৃতিতে জানিয়েছে অ্যামব্রে।

জাহাজটিতে দ্বিতীয় ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালালে তা লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে ব্যর্থ হয়। একই সময় সমুদ্রে থাকা ছোট ছোট নৌকা থেকে জাহাজটিতে গুলিও ছোড়া হয়। ফলে এটি গতিপথ পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়। তবে এ ঘটনায় কেউ আহত হয়নি বলেও জানিয়েছে নিরাপত্তা ফার্ম অ্যামব্রে।

ব্রিটিশ রয়েল নৌবাহিনী পরিচালিত যুক্তরাজ্যের মেরিটাইম ট্রেড অপারেশন নামের প্রতিষ্ঠান জানিয়েছে, শনিবার মধ্যরাতে তারা একটি বাণিজ্যিক জাহাজে হুতি বিদ্রোহীদের দ্বারা হামলার খবর পেয়েছে। এ ঘটনায় তদন্তের কথা জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়া জাহাজটিকে সতর্কতার সঙ্গে ট্রানজিট নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীরা ইসরায়েলের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে এমন বাণিজ্যিক জাহাজে আবারও ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোন হামলা চালানোর ঘোষণা দেয়ার পরই এমন ঘটনা ঘটলো। গত বছরের নভেম্বর থেকেই ফিলিস্তিনিদের সমর্থনে হুতিরা লোহিত সাগরে চলাচল করা ইসরায়েলি সংশ্লিষ্টতা রয়েছে এমন বাণিজ্যিক জাহাজে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। এর ফলে অনেক বাণিজ্যিক জাহাজকে লোহিত সাগরের পরিবর্তে দক্ষিণ আফ্রিকার পথ ধরে যেতে হচ্ছে। বিশ্বে বাণিজ্যিক জাহাজ পরিবহনের ১২ শতাংশ এই লোহিত সাগর দিয়েই চলাচল করে।


আরও খবর



‘পাকিস্তানের দালালরা ভারতের কাছে দেশ বিক্রির কথা বলে’

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image
একটি দেশের মধ্য দিয়ে ট্রানজিট দিলে ক্ষতি কী? ইউরোপে তো কোনো বর্ডারই নাই। তারা কি একে অন্যের কাছে দেশ বিক্রি করে দিয়েছে? দক্ষিণ এশিয়ায় কেন বাধা দিয়ে রাখবো। মানুষ কি দরজা-জানালা বন্ধ রাখবে? এ কানেক্টিভিটির ফলে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার হবে। দেশের মানুষই লাভবান হবে।

যারা দেশ বিক্রির কথা বলে, তারাই ৭১ এ পাকিস্তানের দালালি করেছিল বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সাম্প্রতিক ভারত সফর নিয়ে মঙ্গলবার (২৫ জুন) বেলা ১১টার দিকে গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। মূলত, দেশের মধ্য দিয়ে ভারতের পণ্যবাহী নতুন রেললাইন তৈরির বিষয়ে ওঠা সমালোচনার জবাবে এ উক্তি করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটি দেশের মধ্য দিয়ে ট্রানজিট দিলে ক্ষতি কী? ইউরোপে তো কোনো বর্ডারই নাই। তারা কি একে অন্যের কাছে দেশ বিক্রি করে দিয়েছে? দক্ষিণ এশিয়ায় কেন বাধা দিয়ে রাখবো। মানুষ কি দরজা-জানালা বন্ধ রাখবে? এ কানেক্টিভিটির ফলে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার হবে। দেশের মানুষই লাভবান হবে।

তিনি বলেন, আমরা বাংলাদেশ ও ভারত এবং জনগণের কল্যাণের জন্য আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করার বিষয়ে সম্মত হয়েছি। আমরা পারস্পরিক সহযোগিতা ও সম্পৃক্ততার পথ এবং কার্যপন্থা নিয়ে আলোচনা করেছি।

সমালোচনাকারীদের উদেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা দেশ বিক্রির কথা বলে, তারাই আসলে ভারতের কাছে বিক্রি। জিয়া, এরশাদ, খালেদা জিয়া ওপরে ভারত বিরোধিতা করলেও ভারতে গিয়ে পা ধরে বসে ছিল। শেখ হাসিনা দেশ বিক্রি করে না, কারণ আমরাই এই দেশ স্বাধীন করেছি। যারা বিক্রির কথা বলে, তারাই ৭১ এ পাকিস্তানের দালালি করেছে।

তিনি বলেন, ২১ ও ২২ জুন আমি রাষ্ট্রীয় দ্বিপাক্ষিক সফর করেছি। একই মাসে সরকার প্রধান হিসেবে দুইবার দিল্লি সফর আমার জন্য এক অভূতপূর্ব ঘটনা। এসবই আমাদের দুই দেশের মধ্যে ঘনিষ্ঠভাবে একে অপরের সঙ্গে কাজ করার প্রমাণ বহন করে। বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক ক্রমাগত বিকশিত এবং দ্রুত অগ্রসর হচ্ছে।

শেখ হাসিনা বলেন, বৈঠকে আমরা অন্যান্য পারস্পরিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়ের মধ্যে রাজনীতি ও নিরাপত্তা, শান্তিপূর্ণ ও সুরক্ষিত সীমান্ত ব্যবস্থাপনা এবং সীমান্তে হতাহতের ঘটনা শূন্যে নামিয়ে আনা, বাণিজ্য ও সংযোগ, অভিন্ন নদীর টেকসই ব্যবস্থাপনা ও পানি বণ্টন, জ্বালানি ও শক্তি এবং আঞ্চলিক ও বহুপাক্ষিক সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা করেছি। আমি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে তার সুবিধাজনক সময়ে যত দ্রুত সম্ভব বাংলাদেশে দ্বিপাক্ষিক সফরে আসার আমন্ত্রণও জানিয়েছি।


আরও খবর



মেট্রোরেলে ভ্যাট কার্যকর হয়নি, ভাড়া আগের মতোই

প্রকাশিত:সোমবার ০১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০১ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

নতুন অর্থবছরের প্রথম দিন (১ জুলাই) থেকে মেট্রোরেলের ভাড়ার ওপর মূল্য সংযোজন কর (মূসক বা ভ্যাট) আরোপের কথা শোনা গিয়েছিল। এতে মেট্রোরেলের ভাড়া বাড়ত। কিন্তু, সোমবার (১ জুলাই) এ ভ্যাট কার্যকর হয়নি। ফলে, আগের ভাড়াতেই যাতায়াত করছেন যাত্রীরা।

মেট্রোরেলের টিকিটের ওপর ভ্যাট অব্যাহতির শেষ দিন ছিল রোববার (৩০ জুন)। সোমবার (১ জুলাই) সরকারের বিশেষ আদেশে অব্যাহতির সময়সীমা পার হওয়ায় ১৫ শতাংশ ভ্যাট কার্যকর হওয়ায় ছিল। তবে, এখন পর্যন্ত তা কার্যকর হয়নি।

সচিবালয় মেট্রো স্টেশনে দেখা গেছে, আগের ভাড়াতেই সবাই যাতায়াত করছেন। কিন্তু, এর সঙ্গে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) আরোপিত ভ্যাট যুক্ত হলে ভাড়া বাড়বে, এ আলোচনা অনেকের মুখে। আবার অনেকেই ভাড়া বাড়ার বিষয় সম্পর্কে অবগত নন।

সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, ভ্যাট বাড়লে ভাড়া কমবে। কিন্তু, ভাড়ায় যে টাকা কমবে, তার সঙ্গে এনবিআরের ভ্যাট যুক্ত করে আগের ভাড়াই কার্যকর থাকবে।

এনবিআরের পক্ষ থেকে ভ্যাট আরোপের যে প্রসঙ্গ আসছে, সেটি আজ থেকে কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। কবে নাগাদ কার্যকর হবে, সে বিষয়ে কর্তৃপক্ষ এখনো জানায়নি।

এর আগে, গত ৪ এপ্রিল ঢাকা ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডকে (ডিএমটিসিএল) চিঠি দিয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) জানিয়েছে, জুলাই থেকে মেট্রোরেলের সেবা ও টিকিটে মূসক পরিশোধ করতে হবে। এর পর ডিএমটিসিএলসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক সংগঠন মেট্রোরেলে ভ্যাট না বসানোর অনুরোধ করে।

এ বিষয়ে মেট্রোরেলের পরিচালনা সংস্থা ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমএএন সিদ্দিক বলেছেন, ভ্যাট না বসানোর জন্য আমরা মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠিয়েছি। মন্ত্রণালয় এনবিআরকে দিয়েছে। এখন আমরা এর (চিঠি) জবাবের অপেক্ষা করছি।

যাত্রীদের কথা চিন্তা করে ২০২২ সালের ২৮ ডিসেম্বর থেকে মেট্রোরেলের ভাড়ায় ভ্যাট অব্যাহতি দেয় এনবিআর। মেট্রোরেলের টিকিটের ওপর বর্তমানে ভ্যাট মওকুফ রয়েছে, যার সময়সীমা ছিল ৩০ জুন পর্যন্ত। এরপর ভ্যাট অব্যাহতির মেয়াদ বাড়াতে আবেদন করে ডিএমটিসিএল। তবে, আবেদন নাকচ করে এনবিআর।

ডিএমটিসিএলের চিঠির জবাবে এনবিআর জানায়, উন্নয়নের চাহিদা অনুযায়ী, রাজস্ব আয় বাড়াতে সব খাতেই করছাড় কমানো হচ্ছে। তাই, এ খাতে ভ্যাট অব্যাহতি বাড়ানো হবে না।


আরও খবর



কোটা পদ্ধতি বাতিলের দাবি

ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ জাবি শিক্ষার্থীদের

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

Image

ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) শিক্ষার্থীরা। ২০১৮ সালে ঘোষিত সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিল ও মেধাভিত্তিক নিয়োগের পরিপত্র বহাল রাখাসহ বিভিন্ন দাবিতে এই অবরোধ কর্মসূচী পালন করছেন তাঁরা।

আজ বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের (ডেইরি গেট) সামনে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় সড়কটিতে আটকা পড়ে অসংখ্য যানবাহন।

বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের ব্যানারে মহাসড়ক অবরোধ করছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এ সময় কোটা বাতিলের ২০১৮ সালের পরিপত্র বহালের দাবি জানান। পাশাপাশি সরকারি চাকরিতে মেধা ভিত্তিক নিয়োগের দাবিও জানান তাঁরা। অন্যথায় তাদের এই চলমান আন্দোলন আরেও কঠোরভাবে চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন শিক্ষার্থীরা।

তৌহিদ সিয়াম নামে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী সাংবাদিকদের বলেন, আগামীকাল ৪ জুলাই কোটা নিয়ে আপিল বিভাগের শুনানি হবে। ২০১৮ সালে ঘোষিত সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি বাতিল ও মেধাভিত্তিক নিয়োগের পরিপত্র বহালসহ চার দফা দাবিতে আমরা দুই ঘণ্টা ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করেছি। আমরা এ কোটা পদ্ধতি বাতিলের দাবি জানাচ্ছি।

এর আগে শিক্ষার্থীরা বিকেল ৩টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি সড়ক প্রদক্ষিণ করে প্রধান ফটকে এসে জড়ো হন। পরে প্রধান ফটক সংলগ্ন ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।


আরও খবর



বগুড়ায় বাস-কাভার্ডভ্যান সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪, আহত ৮

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জেলা প্রতিনিধি

Image

বগুড়ায় বনানীর লিচুতলায় ঢাকা-রংপুর মহাসড়কে বাসের সঙ্গে কাভার্ডভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালকসহ চারজন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন ৮ জন।

সোমবার (৮ জুলাই) দিবাগত রাত ৩টার দিকে বনানীর লিচুতলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- কাভার্ডভ্যানের চালক বরিশালের হিজলা গ্রামের হৃদয় (৩০), সিরাজগঞ্জের কাজীপুরের জামাল হোসেন (৩৫), শামীম হোসেন (৪০) ও অজ্ঞাত এক নারী।

কুন্দুরহাট হাইওয়ে থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্বাস আলী জানান, সোমবার রাত ৩টার দিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা নওগাঁগামী শাহ ফতেহ আলী পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা কাভার্ডভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই কার্ভার্ডভ্যানের চালক হৃদয় ও অজ্ঞাত এক নারীর মৃত্যু হয়।

তিনি আরও বলেন, পরে আহতের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথে শামীম ও জামাল নামে আরও দুজন মারা যান। নিহতদের মরদেহ শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। আর আহত ৮ জন হাসপাতালটির বিভিন্ন বিভাগে চিকিৎসাধীন আছেন।


আরও খবর



আদালতে যাওয়ায় শিক্ষার্থীদের আইনমন্ত্রীর সাধুবাদ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ জুলাই ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আইনি লড়াইয়ের সিদ্ধান্ত নিয়ে কোটাবিরোধী আন্দোলনকারীরা সঠিক পথে হাঁটছেন বলে মন্তব্য করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। এ জন্য তিনি তাদের সাধুবাদও জানিয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন আইনমন্ত্রী।

আনিসুল হক বলেন, সরকারের সিদ্ধান্তের ব্যাপারে এটা আর নাই। এটার, কোটা সংস্কারের ইস্যুটা এখন সর্বোচ্চ আদালতের কাছে আছে। সর্বোচ্চ আদালত সেখানে সিদ্ধান্ত নেবেন, সব পক্ষকে শুনে, আমি মনে করি সর্বোচ্চ আদালত সব দিক বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত দেবেন।

তাদের আন্দোলন তো চলছে। তাদের আন্দোলনে জনগণের হয়রানি হচ্ছে- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে আইনমন্ত্রী বলেন, আমি তো এখন শুনলাম তারা আপিল বিভাগে যে মামলা, সেই মামলায় পক্ষভুক্ত হতে দরখাস্ত করেছেন। এই পক্ষভুক্ত হওয়ার আবেদন, আমি যতদূর শুনেছি আগামীকাল (বুধবার) বোধ হয় তার শুনানি হবে। সেক্ষেত্রে আমি তো মনে করছি তারা সঠিক পথে হাঁটছেন।

তিনি বলেন, আমি যতদূর জেনেছি, যখন হাইকোর্ট বিভাগে এই মামলা চলে তখন আজকে যারা কোটাবিরোধী আন্দোলন করছেন তাদের বক্তব্য পেশ করার জন্য বা আদালতে উপস্থাপনের জন্য কোনো আইনজীবী নিয়োগ করেন নাই, তাদের বক্তব্য সেখানে দেন নাই। তারপর মামলার রায় হয়ে গেছে, মামলাটা এখন আপিল বিভাগে। সেখানেও কিন্তু গতকাল পর্যন্ত তাদের কোনো আইনজীবী ছিল না, তাদের বক্তব্য উপস্থাপনের জন্য।

আইনমন্ত্রী বলেন, আমি এই কথাটা বলছি এই কারণে যে ঘটনা ঘটেছে আদালতে, রাজপথে এখানে আন্দোলন করে বা চেঁচামেচি করে বা বকা-বাদ্য করে এটার কিন্তু নিরসন হবে না। এটা করলে যেটা হয়, একটা পর্যায়ে হয়তো আদালত অবমাননাও হয়ে যেতে পারে। সেই ক্ষেত্রে সঠিক জায়গা কোনটা? আমি গতকালকেও বলেছি, সঠিক জায়গা হচ্ছে তারা যদি পক্ষভুক্ত হয়ে তাদের বক্তব্য উপস্থাপন করেন তবে অবশ্যই আপিল বিভাগ সব পক্ষ শুনবেন। সব পক্ষ শুনে আপিল বিভাগ একটা ন্যায়বিচার করবেন, এটাই আমাদের আশা। আমার মনে হয় সেটাই হবে।

তিনি বলেন, তো সেই ক্ষেত্রে আমি আজকে দেখছি যে একটা ইতিবাচক পদক্ষেপ তারা নিয়েছেন। আমি তাদের সাধুবাদ জানাই এবং তারা তাদের বক্তব্য আদালতে দেবেন। আমি আশা করব, যেহেতু তারা আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাহলে আন্দোলন প্রত্যাহার করবেন।


আরও খবর
সেই মিল্টন সমাদ্দারের জামিন

সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪